Now Reading
কাঁদলে চোখ দিয়ে পানির বদলে ক্রিস্টাল ঝরে!



কাঁদলে চোখ দিয়ে পানির বদলে ক্রিস্টাল ঝরে!

কি হল খুব কান্না পাচ্ছে বুঝি? ওমা কেঁদেই ফেললেন!নিজের হাতের তারায় নিজেরই চোখের নোনতা পানি ছুঁয়ে দেখুন তো পানিই ঝরছে নাকি মূল্যবান ক্রিস্টাল হীরা ঝরছে! পড়ে খুব বিরক্ত হচ্ছেন? কিন্তু বিরক্ত হবার কিছুই নেই যদি এর বাস্তবতা জানতে পারেন। কাঁদলে স্বাভাবিকভাবেই চোখ দিয়ে পানি ঝরবে কিন্তু কখনো কি শুনেছেন কাঁদলে চোখ দিয়ে পানি না ঝরে মূল্যবান হীরা ঝরে? না শোনারই কথা কারণ এটি পৃথিবীর একমাত্র  বিস্ময়কর এবং বিরল ঘটনা। এমন ঘটনা ঘটে ১২ বছর বয়সী হাসনাহ মোহাম্মেদ নামে একটি লেবানিজ মেয়ের সাথে। সে যখন কাঁদে তখন তাঁর চোখ থেকে জল না ঝরে মহামূল্যবান ক্রিস্টাল হীরা ঝরে। বিষয়টি যেমন অবাক করা তেমনি চিন্তার বিষয়ও। কি করে সম্ভব, এও কি সম্ভব?! হুম সম্ভব যদি স্রষ্টা চান। আর ক্রিস্টাল হীরা দ্বারা মূল্যবান অলংকার তৈরী করা হয়।

হাসনা মোহাম্মেদের সাথে ঘটনাটি প্রথম ঘটে  স্কুলে বসে। ঐদিন হাসনাহ মোহাম্মেদ ক্লাসে পড়া না পারার জন্য টিচার তাঁকে শাস্তি দেয়। সে অপমানবোধে হাসনা কাঁদছিলো তখন সে তাঁর চোখে শক্ত কিছু একটি অনুভব করে। কিন্তু পরে যখন বাড়ি ফিরে আবার সে কাঁদে তখন আবারও শক্ত কিছু অনুভব করে। এভাবেই সে মোটামুটি এক সপ্তাহ পার করে দেয়। পরে একদিন কাঁদার সময় তাঁর হাতে ক্রিস্টাল হীরা চলে আসে ! এবং সে বেশ ভয় পেয়ে যায় । সে তাঁর বাবা-মাকে জানায়। তাঁর পিতা তাঁকে চোখের ডাক্তারের কাছে নিয়ে যায়। ডাক্তার যখন তাঁকে পরীক্ষা নিরীক্ষা করছিল তখন আবার তাঁর চোখ থেকে সেই ক্রিস্টাল হীরা বের হয়। তখন ডাক্তার ক্রিস্টাল দেখে পুরো অবাক হয়ে যায়। ডাক্তার ক্রিস্টাল গুলো পরীক্ষা করে দেখেন এবং সত্যতা যাচাই করে নিশ্চিত হন যে এগুলোই মহামূল্যবান ক্রিস্টাল হীরাই এবং বেশ শক্ত ধারালো। কিন্তু অবাক করা বিষয় হচ্ছে এই ক্রিস্টাল যখন তাঁর চোখে অবস্থান করে তখন তাঁর চোখের কোন ক্ষতি হয় না। কিন্তু  বের হবার পরে সেটি অত্যন্ত শক্ত এবং ধারালো হয় ।

তারপর থেকে হাসনাহ মোহাম্মেদ এর চোখ থেকে দিনে সাত বার সাত সময়ে এই ক্রিস্টাল হীরা বের হয়। আর হাসনাহ খুব যত্নের সাথে সেগুলো তুলে রাখে।

কিন্তু এখন পর্যন্ত এর কোন কারণ ব্যাখ্যা করতে পারেননি ডাক্তাররা। তবে এজন্য তাঁর নাম ছড়িয়ে পড়েছে। এমন অলৌকিক ক্ষমতা একমাত্র সৃষ্টিকর্তারই সৃষ্টির একটি অংশ। যা কিছু কিছু মানুষকেই দান করেন।

তথ্যসূত্র: ইন্টারনেট

About The Author
Fatematuz Zohora ( M. Tanya )
Little writer & poet...!
Comments
Leave a response

You must log in to post a comment