Now Reading
কীভাবে জ্ঞান অর্জন করব?



কীভাবে জ্ঞান অর্জন করব?

আমাদের এই পৃথিবীতে অনেক জ্ঞানী-গুণী মানুষ এসেছেন এবং চলেও গেছেন । এবং তাদের অর্জনকৃত জ্ঞান থেকে শিক্ষা দিয়ে গেছেন ! এখনও আমাদের এই পৃথিবীতে অনেক জ্ঞানী-গুণী মানুষ আছেন এবং তাদের কাছ থেকে গোটা বিশ্ব শিক্ষা পাচ্ছে ! এসব জ্ঞানী- গুণী মানুষ তাদের জ্ঞান গোটা বিশ্বকে দিয়ে যাচ্ছেন । আজকে আমি আপনাদেরকে বলব, আমরা কীভাবে জ্ঞান অর্জন করব ? এই বিষয় নিয়ে আলোচনা শুরু করছি ।

জ্ঞান পৃথিবীর এমন একটা আবিষ্কার যা আমাদেরকে পৃথিবীর কাছ থেকে গ্রহন করতে হবে । এর জন্য পৃথিবীর নানা বস্তু আমাদেরকে দেখতে হবে এবং বুজতে হবে যেমনঃ মানুষ, বই ইত্যাদি ।

প্রথমেই আমি মানুষ নিয়ে আলোচনা করতে চাই,

মানুষঃ মানুষের বিষয় নিয়ে কথা বলার জন্য আমি আপনাদেরকে একটি উক্তি বলতে চাই । উক্তিটি হল ক্রিয়াগ হারপার নামক এক ব্যাক্তির । তো উক্তটি হল, “পৃথিবী হল আমার শ্রেণীকক্ষ, প্রত্যেক দিন হল একটি নতুন অধ্যায়, এবং প্রত্যেক ব্যাক্তি যাদের সাথে আমি দেখা করি তারা আমার শিক্ষক”। এই উক্তটির মত মনোভাব তৈরী করুন অনেক কিছু শিখতে পারবেন যার কোন সীমা থাকবেনা । মরার আগ পর্যন্ত এরকম মনোভাব নিয়ে চলেন আপনার শিক্ষাগুলোও সমৃদ্ধ জ্ঞানে পরিণীত হবে এবং আপনার বেঁচে থাকার আনন্দও বেরে যাবে! আপনাদের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে, আমরাতো মরেও যাব তো বেঁচে থাকার আনন্দ বাড়িয়ে লাভ কি? হ্যাঁ, আমরা সবাই তো মরে যাব কিন্ত মরার আগে আমরা কি করব? যাযাবর এর মত ঘুরে বেড়াব নাকি অলসের মত খাব আর ঘুমাব নিশ্চয় না! আমাদেরকে তো জানতে হবে জীবন কি? জীবন কেন? এই প্রশ্নগুলোর উত্তর আপনি তখনই পাবেন যখন জীবনের আনন্দ পাবেন বা বেঁচে থাকার আনন্দ পাবেন তখনই আপনি বুজতে পারবেন জীবন কি? জীবন কেন? এর জন্য বলছি মানুষের সাথে মিশুন কথা বলুন আর মানুষকে ছোট করে দেখবেননা । সবাইকে মানুষ হিসেবে দেখুন ! তবেই অনেক কিছু শিখতে পারবেন এবং জ্ঞানের গুদামঘরে পরিণীত হতে পারবেন ।

বই পড়ুনঃ  বইতো আমরা প্রতিদিনি পড়ি কিন্তু কি ধরনের বই পড়ি ? আমাদের এখনকার সময়ে বেশিরভাগ মানুষও একাডেমী বই নিয়ে পরে থাকি । কিন্তু পৃথিবীতে যে আরও বই আছে সেটা আমরা উপলব্ধি করিনা । জ্ঞান অর্জনের জন্য আমাদেরকে একাডেমী বইয়ের পাশাপাশি অন্যান্য বইও পড়া উচিত । “গল্প” কে না পছন্দ করে । আমরা প্রায় সবাই পছন্দ করি । যেসব  লেখকেরা গল্পের মাধ্যমে তাদের শিক্ষা মানুষের কাছে পৌঁছে দেয় তাদের বই বেশি বেশি পড়ুন ! আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে, গল্পের বই আমরা কেন বেশি বেশি পড়ব? এটি বোজানোর জন্য একটি উদাহারন দেয়ঃ আপনি ৩০ মিনিটে একটি রচনা মুখস্ত করুন তারপর ১ মাস পর সেটি মনে করার চেষ্টা করুন মনে আসবে কি? অবশ্যই না ! কিন্তু আপনি এমন একটা গল্প মনে করুন যেটা আপনি ছোটবেলায় শুনেছেন মনে আসছে কি? অবশ্যই মনে আসছে ! এর জন্য বলছি গল্পের বই বেশি বেশি পড়ুন । এর ফলে আপনি শিক্ষাটির কথা ভুলে গেলও গল্পটি ভুলে যাবেননা আর গল্প মনে থাকলে গল্পের শিক্ষা এমনিই মনে পড়ে যাবে ! আর যদি কোন একটি গল্পের শিক্ষা আপনার বাস্তব জীবনে ঘটে তাহলে তো আর কথাই নাই সারাজীবনের জন্য এটি মনে থেকে যাবে!

আমাদের পৃথিবী এখন প্রযুক্তিতে ভরা । তাই সবার মন থেকে বই পড়ার আগ্রহও কমে যাচ্ছে । এখানে একটা কথা বলি সেটা হল উনবিংশ শতাব্দীর মানুষেরা একটু সময় পেলেই ঐ সময়টুকু একটি বই পড়ে নিতো । এর জন্যই তখনকার মানুষ অনেক সমৃদ্ধ ছিল ।

শেষ কথা হল, শেখার কোন শেষ নেই, শিখুন, অর্জন করুন, জ্ঞানের ভাণ্ডারে সমৃদ্ধ হন এবং সবশেষে দান করে যান !

 

 

About The Author
Saif Mahmud
Saif Mahmud
লেখা-লেখির ইচ্ছা অনেক আগে থেকেই ছিল । নিজের লেখা প্রকাশ করার জন্য এরকম একটা সাইট খুঁজছিলাম অবশেষে পেয়ে গেছি ! ধন্যবাদ বাংলাদেশিজমকে ।