Now Reading
যে মুভিগুলো না দেখলেই নয়



যে মুভিগুলো না দেখলেই নয়

আমাদের জীবনে আমরা বিনোদনের জন্য অনেক কিছু করে থাকি। যার মধ্যে কোথাও বেড়াতে যাওয়া, বিভিন্ন খেলাধুলা করা, আড্ডা দেওয়া ইত্যাদি। মুভি বা সিনেমাও আমাদের বিনোদনের অনেক বড় একটা মাধ্যম।

কিছু মুভি বা সিনেমা আছে যে গুলো আমরা একবার দেখি, কিছু আছে দুবার দেখি আর কিছু সিনামা আছে যেগুলা আমাদের বার বার দেখতে ইচ্ছে করে। কারন ঐ সিনামাগুলো বার বার দেখেও আপনার তৃপ্তি মিটে না। আপনার শুধু দেখতে ইচ্ছে করে।

আপনি কি I M D B সম্পর্কে জানেন ? চ এর অর্থ হল internet movie database. I M D B একটি নির্ভরযোগ্য মুভি রিভিউ ওয়েবসাইট। এখানে ২০১২ সালের একটা গণনায় বলা হয়েছে, ২০১২ সাল পর্যন্ত প্রায় ৪৫ হাজার মুভি হলিউডে রিলিজ হয়েছে। যেটা পৃথিবীর টোটাল মুভির এক তৃতীয়াংশ। হলিউডের সিনামা সবাই ভালোবাসে, কারন হলিউডের সিনামায় মানুষ সবচেয়ে বেশি বিনোদন পায়। সারা বিশ্বেই হলিউড মুভির দর্শক ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। এবং এইসব দর্শক অপেক্ষা করে, হলিউডে কখন একটা ভালো মুভি আসবে। হলিউডে এমন কয়েকশত সিনামা আছে যেগুলা খুবই বিখ্যাত। আজকে হলিউডের এমন কিছু মুভির নাম বলব যেগুলো না দেখলেই নয়…

THE MARTIAN: আপনি যদি মহাকাশ সম্পর্কে জানতে ইচ্ছুক হন, মঙ্গল গ্রহ সম্পর্কে আপনি জানতে ইচ্ছুক হন, তাহলে এই মুভিটি আপনার জন্য। মুভিটির নাম THE MARTIAN, এই মুভির কাহিনী হচ্ছে, নাসা থেকে ২০৩৫ সালে কিছু মানুষ মঙ্গল গ্রহে যায়। কিন্তু সেখানে ঝড়ের কারনে একজন হারিয়ে যায়। সবাই ভাবে তিনি মার গেছেন তাই মঙ্গল গ্রহে তাকে ফেলে সবাই পৃথিবীতে ফিরে আসে। কিন্তু সেই ব্যক্তিটি মারা যায় নি, সে কিভাবে মঙ্গল গ্রহে বেঁচে থাকে এটাই এই মুভির মূল কাহিনী।

SPIDER-MAN: যদি আপনি হলিউডের সুপার হিরোদের মুভি দেখে থাকেন তাহলে অবশ্যই SPIDER-MAN কে চিনেন। যিনি মাকড়শার থেকে শক্তি পেয়েছিলেন। SPIDER-MAN মুভির কয়েকটি পার্ট রিলিজ হয়েছে কিন্তু প্রথম মুভিটির মত কোনটিই এত জনপ্রিয় হয়নি। এটিই প্রথম মুভি যেটি প্রথম সপ্তাহে ৭০০ কোটির সীমারেখা পার করে ছিল। আর কমিক বইয়ের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা প্রথম সফল মুভি SPIDER-MAN এটা ২০০২ সালে তৃতীয় সবচেয়ে বেশি আয় করা ফিল্ম।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

THE CONJURING ( 2013 ): ভূতের মুভি তৈরিতে দক্ষ জেমস ওয়ান যখন সত্য একটি ঘটনার উপর ভিত্তি করে THE CONJURING ( 2013 ) সিনামাটা নিয়ে এলেন, তখন তা দারুণ সাড়া ফেলে দেয়। এই মুভিতে এমন এমন দৃশ্য আছে যা আপনার হৃদয় স্পন্দন বাড়িয়ে দিবে, সে আপনি যত জন মানুষের সাথেই মিলে মুভিটি দেখেন না কেন। এই মুভিটিকে হলিউডের অন্যতম সেরা ভূতের সিনেমা মনে করা হয়।

THE WAY BACK: এই সিনামাটা আমাদের প্রত্যেকেরই দেখা উচিত। কোন একটা খারপ অবস্থায় আটকে গেলে, কিভাবে সবকিছু মোকাবেলা করে, আবার ফিরে আসতে হয় এই মুভিতে তাই দেখানো হয়েছে। ২০১০ সালে রিলিজ করা এই মুভিটা একটি সত্য ঘটনার উপর ভিত্তি করে নির্মিত হয়েছে। দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধের সময় রুশ সরকার যুদ্ধ বন্দীদের একটা জেলে আটকে রেখেছিল। ঐ জেলখানা থেকে কয়েকজন পালিয়ে আসেন। এবং কয়েক মাস পায়ে হেঁটে এবং প্রায় ৪ হাজার মাইল অতিক্রম করে হিমালয় পর্বত মালা পার করে নেপাল হয়ে ভারতে প্রবেশ করেন। এই যাত্রা পথে তাদের সাথে কি কি হয়েছিল তাই এই মুভিতে দেখানো হয়েছিল।

AVATAR: AVATAR শুধু মাত্র একটি মুভি নয় জেমস ক্যামেরুনের ১৫ বছরের একটি স্বপ্ন। ১৯৯৪ সালে তিনি এই মুভির কাহিনী লিখা শুরু করেন। এবং ভেবেছিলেন টাইটানিক রিলিজ করার পর ১৯৯৯ সালে AVATAR রিলিজ করবেন। কিন্তু তিনি দেখলেন এই সিনামা তৈরির জন্য যে সকল প্রযুক্তি দরকার সেইগুলো তখন তৈরি হয়নি। তারপর ২০০৯ সালে AVATAR রিলিজ হয়। হলিউডের এই মুভিটা নিয়ে পুরো বিশ্বে হইচই পরে গিয়েছিল। জেমস ক্যামেরুন এই মুভি তৈরি করতে জলের মত টাকা খরচ করেছিলেন। এটাই হলিউডের বেশি বাজেটের সিনামা। এই মুভিটি তৈরি করতে খরচ হয়েছিল প্রায় ১২০০ কোটি টাকা।

TITANIC: পৃথিবীতে হয়তো এমন কাউকে খুজে পাওয়া যাবে না যার এই মুভিটি ভালো লাগেনি। এটিও জেমস ক্যামেরুনের তৈরি সিনামা। এই মুভিটি মুক্তি পেয়েছিল ১৯৯৭ সালে। এইটি হচ্ছে সবচেয়ে রোমান্টিক, আলোচিত ও জনপ্রিয় একটি মুভি। এই মুভিতে জেমস ক্যামেরুন দর্শকদের জন্য নিয়ে এসেছিলেন অনেক চমক। এই মুভিটি তৈরি হয়েছে ১৯১২ সালের বিখ্যাত জাহাজ TITANIC এর উপর ভিত্তি করে।

About The Author
MD BILLAL HOSSAIN
MD BILLAL HOSSAIN
Comments
Leave a response

You must log in to post a comment