Now Reading
ওবায়দুল কাদেরের সুস্থতা কামনা করছেন জামায়াত ইসালামী সহ দেশের বিভিন্ন জায়গায়



ওবায়দুল কাদেরের সুস্থতা কামনা করছেন জামায়াত ইসালামী সহ দেশের বিভিন্ন জায়গায়

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সুস্থতা কামনা করেছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমান। ওবায়দুল কাদের বাংলাদেশের রাজনীতির ক্ষেত্রে একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব, বলেছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমান।। আমরা তার দ্রুত সুস্থতা কামনা করছি এবং আশা করছি, সুস্থ হয়ে ফিরে তিনি দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে ইতিবাচক ভূমিকা পালন করবেন। সোমবার (৪ মার্চ) রাতে এক বিবৃতিতে জামায়াত নেতা এ সব কথা বলেন।

ঐ বিবৃতিতে শফিকুর রহমান আরও বলেন, ‘ওবায়দুল কাদেরের অসুস্থতায় আমরা উদ্বেগ প্রকাশ করছি।’

কোম্পানীগন্জ: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সুস্থতা কামনায় দ্বিতীয় দিন সোমবারেও তার নির্বাচনী এলাকার বিভিন্ন স্থানে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদলের উদ্যোগে চরফকিরা ইউনিয়নের চাপরাশিরহাট বাজারে আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। এ সময় চরফকিরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন লিটন, চরফকিরা ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান হানিফ পাটোয়ারী, সহসভপতি ও ইউপি মেম্বার সফিকুল আলম সোহাগ, সুলতান আহমেদ, চরফকিরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি আশ্ররাফ হোসেন রবেন্সসহ স্থানীয় অনেক নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া উপজেলার বিভিন্ন মসজিদে দোয়া ও মিলাদ এবং মন্দিরগুলোতে বিশেষ প্রার্থনার আয়োজন করা হয়।

ধানমন্ডি: সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক সুস্থতা কামনায় রোববার বিকালে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে ধানমণ্ডিতে অবস্থিত আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে।
কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে এ সময় উপস্থিত ছিলেন- যুগ্মসাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, প্রচার সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমানসহ অনেকে।
ভোলা: ভোলায় জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে ওবায়দুল হক মহাবিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সোমবার ওবায়দুল কাদেরের রোগমুক্তি কামনা করে দোয়া মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ সময় দলের সহসভাপতি অ্যাডভোকেট জুলফিকার আহম্মেদের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আব্দুল মমিন টুলু, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোশারফ হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগ যুগ্ম সম্পাদক জহুরুল ইসলাম নকিব, উপজেলা আওয়ামী লীগ সম্পাদক নজরুল ইসলাম গোলদার , পৌর মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান, জেলা আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক মইনুল হোসেন বিপ্লব, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ ইউনুছ , ইউপি চেয়ারম্যান মো. জসিম উদিদ্দন, ইউপি চেয়ারম্যান বশির আহমেদ, ইউপি চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন মাতাব্বরসহ অনেকে।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা এখন আগের চেয়ে ভালো। জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে থাকা ওবায়দুল কাদেরের চোখ খুলতে পারছেন। তবে কথা বলতে বা প্রতিক্রিয়া জানাতে পারছেন না। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন কাদেরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে নিতে একটি এয়ার অ্যাম্বুলেন্স রোববার রাতে ঢাকায় পৌঁছে।
সেখানে এসেছেন সিঙ্গাপুর মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালের দুই চিকিৎসক ও দুই সেবিকা। রাত সাড়ে ১২টার দিকে ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থার বেশ উন্নতি হয়েছে বলে জানা গেছে।
সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের রোববার ভোরে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে বিএসএমএমইউ হাসপাতালে নিয়ে আসেন স্ত্রী ইশরাতুন্নেসা কাদের। এনজিওগ্রামে তিনটি বড় ধরনের ব্লকসহ একাধিক ব্লক রক্তনালীতে ধরা পড়লে চিকিৎসকরা একটি অপসারণ করেন।
ম্যাসিভ হার্ট অ্যাটাক করে ‘জীবন শঙ্কায়’ থাকা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ওপেন হার্ট সার্জারির সিদ্ধান্ত নিয়েছেন চিকিৎসকরা। সপ্তাহখানেক পর তার ওপেন হার্ট সার্জারির পরিকল্পনা করছেন মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালের চিকিৎসকরা।
মঙ্গলবার মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে ব্রিফ করতে গিয়ে এ তথ্য জানিয়েছেন তারা।
চিকিৎসকরা জানান, সপ্তাহখানেক পর ওবায়দুল কাদেরের ওপেন হার্ট সার্জারি করা হবে। তারা আরও জানান, ওবায়দুল কাদেরের শরীরে ইনফেকশন রয়েছে। এ ছাড়া তার কিডনিতেও সমস্যা রয়েছে। তবে সেগুলো গুরুতর নয়। আগামী দুদিন তার কিডনি ডায়ালাইসিস করা হবে। আগের তুলনায় ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা উন্নতির দিকে, এমন তথ্য জানিয়ে ডা. বলেন উনার অবস্থা আগের তুলনায় কিছুটা ভালো। নতুন করে যেসব পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে, সেগুলোর প্রতিবেদন পাওয়ার পর পরবর্তী চিকিৎসার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন চিকিৎসকরা।

About The Author
Md Meheraj
Md Meheraj
Comments
Leave a response

You must log in to post a comment