Now Reading
ভবিষ্যতে বাচ্চা ধারণ করবে রোবট ডল



ভবিষ্যতে বাচ্চা ধারণ করবে রোবট ডল

রোবট সম্পর্কে আপনার ধারণা কতটুকু? হতে পারে রোবট একটি যন্ত্র অথবা আর্টিফিশিয়াল কোন ইলেক্ট্রনিক মেশিন। যেমনটা আমরা পূর্বে রোবট সুফিয়াতে দেখেছি। কিন্তু এবার আপনার জল্পনা কল্পনা শেষ করে বাজারে এলো রোবট বউ। যা আপনার হতে পারে জীবন সঙ্গি। ভাবতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি। আমরা এমন কিছু মানুষকে নিয়ে আলোচনা করব, যারা রোবটকে নিয়ে ঘর সংসার করছে। আর তাদের মতে তারা রোবটগুলোকে অনেক ভালবাসে। তারা রোবটের সাথে কথা বলে, রোমান্টিক সময় কাটায় ইত্যাদি। আবার কিছু ব্যক্তি রয়েছে, যারা রক্তে মাংসে গড়া নিজের বউকে ডিভোর্স দিয়ে রোবটের সঙ্গে ঘর সংসার করছে।
প্রথমে যার কথা বলব সুলার্ট ইভান নামের এক মেয়ে। এই মেয়েটি একটি ছেলে রোবটকে খুবই ভালবাসে। সে তার বেশির ভাগ সময় এই রোবটটির সাথেই কাটায়। সুলারর্ট ইভানের মতে এই রোবটটি তার সকল চাহিদা পূরণ করে। মেয়েটি রোবটটির সাথে ঘুমায়, রোমান্টিক গল্প করে, এছাড়া সবচেয়ে বড় বিষয়টি হল এই রোবটটি তাকে কখনো ঠকাবে না। সুলার্ট ইভান এই ছেলে রোবটটির জন্য তার আসল হাজবেন্ডকে ডিবোর্স দিয়ে দেয়। এই মেয়েটি রোবটটির সাথে দিনে দুইবার সঙ্গমে লিপ্ত হয়। তার মতে এই রোবটটি তার স্বপ্নের রাজকুমার। কারণ হিসেবে সুলার্ট ইভান বলে, সে এক সময় বুড়ো হয়ে যাবে, দেখতে খারাপ হয়ে যাবে, তখনো রোবটটি তাকে ভালবাসবে। তার রোবটটি কখনো বুড়ো হবে না, কখনো তাকে ছেড়েও যাবে না। সুলারর্ট ইভানের মতে সে এই ছেলে রোবটটি ছাড়া একদিনও কল্পনা করতে পারে না।
আমাদের পরবর্তী ব্যক্তিটির নাম জেম্স। সে এপ্রিল নামের এই রোবটটির সাথে অনেকদিন ধরে বসবাস করছে। তার মতে সে রোবটটিকে অনেক ভালবাসে। আর সবচেয়ে অবাক করা বিষয় হল, এই লোকের রক্ত মাংসে গড়া একজন বউও রয়েছে। কিন্তু তার সহধর্মীনি জেম্স এবং এপ্রিলের সম্পর্ক নিয়ে কিছু বলে না। জেম্সের সহধর্মীনির মতে তার হাজবেন্ডের এমন আচরণ করা পুরোপুরি স্বাভাবিক। জেম্স আরো জানায় সপ্তাহে চারদিন এই রোবটটির সাথে যৌন মিলন করে থাকে। জেম্স যতটা গুরুত্ব এই রোবটটিকে দিয়ে থাকে, ততটা গুরুত্ব তার বউকেও দেয় না। জেম্স যেকোন পার্টি বা অনুষ্ঠানে রোবটটিকে সঙ্গে নিয়ে যায়। জেম্সকে যদি বলা হয় সে তার ওয়াইফ আর রোবটটির মধ্যে কোনটিকে বেচে নিবে, সে উত্তর দিবে দুজনকেই চাই, কারণ জেম্স তার ওয়াইফ এবং রোবটটিকে সমানভাবেই ভালবাসে।
এরপর রয়েছে শিং ঝিং লাগা জিমা। আপনারা হইতো জেনে থাকবেন জাপানে দিন দিন ডিভোর্সের হার বেড়েই চলেছে। যার কারণে তারা বেশির ভাগ সময় একা কাটায়। আর এই একাকিত্ব সময় দূর করার জন্য জাপানের বেশির ভাগ ছেলে এবং মেয়েরা রোবটকে সঙ্গি হিসেবে মনে প্রাণে ভালবাসে। শিং ঝিং নামের এই ব্যক্তি একজন বিবাহিত পুরুষ। তার দুটি সন্তানও রয়েছে। কিন্তু তার স্বাভাবিক চাহিদা মেটানোর জন্য এই রোবট ব্যবহার করে সে। আর শিং ঝিং এভাবে রোবটটির সাথে ঘন্টার পর ঘন্টা সময় পার করে থাকে। এ কারণে তার পরিবার তাকে ছেড়ে চলে যায়। এই ব্যক্তি রোবট ডলের কারণে নিজের পরিবারও ছেড়ে দিয়েছে।
এবার বলব চীনের এক অল্প বয়স্ক ছেলের কথা। ছেলেটির একটা সময় ক্যান্সার ধরা পরে। আর ডাক্তাররা জানায় ছেলেটি আর কিছুদিনই বাঁচবে। কিন্তু এই ছেলেটির নিজের বিয়ে নিয়ে অনেক স্বপ্ন ছিল। কিন্তু অল্প কিছু দিনের জন্য সে কোন মেয়ের লাইফ নষ্ট করতে পারেনা। তাই ছেলেটি একটি রোবট মেয়েকে বিয়ে করে। এই রোবট ডলটির সাথে সে বাসরও করে। তার সাথে ফটোশুট করে এবং নিজের ওয়াইফ হিসেবে মনে প্রাণে রোবটটিকে ভালবাসে।
শেষ যার কথা বলব সে হচ্ছে আমেরিকার এক ধনী ব্যক্তি। এই আমেরিকান ধনী ব্যক্তিটি তার নিজের তৈরি করা রোবট পার্টনারের জন্য তার সত্যিকার ওয়াইফকে ডিভোর্স দিয়ে দিয়েছে। তার মতে রোবট ডলটি তার ওয়াইফ হওয়ার সকল যোগ্যতায় রাখে। এই ব্যক্তি রোবট ডলটিকে খুবই ভালবাসে এবং সম্মান করে।
বিজ্ঞানীরা সম্ভবনা করেছে এই রোবট গুলো শুধু যৌন চাহিদা না, ভবিষ্যতে বাচ্চা ধারণও করতে পারবে। এবং সেই সাথে এই রোবটগুলোর মধ্যে মেয়েদের সকল আচার আচরণও থাকবে।

About The Author
Md Meheraj
Md Meheraj
Comments
Leave a response

You must log in to post a comment