Now Reading
বিনা দোষে নিষ্ঠু ও নির্মম সাজা ভোগ করছে অসহায় ও অবুঝ শিশুরা



বিনা দোষে নিষ্ঠু ও নির্মম সাজা ভোগ করছে অসহায় ও অবুঝ শিশুরা

বিনা দোষে অপরাধের সাজা নির্মমভাবে ভোগ করতে হচ্ছে তাদেরও। মা-বাবার ভুল সিদ্ধান্তে, মা-বাবার দোষে বলি হতে হচ্ছে। পৃথিবীতে এসেই নিষ্ঠুরতা দেখতে হচ্ছে তাদের। ন্যূনতম সহানুভূতিও যেন জোটে না। কাউকে ন্যূনতম নাগরিক অধিকারবঞ্চিত হয়ে প্রতিকূলতার মধ্যে জীবন শুরু করতে হচ্ছে। কেউ কেউ প্রতিকূলতার মুখে টিকতে না পেরে বিদায় নিচ্ছে পৃথিবী থেকে। আইএস–বধূ শামীমা বেগমের সন্তানকে যেভাবে বিদায় নিতে হয়েছে। মা-বাবা জঙ্গি হলেও এই শিশুদের বাঁচানোর আহ্বান জানিয়েছেন নোবেল শান্তি পুরস্কারজয়ী ভারতের কৈলাস সত্যার্থী।

আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট বা আইএসে যোগ দেওয়া নারীদের সন্তানদের বাঁচাতে ইউরোপীয় সরকারগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন নোবেলজয়ী কৈলাস সত্যার্থী। ব্রিটিশ নাগরিক আইএস–বধূ শামীমা বেগমের সন্তানের মৃত্যুর পর এক প্রতিক্রিয়ায় তিনি যেসব দেশের নাগরিকেরা আইএসে যোগ দিয়েছিলেন, তাঁদের নিজ নিজ নাগরিকের সন্তানদের সুরক্ষা দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

সিরিয়ায় আইএস পরাজিত হওয়া শুরু করলে তাদের হাজার হাজার নারী ও শিশু বাঘুজে থেকে স্রোতের মতো পালাতে থাকে। বাঘুজে ছিল সিরিয়ায় আইএসের সবশেষ শক্ত ঘাঁটি। কুর্দি নেতৃত্বাধীন সামরিক বাহিনী সেখানে ব্যাপক হারে হামলা চালায়। পালিয়ে আসা আইএসের নারী ও শিশুরা তাদের নিজ নিজ দেশগুলোর চরম উদাসীনতার মুখে পড়ে। জিহাদি ও আইএসের প্রতি সহানুভূতিশীল ব্যক্তিদের দেশে ফিরিয়ে এনে বিচারের মুখোমুখি করা এবং তাদের সন্তানদের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ব্যাপারে উদাসীনতা দেখায় দেশগুলো।

জাতিসংঘের শিশুবিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফের তথ্য অনুসারে, সিরিয়ার আল-হোল শরণার্থীশিবিরে ৪৩টি দেশের তিন হাজার বিদেশি শিশু আছে। এর মধ্যে বেশির ভাগই আইএসের পতনের পর গত কয়েক সপ্তাহে শরণার্থীশিবিরে এসেছে।

কৈলাস সত্যার্থী বলেন, হয়তো এই শিশুরা জিহাদি বা আত্মঘাতী বোমা হামলাকারী বা জঙ্গির সন্তান। তারা সেই সব পরিবারে জন্ম নিয়েছে, এটা তো তাদের কোনো দোষ না।

কিছু দেশ, বিশেষ করে রাশিয়া আইএসে যোগ দেওয়া তাদের নাগরিকদের সন্তানদের পুনর্বাসন করেছে। তাদের পরিবারের সদস্য বা অন্য কোনো বাবা-মায়ের (ফস্টার প্যারেন্ট) কাছে তুলে দিয়েছে। তবে ফ্রান্স, বেলজিয়াম ও ব্রিটেন ওই শিশুদের ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে একেবারেই নারাজ।

About The Author
salma akter
Comments
Leave a response

You must log in to post a comment