বাংলাদেশ থেকেই বিদেশীরা কিনছে কঠিন রোগের ঔষধ

Please log in or register to like posts.
News

অভাবনীয় এক সাফল্য দেখা দিয়েছে বাংলাদেশে উৎপাদিত ঔষধে। এমনটাই দাবী করেছেন ইংল্যান্ডের  নাগরিক জোই শারাম। তিনি বিবিসির প্রতিনিধিকে দেয়া এক ভিডিও সাক্ষাৎকারে বলেছেন দীর্ঘদিন ধরেই তিনি হেপাটাইটিস সি রোগে আক্রান্ত। যুক্তরাজ্যের হেপাটাইটিস সি রোগে আক্রান্ত ২১৫০০০ জনের একজন হচ্ছেন জো শারাম যিনি ২০ বছর বয়সেই এই রোগে আক্রান্ত হন । তিনি জানিয়েছেন- প্রায়সই তিনি তার অফিসের চেয়ারে ঘুমিয়ে পড়তেন, তাছাড়া প্রচণ্ডভাবে মানসিক সমস্যায় ভোগা, হজম শক্তি হ্রাস ইত্যাদি তার রীতিমত বিরক্তের কারণ হয়ে দেখা দেয় । সে একাই সব কিছু নির্ণয় করতে শুরু করল। এদিকে বাজারে ঔষধের দামও খুব চড়া, প্রতি রোগীকে হাজার হাজার পাউণ্ড খরচ করতে হয় এই ঔষধ পেতে যাও কিনা বাজারে দুর্লভ। জো সে পথে চেষ্টা করে দেখেননি তিনি সস্থায় অনলাইন থেকে বাংলাদেশে উৎপাদিত হেপাটাইটিস সি রোগের ঔষধটি কিনেছেন মাত্র ১০০০ পাউণ্ড দিয়ে।

তিনি তার আবেগ আপ্লূত বক্তব্যে বলেছেন ‘ আপনি আপনার জীবনের মূল্য দিতে পারেন না, পারেন কি? সেই উপলব্দি থেকে আমি একটি সিদ্ধান্ত নিয়ে নিয়েছি। যা কিনা অনেকটাই জ্ঞাত এটা এমন নয় যে কয়েন ছুঁড়ে ভাগ্য নির্ধারণ করা। তিনি অনলাইন থেকে কেনা বাংলাদেশী পিলটির কোর্স নভেম্বর এর শেষ দিকে সম্পন্ন করেছেন। ১৮ফেব্রুয়ারিতে রোগ নির্ণয়ের টেস্ট রেজাল্ট হাতে আসে যাতে তিনি দেখতে পান তার রক্ত কণিকায় আর কোন হেপাটাইটিস রোগের লক্ষণ নেই। তিনি বলেছেন  এই ঔষধের দাম হওয়ার কারণ এটি প্রতিটি পদেই কার্যকারিতার প্রমাণ দেয় আর প্রত্যেকেই চায় একটি সুস্থ জীবনের অধিকারী হতে।

ঔষধটি তৈরির প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস ইংল্যান্ড এই পিল এমন কাউকে দেয়া হয় যে কিনা খুবি অসুস্থ। যথেষ্ট দামি বলেই শুধু অধিক আক্রান্ত ব্যাক্তিরাই এটি পাওয়ার অধিকার ভোগ করেন তাও নগণ্য পরিসরে। এদিকে অন্য একটি দাতব্য প্রতিষ্ঠান দ্যা ভিক্টোরিয়া ডার্বিশায়ার এর পক্ষ থেকে ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস ইংল্যান্ড এর কাছে দাবী করে যেন এই  ঔষধটি অধিক পরিমানে হেপাটাইটিস সি রোগে আক্রান্ত আরো মানুষের হাতে সহজে পৌঁছে দেয়।

হেপাটাইটিস সি এমন এক সংক্রমণ যা প্রধানত যকৃৎকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। বেশিরভাগ মানুষের ক্ষেত্রেই প্রাথমিক কোন লক্ষণ প্রকাশ পায়না বলে শুরুতেই ক্রনিক হেপাটাইটিস সি শনাক্ত করা কঠিন হয়ে দাড়ায়। ক্রনিক হেপাটাইটিস সি এর ক্ষেত্রে লিভারে ক্ষত সৃষ্টি হয় যাকে লিভার সিরোসিস বলে এবং এতে ক্রমেই লিভার অকার্যকর হয়ে পরে।  আর এমনি এক রোগ নিরাময়ে বাংলাদেশে উৎপাদিত ঔষধ এর সফলতা বিশ্বের কাছে মাথা উঁচু করে নতুনভাবে পরিচয় করিয়ে দিল বাংলাদেশের সক্ষমতা।

Reactions

3
1
0
0
0
0
Already reacted for this post.

Reactions

3
1

Nobody liked ?