Now Reading
ইন্টারস্টেলার বিশ্লেষণ (পর্ব ১)



ইন্টারস্টেলার বিশ্লেষণ (পর্ব ১)

ইন্টারস্টেলার এমন এক মুভির নাম, যা বানাতে গিয়ে ৩ জন বিজ্ঞানী মহাকাশ নিয়ে গবেষনা করেন এবং মুভিতে যা যা দেখানো হয়েছে তার প্রায় ৯৫% বৈজ্ঞানিক ভাবে এবং থিওরিটিকাল ভাবে প্রুভ করা। বিশেষ করে সাইন্স এর স্টুডেন্টস দের জন্য এটি একটি ভালো লেসন, যা টাইম ট্রাভেলিং, থিওরি অব রিলেটিভিটি, ডাইমেনশন, প্যারালাল ইউনিভার্স, সিংগুলারিটি এবং মহাকাশ এর অন্যান্য বিষয় নিয়ে যথেষ্ট জ্ঞান দিতে সক্ষম। এই মুভি দেখার পর অনেকেই বলে ভালো লাগেনাই, এর মধ্যে প্রধান একটা কারন মুভিটি সঠিক ভাবে না বোঝা। মুভিটি যদি কেউ পুরোপুরি বুঝতে পারে & হিসেব গুলো মিলাতে পারে, তবে অবশ্যই এটি আনন্দ লাগবে।

এই মিশনে তাদের “Murphy’s law” মাথায় রাখতে হবে।

ল’ টি হচ্ছে “whatever can go wrong, will go wrong” অর্থাৎ যা কিছু পেচ লাগার সম্ভাবনা আছে তা পেচ লাগবেই,..

কথায় আছেনা আমরা কোনো বান্ডেল এর মধ্যে প্রয়োজন এর একটা কাগজ খোজার জন্য বান্ডেল এর ওপর থেকে খোজা শুরু করলে কাগজ টা থাকে ঠিক নিচে, আর নিচে থেকে খোজলে কাগজ টা থাকে ঠিক ওপরে..

আবার রাস্তায় যে সাইড দিয়ে আমরা যাই ওই সাইড এই খালি জ্যাম টা থাকে,অন্য সাইড কেনো ফাকা?

এই অদ্ভুত পরিস্থিতি ই হচ্ছে মারফি’স ল’। এই অবস্থায় মুভিতে মোট ৫ টি ডাইমেনশন দেখানো হয়েছে, এর মধ্যে ৩ টির সাথে আমরা পরিচিত। তা হলো দৈর্ঘ্য, প্রস্থ এবং উচ্চতা..

চতুর্থ ডাইমেনশন এখানে দেখানো হয়েছে গ্র‍্যাভিটি অর্থাৎ অভিকর্ষজ ত্বরন এবং পঞ্চম দেখানো হয়েছে সময়। বিস্তারিত আলোচনা হবে দ্বিতীয় পর্বে।

এখন প্রথম পর্ব শুরু করি,

পৃথিবী ময়লা আবর্জনাপূর্ণ। প্রাকৃতিক দূর্যোগ,খরা,বালুঝড় ইত্যাদি ঘিরে ফেলেছে পৃথিবী কে.. মানবজাতির অস্ত্বিত্ত হুমকির মুখে। শুধু একটি পথ ই খোলা আছে এই হুমকির মুখ থেকে মানব জাতিকে রক্ষা করার… ইন্টারস্টেলার ট্রাভেল।

অর্থাৎ সৌরজগৎ ভ্রমন। নতুন একটি ওয়ার্মহোল আবিষ্কৃত হয়েছে,যার মধ্য দিয়ে মানুষ হয়তো নতুন কোনো গ্রহের সন্ধান পেতে পারে যেখানে মানুষ নতুন করে আবার জীবন শুরু করতে পারবে,আবার বুক ভরে শ্বাস নিতে পারবে ফসল ফলাতে পারবে। পৃথিবী ধ্বংসের মুখে। এই পৃথিবীতে ইঞ্জিনিয়ার এর কোনো মূল্য নেই, মূল্য আছে কৃষক এর, যে কিনা এক আনি ফসল ফলাতে পারবে.. বিষাক্ত এই পৃথিবীতে ধুলিঝর গ্রাস করে ফেলছে সব ফসল, দুর্ভিক্ষ হানা দিচ্ছে পৃথিবীতে.. এমন ই এক বিষাক্ত পৃথিবীতে বাস করে কুপার, তার একমাত্র ১০ বছরের মেয়ে মার্ফ এবং তার ছেলে টম কে নিয়ে। তাদের সাথে আছে কুপার এর ফাদার ইন ল।

একদিন সকালে মার্ফ ঘুম থেকে উঠে দেখলা তার বুক শেল্ফ এর বইগুলো মাটিতে পরে আছে। সব বই না, কিছু কিছু বই.. কেউ যেনো সতর্ক ভাবে বেছে বেছে তার সেল্ফ থেকে কয়েকটা বই ফেলে দিয়েছে.. মার্ফ বই গুলো উঠিয়ে রাখলো… ভুলে গেলো সেদিনের কথা। পরের দিন সকালে উঠে দেখে এক ই কান্ড, সেল্ফের বই গুলো মাটিতে পরে আছে। সে বুঝতে পারছে না ঘটনা কি। মার্ফ কুপার কে ডাকলো,ডেকে বলল সব কিছু.. কুপার বিশ্বাস করলো না,বলল হয়তো বা বাতাসে পড়ে গেছে বই। কিন্তু ঘটনা এখানেই থামলো না। একদিন মারাত্মক ধুলিঝর এ তাদের সারাঘর ধুলোয় ভরে গেলো। মার্ফ এবং কুপার মার্ফ এর রুমে গিয়ে অবাক হয়ে দেখলা রুমের এক কোনায় বালু গুলো আলাদা আলাদা গুচ্ছো আকারে পরছে, যেনো কেউ বালু গুলো কোথায় পড়বে তা সুবিন্যস্ত ভাবে সাজিয়ে রেখেছে.. মার্ফ কুপার কে বিজয়ীর ভংগিতে বলল, দেখলেতো? বললাম না আমার রুমে ভূত আছে?

কুপার একটা ছোট কয়েন এনে সুবিন্যস্ত বালুর দিকে লক্ষ্য করে সোজা ছুড়ে মারলো, সে দেখলো  যে অংশ টাতে বালু নেই সেদিক থেকে কয়েন টা চুম্বক এর মত সরে গিয়ে যেদিকে বালু পরছে সেদিকে গিয়ে পরলো..

কুপার হাসি দিয়ে বলল “Its not a ghost, its gravity ”

কেউ যেনো সুকৌশলে মার্ফ এর রুমের অভিকর্ষজ ত্বরন কোনোভাবে নিয়ন্ত্রণ করেছিলো।

কুপার এবার এই বালুরেখার অর্থ বুঝতে বসলো, কিছুক্ষন লক্ষ্য করার পরে সে দেখতে পেলো বালুগুলো বাইনারী সংখ্যা অনুযায়ী পরছে। কুপার একটা মানচিত্র নিয়ে এর অর্থ বের করতে বসলো, সে অবাক হয়ে লক্ষ্য করলো বালুরেখাটি কোন একটি নির্দিষ্ট অক্ষরেখা & দ্রাঘিমারেখা নির্দেশ করছে.. কুপার দেরী না করে গাড়ি নিয়ে বালুরেখার গন্তব্যে রওনা হলো। অর্ধেক পথ গিয়ে সে দেখলো গাড়ির সিট এর নিচে মার্ফ লুকিয়ে আছে, তার আগ্রহের সীমা নেই। মার্ফ তার বাবার মত বাইনারী কোড এর অর্থ জানতে চায়..

গন্তব্যে পৌছে কুপার একটি নাসা(NASA) বেস দেখতে পেলো,যারা প্রস্তুতি নিচ্ছে নতুন গ্রহ খুজতে যাওয়ার জন্য এবং কুপারের পাইলট পেশনে যথেষ্ট দক্ষতা থাকায় কুপার কে তারা চাচ্ছে তাদের রকেট এর পাইলট হিসেবে রওনা দেয়ার জন্য। কুপার এর দিকে তারা ঠেলে দিলো বিশাল এক  চয়েস, হয় সে পৃথিবীতে তে থাকবে এবং প্রজন্মের পর প্রজন্মের ধীর মৃত্যু দেখবে, অথবা সে তার পরিবার আর কখনো না দেখার সম্ভাবনা নিয়ে সুইসাইড মিশনে পাড়ি জমাবে?

এমন এক ওয়ার্মহোল দিয়ে প্রবেশ করবে তারা যেখানে আগে কেউ যায়নি, কি আছে সেখানে?

যা আর কেউ জানেনা?

কি সিদ্ধান্ত নিবে কুপার?

মার্ফ কে কিভাবে বুঝাবে সে?

 

 

বিশ্লেষণ করবো  মুভি এর বাকি অংশ এরপরের লে

About The Author
Kakon sultana Sultana
Mrinmoyi Jahan
0 Comments
Leave a response

You must log in to post a comment