Now Reading
যাঁর অদম্য ইচ্ছা ও ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বিশ্বে প্রতিষ্ঠা পেল স্কাউটিং (পর্ব-২)



যাঁর অদম্য ইচ্ছা ও ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বিশ্বে প্রতিষ্ঠা পেল স্কাউটিং (পর্ব-২)

স্কাউটস এর জনক “রবার্ট স্টিফেনসন স্মিথ লর্ড বেডেন পাওয়েল অব গিলুয়েল” আজকের পর্ব এই মহান ব্যাক্তিটিকে নিয়ে, চলুন জেনে নিই তাঁর সম্পর্কে বিশদ।

রবার্ট স্টিফেনসন স্মিথ লর্ড বেডেন পাওয়েল ১৮৫৭ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি ইংল্যান্ডে জন্মগ্রহণ করেন, তাঁর পিতা ছিলেন অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের খ্যাতনামা অধ্যাপক ও বিজ্ঞানী রেভারেন্ড এইচ.জি. ব্যাডেন পাওয়েল। মা ছিলেন ব্রিটিশ নৌ সেনাপতি এ্যাডমিরাল উইলিয়াম স্মিথের কণ্যা হেনরিয়েটা গ্রেস। এই উইলিয়াম স্মিথ অর্থাৎ বেডেন পাওয়েলের নানা  আমেরিকার ভার্জিনিয়া রাজ্য প্রতিষ্ঠায় বিশেষ অবদান রাখেন। মাত্র তিন বছর বয়সেই বিপি পিতৃহারা হন, সাত ভাই-বোনের মধ্যে  তাঁর অবস্থান পঞ্চম। তিনি স্কাউট আন্দোলনের সূচনা করে বিশ্ব যুবসমাজের মঙ্গল করেছিলেন। তারই স্বীকৃতিস্বরূপ তাকে লর্ড বেডেন পাওয়েল অব গিলওয়েল উপাধি দেয়া হয়। আর এ উপাধি দিয়েছিলেন তৎকালীন ব্রিটিশরাজ পঞ্চম জর্জ। মূলত তখন থেকেই তিনি বিশ্বব্যাপী লর্ড বেডেন পাওয়েল বা বিপি নামেই সুপরিচিত।

বিপি পরিণত বয়সে একজন বীর সেনা নায়ক ছিলেন, মাত্র ১৯ বছর বয়সে সাব-লেফটেনেন্ট হিসেবে ব্রিটিশ সেনাবাহিনীতে যোগদান করে ভারতে গমনের সুযোগ লাভ করেন। সামরিক কাজে অসাধারণ দক্ষতার পরিচয় দিয়ে তিনি ২৬ বছর বয়সে ক্যাপ্টেন পদে উন্নীত হন। ১৮৮৭ সালে তিনি আফ্রিকায় রণাভিযান পরিচালনা করেন, আফ্রিকার স্বদেশীয় জনগণ তার সাহস, স্কাউটিং নৈপুন্য, বিস্ময়কর চিহ্ন অনুসরণ শক্তি ও দক্ষতার জন্য তাঁকে এত বেশি ভয় করত যে তারা বিপির নামই দিয়েছিল “সদা জাগ্রত নেকড়ে বাঘ”। ১৮৯৯ সালে বিপি কর্ণেল পদে উন্নীত হন। ঐ বছরেই তিনি যখন দক্ষিণ আফ্রিকার সীমান্তের ক্ষুদ্র শহর “ম্যাফে কিং”-এ ২১৭ দিন বুয়রদের দ্বারা অবরুদ্ধ ছিলেন তখন তার নিজ সেনা দলের স্কাউটসদের ব্যবহার করে বিশাল এক সফলতা লাভ করেন। পরবর্তীতে সেই চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে স্কাউটিং বালক-বালিকাদের মধ্যে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন, যা কালক্রমে আন্দোলনে পরিণত হয়।

বিপির স্কাউটিং মূল মন্ত্র সারা পৃথিবীর মানুষ ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে গ্রহণ করে আত্মতৃপ্তি লাভ করেছে। ১৯০১ সালে বিপি দক্ষিণ আফ্রিকা হতে ইংল্যান্ডে ফিরলে ব্রিটিশ নাগরিকগণ এবং বালকদের কাছে তিনি এক মহান বীর রুপে আবির্ভূত হন। ম্যাফেকিং অবরোধের সফলতা ব্যাডেন পাওয়েলকে ব্রিটিশ রাজকীয় সেনাবাহিনীর মেজর-জেনারেল পদে অধিষ্ঠিত করে। তিনি ১৯০৭ সালের ১ আগস্ট ইংলিশ চ্যানেলে অবস্থিত ব্রাউন্সি দ্বীপে মাত্র ২০ জন ছেলেকে নিয়ে পরীক্ষামূলকভাবে বিশ্বের প্রথম স্কাউট ক্যাম্প আয়োজন করেন যার কারণে সারা ইংল্যান্ড তথা আমেরিকায় স্কাউটিং খুবই জনপ্রিয়তা ও প্রসার লাভ করে। ১৯০৮ সালে বি.পি’র লেখা বিখ্যাত জনপ্রিয় বই “স্কাউটিং ফর বয়েজ” প্রকাশিত হয়। 

১৯১০ সালে ব্যাডেন পাওয়েল “লেফট্যানেন্ট জেনারেল” থাকাবস্থায় সামরিক বাহিনী থেকে অবসর গ্রহণ করেন। ১৯১২ সালের জানুয়ারিতে রবার্ট ব্যাডেন পাওয়েল স্কাউটের বিশ্ব সফরের অংশ হিসেবে নিউইয়র্কের পথে বের হন সেসময় ঘটে যায় এক ঘটনা। পথিমধ্যে সুন্দরী ভদ্রমহিলা ওলেভ সেন্ট ক্লেয়ার সোমেজের সাথে পরিচয়, সেই থেকেই দুজন একে অপরকে পছন্দ করেন এবং ভালবাসেন। ওলেভ এর একটা গুণ ছিল, তিনি ভাল ভায়োলিন বাজাতে পারতেন…! ২৩ বছর বয়সী ওলেভ এবং ৫৫ বছর বয়সী রবার্ট একই তারিখে জন্মগ্রহণ করেছিলেন, তারিখটি ছিল ২২ ফেব্রুয়ারি, আর এই দিনটিকেই সারা পৃথিবীর স্কাউটগন বিপি দিবস হিসেবে পালন করে। তাদের মধ্যে বয়সের ব্যাবধান থাকলেও বিপির অসম্ভব জনপ্রিয়তা ও খ্যাতির ফলে গণমাধ্যমকে এড়িয়ে তারা বাগদান পর্ব সম্পন্ন করেন ১৯১২ সালের সেপ্টেম্বরে। তারপর তারা কঠোর গোপনীয়তায় পার্কস্টোনের সেন্ট পিটার্স চার্চে একই বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন।

মজার ব্যাপার কি জানেন!  ইংল্যান্ডের স্কাউট এবং গাইডরা বিপিকে এতই ভালবাসত যে, প্রত্যেকেই এক পেনি করে চাঁদা সংগ্রহ করেন আর সংগ্রহীত অর্থ দিয়েই ব্যাডেন-পাওয়েল দম্পতিকে বিয়ের উপহারস্বরূপ দেন একটি গাড়ী। ব্রাউনসী আইল্যান্ডের সেন্ট ম্যারি’জ চার্চের অভ্যন্তরে তাঁদের বিয়ের স্মারক চিহ্ন রয়েছে। রবার্ট ব্যাডেন-পাওয়েল এবং ওলেভ সেন্ট ক্লেয়ার ব্যাডেন পাওয়েল হ্যাম্পশায়ারের বেন্টলের কাছাকাছি প্যাক্স হিলে ১৯১৯ থেকে ১৯৩৯ সাল পর্যন্ত বসবাস করেছিলেন।

বিপি ১৯২০ সালে লন্ডনে দুনিয়ার সকল স্কাউটিং এর সমন্বয়ে প্রথম আন্তর্জাতিক সমাবেশ বা বিশ্ব জাম্বুরী আয়োজন করেন।  ৬ আগস্ট এই জাম্বুরীর শেষ সন্ধ্যায় উৎফুল্ল বালক, জনতার বিরাট সমাবেশ বিপিকে “বিশ্বের প্রধান স্কাউট” রুপে ঘোষণা করে। এটা ছিল বিপির প্রাপ্য এবং যোগ্য সম্মান। বিপি  ১৯৪১ সালের জানুয়ারি তিরাশি বছর বয়সে কেনিয়ার নাইরোবিতে মৃত্যুবরণ করেন। সেখানেই তাকে সমাধিস্থ করা হয়। তাকে স্মরণীয় করে রাখা হয়েছে বিশ্বের সর্বপ্রথম স্কাউটের পদে বরণ করে। বিভিন্ন দেশ থেকে তার স্মরণে প্রচুর ডাকটিকিট প্রকাশ হয়।

আজ এই পর্যন্তই পরবর্তী পর্বে আরো থাকছে স্কাউটিং এর নতুন কোন বিষয় নিয়ে।

About The Author
MP Comrade
Comments
Leave a response

You must log in to post a comment