Now Reading
অবিশ্বাস্য কয়েকটি বিশ্ব রেকর্ড



অবিশ্বাস্য কয়েকটি বিশ্ব রেকর্ড

আপনারা সকলেই গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ড নাম শুনেছেন। সুতরাং জানেন যে, গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ড তৈরি করা মোটেও সহজ কাজ নয়। গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে কোন কাজের জন্য জায়গা করে নেওয়ার অর্থ হল, এর আগে কাজটি কেউ করেনি, অথবা করলেও এত দক্ষতার সাথে করেনি। অর্থাৎ সে ব্যাক্তির নামে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ড স্থান পাবে, যিনি কোন একটি দুঃসাহসিক কাজ করেছেন। যেমন পৃথিবীর সবচেয়ে উঁচু শ্রিঙ্গ মাউন্ট এভারেস্টে কত কম সময়ে উঠেছেন অথবা পেরাসুট ছাড়া মহাকাশ থেকে লাপ দিয়েছেন বা কোন একটি সাধারণ কাজ, অসাধারণ দক্ষতার সাথে সম্পন্ন করেছেন। যেমন একটানা তিন স্নান করা অথবা ৫দিন ঘুমানো। এ কাজ গুলো শুনতে অনেক সাধারন মনে হলেও আসলে কাজ গুলো অনেক কঠিন এবং আশ্চর্যজনক এবং যে কোন মানুষের পক্ষে করে ফেলা সম্ভব নয়। আর সে কারনে এসব কাজকে সম্মান দেওয়ার জন্য তৈরি হয়েছে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ড। যদিও কিছু কিছু ক্ষেত্রে এমন ঘটেছে যে, কোন মানুষ ভুল বশত এমন কিছু কাজ করে ফেলেছেন যা গিনেস বুকে স্থা পেয়েছে। আজ আমরা আলোচনা করব এমন কিছু গিনেস রেকর্ড যা শুধু দুঃসাহসিকতা নয়, বিশ্বের সবচেয়ে আশ্চর্যজনক কয়েকটি কাজ যা দেখে আপনি অবাক হতে বাধ্য হবেন।

স্কাই ডাইভিংঃ স্কাই ডাইভিং এমন একটি আশ্চর্যজনক এবং মজার স্টান্ড যা বহু মানুষ নিজেদের জীবনে অন্তত একবার করতে চান। কেউ কেউ নিজেদের অবসর বিনোদন হিসেবেও স্কাই ডাইভিং বেচে নিয়েছেন। নতুন দেশে ঘুরতে আসা বিভিন্ন পর্যটকদের মধ্যেও স্কাই ডাইভিং করার প্রচন্ড উদ্যম এবং ইচ্ছা লক্ষ করা যায়। স্কাই ডাইভিং অত্যান্ত দুঃসাহসিক এবং শারীরিক সক্ষমতার কাজ। পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণ ও অভ্যাস না থাকলে স্কাই ডাইভিং অত্যান্ত ঝুঁকিপূর্ণ বটে। পেরাসুট ছাড়া স্কাই ডাইভিং কতটা ঝুকিপূর্ণ আপনারাই ভেবে দেখুন। জীবনের ঝুকি নিয়ে পেরাসুট ছাড়া এত উচ্চতা থেকে শূণ্যে ঝাপ দেওয়ার মত দুঃসাহস তারাই দেখাতে পারেন, যারা মৃত্যুর ভয়কে জয় করে নিয়েছেন। আমারিকার স্কাই ডাইভার লিউক এইকিন্স এই দুঃসাহসিক পরিক্ষায় সফল ভাবে উত্তির্ন হতে পেরেছেন। ৭৬২০ মিটার উচ্চতা থেকে পেরাসুট ছাড়া শূণ্যে ঝাপ দেন। তারপর প্রায় দুই মিনিট ধরে নিচে নামতে থাকেন এবং সফল ভাবে একটি ৩০ মিটার লম্বা এবং ৩০ মিটার চওড়া একটি জালের উপর এসে অবিতির্ন হন। লিউক যদি সামান্য ভুল বশত ঐ জালের উপর না পড়তেন, তাহলে কি ভয়ংকর ঘটনা ঘটে যেতে পারতো তা একবার ভেবে দেখুন। হইতো লিউকের শরীরটা ছিন্নভিন্ন হয়ে যেত, অথবা খুজেই পাওয়া যেত না। কিন্তু লিউক একজন অভিজ্ঞ এবং পেশাদার স্কাই ডাইভার।

দীর্ঘতম সময়ের জন্য শ্বাসরোধঃ একজন সাধারণ মানুষ এক থেকে ৫ মিনিট পর্যন্ত নিঃশ্বাস না নিতে বেচে থাকতে পারেন এবং প্রশিক্ষিত ড্রাইভাফ প্রায় নয় মিনিট থাকতে পারেন। কিন্তু বিশ্ব রেকর্ড করতে হলে অবিশ্বাস্য কিছু করে দেখাতেই হবে। এবং যা করে দেখিয়েছে স্পেনিশ ড্রাইভার এলেক্স সেগুরা। ২০১৬ সালের ২৮ এ ফেব্রুয়ারি এলেক্স ১৪ মিনিট ৩ সেকেন্ড শ্বাসরোধ করে বিশ্ব রেকর্ড করেন। যদিও ২০১৮ সালে সেই বিশ্ব রেকর্ড ভেঙ্গে দেন এক ক্রোরেশিয়ান ড্রাইভার। তিনি ২৪ মিনিট ১১ সেকেন্ড পর্যন্ত নিজের শ্বাস ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছেন। এই অবিশ্বাস্য কৌশলের জন্য আজ তিনি গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে স্থান পেয়েছেন।

মৌমাছির আচ্ছাদনঃ আমরা সকলেই জানি মৌমাছি একটি উপকারি পতঙ্গ। মধু ও মোমের জোগান দিয়ে মৌমাছি আমাদের সাহায্য করে। কিন্তু এই মৌমাছি কখনো কখনো হয়ে উঠে অত্যান্ত বিপদজনক। মৌমাছি তার বিষাক্ত হোল ফুটিয়ে শরীরের সমস্ত বিষ মানব দেহে ঢেলে দেই। যা অত্যান্ত বেদনাদায়ক। অধিক মৌমাছির কামড়ে মানুষের মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। তাই মৌমাছি নামক প্রাণীটি থেকে দূরে থাকায় এক প্রকার স্বাস্থ্যকর। কিন্তু এক চীনা ভদ্রলোক এই আশংকা মিথ্যা প্রমাণ করেছেন। কারণ এই প্রাণীকে তিনি ভয় পান না। রুইয়ান লিয়াং মিং নামের এই ভদ্রেলোক নিজের শরীরে মৌমাছির আচ্ছদন তৈরি করার দঃসাহস দেখিয়ে ইতিহাসের পাতায় জায়গা করে নিয়েছেন। ইতালিয়ান গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ড এক অনুষ্ঠানে এই ব্যাক্তি নিজেকে জীবন্ত মৌমাছি দিয়ে নিজেকে আচ্ছাদিত করেন। মৌমাছির আবরনের ভিতর লিয়াং মিং কে খুজে পাওয়া ছিল দুষ্কর।

About The Author
Md Meheraj
Md Meheraj
Comments
Leave a response

You must log in to post a comment