সাধারন জ্ঞান

চীনের সবচেয়ে মারাত্মক ভয়ংকর জায়গা

পৃথিবীতে ভূত বলে আদৌ কোনো কিছুর অস্তিত্ব আছে কিনা তা নিয়ে বিতর্কের কোন শেষ নেই। তারপরেও ভূতের ভয় পায় না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। বিজ্ঞান কখনই ভূতের অস্তিত্বকে স্বীকার করে না। তারপরেও মানুষ ভূতে ভয় পায়, কেউ কেউ তো আবার নিজে ভূত দেখেছে বলেও দাবি করে থাকে।

পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে এমন অনেক জায়গা আছে যেখানে গেলে ভয়ে আপনার গা ছমছম করে উঠবে। যেসব জায়গার সাথে মিশে আছে অদ্ভুত ভূতুরে সব ঘটনা।আজকে আমি চীনের তথাকতিথ ভূতপূর্ব অবস্থান গুলোর সব তথ্য দিবো যেখানে ভুত বা ভুত ছাড়া অতি প্রাকৃতিক প্রানি দ্বারা অনেক অনেক ভয়ংকর ঘটনা।ভূতুরে অবস্থানের প্রতিবেদনগুলো ঘটে যাওয়া লোকালোকের এক একটা রূপ। এই তালিকার মধ্যে শীর্ষে বিশেষ প্রশাসনিক অঞ্চল হংকং এবং মাকাও রয়েছে।

হাই স্ট্রিট গোস্ট হাউজ,হংকং ।

প্রায় ২০ বছর আগে রেডিও হোস্ট এডমন্ড পা সিউ-চুং হট লাইন শোটি তে এসেছিলেন তার বিস্ময়কর অভিজ্ঞতা শ্রোতাদের জানিয়েছিল হাই স্ট্রিট গোস্ট হাউজ এর ব্যপারে। 46 বছর বয়সী পুন বলেন আমি হঠাৎ করেই অস্বাভাবিক ব্যাপারে আমার আগ্রহ বাড়িয়ে দিই, নিজেকে প্রশ্ন করি যে কেন ভুত জীবিত কোন মানুষকে বিপদে ফেলবে?
“হয়তো আপনার ভাগ্য খারাপ ,তাই ভূত আপনাকে প্রভাবিত করতে পারে, অথবা যদি আপনি কাউকে হত্যা করেন তবে তারা আপনার প্রতিশোধ নেবে। কিন্তু, যদি আপনি ইচ্ছাকৃতভাবে ভূতদের বিরক্ত করার জন্য ভুতুড়ে জায়গাগুলিতে যান তবে তারা আপনাকে বিরক্ত করবে।

ভূত শিকারের জন্য হংকংয়ের একটি জনপ্রিয় স্থান হাই স্ট্রিটের সাই ইং পাউন কমিউনিটি কমপ্লেক্স হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছিল, এটি হাইস স্ট্রিট হাউস হাউস নামে পরিচিত। ১২৪ বছর বয়সী কাঠামো মূলত নার্সদের ‘ডরমিটিরি’ ছিল এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় জাপানিদের দ্বারা দখল করে নেয়া এই বাড়ীটি। শহুরে পৌরাণিক কাহিনীটি হ’ল ভবনটি আরামদায়ক,নারীদের বাসস্থান হিসাবে এমনকি মৃত্যুদন্ডের হলের স্থান হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছিল।
যুদ্ধের সময় চিকিৎসা সরবরাহের অভাবে “অনেক মানুষ সেখানে মারা যায়।অথবা তারা বাঁচতে পারে না, কিছু লোক মারা যাওয়ার অপেক্ষায় ছিল, তাই সেখানে অনেক ভূত আছে।
এই বাড়ীটি ত্যাগ করার আগ পর্যন্ত যুদ্ধের পর ১৯৭০ সালে এটি একটি মানসিক হাসপাতাল হিসেবে ছিল ।

গুয়ায় পাহাড়, মাকাও

মাকাও স্থানীয়দের কাছে বর্ণিত ভূতগুলির নিজস্ব বিপজ্জনক এবং ভয়াবহ নিয়ে অজানা কেউ নেই, এই শহরের ভীতিকর জায়গা গুলোর মধ্যে সবচেয়ে ভয়ংকর ”গুয়ায় পাহাড়” guia hill ।

গুয়ায় হিলের ভয়ংকর ঘটনাগুলো এই এলাকায় বছর ধরে rife হয়েছে। অনেক শিশুকে বলা হয়ে থাকে যে তারা যদি দুষ্টু হয় তবে তারা গুয়ায় পাহাড়ের ভূগর্ভস্থ টানেলগুলিতে লক হয়ে যাবে। সেই ছোট্ট অন্ধকার টানেল বছর ধরে বাচ্চাদের জন্য দুঃস্বপ্নের উপাদান ছিল কারণ এটি সুপরিচিত ছিল যে প্রাচীনকালে, চীনা পূর্বপুরুষদের মৃতদেহ গুয়ায় পাহাড়ে দাফন করেছিল। বলা হয়ে থাকে যে, যদি আপনি রাতে সেখানে কোন ভাবে আটকে যান অথবা চলাচল করেন, তবে তাদের মৃত লাশ ভূত হয়ে খেলা করতে আসে।

গুয়ায় সবচেয়ে বিখ্যাত ভূত গল্প এক চলমান ট্র্যাক সম্পর্কিত। ৬০ এর বা ৭০ এর দশকে গুজব ছড়িয়ে পড়েছিল, একটি তরুণ রুকি পুলিশ ছিল, যিনি এই ‘ভুতুড়ে গল্পটি’ চ্যালেঞ্জ করতে চেয়েছিলেন, তাই তিনি একদিন উজ্জ্বল ধূপ ধারণ করে পাহাড়ের চারপাশে ঘুরে বেড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন এবং যখন তিনি শেষ করতে যাচ্ছিলেন ল্যাপ, তিনি হঠাৎ তার পিছনে পায়ে হাঁটার অনেক শব্ধ শুনতে পেয়ে তিনি পিছনের দিকে তাকিয়ে দেখতে পান ভূতেরা তার পিছনে ভিড় করে দৌড়াচ্ছে। ভীষণ ভয় পেয়ে তিনি হাতের মশালটি ফেলে পালিয়ে গেল, ভূতেরা ঘুরে বেড়াতে লাগলো এবং এই ধূপটি খেয়ে ফেলল, যা ভূতদের খাবার। তাই যদি আপনি রাতে কোন পাহাড়ের চারপাশে যান, তবে আপনি আপনার পিছনে যাই শুনতে পাননা কেন মাথা ঘুরিয়ে কখনো পিছনে তাকাবেন না ।

চৈনি চার্চ, ছাওয়াং

২0 শতকের প্রথম দিকে ক্যাথলিক চার্চে নির্মিত হয়েছিল, এটি বেইজিংয়ে বসবাসরত ব্রিটিশ মিশনারিদের আবাসস্থল ছিল।চৈনি চার্চ কি আসলেই ভুতুড়ে ক্ষতিকারক ও পরিত্যক্ত অবস্থায় শিকারের একটি বাড়ী ।
বিল্ডিংটি নির্মাণকারী যাজক হঠাৎ অদৃশ্য হয়ে গেলেন,সবখানে গুজব ছড়িয়ে পড়ে!ঘটনাটি উদ্ঘাটন করার দাবি করে একটি investigators দল পাঠানো হয়। তারা যখন এই বাড়ীটি অনুসন্ধান করে, তখন তারা সেই ক্রিপ্টে একটি সুড়ঙ্গ খুঁজে পায় যা বেইজিংয়ের দাশানজির জুইক্সিয়ানকিয়াও লু। পরে সেই টিম-টির কেউকে খুঁজে পাওয়া যায়নি

অন্য গল্পগুলির মধ্যে রাজবংশের পতনের আগে গির্জার বসবাসকারী সরকারী কর্মকর্তার স্ত্রী বাড়িতে আত্মহত্যা করেছিলো এবং তারপর থেকে কান্না শুনতে পাওয়া যায় । কিছু লোক বলেছে তারা নারীদের কড়াকড়ি নিয়ে ঘুরে বেড়ানোর দৃশ্য দেখেছে ।

একই রকম আরো কিছু ফুটপ্রিন্ট

চেরনোবিল – অজানা মৃত্যুর শহর (দ্বিতীয় পর্ব)

Abdullah-Al-Mahmood Showrav

অশ্রুত, অপরিচিত রথসচাইল্ড পরিবার

Raihan Tanvir

দীর্ঘায়ু প্রাপ্ত জনপ্রিয় কিছু পোষা প্রাণীর সন্ধানে

MP Comrade

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

Privacy & Cookies Policy