বিদেশী সিনেমা রিভিউ

ইনসেপশন বিশ্লেষন (পর্ব ২)

এই অংশে ট্র‍্যাক রাখার জন্য ইনসেপশন বিশ্লেষন পর্ব ১ পড়া থাকতে হবে।

আজকে আলোচনা করবো মুভির প্যারালাল অর্থাৎ পাশাপাশি ২ টা কাহীনি কিভাবে চলছে তা নিয়ে, তাদের মিশনের বিস্তারিত তে যাবো পরের পর্বে।

ইনসেপশন হলো চিন্তার বীজ বুনে আসা। অবচেতন মনে। আমরা আসলে কোনো সিদ্বান্ত এভাবেই নিয়ে নেইনা, মন কিছুটা যুক্তি কিছুটা বিবেকের উপর চলে।

হয়তো আবেগ অনুভূতি আমাদের চালায়। খুব সুক্ষ্ম হলেও ব্যাপার টা শক্তিশালী। কারন এই বীজ থেকে যে বিশাল বৃক্ষ হয়,সেটাই আসলে আমাদের ব্যাক্তিত্ব। কথায় আছে

“Our experience & our decisions make the shape of us”

ইনসেপশন মুভি টাতে এই কমপ্লেক্স প্লট টার পাশাপাশি আরেকটা কাহীনি প্যারালাল ভাবে চলে।

তা হচ্ছে কব কে নিয়ে, যে হচ্ছে আর্কিটেক্ট। লিওনার্দো ডিক্যপ্রিও। তার জীবনে একটি নেগেটিভ মেমোরি আছে। সে আর তার স্ত্রী ম্যাল স্বপ্নের গভীর থেকে গভীরে বিচরন করে বেড়াতো। তারা কি পরিমান লেয়ার পাড় করেছিলো একসময় তার হিসাব টা হারিয়ে যায়।

তারা গভীর (মুভি তে বলে limbo) থেকেও গভীরে অবচেতন অংশে চলে যায় এবং সেখানে তাদের নিজেদের পছন্দ অনুযায়ী তাদের পৃথিবী তৈরী করে ফেলে।

এখানে আরেকটা কথা বলে নেই, এই ইনসেপশন এ ঢুকে তারা যেনো রিয়েলিটি ভুলে না যায়, তার জন্য তারা সবাই নিজেদের একটা “টোটেম” তৈরী করে।

যেমন একটা লাটিম যদি আমরা ঘুরিয়ে দেই, সত্যিকারের পৃথিবীতে লাটিম টা একটা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত ঘুরে থেমে যাবে, কিন্তু স্বপ্নের ক্ষেত্রে হিসেব টা একরকম না।

লাটিম টা ইনফিনিট সময় ধরে ঘুরতে থাকবে। সেরকম একটি লাটিম টোটেম হিসেবে ছিলো কব এবং ম্যাল এর। কিন্তু লিম্বো তে গিয়ে ম্যাল একসময় নিজেই চায় রিয়েলিটি ভুলে যেতে। কারন তাদের নিজের তৈরী করা পৃথিবীতে তো ভালোবাসা ছাড়া আর কিছু নেই।

ম্যাল তার টোটেম টা ঘুরানো বন্ধ করে একটা গোপন ভল্টে রেখে দেয়। কব তাকে অনেক বোঝায়, কিন্তু ম্যাল ভুলে যায়। যে সে স্বপ্নের পৃথিবীতে আছে..

কব তাকে বোঝায় তারা এই স্বপ্নের পৃথিবীতে সুইসাইড করে ফিরে যেতে পারে রিয়েলিটি তে। কিন্তু ম্যাল বিশ্বাস করেনা..

একসময় বাধ্য হয়ে কব ম্যাল এর অবচেতন মনে ইনসেপশন এর মাধ্যমে প্রবেশ করে এবং গোপন ভল্ট অর্থাৎ রুপক ভাবে যেটিকে ম্যাল এর চিন্তার বীজ দেখানো হয়েছে,সেখানে গিয়ে লাটিম টি ঘুরিয়ে দিয়ে লকটি বন্ধ করে রেখে দেয়।

ম্যাল এর মাথায় তখন আসতে থাকে লাটিম ঘুরছে, সে মিথ্যা জগতে আছে। তারা একসাথে সুইসাইড করে,লিম্বো থেকে বেরিয়ে যায়। একটার পর একটা কিক এর মাধ্যম এ তারা রিয়েলিটি তে ফিরে আসে।

কিন্তু সমস্যা একটা রয়ে যায়, ওইযে অবচেতন মনে বীজ বোনা হয়ে গেছে সে রিয়েলিটি তে নেই, সেটা গেথে যায় মাথায়। রিয়েলিটি তে থেকেও সে মনে করতে থাকে সে স্বপ্নে বাস করছে।

ওইযে কোনো স্বপ্ন থেকে হঠাত জেগে উঠলে একটা ফিলিংস হয়না যে এখনো স্বপ্নের মধ্যে আছি? কি হলো? কি দেখলাম? কয়েক সেকেন্ড এর জন্য কিন্তু আমরা খেই হারিয়ে ফেলি, যে আসলে এখন কয়টা বাজে?

আমি কোথায় আছি? ম্যাল এর ক্ষেত্রে শুধু ফিলিংস টা পার্মানেন্ট হয়ে গিয়েছিলো, এবং সে ভাবছিলো এখানে সুইসাইড করলে সে সত্যিকারের পৃথিবীতে চলে যাবে, কিন্তু সে যে অলরেডি রিয়েলিটি তে, তা সে বুঝতে পারেনি…

 

সুইসাইড করার জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে সে

একসময় সে তাদের বিবাহবার্ষিকী এর দিন সত্যি সত্যি অনেক উচু বিল্ডিং এর জানালা থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করে। এবং আত্মহত্যা করার আগে কব কেও অনুরোধ করে, কব তাকে বোঝানোর চেষ্টা করলে বলে সে তার আত্মহত্যার জন্য কব কে দায়ী করে চিঠি পাঠিয়ে দিয়েছে,সে মারা গেলে কব যদি থাকে সেও রেহাই পাবেনা, কব কে কিছু বলার সুযোগ না দিয়ে আত্মহত্যা করে সে।

আত্মহত্যা হলেও,কব জানে এর প্ররোচক সে। সে শহর থেকে পালিয়ে থাকতে শুরু করে,

সে শুধু ফিরে যেতে চায় পুরানা বাড়িতে যেখানে তার ছোট ২ টি সন্তান আছে। কিন্তু তার জন্য তার দরকার বিরাট পাওয়ারফুল কারো সাহায্য যা এই মুহুর্তে সে পাচ্ছেনা।

এর ই মধ্যে তার কাছে আবার অফার আসে ইনসেপশন এর।

যে ব্যবসায়ী তাকে প্রতিশ্রুতি দেয়, তার প্রতিদ্বন্দ্বী এর মাথায় ঢুকে তারা যদি প্রয়োজনীয় তথ্য প্লান্ট করে আসতে পারে, তাহলে তার পাসপোর্ট ক্লিয়ার করে দিবে সে, কব তার সন্তানের কাছে ফিরে যেতে পারবে। কাজ সমাধান হলে একটা ফোন কল ই যথেষ্ট।

কোনো একজন ব্যবসায়ী এর মনের গভীর থেকে গভীর অংশে গিয়ে তথ্য বের করে আনতে হবে এবং নতুন বীজ বুনে দিতে হবে। শুরু হয় এডভেঞ্চার। সমস্যা হচ্ছে ম্যাল কে নিয়ে, সে কব এর স্মৃতি তে একটি খারাপ অংশ জুড়ে আছে..

ম্যাল বেচে আছে শুধু কবের স্মৃতি তে, কব স্মৃতির সাথে স্বপ্ন মিলিয়ে ফেলে। সে নতুন স্বপ্ন বানাতে গিয়ে বারবার ব্যর্থ হয়। স্বপ্নে ম্যাল কে মেরে ফেললেই হারিয়ে যাবে সে, কিন্তু কব এই কাজটাই করতে পারেনা। এখানেই তার দুর্বলতা..

এবং কব স্বপ্নের কোনো মিশনে গেলেই ম্যাল সেখানে গিয়ে সব উলট পালট করে দেয়, কারন কব আর্কিটেক্ট, কোথায় কি আছে কব জানলে ম্যাল ও তা জানে। কব তখন ইনসেপশন এর জন্য সাহায্য নেয় আরেক আর্কিটেক্ট এর।

তারা তাদের যে অফার দেয় তার প্রতিদ্বন্দ্বীর মাথায় ঢুকে। খুঁটিনাটি মিশন শুরু হয় তখন। প্রথম ধাপে তারা থাকে প্লেনে…

এখান থেকে কাহীনি এর কমপ্লেক্সিটির শুরু। আলোচনা করবো আরেকদিন তৃতীয় পর্বে। চলবে…

একই রকম আরো কিছু ফুটপ্রিন্ট

ইনসেপশন বিশ্লেষণ (পর্ব ১)

Mrinmoyi Jahan

The Green Mile – কান্নামিশ্রিত ভালোলাগার অনুভূতি

অন্তর মাশঊদ

Superman এর গ্রহ Krypton

Kongkon KS

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

Privacy & Cookies Policy