Now Reading
অস্ট্রেলীয় নাগরিক ব্রেন্টন ট্যারান্টের দুই বাড়িতে অভিযান চালিয়েছে পুলিশ



অস্ট্রেলীয় নাগরিক ব্রেন্টন ট্যারান্টের দুই বাড়িতে অভিযান চালিয়েছে পুলিশ

পূর্ব ঘোষণা দিয়ে নিউজিল্যান্ডের মসজিদে গুলি করে ৫০ মুসল্লিকে হত্যা করা অস্ট্রেলীয় নাগরিক ব্রেন্টন ট্যারান্টের সঙ্গে যোগসূত্র থাকা দুই বাড়িতে অভিযান চালিয়েছে পুলিশ। সোমবার এ অভিযান পরিচালনা করে অস্ট্রেলীয় পুলিশ। যে দুই বাড়িতে অভিযান চালায় পুলিশ তার একটি স্যান্ডি বিচ শহরে এবং অপরটি লরেন্স শহরে অবস্থিত। এ দুটি এলাকা গ্রাফটন শহরের কাছে অবস্থিত।

এই অভিযানের প্রাথমিক লক্ষ্য হচ্ছে এমন কিছু উপাদান খুঁজে বের করা যা নিউজিল্যান্ড পুলিশকে তাদের চলমান তদন্তে সহায়তা করতে পারে। ব্রেন্টন ট্যারান্টের পরিবারও পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহায়তা করছে। তবে অভিযানে বর্তমান বা আসন্ন হুমকির কোনও তথ্য পাওয়া যায়নি। শ্বেতাঙ্গ আধিপত্যবাদী ব্রেন্টন ট্যারান্ট নিজ দেশ অস্ট্রেলিয়া ত্যাগের আগে এ গ্রাফটন শহরেরই বাসিন্দা ছিলেন। ২০১৬ সালে সে সার্বিয়া, মন্টেনিগ্রো, বসনিয়া অ্যান্ড হার্জেগোভিনা, ক্রোয়েশিয়া সফর করে ট্যারান্ট। এ সময় সে এসব দেশের ইতিহাসের নানা উল্লেখযোগ্য রণক্ষেত্রগুলো পরিদর্শন করে। এছাড়া বিভিন্ন সময়ে তুরস্ক, বুলগেরিয়া ও ইসরায়েল সফর করেন।

মসজিদে হামলার আগে অনলাইনে ১৬ হাজার ৫০০ শব্দের একটি ইশতেহারে নৃশংস এ হামলার পেছনে নিজের বক্তব্য তুলে ধরে খুনি ব্রেন্টন ট্যারান্ট। সেখানে মোটা দাগে উঠে আসে মুসলিমবিদ্বেষ, অভিবাসী বিদ্বেষ ও শ্বেতাঙ্গ আধিপত্যবাদের মতো বিষয়গুলো। মুসলমানদের উসমানীয় খিলাফতের বিরুদ্ধে তৎকালীন ইউরোপীয় খ্রিস্টানদের বিজয়ের কথাও উল্লেখ করেছে সে। বর্তমান তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোয়ানের মৃত্যুও কামনা করে হামলাকারী। এছাড়াও এই হামলার পরিকল্পনার কথাও বলেছেন ইশতেহারে।
ট্যারান্টের ব্যবহৃত অস্ত্রটি ছিল একটি আধা-স্বয়ংক্রিয় রাইফেল।

About The Author
salma akter
Comments
Leave a response

You must log in to post a comment