Now Reading
ডাক্তার? নাকি ডাকাত?



ডাক্তার? নাকি ডাকাত?

কিছুদিন আগে ছোট বোনের পেট ব্যথার কারণে এক ডাক্তারের চেম্বারে গেলাম৷ স্ট্রেচারে শুয়ে থাকা বোন ব্যথায় চিৎকার করে কুঁকড়াচ্ছে৷ এমন অবস্থায় প্রায় ২০ মিনিট অপেক্ষার পরেও জানলাম ডাক্তার এখনো জরুরী কাজে ব্যস্ত৷ রাগে আমার গা জ্বলে উঠল৷ এরা কি মানুষ? রোগীর চেয়ে বড় ব্যস্ততা ডাক্তারের জীবনে আর কি থাকতে পারে!

এভাবে আরো কিছুক্ষন!
একপর্যায়ে আমরা কয়েকজন ক্ষিপ্ত হয়ে সিকিউরিটি গার্ডের বাঁধা ঠেলে চেম্বারে ঢুকে পড়লাম৷ ভেতরে ঢুকে দেখলাম ডাক্তার আমার বাবার বয়সী এক রোগীকে নিয়ে ব্যস্ত৷ তার হার্ট এটাক হয়েছে৷ ডাক্তার তার বুকে অনবরত CPR দিয়ে যাচ্ছেন৷ সব রাগ নিভে গেল৷ বৃদ্ধের নিথর শরীরের কষ্টের কাছে আমার বোনের পেট ব্যথার কষ্টটা অনেক তুচ্ছ মনে হলো৷

ঘটনাটা এই জন্যই শেয়ার করলাম- সব সময় আমরা খালি চোখে যা দেখি তা সত্যি নয়৷ সত্য জানার জন্য পর্দার আড়ালে ঘটে যাওয়া ঘটনার খোঁজ কেউ রাখি না৷ তাই বলে আমি ডাক্তারদের পক্ষ নিয়ে সাফাই গাইছি না৷ সব পেশার মতো ডাক্তারি পেশাতেও ডাকাতি কম নেই৷ সবচেয়ে আশ্চর্য্যের ব্যাপার হচ্ছে আমাদের মত ম্যাংগো জনতাই কিছু ডাক্তারদের ডাকাত বানাচ্ছি।

সরকারী মেডিকেল থেকে পাশ করে যেসব ডাক্তার নামী প্রফেসর হয়ে চেম্বারে বসেন, তারা কতক্ষন সময় সরকারী মেডিকেলে ব্যয় করেন?

গুটি কয়েক ডাক্তার কয়েক মিনিটের জন্য ফলোআপে আসলেও ম্যাক্সিমাম ডাক্তার মেডিকেলের বারান্দায় পাও রাখেন না। আমি বলব এইসব চেম্বার এক-একটা প্যাকেজ৷ কোন ডাক্তার সে প্যাকেজ বিক্রি করে ৫০০টাকায়, আবার কেউ বা ৭০০-১০০০ টাকায়৷

আপনাকে কেউ সেই চেম্বারে যেতে বাধ্য করছে না৷ তবুও আপনি ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে সেই প্যাকেজ ভোগ করছেন। তবে এখানে কিছু সুবিধাও আছে৷ প্যাকেজে আপনি যে সেবাটা পাবেন তা সরকারী মেডিকেলে পাবেন না৷ চেম্বারে ডাক্তার অনেক সময় নিয়ে আপনার রোগের কথা শুনবেন৷ আপনার সামর্থ্য অনুযায়ী ইনভেস্টিগেশন করবেন৷ আবার সেখানে প্রতিটা ইন্সট্রুমেন্ট অটোক্লেভ করাও থাকে৷ যার কারণে শরীরে ইনফেকশনের রিস্ক থাকে না৷ যা আপনি সরকারী মেডিকেলে পাবেন না। কারন সরকারী মেডিকেলে একজন ডাক্তারের পেছনে কয়েক’শ রোগী থাকে৷ সবাইকে সেবা দিতে গিয়ে কেউ যদি ভুল ট্রিটমেন্টে মারাও যায় তার দায় সরকার কিংবা সরকারী মেডিকেলের কেউ নিবে না। কিন্তু বেসরকারি মেডিকেলে ভুল ট্রিটমেন্ট প্রমান হবার আগেই আমরা ডাক্তারের কলার টেনে ধরি৷ দুই দিন আগেও রাইফার মৃত্যুতে যা করেছিলাম৷

যদিও উন্নত দেশ গুলোতেও convulsion বা খিচুনির ট্রিটমেন্ট হিসেবে diazepam দেওয়া হয়৷ এতে ৮০% ভালো হয়ে গেলেও ২০% ঝুঁকিতে থাকে৷ রাইফাও সেই ঝুঁকির স্বীকার হয়েছিল৷ রাইফার ট্রিটমেন্ট টা ভুল প্রমান না হলেও অগোচরে ডাক্তারদের হাতে ট্রিটমেন্টের নামে নিরীহ মানুষ খুন হচ্ছে না তার গ্যারেন্টি কেউ দিতে পারবে না। কোন ডাক্তার নিজের ভুলে রোগী মেরে ফেলে যদি তা হার্ট এটাক বলে চালিয়ে দেয় তাহলে আমাদের মত আমজনতা তার হদিস কখনোই পাবে না।

ভুল ট্রিটমেন্টে রোগী মারা গেলে শাস্তি হিসেবে আমাদের দেশে ডাক্তারদের বিরুদ্ধে কোন আইন নেই৷ যে আইনটা আমেরিকায় ১৯৯৫ সালে নিউরোসার্জারিতে ভুল অপারেশনের দরুণ শ্রীদেবীর মায়ের মৃত্যুর কারণে তখনকার প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিন্টন ডাক্তারদের ভুল ট্রিটমেন্ট এবং অপারেশনের বিরুদ্ধে আইন পাশ করিয়েছিলেন।

উন্নত দেশ গুলোতে ট্রিটমেন্টের জন্য সরাসরি কোন বিশেষজ্ঞের কাছে যাওয়া যায় না৷ সর্বপ্রথম জেনারেল ফিজিশিয়ানের কাছে যেতে হয়৷ তিনি যদি মনে করেন আপনার এর চেয়েও বেটার ট্রিটমেন্টের প্রয়োজন তবেই তিনি আপনার রোগের ধরন বুঝে বিশেষজ্ঞের কাছে রেফার করবেন।

কিন্তু আমাদের দেশে তার চিত্র পুরোই বিপরীত৷ যার টাকা আছে সে সামান্য জ্বর সর্দিতেও বিশেষজ্ঞের বারান্দায় লাইন লাগিয়ে বসে থাকে৷ আবার যার টাকার সমস্যা সে ক্যান্সারের ট্রিটমেন্টেও বিশেষজ্ঞের সেবা পাচ্ছে না৷ কখনো কখনো টাকার ব্যবস্থা হলেও ডাক্তারের দেখা পাবার জন্য সিরিয়াল আর মিলে না৷ আবার সেই বিশেষজ্ঞ যদি সামান্য জ্বর সর্দিতে একগাদা টেস্ট লিখে দেয় সেখানেও আমাদের আপত্তি৷ আরে ভাই আপনাকে বুঝতে হবে- নামী বিশেষজ্ঞরা আপনার মত সামান্য জ্বর সর্দি নিয়ে বসে থাকা প্রেশেন্টের পেছনে অতো টাইম কেন নষ্ট করবে যেখানে তিনি এরচেয়ে অনেক জটিল রোগ নিরাময়ে ব্যস্ত?

এরপরেও আপনাকে এত টেস্ট দেবার কারণ হচ্ছে সিরিয়াস পেশেন্টদের সিরিয়াল নষ্ট করে আপনাকে যেন বারবার তার চেম্বারে আসতে না হয়৷ তাই প্রতিবার টেস্ট চেইঞ্জ না করে রোগের উপর সম্ভাব্য সকল টেস্ট আপনাকে একবারেই লিখে দিয়েছেন৷ যাতে যে কোন একটা টেস্ট এর মধ্যে আপনার রোগটা ধরা পড়ে যায়। এখানে ভুলটা আপনার ৷ কারণ আপনি সিস্টেম ব্রেক করেছেন।

খুব কমন একটা অভিযোগ অনেকের মুখেই শোনা যায়- “একজন সার্জনের পক্ষে ডেইলি ২০ টা অপারেশন করা কিভাবে সম্ভব?”

ডাক্তারও মানুষ৷ ভুল হওয়া স্বাভাবিক৷ ডেইলি ২০টা অপারেশনের মধ্যে কোন একটা ভুল অপারেশনে রোগী মারা যাওয়াটা অস্বাভাবিক না৷ আমি বলব এই দোষটাও আপনার৷ ডাক্তার কিন্তু অপারেশন করাবে বলে নিজে আপনার কাছে যায় না বরং আপনিই ছুরি-কাঁচির নিচে ব্যবচ্ছেদ হতে লাখ টাকা খরচ করে তার পেছনে ঘুরছেন। আপনি জানেন, এই ডাক্তার ডেইলি ২০টা অপারেশন করায়৷ আপনি এইটাও ভালো ভাবেই জানেন ২০ জনের মধ্যে যে কোন একজন এক্সিডেন্টালি মারাও যেতে পারে৷ তবুও আপনি তার কাছেই গেলেন৷

এইটা আমাদের সাইকোলজিক্যাল প্রবলেম। একই সরকারি কলেজ, একই ডিগ্রীধারী ডাক্তার, একই ভিজিট, তবুও আপনি ডেইলি ৫টা অপারেশন নিয়ে সন্তুষ্ট থাকে এমন ডাক্তারের কাছে যান না৷ ভীড় জমান ২০টা অপারেশন করা ডাক্তারের চেম্বারে।

খোজ নিয়ে দেখুন, এই পর্যন্ত যাদের বিরুদ্ধে রোগী মেরে ফেলার অভিযোগ উঠেছে তাদের অনেকেই ২০টা অপারেশন করা নামী ডাক্তার৷

About The Author
নীল সালু
Comments
Leave a response

You must log in to post a comment