মিডিয়া-সিনেমা

ভালোবাসার ঊর্ধ্বে আর্টসেল !!

একটা গল্প বলি। একদল দস্যি ছেলের গল্প। একদল গান নিয়ে পাগলামি করা ছেলের গল্প। কোথায় থেকে এসে জয় করে নিয়েছে কোটি মানুষের মন। চিলে কোঠার সেপাই এর মত যেন মাতাল করে তোলে সবাইকে। ১৯৯৯ সালে বন্ধুদের সাথে মিউজিক নিয়ে পাগলামি করেই হয়তো লিংকন, এরশাদ রা একটু একটু করে গড়ে তোলে আজকের এই আর্টসেল। “আর্টসেল”, নাম টার মধ্যে কেমন জানি একটা শিহরণ কাজ করে। শরীরের মধ্যে এক অন্যরকম উন্মাদনা চলে আসে নামটি শুনলেই। ৯৯ এর দিকে যখন সেই ছেলেগুলো চিন্তা করে একটা ব্যান্ড গড়ে তুলবে। তখনই তারা কাজে লেগে যায়। টান ছিল হার্ড রক আর মেটাল গানের প্রতি। প্রথম দিকে তারা ইংরেজি গান গুলো কভার করে গাইতো। তাদের মূল অনুপ্রেরণা ছিল মেটালিকা, ড্রিম থিয়েটার, পিংক ফ্লয়েড ব্যান্ড গুলো। এই ব্যান্ড গুলোর বিভিন্ন গান তারা নিজেদের মত করে কভার করে গাইতো। প্রথম দিকেই ব্যান্ড প্রেমীদের মনে অনেকটা জায়গা করে নিয়েছিল আর্টসেল। এভাবে আস্তে আস্তে তারা দেশের বিভিন্ন জায়গাতে কনসার্ট করতে থাকে।

২০০২ সালে “অন্য সময়” নামে আর্টসেল তাদের প্রথম এলবাম বের করে। এলবাম টি এখনও শ্রোতাদের মনে একটা অন্যরকম সাড়া ফেলে। এলবামের গান গুলো লিখেছিল রুম্মান, লিংকন এবং সাজু এই তিনজনে মিলে। রক্তের সাথে মিশে গেছে সেই গানগুলো। গায়ের লোম দাঁড়িয়ে যায় এখনও যখন অন্য সময় শুনি। জীবনের মানে যেন সুরে সুরে বলে দেয় “আমার পথচলা, আমার পথে” । অবশ অনুভূতির দেয়াল জুড়ে একটাই কথা লেখা, “আর্টসেল”। অন্য সময় এলবামের মাধ্যমে ব্যাপক সাড়া ফেলার পর এই গানগুলো নিয়ে তারা আরও বেশি বেশি লাইভ কন্সার্ট করা শুরু করে। দিনে দিনে বাংলাদেশের তরুণ সমাজের রক্তে মিশে যায় আর্টসেল। কোন ভুল জন্ম নয়, শ্রোতাদের মনে ভালবাসা আর ভাললাগার জন্ম হয়েছিল সেদিন।

২০০৬ সালে তারা শ্রোতাদের উপহার দেয় তাদের ২য় এলবাম “অনিকেত প্রান্তর” । আগের জনপ্রিয়তা আরও বহু গুণে বেড়ে যায় আর্টসেলের। এই এলবামে আর্টসেল নিয়ে আসে ১৬ মিনিট ২২ সেকেন্ডের গান অনিকেত প্রান্তর। নোনা স্বপ্নে গড়া স্মৃতি সম্বলিত “ধূসর সময়”। আরও আছে লীন, তোমাকে এর মত গানগুলো। তবে এলবামের সবথকে বড় উপহার হচ্ছে অনিকেত প্রান্তর। গানটা লেখা রুম্মান আহমেদ এর। পুরা গানটা অসাধারণ কথা আর কম্পোজ দিয়ে সাজানো হয়েছে।

আর্টসেল তাদের ১৮ বছরের লম্বা রাস্তায় আমাদের দিয়ে গেছে মাত্র ২ টি এলবাম। কিন্তু এই দুইটা এলবাম এর গান বাংলা ব্যান্ড এর গানকে যে পর্যায়ে নিয়ে গেছে তা ভোলার মত নয়। আর্টসেলের গান মানেই যেন প্রতিবাদের ভাষা। আর্টসেলের গান মানেই লিরিক্সের গভীর সমুদ্র। বাংলা হার্ড রক আর মেটাল গানে আর্টসেলের অনেক বেশি অবদান আছে এটা স্বীকার করা ছাড়া কোন উপায় নেই। অসাধারণ গানের কথা আর কম্পোজিশনের মিশ্রণে এক অন্য ধাঁচের গান তারা পরিবেশন করেছে। তবু এই দেয়ালের শরীরে যত ছেড়া রঙ ধুয়ে যাওয়া মানুষ, পেশাদার প্রতি হিংসা তোমার চেতনার যত উদ্ভাসিত আলোড়ন। নোনা স্বপ্নে গড়া তোমার স্মৃতি, শত রঙ্গে রাঙ্গিয়ে মিথ্যে কোন স্পন্দন। অজানা যে আকাশে ওড়ে, অদেখা কোন স্বর্গ আমার। এই ধরনের লেখাগুলো গভীর অর্থ আর চেতনা নিয়ে লেখা । প্রত্যেকটা গানের মধ্যে আছে প্রতিবাদের ভাষা। গানের প্রতিটা লাইনের মধ্যে আছে জেগে ওঠার আহ্বান। এখনও লিংকন ভাই যখন গীটার হাতে নিয়ে হুংকার দিয়ে ওঠেন আমরা কেও আর বসে থাকতে পারি না। এরশাদ ভাই এর সেই গীটারের যাদুকরী লিড। আর কি লাগে। এক আর্টসেল থাকতে আমার কিছু লাগবে না। ভালবেসেছি গান, আর ভালবেসেছি আর্টসেল। আমি খুব অবাক হই যখন কেও বলে সে দুঃখ বিলাস শোনেনি। আরও অবাক হই যখন কেও বলে আর্টসেল কি ? আমি তাকে বলি আর্টসেল মানে ব্লাড সেল। আমার রক্তের সাথে মিশে আছে যারা।

আর্টসেল ব্যান্ড টা ১৯৯৯ সালে ঢাকা তে শুরু হয় লিংকন, এরশাদ, সেজান ও সাজুর হাত ধরে। ব্যান্ডের বেশিরভাগ লিরিক্সই লিখতো রুপক এবং রুম্মান। সাজু ড্রামসে, সেজান বেজ আর ব্যাক ভোকালে, এরশাদ লিড গীটারে, আর ভোকাল আর গীটারে ছিল লিংকন। এই ফরমেশন দিয়ে তারা দুইটা অসাধারণ কম্পোজিশনের এলবাম আমাদের উপহার দিয়েছে। সব গানগুলোই ব্যান্ডের সবাই মিলেই কম্পোজিশন করে।1.jpg

প্রথম এলবামঃ অন্য সময়

গানঃ

১. অন্য সময়

২. ভুল জন্ম

৩. পথ চলা

৪. রূপক

৫. মুখোশ

৬. ইতিহাস

৭. কৃত্রিম মানুষ

৮. অবশ অনুভূতির দেয়াল

৯. রাহুর গ্রাস

১০. অলস সময়ের পাড়ে

 

২য় এলবামঃ অনিকেত প্রান্তর

গানঃ

১. লীন

২. স্মৃতিস্মারক

৩. ধূসর সময়

৪. পাথর বাগান

৫. শহীদ সরণি

৬. ছায়া নিনাদ

৭. ঘুণে খাওয়া রোদ

৮. তোমাকে

৯. গন্তব্যহীন

১০. অনিকেত প্রান্তর

 

২০০৬ সালের পর লম্বা বিরতি শেষে শ্রোতাদের অধির অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে ২০১৬ সালে আর্টসেল তাদের ৩য় এলবাম রিলিজ করতে যায়। পরে ব্যান্ডের অভ্যন্তরে কিছু ঝামেলার কারণে তারা তাদের এলবাম রিলিজ আটকে দেয়। কোটি ভক্তের আশার অবসান ঘটিয়েও যেন তাদের আশার আলো নিভিয়ে দেওয়া হলো। ধারণা করা যায় ব্যান্ড টা আর আগের মত নেই। পরে কয়েকটা কনসার্টে লিংকন এর সাথে সম্পূর্ণ নতুন মেম্বার দের দেখা গেছে। আমরা সবাই অনেক হতাশ। ভালবাসার ব্যান্ড টাকে এই অবস্থাতে দেখবো ভাবিনি।

তবুও আর্টসেল বেঁচে থাকবে ভালবাসায়।

বেঁচে থাকবে ১৬ মিনিট ২২ সেকেন্ডে।

একই রকম আরো কিছু ফুটপ্রিন্ট

মৃত্যুবার্ষীকি তে পপ সম্রাট আজম খান কে বিনম্র শ্রদ্ধা

Ahmmed Abir

ঢালিউডের স্টাইল আইকনের গল্প

Musfiqur Rahman

ঢাকা অ্যাটাকের বিশ্বজয় ভ্রমণ কাহিনী

Md Rafiqul Islam

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

Privacy & Cookies Policy