পাবলিক কনসার্ন প্রবাসী - প্রবাসীনি

প্রবাসী বাঙালীদের জন্য আগামী সংসদ নির্বাচনে প্রক্সি ভোট ও পোস্টাল ভোট এর ব্যাবস্থা

রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁয়ে এক সেমিনারে প্রবাসীদের ভোটাধিকার নিয়ে কথা বলতে গিয়ে এর পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা। সিইসি বলেছেন, ‘বর্তমানে প্রক্সি ভোট ও পোস্টাল ভোটের নিয়ম আছে যার মাধ্যমে প্রবাসীরা ভোট দিতে পারেন। আগামী নির্বাচনে এসব পদ্ধতি নিয়ে প্রচার করা হবে।’

উল্ল্যেখ যে, পোস্টাল ভোট পদ্ধতিতে একজন প্রবাসে বসবাসকারী বাংলাদেশী নাগরিক তার আবেদনের ভিত্তিতে পছন্দনুযায়ী যেকোনো যায়গা থেকে ভোট দিতে পারেন। প্রবাসীদের দেয়া ঠিকানায় আগে থেকে ব্যালট সরবরাহ করা হয় যা ভোট দেয়ার পর ডাকযোগে দেশে পাঠানো হয়। আর এ পদ্ধতি চালু রয়েছে ২০০৮ সাল থেকে। ২০০৮ এবং ২০১৪সালে দুই দফা প্রবাসীদের ভোটাধিকার দেওয়ার বিষয়ে উদ্যোগ নেয়া হলেও পরে তা আর বাস্তবায়িত হয়নি। আধুনিক প্রায় সকল দেশ তার প্রবাসে থাকা নাগরিকদের জন্য এই পোস্টাল ভোট এর ব্যাবস্থা বহু আগে থেকেই চালু করেছে।

নির্বাচন কমিশন (ইসি) কর্তৃক আয়োজিত সেমিনারের প্রতিপাদ্য বিষয় ছিল- প্রবাসী বাংলাদেশি নাগরিকদের জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদান ও ভোটাধিকার প্রয়োগ। উক্ত সেমিনারে সিইসি বলেন, আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পরীক্ষামূলকভাবে প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভোট দেয়ার ব্যবস্থা করার পরিকল্পনা আছে নির্বাচন কমিশনের। প্রক্সি ভোট ও পোস্টাল ভোট এর মাধ্যমেই প্রবাসীদের ভোটাধিকার প্রয়োগে সংযুক্ত করা হবে। তবে তিনি এ পদ্ধতিতে প্রবাসী বাংলাদেশীদের ভোটার করতে প্রধান অন্তরায় হিসেবে দ্বৈত নাগরিকত্বকেই দেখছেন। সেমিনারে অন্যান্যদের মধ্যে সাংবিধানিক সংস্থাটির এনআইডি উইংয়ের মহাপরিচালক বলেছেন, প্রবাসে ভোট গ্রহণের সুবিধা-অসুবিধা নিয়ে বিস্তারিত পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজন যা একাদশ সংসদ নির্বাচন পরবর্তী বিষয়টি বিবেচনা করা হবে এবং এ বিষয়ে ভবিষ্যতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম তার বক্তব্যে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সুপারিশও তুলে ধরেন।  তিনি বিদেশে অবস্থানরত বাংলাদেশীদের জন্য নিবন্ধন প্রক্রিয়া এগিয়ে নিতে দূতাবাসে লোকাল সার্ভার স্থাপন, প্রবাসীদের সংখ্যানুহারে রেজিস্ট্রেশন টিম তৈরি করে কাজ এগিয়ে নেয়া এবং নিবন্ধন কাজের জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ও দক্ষ আইটি কর্মকর্তা নিয়োগ করার উপরও গুরুত্বারোপ করেন।

তিনি আরো বলেন, প্রবাসে ভোটগ্রহণে প্রধান চ্যালেঞ্জ হচ্ছে, বিপুল সংখ্যক ভোটকেন্দ্র স্থাপন ও ব্যয়, ভোটকেন্দ্রের নিরাপত্তা, সংহিসতা রোধ, পোস্টাল ব্যালটের স্বচ্ছতা ও গোপনীয়তা নিশ্চিত করা। উক্ত সেমিনারে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ছাড়াও অন্য চার নির্বাচন কমিশনার, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধি, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব, বেশ কয়েকজন রাষ্ট্রদূত ও গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা অংশ নেন।

একই রকম আরো কিছু ফুটপ্রিন্ট

ম্যারিটাল রেপ বা দাম্পত্য জীবনে ধর্ষণ কি আপনি জানেন ?

Arman Siddique

বাজারের সুদৃশ্য আমকে রসালো ভেবে কিনে বাসায় বিষ নিচ্ছেন নাতো?

MP Comrade

“পাহাড়ের কান্না” এই সংকট নিরসনে আমাদের করণীয় কি ?

Rajib Rudra

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

Privacy & Cookies Policy