Now Reading
কারাগার পরিবর্তন হতে পারে খালেদা জিয়ার



কারাগার পরিবর্তন হতে পারে খালেদা জিয়ার

ঢাকা কেরানীগঞ্জের কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানোর গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে। কিন্তু বেগম জিয়াকে সেখানে কখন নেওয়া হবে তা সঠিক এখনো জানা যায়নি। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের পাশেই মহিলাদের জন্য একটি আলাদা কারাগার হচ্ছে এবং সেখানেই বেগম জিয়াকে রাখা হবে বলে নিশ্চিত করছে একাধিক সূত্র।
প্রায় ৩০০ নারী বন্দীর জন্য একটি কারা কম্পাউন্ড তৈরি হচ্ছে। এর কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। সেটা যেহেতু আলাদা জেল সেখানে আলাদা অ্যাডমিনিস্ট্রেশন থাকবে, আলাদা জেলার থাকবে আলাদা সুপার থাকবে বলে বিষয়টি গণমাধ্যমকে জানান ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার মাহবুব আলম।
জেলের মধ্যে যেকোনো বন্দী থাকতে পারে বলেও তিনি জানান। খালেদা জিয়া থাকবে কিংবা অন্য কেউ থাকবে না বিষয়টা এমন নয়। যেহেতু মহিলাদের একটা জেল হচ্ছে সেখানে উনাকে রাখা হতেই পারে। এখন যদি তাকে কাশিমপুরের মহিলা জেলে পাঠানো হয় তাকে কাশিমপুরও যেতে হতে পারে।
২০১৮ সালের জুনে শেষ হওয়ার কথা এই ৩০০ জন ধারণক্ষমতা সম্পন্ন জেলটির নির্মাণকাজ । তবে আট মাস পেরিয়ে গেলেও কাজ সম্পন্ন হয়নি। দ্রুত কাজ সম্পন্নের জন্য ফেব্রুয়ারিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন সচিব জেলখানা পরিদর্শন করেন। এরপর থেকেই শোনা যাচ্ছিল খালেদাকে সরিয়ে নেয়ার গুঞ্জন। এছাড়াও পুরান ঢাকার কারাগারটিতে পুরান ঢাকাবাসীর জন্য বিনোদনকেন্দ্রে পরিণত করার কাজটিও এখনো সম্পন্ন হয়নি খালেদার কারণে।
গত বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছরের সাজা ঘোষণার দিন থেকে নাজিমুদ্দিন রোডের পুরাতন কারাগারে আছেন খালেদা জিয়া। আদালতের অনুমতি নিয়ে খালেদার সঙ্গে থাকছেন ফাতেমা বেগম (৩৫)। ফাতেমা দীর্ঘদিন ধরে খালেদা জিয়ার গৃহপরিচারিকা হিসেবে কাজ করছেন। কারাগারে খালেদা জিয়ার সঙ্গে একই সেলে থাকছেন তিনি।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) দুইবার চিকিৎসা করানো হয় অসুস্থতার কারণে খালেদা জিয়াকে । সর্বশেষ বিএসএমএমইউতে নেয়ার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হলেও খালেদা জিয়াকে গত রোববার দুপুরে সেখানে যেতে অনীহা প্রকাশ করায় খালেদা জিয়াকে হাসপাতালে নিতে পারেনি কারা কর্তৃপক্ষ।
একটি চারতলা, একটি তিনতলা ও একটি দোতলা ভবন করা হয়েছে কেরানীগঞ্জে মহিলা কারাগারে । ডিভিশনপ্রাপ্ত বন্দিদের তিনতলা এই ভবনটিতে রাখা হবে । চারতলা ভবনটিতে রাখা হবে সাধারণ নারী বন্দিদের। এ ছাড়া তিনতলাবিশিষ্ট একটি হাসপাতালও করা হয়েছে। যেখানে শুধু নারী বন্দিরাই চিকিৎসা নিতে পারবেন। আরো করা হয়েছে একটি কিশোরী সেল।
তিনতলার ডিভিশনের ভিআইপি সেলে রাখা হবে খালেদা জিয়াকে। বর্তমানে বিদ্যুৎ সংযোগের কাজ চলছে ভবনগুলোতে । ভবন পানি, বিদ্যুৎসহ বসবাসের উপযোগী করার পরই দ্রুত খালেদা জিয়াকে স্থানান্তর করা হবে। তবে এখন পর্যন্ত তারিখ নির্ধারিত হয়নি। খালেদা জিয়াকে কেরানীগঞ্জে সরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত এখন পর্যন্ত চূড়ান্ত, তবে এ সিদ্ধান্ত পরিবর্তনও হতে পারে বলে জানিয়েছেন কারা কর্তৃপক্ষ ।

About The Author
Md Meheraj
Md Meheraj
Comments
Leave a response

You must log in to post a comment