Now Reading
ব্ল্যাক [কোরিয়ান টিভি সিরিজ রিভিও]



ব্ল্যাক [কোরিয়ান টিভি সিরিজ রিভিও]

যেহেতু একটা ওয়েব সিরিজ নিয়ে লিখছি,পোস্টের দৈর্ঘ্য লম্বা হবে

টুইস্ট কতো প্রকার ও কি সেটা আমরা Forgotten,Old Boy,No benevolence এর মতো কোরিয়ান মুভিগুলো দেখে ভালোভাবেই টের পেয়েছি…

এইসব ২-৩ ঘন্টার মুভিতে পরিচালক আমাদের এমন পর্যায়ে নিয়ে যায়,এমন একটা মুহুর্তে আমাদের আটকে দেয়, থ মেরে বসে থাকি আমরা।মুভি দেখার পর মনে হয়,এটা কি দেখলাম!

সাধারণত এইসব ২-৩ ঘন্টার মুভির রেশ আমাদের মধ্যে বেশকিছুক্ষণ থেকে যায়,অনেকের বেশ কয়েকদিন পর্যন্ত মাথায় ঘুরতে থাকে,এটা কি দেখলাম!

তবে এখন সেইরকম ২-৩ ঘন্টার কোনো মুভি নিয়ে আলোচনায় যাচ্ছি না।আলোচনা করবো ১৮ এপিসোডের একটা কোরিয়ান ওয়েবসিরিজ নিয়ে যেটা প্রচলিত সব K-show বা কোরিয়ান ড্রামার সাথে তাল মিলিয়ে তৈরী হয় নি।এখানে অতিরিক্ত লুতুপুতু খুজে পাবেন না,জোর করে হাসানো-কাদানোর চেষ্টাও করা হবে না,দুন্দুমার একশন’ও পাবেন না…

তাহলে কেনো দেখবেন এই ওয়েব সিরিজ,কি এমন আছে?

এটার সুনির্দিষ্টভাবে কোন জনরার সিরিজ,সেটা আমি বলতে পারবো না।আমার কাছে এটা ফুল প্যাকেজ।Romance,Comedy,Drama,Fantasy,Crime,Action,Thriller,Psychological Spine chiller সব পাবেন,কি নেই এতে?তবে অতিরিক্ত কিছু না,সবকিছু পরিমাণমতো।

কিন্তু স্টোরিতে আমি থ্রিলারকেই বেশী প্রাধান্য দেবো।এপিসোড সংখ্যা যত সামনে আগাবে,দেখা যাবে পেয়াজের খোসার মতো একটার পর একটা নতুন রহস্য বের হয়ে আসছে।সামনে কি অপেক্ষা করছে সেটা আপনার কল্পনার বাইরেই থেকে যাবে সবসময়।চিন্তা করে দেখুন,একটা ২-৩ঘন্টার মুভি দিয়ে যেভাবে আমাদের স্তব্ধ করে দেওয়া হয়,সেইখানে ১ ঘন্টা করে লম্বা প্রত্যেকটা,মোট ১৮টা এপিসোড কি করবে সেটা দেখার পরেই বুঝবেন…

Dark – Korean Show (2017)

#IMDB_rating: 8.1

[স্পয়লার ফ্রি করার যথাসম্ভব চেষ্টা করেছি]

এই সিরিজের প্লট এক বিশেষ ক্ষমতাসম্পন্ন তরুণীকে ঘিরে,যে মানুষের সাথে কালো ছায়া ঘুরতে দেখলে বুঝতে পারে তার মৃত্যু খুব কাছে।সেই কালো ছায়া ছুয়ে দেখার মাধ্যমে জানতে পারে সেই মানুষের মৃত্যু কিভাবে হবে!জন্ম থেকেই এইরকম ক্ষমতা নিয়ে বেড়ে উঠা এই মেয়েটি ছোটোবেলায় এরকম ছায়া দেখে ভয় পেতো,তখন তার বাবা তাকে কালো সানগ্লাস পড়তে বলে।সানগ্লাস পড়ে থাকলে সে আর কোনো কালো ছায়া দেখতে পায় না।তবে এই বিশেষ ক্ষমতার মাধ্যমে ছোটোবেলাতেই একদিন তার বাবার সাথের কালো ছায়া দেখে তাকে আটকানোর চেষ্টা করলেও পেশায় পুলিশ অফিসার বাবা মৃত্যু নিশ্চিত জেনেও মেয়ের বাধা পেরিয়ে পা বাড়ান এবং রহস্যজনকভাবে তার মৃত্যু হয়।আত্মহত্যা হিসেবে ধরে নেওয়া হলেও মেয়ে জানে তার বাবাকে খুন করা হয়েছে কিন্তু কেউ তাকে বিশ্বাস করে না।

প্রথমদিকে এই তরুণী মেয়েটাকে ঘিরে সবকিছু মনে হলেও এপিসোড আগানোর মাধ্যমে সেই ধারণা পালটে যাবে…

একজন ডিটেক্টিভ,যিনি একটা সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান,আমেরিকায় উচ্চ শিক্ষিত হয়ে সেখানে চাকরীর প্রস্তাব পাওয়ার পরেও সেটা প্রত্যাখান করে নিজের দেশে ফিরে এসে সামান্য ডিটেক্টিভ হিসেবে চাকরীতে যোগদান করে।উদ্দেশ্য হচ্ছে ২০বছর আগে তার কিশোর বড় ভাইয়ের মৃত্যুর কারণ খুজে বের করা।”কেঁচো খুড়তে কেঁউটে ” এমনটা ঘটে ২০ বছর আগে ভাইয়ের মৃত্যুর রহস্যের কিনারা করতে গিয়ে।এমন কিছু সত্য বেড়িয়ে আসে যা তার জীবনের জন্যে অভিশাপ হয়ে দাঁড়ায়…

যমালয়ের সবচেয়ে নির্দয় প্রকৃতির যমদূত যার নাম 444 বলা হয়।এই সংখ্যাটা আসলে কোনো নাম না,একটা পদ,র‍্যাংক।প্রচলিত আছে 444 এই পদে যেসব যমদূতরা আসে তারা প্রচন্ড নির্দয়,মায়া-দয়াহীন প্রকৃতির হয়ে থাকে।ধারণা করা হয় যমদূতরা ২ প্রকার।এক প্রকার যমদূত যারা পুর্বে মানুষ ছিলো,মৃত্যুর পর যমদূত হয়েছে এবং আরেক প্রকার যারা জন্ম থেকেই যমদূত আর 444 ধারণা করে তার জন্মই হয়েছে যমদূত হিসেবে।সেই জন্যে তার মধ্যে মানুষের প্রতি কোনো প্রকার মায়া দয়া কাজ করেনা,জান কবজ করতে তার একটুও খারাপ লাগে না।এইরকম যমদূতকে একটি শর্ত মেনে চলতে হয়,প্রেমে পড়া কোনো মেয়ে মানুষের চোখের দিকে তাকানো নিষেধ।যদি তাকায় তাহলে অনেক বড় মাসুল দিতে হয়…

এই তিনটি চরিত্র একসময় মুখোমুখি হবে,পরবর্তিতে তাদের সাথে কি ঘটবে জানলে হলে দেখে ফেলুন সিরিজটা।একদিন একরাত কাটিয়ে দিয়েছি একনাগাড়ে দেখে ফেলার জন্যে,কারণ পরের এপিসোডে কি হবে সেটা দেখে ফেলার ইচ্ছা প্রত্যাখ্যান করতে পারি নি,আশা করি আপনারাও পারবেন না।

#Happy_Watching

About The Author
Raihan Yasir
Raihan Yasir
Comments
Leave a response

You must log in to post a comment