Now Reading
কেমন হবে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ফাইনাল !!



কেমন হবে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ফাইনাল !!

ফুটবল বিশ্বের অন্যতম এক প্রতিযোগীতার নাম উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ। আর বিশ্বকাপের পর সারা বিশ্বের ফুটবল প্রেমীদের জন্য সবচেয়ে নাটকীয় যে ম্যাচ টি জায়গা পেয়েছে তা হচ্ছে চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ফাইনাল। আর সেই ফাইনালে যখন রিয়াল মাদ্রিদ আর জুভেন্টাস এর মত দুই পরাশক্তি মুখোমুখি হবে সেখানে যে উত্তেজনা আরো উপরে।

২০১৬-১৭ সিজনের উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ফাইনালে মুখোমুখি হতে যাচ্ছে স্প্যানিশ লীগ জয়ী ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ আর ইটালিয়ান সিরি আ জয়ী জুভেন্টাস। একদিকে যেখানে রিয়াল মাদ্রিদ এর এটাকে রোনালদো বেঞ্জেমা আর বেলের মত গতি দানব। তেমনি অন্যদিকেও অভেদ্য ইটালিয়ান ডিফেন্স কিয়েল্লিনি বনুচ্চি বারজাগ্লি। হ্যা উত্তেজনা তো থাকবেই। এই সিজনে রিয়াল মাদ্রিদ এর পারফর্মেন্স ছিল দেখার মত। এটাক আর মিডফিল্ডের যাদুতে তারা বরাবরের মতই এগিয়ে। আর যেখানে পূর্বের ১১ বার ট্রফি জয়ের গৌরব সেখানে তো এবারের ফাইনালের ফেভারিটে তাদেরকেই রাখতে হয়। কে জানে এবার ডজন টা পূরণ করে ফেলে লস ব্ল্যাংকস রা। অন্যদিকে তুরিনের ঐতিহ্যবাহী ক্লাবও কোন দিক থেকে কম যায় না। পৃথিবীর সেরা ডিফেন্স যে তারাই এটা মানতেই হবে। ইটালিয়ান ডিফেন্স বরাবরই সবার উপরে। রিয়ালের বারুদের মত এটাক এর জন্য এই ইটালিয়ান দেওয়াল ভেদ করা সহজ হবেনা।

এবার আসল আলোচনায় আসা যাক।

এটাকের দিক দিয়ে ধরতে গেলে স্প্যানিশ জাইয়ান্ট রা শত ভাগ এগিয়ে জুভাদের থেকে। ৪ বারের ব্যালন ডি অর বিজয়ী ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর ফর্ম এখন দেখার মত। সাথে আছে গতি দানব ওয়েলস উইঙ্গার গ্যারেথ বেল আর ফরাসি স্ট্রাইকার করিম বেঞ্জেমা। পুরো সিজন জুড়েই রোনালদো গুরুত্বপূর্ণ গোল দিয়ে দলকে অনেকবার বাচিয়ে ফিরিয়ে এনেছেন। তার উপর বরাবরের মতই ফোকাস আর আশা করে থাকবে লস ব্ল্যাংকস সমর্থক রা। আরেকজন আছে যে জুভাদের ট্যাক্টিস সবথেকে ভাল বুঝবে। সে হচ্ছে ফর্মার জুভেন্টাস এবং বর্তমান রিয়াল মাদ্রিদ স্ট্রাইকার মোরাতা। তাকে নিয়ে হয়তো কোচ জিদান স্পেশাল কোন প্ল্যান করবেন। এটাকের দিক দিয়ে জুভেন্টাসও কিন্তু পিছিয়ে নয়। দুই আর্জেন্টাইন সুপারস্টার পাওলো দিবালা এবং গঞ্জালো হিগুইন এই সিজনে অসাধারণ পারফর্মেন্স দেখিয়েছে। ভবিষ্যত আর্জেন্টিনা সুপারস্টার দিবালা একাই কোয়াটার ফাইনালে বার্সেলোনার মত শক্তিকে পকেটে রেখেছিল। তাই এটাকের দিক দিয়ে জুভেন্টাস রিয়াল থেকে কম নয়।

মিডফিল্ড এর দিক দিয়ে জুভেন্টাস খানিকটা নয় অনেকটা পিছিয়ে রিয়াল মাদ্রিদ এর থেকে। যেখানে রিয়াল এর আছে মদ্রিচ ইস্কো ক্যাসিমেরো কোভাসিচ এর মত তারকা খেলোয়াড়, বিপরীতে জুভেন্টাস এর মিডফিল্ডার রা বড় ধরনের তারকা নয়। তবুও কোয়ার্দাদো, আসামেও, প্যানিচ, খেদিরা রা ভালভাবে মাঝ মাঠকে সামলে রাখবে আশা করা যায়। যেহেতু এই দিক দিয়ে রিয়াল এগিয়ে আছে তাই এটা তাদের জন্য একটা প্লাস পয়েন্ট হতে পারে।

এবার আসি ডিফেন্সের পরিমাপে। এক্ষেত্রে স্বীকার করতেই হবে জুভাদের পাল্লা ভারী হবে লস ব্ল্যাংকস দের থেকে। রিয়ালেও খারাপ কিছু না, এখানে মিষ্টার স্যাভিওর ৯০ মিনিট ম্যান সার্জিও রামোস আছে। দলের খারাপ সময়ে যে সবচেয়ে বেশি কাজে আসে। রামোস ডিফেন্সের বিশ্বের মধ্যে অন্যতম। সাথে পেপে আর ভারানে। এছাড়া এই সিজনে যেই মানুষটা সব পজিশন থেকে দলকে সার্ভিস দিয়েছে তিনি হচ্ছে ব্রাজিলিয়ান লেফট ব্যাক মার্সেলো। রোনালদোর সাথে একবার মিলে গেলেই যেন কাওকে ভয় পায় না। শুধু ডিফেন্সে নয় এটাকেও তার অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা থাকে। তাকে ঘিরে ফ্যানদের থাকবে একটা আলাদা বিশ্বাস। জুভাদের ডিফেন্স যে পৃথিবীর সেরা এটা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই তা আমি আগেই বলেছি। বিশ্বের সেরা সেরা আর বাঘা বাঘা ডিফেন্ডার দের জন্ম এই ইটালিতে। ইটালিকে ডিফেন্ডার দের আতুর ঘরও বলা হয়। এই ইটালির সমৃদ্ধ ডিফেন্সের দেয়াল আগলে দাঁড়িয়ে আছে কিয়েল্লিনি বনুচ্চি বার্জাগ্লি সান্দ্রো আর ব্রাজিলিয়ান তারকা দানি আলভেজ। যে মানুষটা কিছুদিন আগেই বার্সেলোনার ডিফেন্স আর এটাক দুইটাই এক হাতে সামলাতো। এই ডিফেন্স ভেদ করে গোল বারে জালে বল জড়ানোর জন্য অনেক বেশি পরিশ্রম করতে হবে রিয়ালের এটাক কে। জিনেদিন জিদান কে অনেক গভীর ভাবে চিন্তা করতে হবে। কিন্তু শুধু ডিফেন্স পার করলেই হবে না। কারণ জুভাদের গোলবারের সামনে দাঁড়িয়ে আছে এক চিরসবুজ গোলরক্ষক। যার বয়স টা গত ৫ বছর ধরে একই জায়গাতে দাঁড়িয়ে আছে। সেই অতন্দ্র প্রহরী জি জি বুফন এর সামনে দিয়ে বল বের করা অনেকটা কঠিন হয়ে দাঁড়াবে। রিয়ালের গোল রক্ষক কেইলর নাভাসও দিনে দিনে অনেকটা এগিয়ে গেছে।

দুই দলই অনেক ছন্দময় খেলা খেলবে আশা করা যায়। রিয়াল মাদ্রিদে মার্সেলো রোনালদো জুটিতে হতে পারে জুভাদের ডিফেন্স কাত। আবার দিবালা হিগুইন এর গতিময় আর্জেন্টাইন যাদুতে রিয়ালের জালেও বল জড়াতে পারে। দানি আলভের ডিফেন্স থেকে এটাকে যেয়ে কাউন্টার এ সাহায্য করবে। অন্যদিকে মদ্রিচ এর ম্যাজিকে হয়তো জুভার ডিফেন্স কে বোকা বানিয়ে গোল হবে। সার্জিও রামোস এর ৯০ মিনিট গোলও হতে পারে, আবার বুফন এর অতিমানবীয় সেইফে খেলার চেহারা পালটে যেতে পারে। সেরা এটাক বনাম সেরা ডিফেন্স বলে কথা। দেখা যাক কি হয়। ইংল্যান্ড এর ওয়েলস এর রাজধানী কার্ডিফে দেখা হবে। হতে পারে রিয়াল এর ডজন পূরণ আবার হতে পারে জুভেন্টাস এর নাম্বার তিন। বুফন এর মত লিজেন্ড এর জন্য হলেও জুভেন্টাস এর জেতা উচিত এবার। শুভকামনা উভয় দল এর জন্য।

About The Author
Ahmmed Abir
জীবনের সাথে যুদ্ধ করে বাচতে শিখেছি। নিজেকে চ্যালেঞ্জ করে সামনে এগিয়ে যেতে শিখেছি। পছন্দ করি গান গাইতে গীটার বাজাতে আর গেইম খেলতে।
6 Comments
Leave a response

You must log in to post a comment