Now Reading
খোলামেলা মিউজিক ভিডিও এখন জনপ্রিয় হবার মাধ্যম !! ( কুসুম সিকদারের অবক্ষয় )



খোলামেলা মিউজিক ভিডিও এখন জনপ্রিয় হবার মাধ্যম !! ( কুসুম সিকদারের অবক্ষয় )

( প্রথমেই বলে রাখি, আমার এই লেখাটি কুসুম সিকদারের ভালো নাও লাগতে পারে, কারণ আমি উনার ভক্ত হয়েই একটু সমালোচনা করতে বাধ্য হলাম। এটার অবশ্যই প্রয়োজন আছে )

কুসুম সিকদার- যিনি কিনা এক সময় “মহিলা আসিফ আকবর” হতে চেয়েছিলেন শিল্পী আসিফ আকবরের গান শুনে অনুপ্রাণিত হয়ে। প্রায় দেড় যুগ পর তিনি আবার গানে কন্ঠ দিয়েছেন এবং নিজেই সেই মিউজিক ভিডিওতে মডেল হয়েছেন। সাথে রয়েছেন আরেক র‌্যাম্প মডেল সুজন।

কুসুম সিকদার বাংলাদেশে অতি পরিচিত একটা মুখ। নাটক, মডেলিং কিংবা টিভিসি করে অতি দ্রুত খ্যাতি অর্জন করেছেন। “গহীনে শব্দ” সিনেমার মাধ্যমে কুসুম চলচিত্রে নাম লেখালেও তার অভিনীত “শঙ্খচিল” সিনেমাটি বাংলাদেশ এবং কোলকাতা – দুই বাংলাতেই তুমুল জনপ্রিয়তা পেয়েছিল।

শুধুই কি অভিনয়? না, তিনি লেখালেখি এবং গান গাওয়াতেও কম যান না! ২০১৫ সালে “নীল ক্যাফের কবি” শিরোনামে একটি বইও বের হয়েছিল যা পাঠক মহলে বেশ সাড়া জাগিয়েছিল।

গান গাওয়ার তাড়া অনুভব করে তিনি গত পহেলা বৈশাখে “নেশা” নামের একটি নতুন গান রেকর্ডিং করেন এবং ঘোষণা দেন সেটি নিয়ে মিউজিক ভিডিও তৈরী করবেন।

আর সেই মিউজিক ভিডিও নিয়েই আমার আজকের লেখা।

“নেশা’ নামের মিউজিক ভিডিওটি সত্যিই খুব প্রশংসনীয় এবং তুমুল আলোচিত হবার কথা ছিল। হ্যাঁ, আলোচিত হয়েছেও কিন্তু তুমুল সমালোচনার মুখেও পড়েছে এর ভেতরে থাকা কিছু দৃশ্য নিয়ে। কারণ কুসুম সিকদার সেখানে উপস্থিত হয়েছেন বেশ খোলামেলা দৃশ্যে। আবেদনময়ী কুসুম সিকদারকে এবারই প্রথম দেখলেন দর্শকেরা।

ভিডিওর প্রথমদিকের একটা দৃশ্যে দেখা যায়,

3.JPG

কুসুম যখন ব্যাকগ্রাউন্ডে ভয়েস দিচ্ছেন, তিনি শুয়ে আছেন  এবং উনার হাতটা উনি উনার এক পাশের বুকের উপর দিয়ে সরিয়ে আনলেন। খুবই বিরক্তিকর একটা দৃশ্য। বুকের উপর দিয়ে হাত টেনে নিয়ে যাওয়াটা অশ্লীলতার পর্যায়ে পড়ে যা কিনা কুসুমের মত একজন অভিনেত্রীর করাটা মানায় না।

এর ঠিক কিছু দৃশ্য পরেই আসে আরেকটু আপত্তিকর দৃশ্য, যা কিনা সচরাচর ভারতীয় বলিউড নামক বস্তাপচা নগ্নতায় ভরা সিনেমার গানের দৃশ্যে দেখা যায়। কোন ধরণের দৃশ্য বুঝতেই পারছেন।

0003.jpg

এছাড়া বাকি সবকিছুই ঠিক ছিল। ওয়েষ্টার্ন পোশাকে কুসুমকে আগে থেকে দেখা গেলেও আবেদনময়ী দৃশ্যে এই প্রথম এবং তা বিতর্কিতও বটে।

kusum western inside article.jpg

কুসুম সিকদার আপনাকে বলছি,

আপনি একজন জনপ্রিয় অভিনেত্রী, আপনাকে নিয়ে এই ভিডিওর আগে বাংলাদেশে কোনো  সমালোচনা হয়নি, সত্যি কথা হলো, আপনার ভিডিওটি যারা তৈরী করেছেন, এডিট করেছেন তারা সকলেই স্যালুট পাবার যোগ্য। তাছাড়া আপনার পোশাক নির্বাচন ছিল খুবই সময়োপযোগী এবং মানানসই। শুধু সমস্যা হয়ে গিয়েছে অমন দৃশ্য থাকার জন্য যা আপনার লেভেলের সাথে যায়না।আপনি একজন মিষ্টি অভিনেত্রী, এমন দৃশ্য না থাকলে আপনি আরো বেশি সাড়া পেতেন এবং সেটা কোনোভাবেই নেতিবাচক দিক থেকে নয়।

আর আপনার গায়কীর কথা বলতে গেলে প্রথমেই বলবো,

গান নিয়ে আপনার আরো অনেক সাধনা প্রয়োজন, আপনার গলা ভালো কিন্তু কন্ঠ স্পষ্ট নয়, জড়িয়ে আসে আই মিন জড়তা আছে। সুরের সাথে সমন্বয় হয়না ঠিকঠাক।

তো আপনার কাছে আসলে আমার একটা অনুরোধ,

নিজের ইমেজটাকে এভাবে নষ্ট করবেন না প্লিজ, নেতিবাচক ইমেজ এনে কেউ মিডিয়াতে বেশিদিন টিকে থাকতে পারেনা কারণ একটা সময় দর্শক তাদেরকে আর ইতিবাচকভাবে নিতে চান না। এত সুন্দর একটা মিউজিক ভিডিওতে অমন দৃশ্যের কোনো প্রয়োজনই ছিলো না।

0002.jpg

আশা করি, পরবর্তীতে আমরা এমনটা দেখবো না। দেখার আশাও করিনা। মনে রাখা উচিত এটা বাংলাদেশ। আপনার জন্মস্থান আর সেখানে মানুষগুলো কেমন সেটা আপনি যথা+ইষ্ট = যথেষ্টই বোঝেন। নতুন করে আপনাকে বোঝানোটা আমার বোকামি ছাড়া আর কিছুই হবেনা।

 

যারা ইউটিউব থেকে শুরু করে বিভিন্ন সাইটে কুসুম সিকদারকে যাচ্ছেতাই ভাষাতে গালিগালাজ করছেন তাদের উদ্দেশ্যে একটু বলি,

কুসুম সিকদার দেশের মেয়ে বলে আজ এভাবে গালিগালাজ করছেন দুইটা তিনটা দৃশ্যের জন্য। আজ ওখানেই যদি ভারতের কোনো অভিনেত্রী কাজ করতো, তাহলে কি করতেন আপনারা? মনে করেন, কোলকাতার শ্রাবন্তি কিংবা শুভস্রী এসে যদি অভিনয় করতো, তাহলে বলতেন শালার বাংলাদেশের অভিনেত্রীদের দিয়ে কিছুই হবেনা। তাইতো?

আরেকটা কথা, আপনাদের অমন গালি দেয়ার অর্থ কি? নিজেদের জাত চেনানো তাইনা? ভাই, ভালো না লাগলে দেখবেন না, তাই বলে গালি দেয়ার মাঝে কোনো স্বার্থকতা নেই। সে মিডিয়ার মানুষ যা খুশি করে বেড়াক, আপনার আমার কি? ভালো লাগলে ভালো, না ভালো লাগলে আরো ভালো। এভাবে যৌক্তিক সমালোচনা দেখাতে পারেন তাই বলে সেটা গালিগালাজ করে নয়।

শেষে কিছু কথা বলি,

0001.jpgচোখের সামনে বহু অভিনেতা-অভিনেত্রীর ইমেজ সংকটে পড়ে মিডিয়া থেকে বিদায় নিতে দেখেছি। বাংলাদেশের মিডিয়াতে একটা সুবিশাল পরিবর্তন দরকার, দরকার নির্মাতা আর আর্টিষ্টদের মানসিকতার পরিবর্তনও। আমরা কেন অন্যান্য দেশের স্টাইলকে অনুকরণ করতে যাবো? আমাদের কি নিজস্বতা নেই? আবেদনময়ী ঐ সকল দৃশ্য কি নির্ণয় করে আমার অজানা, শুধু জানি অর্থপূর্ণ কিছু দেখতে চাই আমরা।

পাবলিক ঐসব দৃশ্য বুঝতে চায়না। বাংলাদেশের দর্শকেরা নিরেট বিনোদন আশা করে, ভালোবাসে।

কুসুম সিকদার, আশা করছি আরো ভালো কিছুর কিন্তু এভাবে আর নয়।

ভালো থাকবেন।

About The Author
Ferdous Sagar zFs
Hi, I am Ferdous Sagar zFs. I am a Proud Bangladeshi living in abroad for study purpose. I love to write and it's my passion or hobby. Thanks.
0 Comments
Leave a response

You must log in to post a comment