Now Reading
পৃথিবী ধবংসের তারিখ



পৃথিবী ধবংসের তারিখ

পৃথিবীর সব কিছুরই একটা শেষ আছে। আমাদের এই পৃথিবীর যেমন সৃষ্টি হয়েছিল ঠিক তেমনি শেষ আছে। এই পৃথিবীতে বিভিন্ন ধর্মের মানুষের বসবাস। এবং বেশির ভাগ ধর্মেরই ধর্ম গ্রন্থ রয়েছে। আর সকল ধর্ম গ্রন্থ অনুযায়ী এই পৃথিবী একদিন ধবংস হয়ে যাবে। বিভিন্ন ধর্ম গ্রন্থ অনুযায়ী বিভিন্ন ভাবে পৃথিবী ধবংসের ঘটনা বর্ণনা করা আছে। আর বিভিন্ন দার্শনিক, বিজ্ঞানীরা বিভিন্ন সময় পৃথিবী ধবংসের তারিখ ভবিষ্যৎ বানী করে গেছেন। বেশ কিছু ভবিষ্যৎ বানী করা তারিখ বা সাল অতিবাহিত হয়ে গেছে আর বেশ কিছু তারিখ বা সাল সামনে আসছে। আজকে আমরা এই রকমই কিছু পৃথিবী ধবংসের ভবিষ্যৎ বানীর কথা বলব।

লিওনার্দো দা ভিঞ্চিঃ লিওনার্দো দা ভিঞ্চি কে চিনে না এমন কেউ মনে হয় নেই। তিনি ছিলেন চিত্রশিল্পী, লেখক, গণিতবিদ, বিজ্ঞানী, আবিষ্কারক ইত্যাদি। তিনি অনেক মেধাবী ছিলেন। এবং তিনি বিভিন্ন বিষয়ে অনেক দক্ষ ছিলেন। লিওনার্দো দা ভিঞ্চি পৃথিবী ধবংসের ভবিষ্যৎ বানী করেন। তিনি বলেন এক সুনামীর মাধ্যমে এই পৃথিবী ধবংস হয়ে যাবে। তার মতে ৪০০৬ সালে এমন একটি সুনামী আসবে, যার মাধ্যমে পুরো পৃথিবী জলের নীচে চলে যাবে। তিনি আরও বলেন ২১ শে মার্চ ৪০০৬ সালে সমুদ্র থেকে উঠে আসা একটি বড় ডেউ থেকে পৃথিবী ধবংস শুরু হবে। আর ১ই নভেম্বর পুরো পৃথিবী পানির নীচে চলে যাবে। আর এই ভাবেই পুরো পৃথিবী ধবংস হয়ে যাবে। লিওনার্দো দা ভিঞ্চির এই ভবিষ্যৎ বানীর কথা শুনে অনেকর হয়তো ভালো লাগবে, তিনি ভবিষ্যৎ বানী করেন পৃথিবী ধবংস হয়ে যাবার পর এই পৃথিবীতে আবারও প্রানের সঞ্চার ঘটবে এই পৃথিবীতে।

মিয়ান সভ্যতাঃ ২০১২ সালে পৃথিবী ধবংস হয়ে যাবে এই ভবিষ্যৎ বানী করা হয়েছিল মিয়ান সভ্যতার ক্যালেন্ডার অনুযায়ী। মিয়ান সভ্যতার ক্যালেন্ডার অনুযায়ী বলা হয়েছিল ২০১২ সালের ২১ শে ডিসেম্বর পৃথিবী ধবংস হয়ে যাবে। ২০১১ সালে মানুষ এই ভবিষ্যৎ বানীর কথা জানতে পারে। এবং অধিকাংশ মানুষ তা সত্যি বলে মেনে নেয় যে ২০১২ সালে পৃথিবী ধবংস হয়ে যাবে। এর কারন হচ্ছে মানুষ জানত যে মিয়ান সভ্যতা গণিত এবং বিজ্ঞানে অনেক বেশি উন্নত ছিল। কিন্তু এই ভবিষ্যৎ বানীটি ভুল প্রমানিত হয়। মিয়ান সভ্যতার ক্যালেন্ডার ২০১২ ডিসেম্বরের পর কোন তারিখ উল্লেখ ছিল না। ইতিহাসবিদদের মতে মিয়ান সভ্যতা ১০০০ বছর আগেই এই ভবিষ্যৎ বানীটি করেছিল। আর এই সভ্যতার গণনা অনুযায়ী পৃথিবীর বয়স ৫১২৬ বছর।

বাবা ভাঙ্গাঃ বাবা ভাঙ্গা ছিলেন একজন রহস্যময় ও আধ্যাত্মিক শক্তিসম্পন্ন নারী। তাছাড়া তিনি ছিলেন একজন অন্ধ। তিনি তাঁর জীবনের অধিকাংশ সময় কাটিয়েছেন বুলগেরিয়ার কুজহু পার্বত্য অঞ্চলের রুপিটি নামক স্থানে। বিশ্বের লক্ষ লক্ষ মানুষ বিশ্বাস করেন তিনি কোন অলৌকিক ক্ষমতার অধিকারী ছিলেন। তিনিও পৃথিবী ধবংসের ভবিষ্যৎ বানী করেন। তিনি ভবিষ্যৎ বানী করেন ৫০৭৯ সালে পৃথিবী ধবংস হয়ে যাবে। তিনি অবশ্য সরাসরি এই ভবিষ্যৎ বানী করেননি। তিনি ৫০৭৯ সালের আগে কি কি হবে তা নিয়ে বিভিন্ন ভবিষ্যৎ বানী করেন। তিনি বলেন আগামী ১০০ বছরের মধ্যে মানুষ একটি সূর্য বানিয়ে ফেলবে। ২১১১ সালে মানুষ রোবটের মত বসবাস শুরু করবে। ২১৬৭ সালে একটি নতুন জাতি তৈরি হবে। ২১৯৬ সালে এশিয়া এবং ইউরোপ এক হয়ে যাবে। ২২৭১ সালে ফিজিক্সরে ল গুলু পরিবর্তন হয়ে যাবে এবং এর ঠিক ১৫০ বছরের মধ্যে মানুষ এলিয়েনের দেখা পাবে। তিনি আরও বলেন ৩০০৫ সালে হবে মঙ্গল গ্রহে সবচেয়ে ভয়ানক যুদ্ধ। এই ভাবে তিনি আরও কিছু ভবিষ্যৎ বানী করেন। আর সব শেষে বলেন ৫০৭৯ সালে পৃথিবী ধবংস হয়ে যাবে।

আইজাক নিউটনঃ আইজাক নিউটনকে চিনে না এমন কেউ নেই। তিনি আধুনিক বিজ্ঞানের একজন মহান বিজ্ঞানী। তিনিও পৃথিবী ধবংসের ভবিষ্যৎ বানী করেছেন। তিনি তার গবেষণার মাধ্যমে বের করতে চেয়েছিলেন পৃথিবী ধবংসের শেষ দিনের তারিখ। তিনি বাইবেল পড়তে পড়তে খোঁজার চেষ্টা করতেন কখন পৃথিবী ধবংস হবে। বাইবেল পাঠের পর তিনি মনে করেন ২০৬০ সালের পর থেকে পৃথিবী ধবংস হতে শুরু করবে। তারমতে এই ঘটনা হবে রোমান সভ্যতা গঠনের ঠিক ১২৬০ সাল পরে। তার এই বক্তব্যের পর পরিষ্কার যে তিনি বিজ্ঞান থেকে বাইবেলকেই বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন।

About The Author
MD BILLAL HOSSAIN
MD BILLAL HOSSAIN
Comments
Leave a response

You must log in to post a comment