Now Reading
হারজিৎ চিরদিন থাকবে, তবুও সামনে এগিয়ে যেতে হবে



হারজিৎ চিরদিন থাকবে, তবুও সামনে এগিয়ে যেতে হবে

চোখের কোণা থেকে পানি টা গড়িয়ে পড়ল। অনেক চেষ্টা করেও আটকাতে পারলাম না। আর আটকাতে চেয়েও বা কি হবে? কিছু পানি ঝরতে দেওয়া ভালো। তাতে যদি ভিতরের ক্ষত টা একটু কমে। যন্ত্রণা টা অনেক বেশি ই। জবাব টা দিতে পারলাম না। সুযোগ থেকেও যেন আজ পারি নাই। ভাগ্য কেমন জানি আমাদের সাথে প্রতিনিয়তই খেলা করে। হ্যাঁ আমরা হেরে গেছি। আমরা খেলাতে হেরে গেছি। তার আগে টসে ও হেরে ছিলাম। দ্যা ওভালের ১৫ জুনের পিচ রিপোর্ট বলছিল ব্যাটিং ফেবার এই ক্রিজে রান তাড়া করে খেললে জেতার সুযোগ টা বেশি। আর হল ও তাই।

 264462.jpg

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ২০১৭ এর সেমিফাইনাল ম্যাচ। ভারত আর বাংলাদেশ মুখোমুখি। হাই ভোল্টেজ এই ম্যাচ টা নিয়ে আশা আকাঙ্খা ডানা বেঁধে ছিল প্রায় ২০ কোটি বাংলাদেশি সাপোর্টারদের ভিতরে। আইসিসি এর এত বড় আসরে ভারত নামের এই পরাশক্তি কে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি এর ফাইনালে ওঠার একটা বড় স্বপ্ন দেখছিল তারা। আসলে স্বপ্ন বললে ভুল হবে। বলা যায় প্রতিশোধ। ভারতীয়দের তোঁতা মুখ ভোঁতা করার প্রতিশোধ।

unnamed.jpg

আমাদের প্রতি ভারতীয়দের রুঢ় ভাব অনেক দিনের। ২০০০ সালে আইসিসি এর সদস্য পদ পাবার পর থেকে ভারতীয় রা বাংলাদেশে এসে খেলেছে মাত্র চারটা সিরিজ। যেটা অন্যান্য আসিসি মেম্বারদের থেকে কম। প্রতিবেশী দেশ হয়েও ভারত বাংলাদেশের উত্থানে অবশ্যই খুশি নয়। আইসিসি বিশ্বকাপ ২০১৫ এর কোয়াটার ফাইনালের কথাই ধরা যাক। বাংলাদেশের স্বপ্ন কে দুমড়ে মুচড়ে মাটি চাপা দেওয়া হয়েছিল মার্চ ১৯, ২০১৫ তারিখে মেলবোর্নে। বাংলাদেশ তখন থেকেই বুঝে গেছিল বন্ধু প্রতিম দেশ ভারত অবশ্যই বাংলাদেশ ক্রিকেটের এ উত্থানে ভীত।

264437.jpg

১১ জুন ২০১৭ রবিবারের আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি এর ইন্ডিয়া আর দক্ষিণ আফ্রিকা এর ম্যাচে ভারতের সাবেক ক্যাপ্টেন সৌরভ গাঙ্গুলি তো ধারাভাষ্য দিতে দিতে বলেই ফেলেছিলেন, “আজ রবিবারের ম্যাচ শেষে ভারতীয় সাপোর্টারদের আবার উড়ে যেতে হবে লন্ডনের দ্যা ওভালে ফাইনাল দেখতে।” যেখানে দ্বিতীয় সেমিফাইনাল ১৫ জুন ২০১৫ এ এডবাস্টোন এর ম্যাচে ভারতের মুখোমুখি ছিল বাংলাদেশ। তিনি যেন বাংলাদেশ কে কোন গুরুত্বই দিলেন না। এমন ভাবে ঘোষণা দিলেন যেন ভারতের কাছে বাংলাদেশ কোন টিম ই না।  একজন ক্রিকেটার হয়ে তিনি একটা দেশের ক্রিকেট কে অপমান করে এমন কথা কিভাবে বলেন?

ঠিক একই ম্যাচে যখন ভারত দক্ষিণ আফ্রিকার থেকে সহজ জয় তুলে নিয়েছিল, তখন ভারতীয় ক্রিকেটার ভিরেন্দর শেবাগ তার সামাজিক মাধ্যম টুইটার এর একটা টুইটে লিখেছিলেন “ভারতকে অগ্রিম ফাইনালে ওঠার জন্য শুভেচ্ছা। হ্যাঁ ভারত শক্তিশালী হতে পারে, অবশ্যই তারা এখন ভালো খেলছে, কিন্তু সেমিফাইনালে ওঠা একটি টীমের বিপক্ষে একজন কিংবদন্তী কিভাবে এমন মন্তব্য করেন।

রাঙ্কিং  ৬ এ থাকা একটা টীমের বিপক্ষে রাঙ্কিং  ৩ এ থাকা এমন টা বলতেই পারে হয়তো।। কিন্তু তারা হয়তো ২০১৫ এর বাংলাদেশের বিপক্ষে  সিরিজ হারাটা ভুলে গেছে। তারা হয়তো ভুলে গেছে ২০০৭ সালের ওই ম্যাচ টার কথা। ২০০৩ এর ফাইনালিস্ট ভারত রাঙ্কিং ১০ এ থাকা একটা টীমের কাছে হেরে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিয়েছিল। আর সে টীম টা ছিল বাংলাদেশ। এশিয়া কাপ ২০১২ এর ১৬ মার্চ এর ম্যাচটার কথা মনে আছে সৌরভ গাঙ্গুলি অথবা ভিরেন্দর শেবাগ এর??? বাংলাদেশের কাছে ৫ উইকেটে হেরে টুর্নামেন্ট থেকে বাইরে চলে গেছিল সে সময়ের হট ফেবারিট টীম ভারত। হ্যাঁ আমরা হেরেছি। অবশ্যই একটা পরাশক্তির কাছে হেরেছি। কিন্তু তারা যখন হেরেছিল? তখন বাংলাদেশ অবহেলিত টীম গুলোর মধ্যে একটা। আর এখনকার বাংলাদেশ টীম তো ইতিহাসের সেরা বাংলাদেশ একাদশের একটি। তবুও এত অপমান?

245395.jpg

আমরা খেলা এখন ও শিখছি। ১৭ বছর বয়সে আমারা নিশ্চই অভিমন্যু এর  থেকে ভালো জবাব দিয়েছি। বড় টুর্নামেন্ট এর সেমিফাইনালে গেছি। আমরা নিশ্চই গ্রুপ থেকে সেমিফাইনালের জন্য বাছাইকৃত ৪ টা টীমের ভিতর দুইটার একটি। অবহেলা টা আমাদের উপর মানায় না। ইংল্যান্ড এর সাথে ৩২৪ রান। অস্ট্রেলিয়ার সাথে বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচে ১৮৪। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ২৬৫ রান তারা করতে নেমে ৫ উইকেটের বিশাল জয়। কোথায় খারাপ খেলেছি আমরা?? তার পর ও এমন কটূক্তি।

আমাদের দেশের ক্রিকেট নিশ্চয় এখন অনেক ক্রান্তিকর একটা পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। সিনিয়র প্লেয়ার রা অবসর নিচ্ছেন। নতুনদের নিয়ে দল সামলে মাশরাফির সেমিফাইনালে যাওয়া অবশ্যই প্রশংসার দাবি রাখে। নতুন রা অবশ্যই ভালো খেলছে আর আশা করা যায় তারা ভালো করবেও। আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির অভিজ্ঞতা তাদের সাহায্য করবে নিশ্চই অনেক ভাবে। তারা একসময় দেশের ক্রিকেট কে উজ্জ্বল করবে। আমাদের দেশেই আছে সাকিব আল হাসান। মাশরাফি তামিমের নাম জানেন না এমন ক্রিকেটপ্রেমী হয়তো খুব কম আছেন। নতুন দের মধ্যে মুস্তাফিজ, সাব্বির তাসকিন কে নিয়ে না বললেই নয়। ভালো করছে তারা। অভিজ্ঞতা নিচ্ছে নানান পরিস্থিতির। সময় দিতে হবে। তারা আমাদের ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ হিসেবে যথেষ্ট।

264441.jpg

হয়তো দিন টি আর বেশি দূরে নয়। বাংলাদেশ তার ক্রিকেট দিয়ে ছড়িয়ে পরবে সারা বিশ্বের ক্রিকেট প্রেমীদের কাছে। স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ বাংলাদেশ নামের কম্পন উঠবে। লাল সবুজের পতাকাতে হবে গ্যালারির রঙ রঙ্গিত। সারা বিশ্ব একসাথে বলবে গো টাইগার, গো……।।

About The Author
Engr. Mohammad Nizamuddin
Engr. Mohammad Nizamuddin
I'm a creative and proactive content writer with a profound ability to stay up-to-date with modern industry trends and great familiarity with content management systems.
1 Comments
Leave a response

You must log in to post a comment