Now Reading
স্বপ্নের সেমিফাইনালে বাংলাদেশের মুখোমুখি ভারত: কে যাবে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ২০১৭ এর ফাইনালে?



স্বপ্নের সেমিফাইনালে বাংলাদেশের মুখোমুখি ভারত: কে যাবে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ২০১৭ এর ফাইনালে?

আইসিসি এর সদস্য হবার পর প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশ প্রথমবারের মত মুখোমুখি হয় ভারতের। ফলাফল টা ভারতের পক্ষেই। ক্রিকেট জগতে ভারত নামক পরাশক্তির কাছে তখন বাংলাদেশ সবে জন্ম নেওয়া শিশু। হার জিত খেলাতে থাকবেই। আজকের জন্ম নেওয়া শিশু টাও হতে পারে কালকের ভবিষ্যৎ কুস্তি চ্যাম্পিয়ন। না আমরা কুস্তি তে চ্যাম্পিয়ন হতে হয়তোবা ভারতের সাথে লড়াই তে যাচ্ছি না, তবে সময় এখন আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির। আর বাতাস বলছে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির দ্বিতীয় সেমিফাইনালে মুখ মুখি ভারত ও বাংলাদেশ। এডবাস্টোনের জুন ১৫, ২০১৭ এর ম্যাচটি বলে দিবে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে যাবার সৌভাগ্য জুটবে কার কপালে।  

unnamed.jpg

আন্তর্জাতিক একদিনের ম্যাচে বাংলাদেশ এখন একটি পূর্ণাঙ্গ শক্তির একটি দল। একথা ক্রিকেট দুনিয়া এককথায় স্বীকার করে নিবে। আইসিসি ওয়ার্ল্ডকাপের পর থেকে বাংলাদেশের ধারাবাহিক পারফরমেন্স অন্তত সেটাই বলে। ওয়ার্ল্ডকাপের পর থেকে একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচে প্রথমে পাকিস্থানের সাথে সিরিজ জয়, তারপর ভারতের সাথে এবং সব শেষে দক্ষিন আফ্রিকার সাথে সিরিজ জয় গুলো টাইগার দের উত্থানের একটা জোরালো হুঙ্কার দিচ্ছিল। তারপর একে একে জিম্বাবুয়ে এবং আফগানিস্থানের সাথে আরও দুইটি সিরিজ জয় বাংলাদেশ কে পর পর পাঁচটি সিরিজ জয়ের স্বর্গীয় স্বাদ এনে দেয়। এর পর শ্রীলঙ্কার মাটিতে অনুষ্ঠিত ৩ টি একদিনের ম্যাচ সিরিজ ড্র করার পর বাংলাদেশ নিঃসন্দেহে ক্রিকেটের যে কোন কাছেই মাথা বেথার কারন হয়ে গেছে। আয়ারল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড এবং বাংলাদেশের মধ্যে অনুষ্ঠিত ত্রি দেশিয় সিরিজে নিউজিল্যান্ড এবং আয়ারল্যান্ডের কাছ থেকে পাওয়া সহজ জয় দুইটা বাংলাদেশকে ওডিআই রাঙ্কিঙ্গে বাংলাদেশ কে প্রথমবারের মত ছয়ে এনে দেওয়ার সাথে সাথে আসন্ন চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি খেলার এক দারুন আত্মবিশ্বাস এনে দেয়। আর তার ফলাফল হিসাবে সমস্ত ক্রিকেট প্রেমিদেরকে অবাক করে দিয়ে বাংলাদেশ আইসিসি এর প্রথম কোন ইভেন্টে সেমিফাইনালে।

6.jpg

আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ২০১৭ এর সপ্তম দল হিসাবে সুযোগ পাওয়া বাংলাদেশ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি খেলল ১২ বছর পর। সেমিফাইনালের যাত্রা টা একেবারেই সহজ ছিল না টাইগারদের জন্য। মুখোমুখি হতে হয়েছে ক্রিকেটের নামি দামি সব পরাশক্তির। বাংলাদেশ জবাব ও দিয়েছে খুব শক্ত ভাবেই। বিগত ১২ বছরের কঠোর পরিশ্রমের দরুন বিধাতা হয়তো একটু  দয়াময় ছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের উপর। ইংল্যান্ডের সাথে প্রথম ম্যাচে হেরে একটু ব্যাকফুটে চলে যায় বাংলাদেশ। অস্ট্রেলিয়ার সাথে ম্যাচ টাতে সহায় হয় বৃষ্টি। পয়েন্ট ভাগাভাগি। অস্ত্রেলিয়া তাদের প্রথম ম্যাচেও বৃষ্টির কারনে নিউজিল্যান্ডের সাথে নিজেদের পয়েন্ট ভাগাভাগি করে নেয়। কিন্তু বাংলাদেশ তাদের গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে খুব নিপুন ভাবে নিউজিল্যান্ড কে তাদের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির যাত্রা থামাতে সক্ষম হয়। তাকিয়ে থাকতে হয় অস্ট্রেলিয়া আর ইংল্যান্ডের মধ্যকার ম্যাচের উপর। কিন্তু ভাগ্য যে প্রসন্ন। অস্ট্রেলিয়া ইংল্যান্ডের কাছে হেরে বিদায় নিলে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনালের দ্বিতীয় দল হিসাবে বাংলাদেশ নাম লেখায়।

IMG-20170601-WA0025.jpg

অন্য দিকে গ্রুপ বি এর নানা সমীকরণের মধ্য দিয়ে প্রথম সেমিফাইনালিস্ট বর্তমান চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির চ্যাম্পিয়ন্স ভারত। এজন্য নিয়ম অনুযায়ী ১৫ তারিখে বাংলাদেশের মুখোমুখি হচ্ছে ভারত। উদ্দেশ্য চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনাল। লড়াই টা দুইদলের জন্নই হাড্ডাহাড্ডি হতে যাচ্ছে। ক্রিকেট উন্মাদনার অন্যতম কেন্দ্রবিন্দু ভারত পাকিস্থানের ম্যাচ এর উন্মাদনা কমে আসার কারনে বর্তমান দিনে ভারত বাংলাদেশ ম্যাচ কে ঘিরে জন্ম নিচ্ছে হাজার ও পরিকল্পনা। বিগত ২-৩ বছর ধরে প্রেক্ষাপট অন্তত সেটাই বলছে। এ পর্যন্ত বাংলাদেশ ভারত একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে মোট ৩৩ বার। যাহার সারমর্ম অবশ্যই বাংলাদেশের জন্য সুখকর না হলেও শেষ ৫ টি আন্তর্জাতিক ম্যাচে নিজেদের মধ্যে লড়াইয়ে ভারত বাংলাদেশের উভয়ের জয়ের সংখ্যা ২ টি করে। অন্যটির ফলাফল ভাগাভাগি। টাই সম্ভাবনার একটা দিক থেকেই যায় বাংলাদেশের জন্য। ২০০৭ সালের বিশ্বকাপের মত এবার ও কি বাংলাদেশ ভারত কে হারিয়ে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় জানিয়ে দিবে? রচিত হবে কি ইতিহাস? দৃষ্টি ১৫ তারিখের ম্যাচে।

Semi-Final-2.jpg

টুর্নামেন্ট শুরুর আগে ওয়ার্ম আপ ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল দুই ফাইনালিস্ট। ভারত ব্যাটিং শক্তিকে একটু ঝালিয়ে নিতে এক পাহাড় সমান টার্গেট দেয় বাংলাদেশ কে। অধিনায়ক মাশরাফির অনুপস্থিতে সাকিব যেন আটকে রাখতেই পারছিলেন না ভারত কে। ব্যাটিং ফিল্ডিং এ অনবাদ্য পারফর্মেন্স এর সাথে ভয়ানক বোলিং। উমেশ যাদবের শুরুতে কথায় যেন বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইন আপ ধসে পড়ে শেষ হই ৮৪ রানেই।

২০১৫ বিশ্বকাপের কথা হয়তো মনে থাকবে বাংলাদেশি ক্রিকেট সমর্থকদের। আম্পায়ারের ভুল সিদ্ধান্তে সেদিন ও কোটি বাঙ্গালির স্বপ্ন ভেংগেছিল। কলঙ্কিত ম্যাচটি লজ্জায় ফেলে দিয়েছিল পুর ক্রিকেট বিশ্বকে। কোয়াটার ফাইনাল থেকে বিদায় নিতে হয় বাংলাদেশ কে। তারপর টি টুয়েন্টি ওয়ার্ল্ড কাপের ৩ বলে দুই করতে না পারার আক্ষেপ। ভারতীয় ক্রিকেট সমর্থকদের উল্লাসের আরালে অনেকটা ঢাকা পড়ে যায় ভারত ক্রিকেট টিমের বাংলাদেশে এসে বাংলাদেশের বিপক্ষের ভরাদুবির কথা। দুইটা ম্যাচের জবাব দেবার সময় এসেছে আজ।  আর সাথে থাকছে ওয়ার্ম আপের ৮৪ রানের লজ্জা।

তামিম, সৌম্য, সাকিব মাহামুদুল্লাহরা কি পারবে ব্যাট হাতে ১৫ তারিখের ম্যাচটাতে জলে উঠতে?

মাশরাফি, মোস্তাফিজের বোলিং জাদুর সাক্ষি কি থাকবে ক্রিকেট দুনিয়া?

প্রতিশোধ নিতে পারবে কি বাংলাদেশ?

About The Author
Engr. Mohammad Nizamuddin
Engr. Mohammad Nizamuddin
I'm a creative and proactive content writer with a profound ability to stay up-to-date with modern industry trends and great familiarity with content management systems.

You must log in to post a comment