Now Reading
যোগ্য নেতৃত্ব তৈরিতে রোভারিং (স্কাউটিং পর্ব-৮)



যোগ্য নেতৃত্ব তৈরিতে রোভারিং (স্কাউটিং পর্ব-৮)

রোভার অঞ্চল, বাংলাদেশ স্কাউটস এর ১২টি অঞ্চলের মধ্যে একটি অঞ্চল। স্কাউটিং বিষয়ক ধারাবাহিক প্রবন্ধের আজকের পর্ব রোভারিং নিয়ে।

কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ইউনিট এবং বিভিন্ন মুক্তদল নিয়ে রোভার অঞ্চল গঠিত। উল্লেখ্য, বাংলাদেশে স্কাউটদের সংখ্যা প্রায় ১৩ লাখ, যার মধ্যে ৫০ হাজারের মত রোভার। ব্যাডেন পাওয়েলের ভাষায় রোভার হচ্ছে মুক্তাঙ্গনে সেবার আদর্শে ভ্রাতৃত্ব। রোভারিং হচ্ছে বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ, দক্ষতা ও মানবিক গুণাবলি অর্জনের মাধ্যমে সমাজ উন্নয়ন ও সেবার লক্ষ্যে আজীবন আত্মনিয়োগ। রোভারিং এমন একটি অভিজ্ঞতা যার মাধ্যমে সে সুনাগরিকত্ব অর্জন করে সমাজসেবা ও সমাজ উন্নয়নমূলক কাজে অংশ নেয়। রোভারিং পরিচালনার জন্য ব্যাডেন পাওয়েল তার বইগুলিতে লিপিবদ্ধ করেন একটি প্রোগ্রাম বা সিলেবাস এবং কিছু নিয়মাবলি। রোভারদল পরিচালনার জন্য একজন প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত রোভার স্কাউট লিডার থাকেন। রোভারদলের জন্য একটি অফিস থাকে যাকে বলা হয় ডেন, যেখানে দলের জন্য প্রোগ্রামভিত্তিক পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। রোভার প্রোগ্রামের সময়কাল সাড়ে তিন বছর (জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে দুবছর)। রোভার কার্যক্রম ৪টি স্তরে বিভক্ত রোভার সহচর, সদস্য, প্রশিক্ষণ এবং সেবা স্তর। এসব স্তরে বিভিন্ন বিষয়ে দক্ষ প্রশিক্ষকদের মাধ্যমে রোভারদেরকে পর্যায়ক্রমে স্কাউট আন্দোলন, সেবা ও উন্নয়নমূলক কাজে দক্ষতা অর্জনে ট্রেনিং দেওয়ার পর এদেরকে আর্ত-মানবতার সেবা ও সমাজ উন্নয়নে কাজে লাগানো হয়। রোভারিংয়ের মূলনীতি হচ্ছে স্কাউট আইন ও প্রতিজ্ঞা পালন করা। প্রতিজ্ঞায় সে সৃষ্টিকর্তা ও দেশের প্রতি কর্তব্যপালন, সর্বদা অপরকে সাহায্য করতে এবং স্কাউট আইন মেনে চলতে যথাসাধ্য চেষ্টা করে।

স্কাউট আইন ৭টি: স্কাউট আত্মমর্যাদায় বিশ্বাসী, সকলের বন্ধু, বিনয়ী ও অনুগত, জীবের প্রতি সদয়, সদাপ্রফুল্ল, মিতব্যয়ী এবং চিন্তা, কথায় ও কাজে সে নির্মল। কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে ও মুক্ত দলে রোভারগণ নির্দিষ্ট প্রোগ্রামের মাধ্যমে নিয়মিতভাবে স্কাউট পদ্ধতিতে শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে থাকেন। স্কাউট পদ্ধতির মূল কথা হচ্ছে ক্রমোন্নতি ব্যবস্থা যার মধ্যে রয়েছে স্কাউট আইন ও প্রতিজ্ঞা, নিজে কাজ করে শেখা, উপদল ব্যবস্থা, পরিবেশ সংরক্ষণ, ক্যাম্প এবং হাইকিং, পাইওনিয়ারিং এবং প্রাথমিক প্রতিবিধানসহ বিভিন্ন বিষয়ে দক্ষতা অর্জন এবং সমাজসেবা ও সমাজ উন্নয়নে অংশগ্রহণ। প্রতিটি দক্ষতা অর্জনের জন্য নির্দিষ্ট ব্যাজ রয়েছে। যেমন সেবা প্রশিক্ষণ ব্যাজ, পরিভ্রমণকারী ব্যাজ (৫ দিনে ১০০ মাইল পায়ে হেটে ভ্রমণ বা রেম্বলিং), স্কাউট কুশলী ব্যাজ, প্রকল্প ব্যাজ (৬ মাস কোনো একটি লাভজনক অ্যাওয়ার্ড হচ্ছে ‘প্রেসিডেন্ট রোভার স্কাউট অ্যাওয়ার্ড’ অর্জন।

এ পর্যন্ত বাংলাদেশে ১৪৮ জন এই অ্যাওয়ার্ড অর্জন করেছে, যার মধ্যে চট্টগ্রামের রয়েছে ১২জন। বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় ২২০০টিরও অধিক রোভার ইউনিট রয়েছে, যার মধ্যে চট্টগ্রাম জেলাতেই রয়েছে ১১৪টি। এসব দলের মধ্যে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে টি এবং মুক্তদলের সংখ্যা হচ্ছে টি। চট্টগ্রাম জেলার প্রতিটি ইউনিট চট্টগ্রাম জেলা রোভারের অন্তর্ভুক্ত, আর চট্টগ্রাম জেলা রোভার,  রোভার অঞ্চলের অন্তরভুক্ত। বাংলাদেশে স্কাউট কার্যক্রম অত্যন্ত শক্তিশালী। বিশেষ করে দেশটি দরিদ্র, জনবহুল ও দুর্যোগপ্রবণ হওয়ায় এখানে রোভার কার্যক্রম ব্যাপকভাবে প্রসারলাভ করেছে এবং দেশ ও বিশ্বাঙ্গনে প্রশংসিত হচ্ছে। উল্লেখ্য, স্কাউটের সংখ্যা, কার্যক্রমের ব্যাপ্তি ও গুণগত মান বিচারে বাংলাদেশ বিশ্ব স্কাউট আন্দোলনের শীর্ষ ৫টি দেশের মধ্যে অন্যতম।এছাড়া বাংলাদেশ স্কাউটস রোভার অঞ্চল বিপির লেখা রোভারিং টু সাকসেস বইটির অনুবাদসহ প্রায় ডজন খানেক বই প্রকাশ করেছে।

 

About The Author
MP Comrade
Comments
Leave a response

You must log in to post a comment