Now Reading
মোশন সিকনেস এবং তার বৈজ্ঞানিক ব্যবচ্ছেদ



মোশন সিকনেস এবং তার বৈজ্ঞানিক ব্যবচ্ছেদ

আমরা যারা বাসে বা ট্রেনে করে কোথাও ঘুরতে যাই তখন লক্ষ্য করলেই দেখি কিছু মানুষ কেন জানি শুধু শুধু জানালা দিয়ে বমি করছে ! বমি করার কোনো দৃশ্য মোটেও ভালো লাগার কথা নয় কারণ, এর মধ্যে কোনো সৌন্দর্য্য নেই | তবে, এর মধ্যে যে কোনো বৈজ্ঞানিক সৌন্দর্য্য থাকবেনা তা নিশ্চয় হতে পারেনা |

কাজেই, আজকে আমরা এই বমি করার পিছনের কারণ কিংবা এ সংক্রান্ত বিষয়গুলো নিয়ে বৈজ্ঞানিক আলোচনা করব | তবে, তার আগেই জানিয়ে রাখি এই ঘটনার জন্য দায়ী যেই জিনিস তার নাম হলো– “মোশন সিকনেস”|

 

মোশন সিকনেস কি ?

নাম শুনেই বোঝা যাচ্ছে গতি সংক্রান্ত যেই অসুস্থতা তাই মূলত এই মোশন সিকনেস | আমরা যখন গতিশীল কোনো কিছু করে যাই তখন এইটা হতে পারে | এছাড়া, গতিশীল কোনো ঘটনাও যদি ভিডিও হিসেবে দেখি তাহলেও এই ঘটনা ঘটতে পারে | এর সিম্পটম হিসেবে যা দেখা যায় তাহলো- বমিবমি ভাব, মাথাব্যথা, মাথাঘোরা, ফ্যাকাশে ত্বক, অত্যাধিক লালা নিঃসৃত হওয়া, ক্লান্তি এবং সর্বশেষ বমি |

 

মোশন সিকনেস কিভাবে হয় ?

এখন প্রশ্ন আসতে পারে মোশন সিকনেস কিভাবে হয় ? বা মূলত কিভাবে কাজ করে থাকে ?

এইটা নিয়ে আসলে এখনো অনেক গবেষণা হচ্ছে | বিজ্ঞানীরা এখনো পুরোপুরি নিশ্চিত নয় তবে, তাই ২টা জনপ্রিয় হাইপোথিসিস রয়েছে | এর মধ্যে একটি হলো “Senses out of Harmony” এবং অন্যটার নাম হলো “Sway theory” | এখানে উল্লেখ্য যদিও এইখানে থিওরি শব্দটা ব্যবহার করা হয়েছে তবে, বিজ্ঞানে থিওরি শব্দটা আরো ব্যাপক অর্থে ব্যবহৃত হয় | (*What’s Theory ?)

এইখানে, ২টা হাইপোথিসিস নিয়েই আলোচনা করা হয়েছে | প্রথমেই আসি “Senses out of Harmony” নিয়ে |

 

Senses out of Harmony

আমাদের শরীরে ৩টা ভিন্ন অংশ রয়েছে যারা মোশন ডিটেক্ট করতে পারে এবং সেই তথ্য মস্তিষ্কে নিয়ে যায় | যা নিম্নরূপ:-

  • চোখ (যেইটা মূলত মোশন দেখতে পারে |)
  • অন্তঃকর্ণ (এইটা মূলত মোশন সেন্স, গ্র্যাভিটি এবং এক্সেলেরেশন সেন্স করতে পারে |)
  • ত্বকের সেনসরি রিসেপ্টর (যারা মাসল মুভমেন্ট ছাড়াও স্পর্শ সেন্স করে থাকে |)

 

এখন যখনই এই ৩ সেন্সরের মধ্যে কোনো অসামঞ্জস্যতা দেখা দেয় তখনই মূলত, এই মোশন সিকনেস দেখা দেয় |¹

এখন প্রশ্ন আসতে পারে অসামঞ্জস্যতা বলতে এখানে কি বোঝানো হচ্ছে ? এর মানে হলো আমাদের এক সেন্সর এই মুহুর্তে যা অনুভব করবে তার সাথে সামঞ্জস্য রেখে যদি অন্যান্য সেন্সরগুলো তা অনুভব করতে না পারে তাহলেই হবে | উদাহরণ হিসেবে বলা যায় – আমরা যখন বাসে বসে যাই তখন আমাদের অন্তঃকর্ণ অনুভব করে আমরা গতিশীল কিন্তু, আমাদের চোখ বলে আমরা স্থিতিশীল |(ধরে নিচ্ছি জানালা দিয়ে বাইরে তাকিয়ে নেই বাসের ভিতরেই তাকিয়ে রয়েছি !) কাজেই, তখনই অসামঞ্জস্যতা তৈরী হয় আর তার ফলেই শুরু হয় মোশন সিকনেস | আবার, আমরা যখন কোনো মুভিতে গতিশীল কিছু দেখতে দেখি তখন আমাদের চোখ বলে আমরা গতিশীল কিন্তু, অপরপক্ষে অন্তঃকর্ণ বলে স্থির কাজেই, আবারও অসামঞ্জস্যতা এবং আবারও সেই মোশন সিকনেস ! এভাবে আমরা নিজেরাই চাইলে মোশন সিকনেস সংক্রান্ত অনেক কিছু আবিষ্কার করতে পারি | তবে,বিজ্ঞানীরা মোটামুটি নিশ্চিত এই ৩ সেন্সরের অসামঞ্জস্যতার কারণেই মূলত মোশন সিকনেস হতে পারে কিন্তু, ঠিক কেন এইটা হয় সেই বিষয় তারা এখনো নিশ্চিত নয় |

কিছু কিছু মানুষের ক্ষেত্রে  জেনেটিক্যাল কারণে মোশন সিকনেস দ্বারা আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা বেশি থাকে | আরেকটা, উল্লেখযোগ্য বিষয় হলো চোখ দিয়ে কোনো কিছু দেখা বা না দেখাটা মোশন সিকনেস এর জন্য অবশ্যকীয় কোনো বৈশিষ্ট নয় কারণ, অন্ধ মানুষদেরও মোশন সিকনেস হতে পারে ! ²

এবার আসি ২য় হাইপোথিসিস নিয়ে যার নাম হলো “Sway theory”

 

Sway theory

এর প্রবক্তা হলো “Thomas Stoffregen” তার দাবি অনুসারে এর সাথে অনঃকর্ণের কোনো যোগসূত্র নেই | তার মতে, এর সাথে মূলত শরীরের ন্যাচারাল মুভমেন্ট এবং ভারসাম্য রক্ষার কাজ জড়িত | প্রতিটা ব্যক্তিই সবসময়ই সবক্ষেত্রে সামন্যতম হলেও গতিশীল থাকে | একেবারে গতিহীন অবস্থায় থাকা কোনো ব্যক্তির পক্ষে একেবারেই অসম্ভব একটা ব্যাপার | আমরা যদিও জানিনা কিন্তু এইটা মূলত আমরা শরীরের ভারসাম্য রক্ষার জন্যই অবচেতনভাবে করে থাকি | যেমন– যখন সামনে আগাই তখন পায়ের আঙ্গুল দ্বারা মেঝেতে চাপ দেই | মূলত, এভাবেই ভারসাম্য রক্ষার কাজটি হয়ে থাকে |

এখন, কল্পনা করি আমরা একটা গতিশীল কোনো যানবাহনের মধ্যে রয়েছি এবং ঠিক একইভাবে আমরা আমাদের ভারসাম্য রক্ষার কাজটি ক্রমাগত চেষ্টা করে যাচ্ছি | যেহেতু তখন, কাজটা করা খুব একটা সহজ নয় তার ফলে দেখা দেয় অসামঞ্জস্য আর সবশেষে আবারও সেই মোশন সিকনেস | মূলত এই দাবিই Thomas Stoffregen নামক ভদ্রলোকটি করেছেন |

 

মোশন সিকনেস কাদের বেশি হয় ?

প্রশ্ন আসতে পারে মোশন সিকনেস কি সবার ক্ষেত্রেই একইরকম হয় ? নাকি মানুষ ভেদে ভিন্ন হতে পারে ? একটু আগেই জেনেটিক ফ্যাক্টরের কথা উল্লেখ করেছিলাম তার মানে অবশ্যই মানুষ ভেদে ভিন্ন হতে পারে |

এখন আমরা দেখি কাদের ক্ষেত্রে বা কিসব ক্ষেত্রে মোশন সিকনেস বেশি হতে পারে |

  • বয়স : মোশন সিকনেস ছোট বাচ্চাদের হবার সম্ভাবনা বেশি থাকে | বিশেষ করে যাদের বয়স ২ থেকে ১২ বছরের মধ্যে | যখন তারা বড় হতে থাকে অনেকেই এই সমস্যা কাটিয়ে উঠতে পারে কিন্তু, সবাই নয় |
  • জেন্ডার  : গবেষণায় দেখা গিয়েছে মহিলাদের আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা পুরুষদের থেকে তুলনামূলকভাবে বেশি |
  • জাতি :  এশিয়ানদের মধ্যে অন্য জাতি অপেক্ষা আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা বেশি |
  • লোকেশন : যারা গাড়ির পিছনে বসে তাদের ক্ষেত্রে মোশন সিকনেস দ্বারা আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা অনেক বেশি | এছাড়াও, যারা ড্রাইভিং করে কিংবা সামনের সিটে বসে তাদের ক্ষেত্রে মোশন সিকনেস এ আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা কম কারণ, তারা গাড়ির গতি স্বচক্ষে দেখতে পাবার ফলে তাদের সেন্সরগুলোর মধ্যে একটা সিনক্রনায়জেশন হয়ে থাকে |

 

মোশন সিকনেস থেকে বাচার উপায়

এত কিছু হয়ত জানলাম কিন্তু, মোশন সিকনেস থেকেই যদি বাচতে না পারি তাহলে হবে কিভাবে ? কাজেই, এখন জানব কিভাবে মোশন সিকনেস থেকে বাচা যেতে পারে |

 

  • নিজে ড্রাইভার হিসেবে গাড়ি চালানো কারণ, এতে গাড়ির গতি সম্পর্কে আগে থেকেই জানা যায় ফলে সিনক্রনায়জেশন সম্ভব হয় |
  • Avomine ট্যাবলেট খাওয়া যেতে পারে | এইটা ট্রাভেল সিকনেস এর জন্য খাওয়া হয় |
  • বই-পড়া কিংবা মোবাইল স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে কাজ না করা |
  • ট্রিপের আগে হালকা কিছু খাওয়া তবে, ভারী কিছু খাওয়া যাবেনা এতে উল্টো ব্যাকফায়ার হবে |
  • ঝাল জাতীয় খাবার ,ফ্যাটি ফুড কিংবা এলকোহল আছে এরকম কিছু খাওয়া যাবেনা |
  • আরেকটা চমত্কার উপায় হলো চুইংগাম চাবানো | এখানে চুইংগামটা সরাসরি মোশন সিকনেসের বিরুদ্ধে কাজ করছে না যেইটা করছে তাহলো, শুধু চাবানোটা !

এছাড়াও, কিছু রিলাক্সেশন থেরাপি রয়েছে যা দিয়ে এই মোশন সিকনেস অনেকটাই নিয়ন্ত্রণ করা যায় |

আজকে, এই পর্যন্তই | কেউ যদি কোনো ভুল-ক্রুটি পেয়ে থাকেন তাহলে, অনুগ্রহ করে জানাবেন | এছাড়া লেখাটা কেমন লাগলো তাও কষ্ট করে জানালো খুশি | সবাইকে ধন্যবাদ আজকে, এখানেই বিদায় নিচ্ছি |

 


 

References :

  1. http://www.webmd.com/cold-and-flu/ear-infection/tc/motion-sickness-topic-overview#1
  2. http://www.medicalnewstoday.com/articles/176198.php

 

Sources:

  1. http://health.howstuffworks.com/mental-health/neurological-conditions/motion-sickness.htm
  2. https://umm.edu/Health/Medical-Reference-Guide/Complementary-and-Alternative-Medicine-Guide/Condition/Motion-sickness

 

About The Author
Jannatul Firdous
Studying in Computer Science & Engineering (CSE)

You must log in to post a comment