Now Reading
ধনী থেকে গরীব হওয়া কিছু লোকের কাহিনী



ধনী থেকে গরীব হওয়া কিছু লোকের কাহিনী

পৃথিবীতে মানুষের অবস্থান পরিবর্তন হতে বেশি সময় লাগে না। অনেক লোকেরা হঠাৎ করে অনেক গরীব থেকে অনেক বেশি ধনী হয়ে যায়। আবার অনেকে আছে অনেক ধনী থাকা স্বত্তেও একটা সময় হঠাৎ করে গরীব হয়ে যায়। আর দুনিয়াতে এমনও অনেক লোক আছে অনেক কোটি টাকার মালিক হওয়া স্বত্তেও হঠাৎ গরীব হয়ে গেছে। এ জন্য আমাদের কখনো বর্তমান অবস্থা নিয়ে অস্থির হওয়া উচিৎ নয়। এমন কি নিজের ভাল পরিস্থিতিতে কখনো অহংকার ও করা ঠিক না। কেননা কখনো যে কারো অবস্থার উত্থান পতন ঘটতেই পারে। আজকে এমন কয়েকটি লোক নিয়ে আলোচনা করব, যারা অনেক ধনী থেকে হঠাৎ করে গরীব হয়ে গেছে।

হ্যারি এবং মর্লিঃ ১৯ শতাব্দীতে হ্যারি এবং মর্লির বাবা লোহার ব্যবসা দিয়ে অনেক টাকা কামাতে থাকে। পরবর্তীতে তার সন্তানরা সেই টাকা বরবাদ করে দেয়। পয়সা অপচয় করার ক্ষেত্রে ঐ বাচ্চারা ফেমাস পেইন্টিং, দামি দামি কাপর এমন কি লাক্সারি আইটেম কিনা শুরু করে। অবশেষে তাদের এমন লাইফ স্টাইল বেশি দিন টিকলো না। আর তাদের টাকা পয়সা কমতে শুরু করে। মৃত্যুর সময় তার কাছে কিছুই অবশিষ্ট ছিল না। হ্যারির মৃত্যু একটি সরকারী হসপিটালে হয় এবং মর্লির মৃত্যু হয় একটি বৃদ্ধ ব্যাক্তির বাড়িতে ঘটে।

ফ্রানসিস ফর্ড কপোলাঃ একজন মার্কিন চলচ্চিত্র পরিচালক, প্রযোজক এবং চিত্রনাট্যকার। তিনি একাডেমি পুরস্কারঅর্জন করেন ৫ বার। কোপলা মদ্যব্যবসায়ী, পত্রিকার প্রকাশক এবং হোটেল-মালিকও ছিলেন চলচ্চিত্র পরিচালনার পাশাপাশি। তিনি হফস্ট্রা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে থিয়েটার বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। এরপর ইউসিএলএ ফিল্ম স্কুল থেকে চলচ্চিত্র পরিচালনায় এমএফএ ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি একজন ফিল্ম ডিরেক্টার ছিলেন। তিনি দ্যা গড ফাদারও ফিল্মটাও তিনি ডিরেক্ট করেছিল। কিন্তু তিনি তার অনেক গুলো ফিল্ম থেকে বেশি লাভ করতে পারেননি এবং নয় বছরের মধ্যে তিনি তিনবার দেওলিয়া হয়ে যান।

ফেট্রেসিয়া ক্লিউসঃ ফেট্রেসিয়া ক্লিউস একজন মডেল ছিলেন। নিজের কোটিপতি হাজব্যান্ড জন ক্লিউস থেকে ডিভোর্স পাওয়ার পর তিনি অনেক ধনী হয়ে যান। ডিভোর্সের পর তিনি জনের পক্ষ থেকে প্রায় ১বিলিয়ন ডলার অর্থাৎ প্রায় ৭ হাজার কোটি টাকা পায়। আবার পরবর্তী বছর ৭হাজার কোটি টাকা আইনত পায়। সেই পয়সা গুলো তিনি ১৯৯৯ এ ইনভেস্ট করা শুরু করে। কিছুদিনের মধ্যে ঐ ইনভেস্টে অনেক লস হতে শুরু করে। আর এতটাই লস হয় যে তিনি সবকিছু হারিয়ে ফেলে। পরবর্তীতে তিনি বাধ্য হয়ে আমেরিকার হাজার কোটিপতি বিজনেস ম্যান যে কিনা বর্তমানে সেখানকার প্রেসিডেন্টও অর্থাৎ ডোনাল্ট ট্রাম্পের কাছে বিক্রি করে দেয়।

এডোল্ট মার্কোলঃ এডোল্ট মার্কোল একজন বিজনেস ম্যান ছিলেন। আর তিনি জার্মানে ধনী লোকদের মধ্যে একজন ছিলেন। ২০০০ সালে তার কাছে ১২.৮ বিলিয়ন ডলার ছিল। কিন্তু তার বিজনেস বাঁচানো অনেক হয়ে উঠলো একটা সময়। আর ঝুঁকিপূর্ণ সিদ্ধান্তের ফলে আরো বেশি লস হতে শুরু করে বিজনেসে। আর পরে ২০০৮ এর মধ্যে তিনি প্রায় সবকিছু হারিয়ে ফেলেন। আর এ জন্য তিনি ২০০৯ সালে আত্মহত্যা করে ফেলে।

সিং কুয়িংঃ এ লোকটি একজন জার্নালিস্ট ছিলেন। আর আইল্যান্ডের সবচেয়ে ধনী ব্যাক্তিও ছিলেন তিনি। তিনি প্রায় ৬বিলিয়ন ইউরোর মালিক ছিলেন। ভদ্রলোক ব্যাংক থেকে লোন নিয়েছিলেন। যা তিনি কখনো পরিশোধ করেননি। এ জন্য তিনি যখন এটি পরিশোধ করতে গেলেন, এর ফলে তিনি দেওলিয়া হয়ে পরেন এবং কিছুদিন তাকে জেলেও যেতে হয়। এতে করে তিনি সর্বশেষ হারিয়ে ফেলেন।

পৃথিবীতে এদের মত অনেক লোক আছে। যারা অনেক কোটি টাকার মালিক হওয়া স্বত্তেও হঠাৎ করে গরীব হয়ে যায়। তাই কখনো নিজের সম্পত্তির উপর অহংকার করা উচিৎ নয়।

About The Author
Md Meheraj
Md Meheraj
Comments
Leave a response

You must log in to post a comment