Now Reading
নদী দূষণ



নদী দূষণ

ঢাকা বাংলাদেশের রাজধানি । এই শহরে বসবাস করে প্রায় ১৫ মিলিয়ন মাণুষ এবং প্রতিদিন পানি লাগে প্রায় ২.২ বিলিয়ন লিটার । কিন্তু আমাদের ই পানি আসে কোথা থেকে? যদি আপনার মনে এই প্রশ্ন আসে তার উত্তর হচ্ছে ভূগর্ভস্থ এবং নদী থেকে । ঢাকার পাশে দিয়ে চলে গেছি কিছু বড় নদী সেগুলো হচ্ছে: তুরাগ, বুড়িগঙ্গা, ধলেশ্বরী, লখনিয়া এবং টঙ্গী খাল । কিন্তু মজার বেপার কি জানেন আমারা প্রতিদিন যেই ভাবে নদী দূষণ করছি একদিন দেখা যাবে আমাদের দেশে নদী আছে ঠিকি কিন্তু নদীর পানি নাই আছে শুধু ময়লা আর রাসায়নিক আর কিছু পাওয়া যাবে না । এক সময় আমাদের এক মাএ চলাচলের ব্যবস্থা ছিল নদী পথ আর আমাদের দেশের প্রথম দিকের বাণিজ্য গুলিও হয়েছে এই নদীর উপর দিয়েই । আর আজ আমরা আমাদের এই নদী কে দূষিত করে ময়লার আর রাসায়নিক দিয়ে শেষ করে দিচ্ছি । এই নদী দূষণের ফলে দূষিত হচ্ছে আমাদের ভূগর্ভস্থ এর পানি আর সেই দূসিত পানি পান করছি আমরা । আমি যদি ঢাকার সেই চিরচেনা নদী বুড়িগঙ্গার কথাবলি তাহলে আমি শুনতে পাই সেই দিন গুলির কথা,যেই দিনে বুড়িগঙ্গা ছিল এক মাএ জায়গা যা আমাদের এই রাজধানির সাথে জুরে রাখত দেশের প্রতিটি প্রান্তকে। আর এখন এমন এক অবস্থা হয়েছে যে “বুড়িগঙ্গার পানি এখন এত দূষিত যে সমস্ত মাছ মারা গিয়েছে, মানুষের বর্জ্য বর্ধন করে এটি একটি কালো পানিতে পরিণত হয়েছে। সুতরাং এই সমস্যাটি বাংলাদেশের এখন একটি বড় প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে এবং এটি সমাধান করা উচিত। না হলে দেখা যাবে এক সময় ভুলেই যাব আমাদের দেশটি নদীমাতৃক দেশ ছিল । বিশ্বজুড়ে যখন পানি বাচাও আন্দোলন চলছে তখন আমরা পানি দূষণ করেই যাচ্ছি । যাইহোক, বাংলাদেশের রাজধানী হচ্ছে – বিশ্বের সবচেয়ে দরিদ্রতম এবং কম উন্নত দেশগুলির মধ্যে একটি – এটির শারীরিক ও সামাজিক অবনতির কথা বিবেচনা করে শহরটি কে উন্নত করা কাজ হয়েছে। ফলস্বরূপ, জনসংখ্যার দ্রুত বর্ধন এবং শিল্প থেকে দূষণকারীর বৃদ্ধি, এবং পৌরসম্পর্কিত বর্জ্যসহ অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগের ফলে সৃষ্ট পরিবেশগত পরিণতিগুলি ঢাকা শহরের চারপাশের নদীগুলির ওপর গভীর নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে।

River Pollution-59.jpg

চলুন তাহলে জেনে নেই কি ভাবে নদীর পানি দূষণ হচ্ছে এবং এর প্রভাব।

নদী দূষণ :

বাংলাদেশের নদী দূষণের শিকার, বিশেষতঃ ঢাকার আশেপাশের নদীগুলি দূষিত হয়ে পড়েছে।

কারণ সমূহ:

১.দ্রুত ও অনির্বাচিত নগরায়ণ ও শিল্পায়ন, ইটভাটা উন্নয়ন, ডাইনিং কারখানা, ট্যানারিরী ও নদী দখল ।

২.অপ্রয়োজনীয় বর্জ্যগুলি নদীতে ফেলে দেওয়া হয় কারণ বেশীরভাগ শিল্পেরই কোনো শোধানাগার নেই ।

২০০৯ সালে বাংলাদেশ সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড স্টাডিজ (বিসিএএস) কর্তৃক পরিচালিত একটি শিল্প জরিপ অনুযায়ী, প্রায় ৪০% শিল্পই ইপিএস রয়েছে। ১০% শিল্পের মধ্যে, ইপিএস নির্মাণাধীন রয়েছে এবং প্রায় ৫০% শিল্পের কোন ইপিএস নেই। তাই আমাদের শিল্পের ৫০% বর্জ্যগুলি নদীতে চলে যাচ্ছে ।

৪. কিছু নদী কৃষকদের দ্বারা পাট গাছ পচা ব্যবহার করা হয় যার ফলে দূষিত হচ্ছে নদী ।

৫.নৌকা এবং বিভিন্ন জলবাহী জাহাজের তেল ছিটকে দূষিত হচ্ছে নদী ।

৬.কৃষি জমিতে কৃষি রাসায়নিক ব্যবহারে দূষিত হচ্ছে নদী ।

75507.story_x_large.jpg

নদী দূষণের প্রভাব:

১.অনেকগুলি নদীর পানি ভর্তি অক্সিজেন স্তর মারাত্মক খারাপ পর্যায়ে পৌঁছেছে যার ফলে কোনো জীব বসবাস করতে পারছে না ।

২.বর্ষা মৌসুমে দূষিত পানি ছড়িয়ে পড়ার কারণে কৃষিজমি দূষিত হয় এবং তার ফলে ফসল উৎপাদন ক্ষমতা হারিয়ে ফেলে ।

৩. কখনও কখনও দূষিত পানি খাদ্য শৃঙ্খলে প্রবেশ করে অবশেষে পাখি, মাছ এবং স্তন্যপায়ী প্রাণনাশ করে।

৪.কর্ণফুলীতে সাম্প্রতিক গবেষণায় বিজ্ঞানীরা মাটির উপর ‘ঝুঁকি স্তরের খুব কাছাকাছি’ তেজস্ক্রিয়তা খুঁজে পেয়েছে। যদি নদীর তীরে তেজস্ক্রিয়তা বৃদ্ধি পায় তবে এটি মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন এবং মাছের বৃদ্ধি হ্রাস করবে। যদি লোকেরা ক্ষতিগ্রস্ত মাছ খায় তাহলে পারে তাদের দেহে ছড়িয়ে পড়তে পারে এই তেজস্ক্রিয়তা । ২০০০ সালের পারমাণবিক বিকিরণের প্রভাব সম্পর্কে জাতিসংঘের বৈজ্ঞানিক কমিটির মতে, তেজস্ক্রিয়তার কারণে রেডিয়েশন বিপদের মাত্রা ০.৫। তাদের গবেষণা বিজ্ঞানীদের অভ্যন্তরীণ বিকিরণ বিপত্তি যেখানে ঝুঁকি স্তর ১ এবং বাহ্যিক বিকিরণ বিপত্তি জন্য ০.৬৫০৭ এবং ০.৮২ পেয়েছেন ।

৫.নদীতে পাট জমতে থাকার কারণেই নদীর পানির গুণমান খারাপ হচ্ছে এই অবস্থার থাকে কারণ জলজ প্রাণী অক্সিজেনের অভাবে মারা যাচ্ছে।

৬.দূষণ এত তীব্র যে খুব কমই জল-জীবগুলি তা সহ্য করতে পারে এবং অবশেষে, অনেক প্রজাতির মাছ নদীতে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। এই মৃত মাছ ধীরে ধীরে নষ্ট হয়ে যায় এবং নদীর পানি আরও দূষিত করে তোলে ।

৭.নদী দূষণের ফলে স্থানীয় জেলেদেরও মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে। তারা তাদের আয় উৎস হারিয়ে ফেলছে এবং তাদের জীবন আরো কঠিন হয়ে উঠছে ।

৮.এটি ভূতাত্ত্বিক বৈশিষ্ট্যগুলির পরিবর্তনও করে যার ফলে নদী চ্যানেল, বন্যা, সমভূমি বৈশিষ্ট্য পরিবর্তন করতে পারে।

৯. লিড, ক্যাডমিয়াম, লোহা, তামা ও জৈবিক বর্জ্য দূষণ করে নদী কে।

এই নদী দূষণ থেকে নদী কে রকা করতে বাংলাদেশ সরকার বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয়। তার মাঝে উল্লেখযোগ একটি হল: হাজারীবাগ থেকে সাভারে ট্যানারি শিল্প স্থানান্তর করার সিদ্ধান্ত ।

আসুন আমরা সচেতন হই এবং অন্য কেউ সচেতন করে তুলি।

About The Author
Rakib Islam
2 Comments
Leave a response

You must log in to post a comment