Now Reading
ফুটপ্রিন্ট-বাংলাদেশীজমঃ বাংলাদেশের প্রথম ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট !!



ফুটপ্রিন্ট-বাংলাদেশীজমঃ বাংলাদেশের প্রথম ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট !!

প্রথমেই বলে নিচ্ছি, এই আর্টিকেল ফুটপ্রিন্ট-বাংলাদেশীজম এ ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য একটি সম্পূর্ণ গাইডলাইন হিসেবে কাজ করবে। কিভাবে কি করতে হবে, শুরু থেকে শেষ এখানে আলোচনা করা আছে; সুতরাং, এটি ধৈর্য সহকারে পড়ুন……..

আমরা অনেকেই আছি যারা লেখালেখি করতে ভালোবাসি। কেউ শখ থেকে লেখে, কেউ বই বের করে সেই শখ থেকে; আবার কারো ইচ্ছা বই লিখে বা পত্রিকায় লেখালেখি করার মাধ্যমে জনপ্রিয়তা অর্জন, আবার কারো উদ্দেশ্য অর্থ উপার্জন; অর্থ্যাৎ পেশা হিসেবে নেওয়া।

যেমন আমার কথাই বলি, আমি বাংলাদেশের অতি জনপ্রিয় একটি মাসিক ম্যাগাজিন যায়যায়দিন  যা কিনা পরবর্তীতে মৌচাকে ঢিল  নামে প্রকাশিত হতো, সেখানে অনেক আগে লেখালেখি করতাম। এটি বন্ধ হয়ে যাওয়ার আগ পর্যন্ত। আমার ইচ্ছে ছিল জনপ্রিয়তা অর্জন করা। পরে মনে হল, অনেক তো ভালোবাসা পেলাম পাঠক-পাঠিকাদের কাছ থেকে, এবার কি কোনভাবে কিছু আয় করা যায় না? আমার বন্ধু জানালো রহস্য-পত্রিকার  কথা।  কিন্তু পড়াশোনার চাপে আর কখনোই লেখা হয়ে ওঠেনি।  মৌচাকে ঢিল ও বন্ধ হয়ে গেল; লেখার প্লাটফর্মটাই হারিয়ে ফেললাম।

এরপর অনেক সময় কেটে গেছে, ফেসবুকে লিখে মন ভরতো না, ঠিক তৃপ্তি পেতাম না। ফ্যানদের উদ্দেশ্যে অনেক ঘোষণা দিতাম, এই অমুক দিনে লেখা আসছে, আসবে।  কিন্তু সেই অমুক দিন আর খুজেঁ পাওয়া যেত না। সময়ের স্রোতে স্কলারশীপ নিয়ে চলে এলাম নেদারল্যান্ডে। জীবন থেকে লেখালেখির ধারাটা শেষ হবে হবে এমন একটা ভাব, ঠিক তখন আমার মোবাইলে ইউটিউব এর একটা নোটিফিকেশান এলো বাংলাদেশীজম  চ্যানেল থেকেঃ  ঘরে বসেই মাসে ১০,০০০ টাকা বা তারও বেশি উপার্জন  \ Earn Money Online in Bangladesh

নোটিফিকেশান ক্লিক করে ভিডিওটা দেখলাম ধৈর্য সহকারে, কারণ আজ পর্যন্ত Bangladeshism চ্যানেলে অযৌক্তিক বা অনর্থক ভিডিও দেখিনি; বরং বিভিন্ন বিষয়ে অনেক কিছু শিখতে পেরেছি।

যাইহোক, ভিডিওটার সারমর্ম ছিল ঠিক এটাই যে, যারা লেখালেখি করে অর্থ্যাৎ আর্টিকেল লিখতে ভালোবাসেন, তারা এখন সেই লেখালেখির মাধ্যমেই ঘরে বসে টাকা আয় করতে পারবেন। তবে লেখাটা অবশ্যই শতভাগ আপনার নিজের হতে হবে ; অন্য কোথাও পাবলিশ হওয়া যাবে না এবং অবশ্যই অবশ্যই নির্দিষ্ট ক্যাটাগরিতে গাইডলাইন মেনে হতে হবে। এটার জন্য ইন্টারনেট কানেকশান সহ  ডেস্কটপ বা ল্যাপটপ থাকা চাই; কম্পিউটারে ব্যাপারটা অনেক ইজি হবে আরকি! আর এটার জন্য আপনাকে যেতে হবে Footprint.Bangladeshism এর সাইটে। যেটা কিনা বাংলাদেশের প্রথম ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট!

( ফুটপ্রিন্টের বয়স মাত্র ৮ দিন হলেও এখানে লেখকরা প্রচুর পরিমাণে লেখা সাবমিট করছেন। আমার জানামতে এখন পর্যন্ত ২০০০ এর বেশি লেখা সাবমিট পড়লেও কপি-পেষ্ট বা খারাপ মানের জন্য বেশিরভাগই বাদ পড়ে গেছে। যেটা কিনা এই ফ্রিল্যান্স সাইটের লেখার উচ্চ গুণগত মান নির্দেশ করে। অনেক লেখকের আইডি ব্যান করে দেয়াও হয়েছে কপি-পেষ্টের দায়ে।

এই লেখাটি লেখার সময় পর্যন্ত মাত্র ১৭০টি লেখা পাবলিশড হয়েছে যার মধ্যে ৩২টি লেখা চলে গেছে UN PAID সেকশানে- ৭০০ শব্দের কম লেখা হবার কারণে। এছাড়াও দৈনিক ভিজিটর রয়েছে ২০ হাজার এর উপরে। এত অল্প সময়ে আর কোন ওয়েবসাইট এত ভিজিট হচ্ছে কিনা সন্দেহ! আর এর কারণ মানুষের আগ্রহ এবং উচ্চমানের লেখা। লেখা ভাইরাল হয়েছে আনুমানিক ১০টা মত। সারা ফেসবুক ছেঁয়ে গেছে এসকল লেখাতে!!  )

তাহলে আপনিই বা কেন বসে থাকবেন? এখনই তৈরী হোন ফুটপ্রিন্টার হতে !! আপনার লেখা পৌছে দিন বাংলাদেশের হাজার হাজার মানুষের কাছে।

ধাপে ধাপে চলুন দেখে নিই কিভাবে ফুটপ্রিন্টে মেম্বার হবেন এবং এর গাইডলাইন। এটি খুব সোজা। আমরা সবাই ফেসবুক ইউজ করে থাকি, ফেসবুকের মতই এর সেটিংস তাই সহজেই বুঝতে পারবেন।

প্রথম ধাপঃ রেজিষ্টার করুন
প্রথমে আপনাকে http://footprint.press – এ গিয়ে রেজিষ্টার করতে হবে। সেখানে User Name এর ঘর পূরণ করতে হবে। ইউজার নেম ভেবে চিন্তে দিবেন কেননা এটি পরবর্তীতে আর পরিবর্তন করতে পারবেন না।  যেমন, আমি Ferdous Sagar zFs; এটি আর বদলাতে পারবো না। এরপর আপনার সঠিক ইমেইল ঠিকানা দিন এবং ফুটপ্রিন্টের জন্য পাসওয়ার্ড দিয়ে রেজিষ্টার করে ফেলুন।

দ্বিতীয় ধাপঃ একাউন্ট সেটিংস -এ গিয়ে সেটিংস ঠিক করা
সাইটের একদম উপরের সারিতে দেখবেন একাউন্ট সেটিংস । ক্লিক করুন। সেখানে গিয়ে নিজের প্রথম নাম, শেষ নাম  লিখুন। বাম পাশে বক্সে দেখবেন পাসওয়ার্ড, প্রাইভেসি, নোটিফিকেশান, ওয়েব নোটিফিকেশান  পরিবর্তন করার অপশন রয়েছে। আর My Points এ নিজের পয়েন্ট কত জমলো সেটা দেখতে পাবেন। পয়েন্ট ইচ্ছে করলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ারও করতে পারবেন। পয়েন্ট খুব গুরুত্বপূর্ণ।

পয়েন্ট সিস্টেম যেভাবে কাজ করে এবং কোন কাজ করলে কত পয়েন্ট পাবেন?

১। অন্য কারো পোস্ট শেয়ার করলে – ৫ পয়েন্ট
২। অন্য লেখকের পোস্টে কমেন্ট করলে – ৫ পয়েন্ট
৩। নিজেদের পোস্ট শেয়ার করলে – ৩ পয়েন্ট
৪। আরেকজনের পোস্ট পড়লে – ২ পয়েন্ট।
৫। পোস্ট সফল ভাবে পাবলিশ হলে – ১০ পয়েন্ট (পেইড এবং আনপেইড)
৬। রেফারেল লিঙ্ক দিয়ে কোন লেখককে আনতে পারলে ১০ পয়েন্ট (এক্ষেত্রে অবশ্যই লেখকের নূন্যতম একটি পোস্ট থাকতে হবে)
৭। আরেকজন লেখকের প্রোফাইলে গিয়ে লেখককে রিভিউ রেটিং দিলে – ৫ পয়েন্ট
৮। সাইট লগ ইন করা অবস্থায় দিনে যতবার ৫ মিনিটের বেশী ব্রাউজ করবেন ততবার ২ পয়েন্ট করে পাবেন।

ভবিষ্যতে পয়েন্ট বেইজড প্রায়োরিটি সিস্টেম হবে অর্থাৎ সর্বোচ্চ পয়েন্ট যারা থাকবে তারাই সবচেয়ে বেশী এক্টিভ ফুটপ্রিন্টার হিসেবে থাকবেন এবং তাদের লেখা প্র্যায়োরিটি পাবে সাইটের হোম পেজে এবং ফেসবুকে শেয়ারিং এর ক্ষেত্রে।

পয়েন্ট সিস্টেম দিয়ে ভবিষ্যতে আরো অনেক ফিচার যুক্ত করা হবে যা এখনও প্ল্যানিং -এর মধ্যে আছে। ভবিষ্যতে জানতে পারবেন আপডেট।

তৃতীয় ধাপঃ প্রোফাইল আপডেট করুন
এর পর প্রোফাইল বাটনে ক্লিক করুন। Your profile is looking a little empty. Why not add some information! লেখা আসবে। এবার ডান পাশে সেটিংস আইকন বাটনে ক্লিক করে Edit Profile এ যান। সেখানে ফেসবুকের মত করেই প্রোফাইল ফটো ও কভার ফটো আপলোড করতে পারবেন। নিজের ব্যাপারে ১৮০ শব্দের কিছু লিখতে পারবেন।  সাথে ফেসবুক আইডি ও বিকাশ নাম্বার  যেটি আপনার পেমেন্টের জন্য লাগবে সেটি উল্লেখ করে দিয়ে কভার ফটোর ঠিক নিচে টিক চিহ্ন  তে ক্লিক করুন, চেইঞ্জ গুলো সেইভ হয়ে যাবে। ( আপনার বিকাশ নাম্বার এর প্রাইভেসি, একাউন্ট সেটিংস এর প্রাইভেসিতে গিয়ে অনলি মি করে নিবেন )

বাকি যে বাটন গুলো আছে, অর্থ্যাৎ

Activity হলো, আপনি যা যা করেছেন মানে ফুটপ্রিন্টে আপনার এক্টিভিটি শো করবে;
Post এ আপনি যা পোষ্ট করেছেন তাই দেখাবে;
Comments এ দেখবেন আপনি কোথায় কি মন্তব্য করেছেন তাই;
Message আপনার চ্যাট বক্স; কাউকে মেসেজ করতে চাইলে তার একাউন্টে গিয়ে মেসেজ করতে পারবেন;
Reviews এ কে আপনাকে কত রেটিং করেছে তাই দেখতে পাবেন; এবং
Badge নির্দেশ করবে আপনি কোন ক্যাটাগরির লেখক। ( লেখক ক্যাটাগরির বিস্তারিত আপনি পেমেন্ট প্রসিডিওর সেকশানে পাবেন)
চতুর্থ ধাপঃ লেখা সাবমিট করুন
লেখা সাবমিট করার আগে সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ হলো, সাইটের গাইডলাইন খুব ভালোভাবে পড়ে দেখা ও পেমেন্ট প্রসিডিওর জানা। এ বিষয়ে আপনারা ফ্রন্ট পেজেই পাবেন বিস্তারিত। ফ্রন্ট পেজে গিয়ে গাইডলাইন ও পেমেন্ট প্রসিডিওর বাটনে ক্লিক করুন।

আপনি লেখা সাবমিট করতে চাইলে সাবমিট করুন  বাটনে ক্লিক করে সাবমিট প্যানেল এর পাতায় আসুন। এখানে আপনি ঠিক মাইক্রোসফট ওয়ার্ডের মত পরিবেশ পাবেন। আপনার লেখা কম্পিউটারের ওয়ার্ডে লেখা থাকলে সেখান থেকে যেকোন রকমের ফরম্যাটিং ছাড়াই কপি করে পেষ্ট করুন এবং ওয়ার্ড প্যানেলে ফরম্যাটিং করে নিন। মানে , বোল্ড, ইটালিক, বুলেট, শব্দের রঙ ঠিক করা- এগুলোর কথা বলছি। লেখা অবশ্যই মিনিমাম ৭০০ শব্দের হতেই হবে। এর নিচে হলে তা (Un Paid UP) সেকশানে চলে যাবে। খেয়াল রাখবেন, কোনভাবেই যেন বানান ভুল না হয়!

এরপর লেখার সাথে যে ফিচার ফটো দিতে চান সেটি আপলোড করুন।  ছবি সংযোজন করার ক্ষেত্রে অন্যজনের ছবি বিনা অনুমতিতে সাবমিট করতে পারবেন না।  আপনার পোস্টের ফিচার ইমেজ বা Thumbnail টা খুব Important যা আপনার পোস্টের উপরের দিকে দেখায় অথবা শেয়ার করলে ফেসবুকে যে ছবিটি আসে লিঙ্কের সাথে। তাই খুব ভাল ছবি বানাতে পারলেই ভাল হয়।  ছবিটি অবশ্যই আপনার পোস্টের সাথে রিলেটেড হতে হবে এবং ছবিটি নূন্যতম ১০০০ পিক্সেলের  হতে হবে। ঘোলা বা অস্পস্ট ছবি দিলে আপনার পোস্টটি পাবলিশ করা নাও হতে পারে।  ফটোতে কোন প্রকার লেখা না রাখার চেষ্টা করবেন, আর রাখাটা গুরুত্বপূর্ণ হলে লেখা খুব বেশি বড় করে দিবেন না।

আপনার লেখা কোন ক্যাটাগরির সেটা ক্যাটাগরি বক্স থেকে ঠিক করে নিন।

অন্য কোন জায়গা থেকে রেফারেন্স নিলে সেটা রেফারেন্স বক্সে মেনশন করে দিতে হবে ও লেখা ও ছবির সোর্স, সোর্স বক্সে মেনশান করে দিবেন। লিংক থাকলে সোর্স লিংকের বক্সে এড করে দিবেন।

মনে রাখবেন আপনার লেখার শতকরা ৯০% নিজস্ব হতে হবে। অন্য জায়গা থেকে বেশীরভাগ কপি করে সোর্সের নাম উল্লেখ করে দিলে কোন লাভ হবে না। একাউন্ট ব্যান হয়ে যাবে।

এছাড়াও মনে রাখবেন, এটা বাংলাদেশীজম ,বাংলাদেশের হয়ে অন্য দেশের সংবাদ করে সেই দেশকে রিপ্রেজেন্ট করতে যাবেন না প্লিজ। আমি অনেককেই দেখলাম ভারত বা পাকিস্তানের খবর নিয়ে লিখতে !! কেন রে ভাই? যে সব দেশ আমাদের দেশকে, আমাদের ভাষা কে সম্মান করতে জানেনা, তাদের নিয়ে কেন লিখতে হবে, তাদের খেলোয়াড় বা যেকোন কিছু নিয়ে কেন লিখতে হবে? তাদের কোনদিন দেখেছেন আমাদের দেশের পজিটিভ কিছু নিয়ে লিখতে? নাহ। সুতারাং, চেষ্টা করবেন নিজের দেশকে তুলে ধরার। এই বাংলাদেশ আমাদের মা, এই বাংলা ভাষা আমাদের প্রাণ।

পঞ্চম  ও শেষ ধাপঃ সাবমিট করে দিন
সবকিছু আরেকবার মিলিয়ে নিয়ে বা চেক করে স্প্যাম বক্সের অংক মিলিয়ে লেখা সাবমিট করে দিন। একজন এডমিন আপনার লেখা দেখে পরবর্তীতে সেটাকে উপযোগী মনে করলে তা পাবলিশ করে দিবেন। আর রিজেক্ট হয়ে গেলে নোটিফিকেশান পাবেন।  গাইডলাইনের বাইরে হলে আপনার পোস্টটি রিজেক্ট করা হবে এবং আপনি সেই পোস্টের জন্য কোন টাকা পাবেন না।

আপনার লেখা পাবলিশ হয়ে গেলে তা ফ্রন্ট পেজ কিংবা নতুন সংযোজনে দেখতে পাবেন।

আশা করি এই লেখাটি আপনাদের উপকারে আসবে। আমি যথাসাধ্য চেষ্টা করেছি লিখে বোঝানোর জন্য।  আপনাদের কোন প্রশ্ন থাকলে তা ফুটপ্রিন্টারদের ফেসবুক গ্রুপে গিয়ে প্রশ্ন করবেন।

বাংলাদেশীজম এর গুরুত্বপূর্ণ কিছু লিংকঃ

footprint members ফেসবুক গ্রুপ লিংকঃ https://www.facebook.com/groups/bangladeshism.footprint
Bangladeshism এর অফিসিয়াল ফেসবুক পেইজঃ https://www.facebook.com/bangladeshism
Bangladeshism এর অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলঃ https://www.youtube.com/channel/UCnyjttFsNURsFJRwPf2azzg
Bangladeshism এর ওয়েবসাইটঃ https://bangladeshism.com
Bangladeshism এর ফটোগ্রাফ গ্রুপঃ https://www.facebook.com/groups/bangladeshism.photography
সবাই ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন, বাংলাদেশীজম এবং ফুটপ্রিন্টের সাথে থাকুন। বাংলাদেশের একজন সুনাগরিক হিসেবে বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরুন।

HAPPY WRITING & FREELANCING !!

About The Author
Ferdous Sagar zFs
Ferdous Sagar zFs
Hi, I am Ferdous Sagar zFs. I am a Proud Bangladeshi living in abroad for study purpose. I love to write and it's my passion or hobby. Thanks.
Comments
Leave a response

You must log in to post a comment