সিনেমা নাকি অন্য কোন উদ্দেশ্য …

Please log in or register to like posts.
News

সিনেমা নিয়ে গত কিছুদিন অনেক কিছুই হয়েছে অনেকের স্বার্থ হাসিল হয়েছে অনেকের হয়নি । আসুন এবার এই স্বার্থ আর ঝামেলার ঘটনাটা বলি । কেন এমন হল ? কি ছিল উদ্দেশ্য ? প্রথমেই বলে রাখা ভালো যে বর্তমান এ বাংলাদেশ এর সিনেমাতে যে দুই পক্ষ তৈরি হয়েছে তাদের নিয়েই অনেক বেশী আলোচনা হচ্ছে । এদের মধ্যে একদল ভারতীয় সিনেমা অর্থাৎ কলকাতার সিনেমার বিপরীতে কথা বলছে আর অপরদল দুই বাংলার মিলিত শুদ্ধ বাংলাতে বললে যৌথ প্রচেষ্টা তথা যৌথ প্রযোজনার সিনেমার পক্ষে কথা বলছে । আসুন দুই পক্ষের বক্তেব্যের ব্যাপারে কিছু বলি । আসলে কে সঠিক ? প্রথম পক্ষের কথা যদি বলি যারা বর্তমান এ নানা আন্দোলন এ ব্যস্ত যারা যৌথ প্রযোজনাকে যৌথ প্রতারনা বলছেন এবং নিয়ম নীতির ব্যাপারে যারা অনেক সচেতন । তারা যৌথ প্রযোজনা চায় কিন্তু সেটা যেন নিয়মের মধ্যে থেকে হয় । আসুন নিয়মটা দেখা যাক । নিয়মে দুই বাংলার শিল্পী সমান সমান থাকার কথা বলা আছে । এটা তাদের আন্দোলন এর মূল উপজীব্য বিষয় । কিন্তু ঈদে সম্প্রতি মুক্তিপ্রাপ্ত দুটি ছবির (নবাব এবং বস ২) একটিতেও এই নিয়ম মানা হয়নি ।  এখান থেকেই প্রথম পক্ষের আন্দোলন শুরু । কিন্তু বিষয়টাকে এভাবে কেন সামনে আনা হল আমি বুঝলাম না । রিভিউ কমিটিতে ছবিটাকে (নাবাব) একবার বলা হল যে এটি নিয়ম মেনে করা হয়নি আবার পরবর্তীতে বলা হল যে নিয়ম মানা হয়েছে । তাহলে দেখা যাচ্ছে ঝামেলার অন্যতম কারন ঐ রিভিউ কমিটি নিজে । যার কারণে একটি দল আন্দোলনে সোচ্চার হয়েছে অপর দলও কম যায়না তারাও জবাব দিয়েছে সেটাতে আর একটু পরে আসছি তার আগে আন্দোলন এর অন্যতম নেতাদের ব্যাপারে কিছু বলি । প্রথম এ যার নাম আসছে ইনি হলেন জায়েদ খান । ইনি বর্তমান সময়ের ফিল্ম এর আন্দোলন এর ব্যাপারে অন্যতম মুখ্য ভুমিকা রাখছেন । দ্বিতীয় যার নাম আসবে ইনি মিশা সওদাগর যদিও উনি নিজেও একটি যৌথ প্রযোজনার সিনেমা করেছিলেন যেখানে উনি ছাড়া বাংলাদেশ এর আর কেউ ছিল না । তৃৃৃৃতীয় যার নাম আসবে ইনি হলেন বাংলাদেশের অন্যতম সেরা নায়ক রিয়ায উনিও উনার জীবনের সেরা সিনেমাটি উপহার দিয়েছিলেন এই যৌথ প্রযোজনার মাধ্যমেই । সেখানে তিনি আর নায়িকা পূর্ণিমা ছাড়া বাংলাদেশ এর আর কেউ ছিল না । এখানে একটা বিষয় লক্ষ করুন যে ঐ সময় কিন্তু এই সিনেমাগুলো নিয়ে কেউ কোন কথা বলেনি ।

আসুন এবার দ্বিতীয় পক্ষের কথা বলি তারা আসলে কি করছে এবং কেন করছে ?উত্তরটা খুব সহজ ব্যাবসা করছে । সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকার এ দেখলাম জ্যাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার বলছেন তিনি শুধুমাত্র বাংলাদেশের অংশের শুটিং এর টাকা দিয়ে থাকেন এবং ভারতে ছবি ব্যবসা করলে উনি কোন টাকা নেননা । চমকাচ্ছেন দাড়ান আসল চমকটা উনার পরের বক্তব্যতে যখন উনি বললেন যে এই দেশে পুরো ছবির মাত্র দশ দিন শুটিং হয়েছে   । মূল নায়ক এর কাজ হয়েছে মাত্র ছয়দিন । এখানে আর একটি কথা বলা দরকার তা হল যাদের দিয়ে এই যৌথ প্রযোজনার ছবি করানো হচ্ছে তাদের নিজেদের দেশেই  অর্থাৎ , বর্তমানে কোলকাতাতেই তাদের মার্কেট খুব একটা ভালো যাচ্ছে না । তাহলে আমরা কেন মেনে নিচ্ছি ? কারণ কঠিন হলেও সত্য আর তা হল আমাদের দেশে কোন ভালো কাজ হচ্ছে না । এর মানে এই না যে হবে না আয়নাবাজি এর মত ভালো সিনেমাও কিন্তু হয়েছে । দর্শক হলেও গিয়েছে মানে আমাদের দর্শক আছে ।দুঃখটা এখানে যে এই মানুষগুলো এখন কোন ভালো সিনেমা পাচ্ছেনা । তাদের যৌথ প্রযোজনার উপর নির্ভর করতে হচ্ছে কিন্তু এর মাধ্যমেও যে খুব ভালো কিছু হচ্ছে তা না কারণ ভাষা এক হলেও সংস্কৃতি এক নয় । আশঙ্কাটা সেখানেই বেশী কোথাও না তাদের সংস্কৃতি আমাদের মধ্যে চলে আসে । যদি দুই দেশের সংস্কৃতিকে কেউ সমানভাবে দেখাতে পারে তাহলে ভালো । তবে তা হবে কি করে ? বেশীরভাগ যৌথ প্রযোজনার সিনেমাতেই তো পরিচালক কোলকাতারই থাকে ।এটাও আমাদের জন্য অসম্মানের । ছোট একটা উদাহরণ দিতেই হচ্ছে সেটা হল শাকিব খান । উনাকে নিয়ে যারা আজ থেকে কয়েক বছর আগেও যারা মজা করত তারাই আজকে উনার প্রশংসা করছে । শিকারি সিনেমাটিতে যেভাবে তাকে তুলে ধরা হয়েছে এত দিন কেন বাংলাদেশের পরিচালকরা তাকে এভাবে তুলে ধরল না ? অস্বীকার করার কোন উপায়  নেই এসব দিক থেকে তারা অবশ্যই আমাদের চেয়ে এগিয়ে আছে কিন্তু আমাদেরও এসব জায়গাতে ভালো করতে হবে । আমরা একটা জিনিস ভুলে যাই সেটা হল পশ্চিমবঙ্গ কোন দেশ নয় কিন্তু আমরা একটি দেশ আমরা একটি জাতি । সেটার সম্মান আমাদেরই দিতে হবে ।  সব ভুলে আবার এক হয়ে ভালো কাজ করুন । এই দেশের মানুষকে আর বঞ্চিত করবেন না । আমরা ভালো কাজ চাই । আমরা আমদের সিনেমা নিয়ে যেন গর্ব করতে পারি । দয়াকরে সেই সুস্থ বিনোদন আবার চলচ্চিত্রে ফিরিয়ে আনুন । আমরা দর্শক সবসময়ই আপনাদের পাশে ছিলাম আছি আর থাকব ।

 

 

 

Reactions

0
0
0
0
0
0
Already reacted for this post.

Reactions

Nobody liked ?