Now Reading
গরমে ভাল থাকার উপায়।



গরমে ভাল থাকার উপায়।

দেশ এখন গ্রীষ্ম কাল চলছে। প্রকৃতি প্রতিনিয়ত উত্তপ্ত হয়ে উঠছে। স্থান ভেদে দেশের প্রায় সকল জায়গায় প্রচন্ড গরম পড়ছে। হিউমিডিটি প্রায় ৬৫% থেকে ৬০% এর নিচে নেমে এসেছে। যাতে করে মানব দেহে বিভিন্ন রকমের রোগ জীবাণু আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। বিশেষ করে মানুষের ডিহাইড্রেশন বা পানি শূন্যতা দেখা দিচ্ছে। আর প্রচন্ড গরমে পানি শূন্যতা হওয়াটা খুবই স্বাভাবিক। তাই এই অবস্থা থেকে পরিত্রাণেরর জন্য প্রচুর পরিমাণে বিশুদ্ধ পানি পান করতে হবে। এ সময়টাতে আমাদের প্রচুর পিপাসা লাগে। আর রাস্তা ঘাট কিংবা বাইরে বের হলেই আমরা তাৎক্ষণিক তৃষ্ণা নিবারণের জন্য বাজারের সফট ড্রিংকস পান করে থাকি যা কিনা পানি শূন্যতারর অন্যতম কারন। তাই তথাকথিত ব্রান্ডসহ নামীদামী কোনো ব্রান্ডেরই সফট ড্রিংকস পান করা যাবেনা। এগুলো সম্পূর্ণরূপে ত্যাগ করতে হবে। এছাড়া আমরা অনেকেই রাস্তার বিভিন্ন মোড়ে বিক্রি করা লেবুর শরবত, অাখের রস ইত্যাদি খেয়ে থাকি। কিন্তু এসব যে টাইফয়েডের কারখানা তা আমরা অনেকেই জানিনা। এসব শরবত পান করার কারনে টাইফয়েড ছাড়াও পানি বাহিত অন্যান্য রোগও দেখা দিতে পারে তাই বাইরের এই সব শরবত পান করা হতে বিরত থাকতে হবে।

গরমে অনেকের শরীর মাত্রাতিরিক্ত ঘামে। চিন্তার কিছু নাই। তবে বেশি করে লবন পানি বা স্যালাইন পান করতে হবে। ঘরে তৈরি বিভিন্ন দেশী ফলের জুস করে খেতে পারেন। এর মধ্যে সবচেয়ে উত্তম বাসায় বানানো লেবুর শরবত। গরমে রিচ ফুড টাইপের খাবার, যে কোনো তৈলাক্ত জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতে হবে। বিশেষ করে যাদের উচ্চ রক্ত চাপের সমস্যা আছে তাদের জন্য বাইরের ভাজা পোড়া এবং খাবার খাওয়া একেবারই নিষেধ।

এবার গরমের পোশাক-অাশাকের দিকে নজর দেয়া যাক। এই গরমে রঙ চটা বা রঙিন কাপড়ের বদলে সাদা এবং হালকা রঙের ঢিলেঢালা পোশাক পরিধান করাই উত্তম। এতে শরীর ও মনে প্রশান্তি পাওয়া যায়।

গরমে আমাদের শরীরে আর একটা কমন উপসর্গ দেখা দেয়। তা হল প্রাসাবের রং হলদেটে হয়ে যাওয়া। তবে এতে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নাই। বেশি করে পানি পান করলে এটা নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে। তবে অনেকের আবার কোষ্ঠকাঠিন্যেও হয়ে থাকে। তারা বেশি করে ডাবের পানি, বেলের শরবত, ইসুবগুলের শরবত খাবেন।

আর একটা বিষয় অতীব গুরুত্বপূর্ণ। গরমে এই কাজটা আমরা প্রায় সবাই করে থাকি। তা হল বাইরে থেকে এসেই ফ্রিজের ঠান্ডা পানি পান করি। যা আমাদের শরীরের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। তাই অবশ্যাই এটা করা যাবেনা। ঠান্ডা কমিয়ে পানি পান করতে হবে। পরিশেষে সাবার উদ্দেশ্যে একটা কথা- অবশ্যই সূর্যের ক্ষতিকারক রশ্মি থেকে রেহাই পেতে ছাতা নিয়ে বের হউন। সবাই ভাল থাকুন, সুস্থ থাকুন।

About The Author
Md. Riajul Islam
Md. Riajul Islam
Comments
Leave a response

You must log in to post a comment