আমাদের সমাজের তেলতেলে নেতা ।

Please log in or register to like posts.
News

বাংলাদেশে আজ তেলের দাম যত বেশি হক না কেন নিজ থেকে উপরের লেভেলের কাউকে তেল মারতে তাদের তেমন বেগ পেতে হয় না।হক সে পিয়ন পদে আছে , বা হক সে বাংলাদেশে রাজনীতির সাথে জড়িত আছে । বাংলাদেশী ব্যতীত অন্য কোনো দেশে এই রকম নিজের থেকে উপরের লেভেলের বসদের তেল দেয়ার সিস্টেম আছে কিনা তা আমার জানা নেই ।

আমাদের সমাজে একটা প্রচলিত কথা আছে , অন্যের জন্য গর্ত খুঁড়লে , নিজেকে সেই গর্তে পড়তে হয় । ঠিক আজ এই কথা টা আমাদের সামনে প্রমাণ করে দিলেন বরিশাল জেলার আইনজীবী সমিতির সভাপতি ওবায়েদ উল্লাহ সাজু । তিনি এক ধারে বরিশাল জেলার ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন তিনি । ইউএনও তারিক সালমানের বিরুদ্ধে সাজু সাহেব মামলা করেন , কারণ তারিক সালমান বঙ্গবন্ধু এর বিকৃত ছবি ২৬ মার্চ এর আমন্ত্রণ পত্রে ব্যবহার করেছেন । সব কিছুর একটা সীমা রেখা থাকে । কিন্তু আমাদের সাজু সাহেব মনে হয় তার সীমারেখা বুঝে উঠতে পারেন নি । যার কারণে তিনি তার নিজের তেলে পা পিছলে পরে গিয়েছেন ।

বাংলাদেশের অন্যতম ইউটিউববার ও বাংলাদেশীজম প্রজেক্ট এর সিইও নাহিদ সাহেব এই নিয়ে গত কাল বাংলাদেশীজম ইউটিউব চ্যানেলে একটি ভিডিও আপলোড দিয়েছেন । তিনি তার ভিডিওতে বলেছেন . তেলাতেলি আজ এমন এক পর্যায় চলে গিয়েছে যে , এখন বড় বড় মানুষের এমন ভাবে তেল ঢালে যে সে নিজেরা পা পিছলে পরে যায় । আসলে উনি ঠিক কথা বলেছেন । ওবায়েদ উল্লাহ কে আজ অতিরিক্ত তেল ঢালার কারণে দল থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে

ঘটনা ঘটেছিলো একটি বাচ্চা ছেলে বঙ্গবন্ধুর ছবি তার ভালোবাসার জায়গা থেকে এঁকে ছিল । সেই ছবিটি ইউএনও এর পছন্দ হবার কারণে তিনি আমন্ত্রণ কার্ডে ছবিটি ব্যবহার করেছিল । যা আমাদের সাজু সাহেবের নাকি পছন্দ হয়নি । অতিরিক্ত ভালোবাসা থেকে তিনি মামলা ঠুকে দেন সালমান এর নাম ।

ভিডিও তে আরো বলা হয়েছে , একটা মানুষ এর ব্যক্তিগত জীবনে সুখ , দুঃখ . হাসি , কান্না এই সব থাকবে । কখনো তাদের মধ্যে সমস্যা সৃষ্টি হবে , আবার কখনো তাদের মধ্যে পুনরায় ভালোবাসা সৃষ্টি হবে । আবার কেউ তাদের ঝামেলার কাৰণে এঁকে অপর থেকে সরে আসবে । এইটাই নিয়ম । আমরা হয়তো ভুলে গিয়েছি যারা সেলেব্রিটি তাদের ব্যক্তিগত জীবন আছে । এতক্ষণে পাঠক নিশ্চয় বুঝে গিয়েছেন নাহিদ সাহেব ভিডিও তে কাকে নিয়ে কথা বলেছে । হ্যাঁ আপনারা ঠিক ধরেছেন । তাসান মিথিলা ইস্যু নিয়ে কথা বলা হয়েছে । তাদের মধ্যে ব্যক্তিগত ঝামেলার কারণে তারা একে অপর থেকে দূরে থাকছেন , যখন দেখলেন দূরে থেকে সমস্যার সমাধান হচ্ছে না তখন তারা সিদ্ধান্ত নিলেন তারা তাদের সম্পর্ক বেশ করে দিবেন মানে ডিভোর্স করবেন । ফেসবুকে কতিপয় কিছু মানুষ এই বিষয়টাকে নিয়ে প্রচণ্ড পরিমাণে নাচানাচি শুরু করে দিয়েছেন । এমনকি তারা ফেসবুকে ইভেন্ট খুলেছে । ইভেন্ট এর নাম দিয়েছে ” তাসান মিথিলার ডিভোর্স আমরা মানি না ” । আরে ভাই আপনি কেন তাদের ব্যক্তিগত ব্যাপার নিয়ে টানা টানি করবেন ।
নাহিদ সাহেবের সাথে আমি একটা কথায় এক মোট পোষণ করছি , তিনি বলেছেন তাসান কেন তার ব্যক্তিগত ব্যাপার তার ব্যক্তিগত পেজে শেয়ার করছেন ।
আসলে ঠিক , আপনার নিজেদের ব্যাপার নিজেদের কাছে রাখলে হয়তো আমাদের এই রকম কিছু দেখতে হতো না ।

তিনি তার ভিডিও তে আরেকটি ব্যাপার তুলে ধরেছেন – আজ দুই দিন ধরে ফেসবুকে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে । একটি মেয়ে কেঁদে কেঁদে ভিডিও করছে , অবশ্য তার চোখে পানি নামের কোনো রাসায়নিক বস্তু দেখা যায়নি । মেয়েটি তার ভিডিও তে বলেছেন তার বাবা নাকি তার অপর অনেক অত্যাচার করে ।ক্লাস ফাইভ এ থাকতে তার দেহের বিভিন্ন জায়গায় হাত দিয়েছে । মেয়েটি এমন ভাবে কথা কে সাজিয়ে বলেছে যে কেউ তার কথা শুনে কনভেস হতে বাধা । কিন্তু কিছু অতিবাহিত না হতে নাটকের মোড় অন্য দিকে ঘুরে যায় । মেয়েটির ভাই আরেকটি ভিডিও করে । তার ভাই বলে এই মেয়েটি তার আপন বোন । আর কিছু দিন আগে সে বাসা থেকে পালিয়েছে । যখন বাসায় থাকতো তখন সারা দিন দরজা বন্ধ করে লাইট অফ করে থাকতো । এমনকি তার ভাই বলেছে , তার নাকি সন্দেহ হয়েছিল মেয়েটি ড্রাগ সেবন করে কিনা এই ব্যাপারে । এই ব্যাপার গুলো নাহিদ সাহেব তার ভিডিওতে খুব সুন্দর করে ফুটিয়ে তুলে সবার কাছে ।

আসলে আমাদের সমাজ আজ ভিন্ন ধারায় প্রবাহিত হচ্ছে । আমাদের কে আরো সচেতন হতে হবে । আমাদের কাজ কে আমাদের সীমার মধ্যে আনতে হবে । অন্যের ব্যক্তিগত ব্যাপার এ নাক কম গলাতে হবে । আর খুব সহজে বিশ্বাস না করে সময় নিয়ে যাচাই বাছাই করতে হবে । তাহলে সমাজ থেকে এই সব কীট একদিন লেজ গুটিয়ে পালাবে । আর আমরা যদি তাদের ভিডিও বা তাদের অন্যায় কে প্রশ্রয় দেই বা নীরব থাকে , তাহলে একদিন দেখবো ওই সব কীট গুলো আমাদের ঘাড়ে চেপে বসেছে ।

Reactions

0
0
0
0
0
0
Already reacted for this post.

Reactions

Nobody liked ?

One comment on “আমাদের সমাজের তেলতেলে নেতা ।

Leave a Reply