Now Reading
২০১৭ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনাল নিশ্চিত বাংলাদেশের: কে হবে প্রতিপক্ষ?



২০১৭ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনাল নিশ্চিত বাংলাদেশের: কে হবে প্রতিপক্ষ?

শুরু টা হয়েছিল ৩১ মার্চ, ১৯৮৬, পূর্ণশক্তিধর কোন ক্রিকেট টিমের বিপক্ষে হাটা শুরু হয় শক্তিতে  ছোট্ট টাইগারদের। মুখোমুখি পাকিস্থান। দিনটি নিয়ে হয়তো কোন টিমের মাথা বেথা না থাকলেও, এখন যেকোন শক্তিশালী টিমের ভয়ের কারন। ২০০০ সালে “আইসিসি” এর সদস্য হবার পর থেকে ১৩ নভেম্বরে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ভারতের মুখ মুখি হওয়া থেকে ১লা জুন ২০১৭, দ্যা ওভালে আয়োজক ইংল্যান্ড এর মুখোমুখি হয়ে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ২০১৭ এর যাত্রা শুরু করার পথ টা অনেক সল্প সময়ের হলেও অর্জন ২০১৭ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনাল।  

2.jpg

“আগে যে কাঙ্গাল বেসামাল বাংলাদেশ ছিল, ও রাতারাতি মালামাল হয়ে গেল”- নোভোজিত সাধু (ভারত)। হা সত্যি তবে জবাব টা মাঠের হিসাব বলছে। আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ২০১৭ এর দ্বিতীয় দল হিসাবে ইতিহাসে প্রথম বার বাংলাদেশ আইসিসি এর কোন ইভেন্টের সেমিফাইনালে। যেখানে গ্রুপ পর্বের খেলা তে ২ ম্যাচের একটা তে শ্রীলঙ্কার কাছে হেরে ভারত এখন সেমিফাইনাল এর পথে অনিশ্চিত। যেখানে যেতে হলে সেই দ্যা গ্রেট ওভালে মুখোমুখি হতে হবে এক ম্যাচ জিতে থাকা পরাক্রমশালী দক্ষিন আফ্রিকার। লড়াই টা সহজ হবে না হয়তো ভারতের জন্য।

গ্রুপ “বি” এর হিসাব টা এখন পুরোপুরি নির্ভর করছে ১১ এবং ১২ জুন ২০১৭ এর ম্যাচ দুইটার উপর। প্রথম টাতে মুখোমুখি ভারত আর দক্ষিন আফ্রিকা। ওভালের ওই ম্যাচটা নির্ধারণ করবে কোন দলের ভাগ্যে লেখা হবে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনালের টিকিট।

নিজেদের প্রথম ম্যাচে শক্তিশালী এবং চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্থানের মুখোমুখি হয় ভারত। বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচটার ফলাফল ভারত ১২৪ রানে জয়ী। অন্য দিকে ওভালে গ্রুপ বি এর প্রথম ম্যাচে দক্ষিন আফ্রিকার মুখোমুখি হয় শ্রীলঙ্কা।  হাশিম আম্লার ব্যাটিং নৈপুণ্য এবং ইমরান তাহিরের বোলিং এর উপর ভিত্তি করে সহজে ৯৯ রানের বিসাল জয় তুলে নেই দক্ষিন আফ্রিকা। তারপর থেকেই কেমন যেন এলোমেলো হয়ে যায় হিসাব টা। নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে দক্ষিন আফ্রিকাকে যেন আমলে নিলোই না পাকিস্থান যাদের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি খেলতে আসাটা ছিল অনেকটা অনিশ্চিত। অসাধারন বোলিঙে দক্ষিন আফ্রিকা কে থামতে হয় ২১৯ রানে। তবে বৃষ্টি হামলার কারনে পাকিস্থান ২৭ অভারে ১১৯ রান করে “ডি এল এস” পদ্ধতিতে ১৯ রানের জয় পায়। অন্য দিকে শ্রীলঙ্কার দায়িত্বশীল ব্যাটিং এর উপর ভর করে কোন মতেই টিক তে পারে না চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ২০১৭ খেলতে আসা হট ফেভারিট ভারত। ফলাফল শ্রীলঙ্কা ৭ উইকেটে জয়ী। ৪ ম্যাচ, ৪ টিম, জিতল সবাই ১ টা করে!

7621.JPG

অন্য দিকে গ্রুপ এ এর নিজেদের ৩ টা ম্যাচের ৩ টা তেই জয়ী ইংল্যান্ড। প্রথমে বাংলাদেশ, পরে নিউজিল্যান্ড, এবং গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে নিজেদের এবং আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ২০১৭ ইভেন্টের প্রথম দল হিসাবে নিজেদের কে তুলে ধরল ইংল্যান্ড। কিন্তু নিউজিল্যান্ড এবং অস্ত্রেলিয়ার দ্বিতীয় ম্যাচ থেকে বাধে বিপত্তি….. নিজেদের প্রথম ম্যাচে কিউইরা নিশ্চয় চেয়েছিল নিজেদের শক্তির প্রমান দিতে। ২৯১ রানের লক্ষে খেলতে নেমে ৫৩ রানেই ৩ উইকেট হারায় অজিরা। ভাগ্য ভাল কি খারাপ কে জানত? খেলা বৃষ্টি ভাসিয়ে দিল সাথে দুই দল ১ করে পয়েন্ট নিয়ে খুশি থাকল। নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে কিউইরা সামনাসামনি হল ইংল্যান্ড এর। ফলাফল ইংল্যান্ড ৮৭ রানে জয়ী। কিউইদের সেমি ফাইনালের আশা অনেকটাই ফিকে হয়ে গেল। বাকি থাকল বাংলাদেশ আর অস্ত্রেলিয়ার লড়াই। অজিদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচটা । দরকার জয়ের। কিন্তু বাধা বৃষ্টির। অবশ্য এটি হয়তো হবার ছিল। ওভালের ম্যাচটাতে বল হাতে নাস্তানাবুত করে ফেলে অজি বোলাররা মিস হয়ে যায় তামিমের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। রেকর্ড হয়ত হল না কিন্তু বৃষ্টি উপহার দিল ১ টি পয়েন্ট। অবস্থান ইংল্যান্ডের পয়েন্ট ৪, নিউজিল্যান্ডের ১, অস্ট্রেলিয়ার ২ আর বাংলাদেশের ১। খেলেছে ২ টা করে ম্যাচ ৪ টা দলই। বাকি আছে একটা করে ম্যাচ। জিত চাই সবারই।

জুন ০৯, ২০১৭ মুখোমুখি বাংলাদেশ এবং নিউজিল্যান্ড। তবে হিসাব টা আর ও আগের ২৪ মে ২০১৭, তারিখ টা হয়তো স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য। বিদেশের মাটিতে প্রথমবারের জন্য বাংলাদেশ হারায় নিউজিল্যান্ডকে। নিজেদের সেমিফাইনালে তোলার এবং প্রতিশোধ টা নেবার সুযোগ কিউইদের সামনে। কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেনে নিজেদের শেষ ম্যাচে টসে জিতে হয়তো ভুল করে ফেলেছিলেন কেন উইলিয়ামসন। ব্যাট হাতে নিজেদের প্রমানও করেছিলেন কিউইরা। ২৬৫ রানের এক বিশাল লক্ষ বেঁধে দেওয়া হয় বাংলাদেশের সামনে। বাংলাদেশ যে সেমিফাইনালের স্বপ্ন দেখতে পারে এমন টা কে ভেবেছিল আগে?? কিন্তু ১৬ কোটি বাংলাদেশির সাথে হয়তো পৃথিবীর লাখো সমর্থক দের স্বপ্ন পুরনের নিজেদের গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে ব্যাট হাতে নেমেই ধাক্কা টা খায় বাংলাদেশ। ১১ ওভারের ৪ বলেই ব্যাট হাতে ফিরে যেতে হয় ৪ জনকে। দারুন ফর্মে থাকা তামিম ইকবাল দ্বিতীয় বলেই ফিরে যান। তার পর সাব্বির, সৌম্য আর মুশফিকও ধরেন সেই রাস্তা। স্বপ্ন টা ভেঙ্গে যাবার সঙ্কায় চোখে জল আশে নাই কার?

কিন্তু পথ তখনো অনেক বাকি। সাকিব আর মাহামুদুল্লাহ তখন ক্রিজে। আশার গাছ টাতে জল দেওয়া শুরু করলেন। নিজেদের সামলে দায়িত্ব টা তারা ভালই নিয়েছিলেন। করলেন রেকর্ড পার্টনারশিপ বাংলাদেশের জন্য। সাথে তুলে নিলেন নিজেদের শতক। তাইগার ফ্যানরা যেন তখন পাগল। আনন্দে। আনন্দ কেনই বা না! পুর ম্যাচে হাশ্তে থাকা নিউজিল্যান্ড কে ৫ উইকেটে হারিয়ে বাংলাদেশ সেমিফাইনালের যোগ্য অংশীদার। অবশ্য সামনে অস্ট্রেলিয়ার একটা মেচ ছিল। তাই আনন্দটাকে বুকে চেপে ধরেই চোখ রাখতে হল পরের দিনের ম্যাচটাতে। বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়া বা হার কোন একটার কাম্য। প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ড।

3.jpg

কিন্তু গ্রুপ এ এর শেষ ম্যাচে অস্ত্রেলিয়াকে যেন পাত্তাই দিল না ইংল্যান্ড।  অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিং বোলিং দুই ডিপার্টমেন্টে হামলা মরগানদের। শিরোপা প্রত্যাশী ইংল্যান্ড অবশ্যই চেয়েছিলেন বিনা হারেই সেমিতে যেতে। আর হলও তাই। যদিও বৃষ্টি এসে কিছুটা ব্যাঘাত ঘটিয়েছিল। কিন্তু ম্যাচের ভাগ্য লেখা হয়তো তার আগেই হয়েছিল। ডি এল এস পদ্ধতিতে ৪০ রানের বেবধানে হার অস্ট্রেলিয়ার। টাইগার সমর্থকরা আনন্দ আর কেন চেপে রাখবে???

বাংলাদেশ সেমিফাইনালে।

স্বপ্নের সেমিফাইনাল।

এখন শুধু প্রতিপক্ষ বাছার পালা।

ভারত?

শ্রীলঙ্কা?

পাকিস্থান?

দক্ষিন আফ্রিকা?

About The Author
Engr. Mohammad Nizamuddin
Engr. Mohammad Nizamuddin
I'm a creative and proactive content writer with a profound ability to stay up-to-date with modern industry trends and great familiarity with content management systems.

You must log in to post a comment