Now Reading
ভর্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি কিভাবে নিবেন?



ভর্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি কিভাবে নিবেন?

সবে মাত্র শেষ হয়েছে এইচ এস সি বিজ্ঞান বিভাগের লিখিত পরীক্ষাব্যবহারিক পরীক্ষা এখনো বাকি। অনেকেই যার যার ব্যবহারিক খাতা কমপ্লিট করা নিয়ে ব্যস্ত আবার অনেকেই আছে অল্প ছুটি কাটানোতে কেউ কেউ সামনে আসন্ন ভর্তিযুদ্ধ নিয়ে চিন্তিত আমার এই লিখাটি শুধুমাত্র তাদের জন্যই যারা এইচ এস সি পরীক্ষা শেষ করবে এবং ভবিষ্যত এর জন্য প্রিপারেশন নিয়ে চিন্তিত আর কথা বাড়াতে চাই না এবার মূল লিখায় ফিরার পালা

প্রথমেই থাকলো সবার প্রতি শুভ কামনা যারা ২০১৭১৮ সালে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিতে যাচ্ছ প্রত্যেকেই একটা স্বপ্নের মধ্য দিয়ে আজ এই অবস্থায় এসে দাঁড়িয়েছ যে রাস্তা তোমরা পাড় করে এসেছ তা কম কষ্টের ছিল না তবে সামনের যে পথ পাড়ি দিতে হবে তা আরো কঠিনতম ভয়ংকর তবে ভয়ংকর শুনে ভয় পেলে কখনোই চলবে না বুকে সাহস নিয়ে, অদম্য ইচ্ছা নিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে  যেতেই হবে এতে করে যত বাঁধাই আসুক না কেন এত কষ্টের পথ যখন পাড়ি দিয়েছ,  নিজের ভবিষ্যতকে উজ্জ্বল করতে বাকি পথ টুকুও ভালোভাবেই পাড়ি দিতে হবে

প্রথমেই তোমাকে লক্ষ্য স্থির করতে হবে এবং সেই লক্ষ্য অনুযায়ী অগ্রসর হতে হবে এটা কি Aim in Life? না, তবে এমন কিছুই ছোট থেকেই সবাই স্বপ্ন দেখে সে ডাক্তার বা ইন্জিনিয়ার হবে ডাক্তার আর ইন্জিনিয়ার ছাড়া কি দেশে আর কোন শ্রেণির মানুষ নেই! তোমাকে তোমার যোগ্যতা অনুযায়ী লক্ষ্য স্থির করতে হবে লক্ষ্য স্থির করতেও যোগ্যতা লাগে? হ্যা, লাগে তোমার লক্ষ্য নির্ভর করে আছে তুমি এইচ এস সি পরীক্ষা কেমন দিয়েছ তার ওপর কারণ তুমি কেমন পরীক্ষা দিয়েছ সেটা একমাত্র তুমি আর স্বয়ং আল্লাহ ছারা আর কেউ জানতে পারবে না তাই তোমাকে পরীক্ষার উপরেই নির্ভর করতে হবে খুব ভালো পরীক্ষা দিয়ে থাকলে লক্ষ্য অনেক ভালো হবে আর যদি পরীকটখুব খারাপ হয় তবে লক্ষ্য হরালে চলবে না নিজের চয়েজকে মাঝে মাঝে বিসর্জন দিয়ে সর্বোপরি যেটা ভালো হয় সেদিকেই অগ্রসর হতে হবে

পরীক্ষার পর অনেকেই হালকা ঘুরাঘুরি সেরে নিচ্ছে তাদের কপালে সত্যি বলতে খুব খারাপ কিছুই আছেকারণ সময়টা সময় কাটানোর জন্য না সামনের যে মহা যুদ্ধক্ষেত্র আছে তার জন্য প্রস্তুত হওয়ার জন্য এই সময় প্রায় সবাই চায় কোন না কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পেতে তোমাকে কোন না কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পেতেই হবে নিজের লক্ষ্য ঠিক কর

তারপর সে অনুযায়ী মেডিক্যাল,  ইন্জিনিয়ারিং বিশ্ববিদ্যালয় বা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় এর জন্য যে কোন একটি ভালো কোচিং ভর্তি হওয়াটা উত্তম বলে আমি মনে করিকে কোনটায় ভর্তি হবে তার জন্য অবশ্যই লক্ষ্য খুব ভালো ভাবে নির্ধারণ করা জরুরি। তবে আমাকে যদি বলা হয় কোন ভালো ভর্তি কোচিং এর নাম বলতে আমি বলবো অবশ্যই উদ্ভাস এর নাম।

এবার কঠোর পরিশ্রমী হওয়ার পালাযে যত বেশি পরিশ্রমী তার জন্য সেই জায়গাটাই অপেক্ষারততাই নিজের যোগ্যতা অনুযায়ী সবচেয়ে সেরা জায়গাটা পাওয়ার জন্য অবশ্যই পুরোটা দিয়ে পরিশ্রম করতে হবে

অবশ্যই তোমাকে পড়াশুনা গুছিয়ে নিতে হবেছোট একটা রুটিন করে নিলে সময়টাকে খুব ভালোমতো কাজে লাগানো যেতে পারেতবে কোচিং কি করা উচিত?

আমার মতে, কোচিং অবশ্যই তোমার ক্লাশগুলো করা উচিত। কোচিং এর সবকয়টি ক্লাশ মনোযোগ দিয়ে করা উচিত বলে আমি মনে করি। এতে করে তোমার যে লাভটি হবে তা হলো কোচিং যে লেকচার গুলো হয় তাতে যে সব সর্টকাট বা যে Strategy follow করা হয় তা ওই পরিস্থিতির একজন শিক্ষার্থীর জন্য খুবই উপকারী

তোমার উচিত বেশি বেশি করে তোমার যে অনুশীলন বইটি তুমি পাঠ্য করে নিয়েছ তা বেশি বেশি করে Practice করাতার মানে হচ্ছে Multiple Question এর জন্য তোমাকে যে কোন একটি ভালো বই নির্ধারণ করতে হবেযেমনঃ ভার্সিটি প্রশ্ন ব্যাংকবেশি করে এটি অনুশীলনের আওতায় আনতে হবে। এছাড়াও বাজারে আরো অনেক ভালো বই আছে, যেগুলো ভালো করে আয়ত্ব করতে পারলে মূল পরীক্ষায় অংশগ্রহণে ভালো সাহস অর্জন করবে।

এরপর তোমার করণীয় হতে পারে কোচিং এর নিয়মিত আয়োজন করা পরীক্ষাগুলোয় খুব যত্ন সহকারে উপস্থিত থাকাএতে করে তোমার মনোবল ইচ্ছাশক্তি দুটোই বাড়বেপ্রথম দিকদিয়ে পরীক্ষার প্রাপ্ত নাম্বার খুব Depression সৃষ্টি করবেএতে করে ভেঙ্গে পড়লে চলবে নাপরীক্ষা চালিয়ে যেতে হবে এবং পরীক্ষায় উন্নতি করার প্রবল ইচ্ছাশক্তি থাকতে হবেতবেই উন্নতি করা সম্ভব বলে আমি মনে করি

তোমার লক্ষ্য যাই হোক না কেন প্রথম পাবলিক পরীক্ষাটিতে অবশ্যই attend করা উচিত এতে করে পাবলিক পরীক্ষা সম্পর্কে ধারণা জন্মাবে এবং যা খুবই উপকারি

তারপর নিজের লক্ষ্য অনুযায়ী মেডিকেল,  ইন্জিনিয়ারিং কিংবা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষাগুলোতে অংশগ্রহন করা এবং সফলতা অর্জন করাটাই মূল লক্ষ্য।তকখনোই একটি বা দুইটি ফর্ম তুলবে না। নিজের সাধ্যমত যতগুলো সম্ভব তোলার চেষ্টা করবে। তবে চান্স না পেয়ে depression ভুগলে চলবে নামনে অবশ্যই আশা রাখতে হবে। আল্লাহ সহায় হলে অবশ্যই সফলতা পাবে।

একটা কথা মনে রাখবে” students তিন category হয়। good, better, best. সবাই যার যার সামর্থ্য অনুযায়ী চেষ্টা করেতুমি তোমার category বুঝে উঠতে পারলে নিজের পুরো চেষ্টা থেকেউ সামান্য বেশি চেষ্টা পরিশ্রম তোমাকে সাফল্য এনে দিতে পারে।“

আশা করি সবাই তার যোগ্য জায়গাটি সফলতার সাথে অর্জন করবেসেই শুভেচ্ছাই রইলো সবার প্রতি

About The Author
Ashraful Kabir
Ashraful Kabir
Want to be learn how to write..... also trying.....
Comments
Leave a response

You must log in to post a comment