আন্তর্জাতিক

২৫ সেপ্টেম্বরকে ‘বাংলাদেশি অভিবাসী দিবস’ হিসেবে ঘোষনা দিলেন নিউ ইয়র্ক সিনেট

নিউ ইয়র্ক সিনেটে ‘বাংলাদেশি অভিবাসী দিবস’ আইন পাশ হয়েছে । এ বছর থেকে নিউইয়র্ক স্টেটে ২৫ সেপ্টেম্বর ‘বাংলাদেশি অভিবাসী দিবস’ হিসেবে পালিত হবে। নিউইয়র্ক স্টেট ক্যালেন্ডারে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে দিনটিকে। মুক্তধারা ফাউন্ডেশননের প্রতিষ্ঠাতা বিশ্বজিত সাহা’র পক্ষ থেকে ২৭ ফেব্রুয়ারি আলবেনিতে অনুষ্ঠিত সেনেট অধিবেশনে এই বিলটি উত্থাপন করেন টবে আন্ স্তাভাস্কি। সর্বসম্মতিক্রমে পাশ হওয়ার পরে ‘বাংলাদেশি অভিবাসী দিবস’ রেজ্যুলেশন ৩২২ নাম্বারের আইনটি ঘোষণা করেন নিউইয়র্ক স্টেটের গভর্নর এণ্ড ক্যুমো।

বালাদেশি অভিবাসী দিবস হিসেবে ২৫ সেপ্টেম্বরকে বাচাই করা প্রসঙ্গে দিবসটির স্বপ্নদ্রষ্টা বিশ্বজিত সাহা বলেন, ১৯৭৪ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে প্রথমবারের মত বাংলাদেশের স্থপতি শেখ মুজিবুর রহমান বাংলায় ভাষণ দিয়েছিলেন। তাই দিনটি বাঙালি জাতি ও বাংলা ভাষার জন্য খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। আগামী ২০২১ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শত জন্মবার্ষিকী। তার আগে ২৫ সেপ্টেম্বরকে বাংলাদেশ রাষ্ট্রীয়ভাবে ‘বাংলাদেশি অভিবাসী দিবস’ ঘোষণা করে জাতির জনককে শ্রদ্ধা জানাবার গৌরবতম অধ্যায় হবে বলে মনে করেন।

বিশ্বজিত সাহা আরো বলেন, বিশ্বে প্রবাসী আয়ের দিক থেকে বাংলাদেশের অবস্থান নবম। বাংলাদেশ পৃথিবীর পঞ্চম বৃহত্তম দেশ যে দেশের এত বিপুলসংখ্যক প্রবাসী রয়েছে। বিশ্বব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বর্তমানে প্রায় ৮৮ লাখ বাংলাদেশি বাস করেন। বাংলাদেশ জন্মের ৪৭বছরেও এ বিপুল সংখ্যক প্রবাসীদের জন্য আলাদা কোনো দিবস ছিলোনা। আজ প্রবাসীদের জন্যও একটি দিবস হয়েছে। সকল প্রবাসীদের পক্ষ থেকে বাংলাদেশ সরকারের কাছে আকুল আবেদন করেছেন তিনি যেনো ২৫ সেপ্টেম্বরকে ‘বাংলাদেশি অভিবাসী দিবস’ হিসেবে সংসদে আইন আকারে পাশ করা হয় যেমন আইন পাশ করা হয়েছে নিউইয়র্ক স্টেটে।

সিনেট অফিস থেকে পাশ হওয়া রেজ্যুলেশনটি ১২ মার্চ মুক্তধারা ফাউন্ডেশনে পাঠানো হয়। আগামি ১৭ মার্চ নিউইয়র্কে অনুষ্ঠিতব্য শিশু-কিশোর মেলায় এই রেজ্যুলেশনটি প্রদর্শিত হবে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন উপলক্ষে মুক্তধারা ফাউণ্ডেশন গত ৩ বছর ধওে এই শিশু-কিশোর মেলা আয়োজন করে আসছে।

কিন্তু বাংলাদেশি অভিবাসী দিবস আইন পাশ করার লক্ষে বিশ্বজিত সাহা ২০১৬ সালের ১২ ডিসেম্বর প্রথম সেনেটর টবে আন্ স্তাভাস্কির কাছে আবেদন করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৭ সালের জানুযারি মাসে সেনেট অধিবেশনে এই প্রস্তাব উত্থাপিত হলে রিপাবলিকান সেনেটরদের বিরোধিতার মুখে বাতিল হয়ে যায়। পরে বিশ্বজিত সাহা ২০১৭ সালের জানুয়ারি মাসে সেনেটর হোজে প্যারাল্টার সঙ্গে দেখা করে বিষয়টি তাকে জানান।

সেনেটর আশ্বাস দেন এবং ২০১৮ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর হোজে পেরাল্টা একটি প্রকলেমেশনে ২৫ সেপ্টেম্বরকে ’বাংলাদেশি অভিবাসী দিবস’ হিসাবে ঘোষণা করেন । ইতোপূর্বে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের রেজ্যুলেশটিও সেনেটর হোজে প্যারাল্টার প্রস্তাবনায় নিউইয়র্কে স্টেটে পাশ হয়েছে এবং তা স্টেট ক্যালেণ্ডারের অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।

একই রকম আরো কিছু ফুটপ্রিন্ট

ধনী রাষ্ট্রের সাথে গরীব রাষ্ট্রের বৈষম্য

MP Comrade

ইথিওপীয়ার উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত নিয়ে উঠছে হাজারো প্রশ্ন

salma akter

পাকিস্তানের দিকে প্রবাহিত পূর্বাঞ্চলীয় সুতলেজ, রাভি ও বিয়াস নদীর পানি বন্ধ করে দিয়েছে নয়াদিল্লি

salma akter

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

Privacy & Cookies Policy