5
New ফ্রেশ ফুটপ্রিন্ট
 
 
 
 
 
ফ্রেশ!
REGISTER

সপ্নের স্যাটেলাইট ও কিছু অনাকাঙ্ক্ষিত ঝুঁকি

Now Reading
সপ্নের স্যাটেলাইট ও কিছু অনাকাঙ্ক্ষিত ঝুঁকি

আমরা সকলেই জানি যে আগামী ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭ ইং তারিখে আমাদের আরও একটি বিজয় হতে যাচ্ছে।
তা হলো মহাকাশ বিজয় অর্থাৎ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট এর উৎক্ষেপন।
আমাদের মতো দেশের জন্য এটি একটি বিরাট পাওয়া।

আমরা সকলেই জানি যে স্যাটেলাইট হতে আমরা কয়েকটি সুবিধা পাবো।
যেমন,
১। দেশের অর্থ দেশেই থাকবে
.

২। আবহাওয়া এবং সামরিক ক্ষেত্রে উন্নতি হবে।
.
৩। স্যাটেলাইটে ভাড়া দিয়ে উপার্জন হবে।
.
৪। আরব-কাজাখ থেকে ইন্দোনেশিয়া-মালয়েশিয়া-ফিলিপাইন পর্যন্ত বিস্তৃত হবে এর রেঞ্জ। ভাড়া দেয়া যাবে এসব দেশকেও।
.
৫। নতুন করে ১০০ জন মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ হবে।
.
৫। মাত্র ৬-৭ বছরের মধ্যেই বঙ্গবন্ধু
স্যাটেলাইট লাভজনক প্রকল্পে পরিণত হবে। ইত্যাদি ইত্যাদি।

কিন্তু প্রশ্ন হলো আমরা কি এর ঝুকি টা ভেবে দেখেছি?

চলুন না ঝুকি গুলো একটু দেখে নেয়া যাক।

১। পৃথিবীর যত দেশই স্যাটেলাইট উড়িয়েছে তারা প্রত্যেকেই ইনিশিয়াল স্যাটেলাইট নিজের অক্ষরেখায় উড়িয়েছে। বাংলাদেশ অবস্থান করছে ৮৬-৯১ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমা রেখায়। সে হিসেবে বাংলাদেশ এ অবস্থানেই স্যাটেলাইট পাওয়ার কথা। কিন্তু ৮৮-৯১ এ রাশিয়ার দুটি সহ মোট চারটি স্যাটেলাইট
রয়েছে। তাই এখানে স্থান পাওয়া সম্ভব না। কিন্তু ৮৬-৮৮ ডিগ্রি খালি থাকার পরও
মহাকাশ সংস্থা আইটিইউ বাংলাদেশকে স্লট দেয় নি। বাংলাদেশ চেষ্টা করে ১০২ ডিগ্রিতে। সেখানে রাশিয়া, অষ্ট্রেলিয়া আপত্তি জানায়। বাংলাদেশ চেষ্টা করে ৬৯ ডিগ্রিতে। সেখানে একই আপত্তি করে চীন,
সিঙ্গাপুর,মালেশিয়া সহ আরো কয়েকটি দেশ।অবশেষে বাংলাদেশ স্থান পায়  ১১৯.১ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমা রেখায়।
প্রশ্ন হচ্ছে ৯০ ডিগ্রির বাংলাদেশকে ১১৯.১
ডিগ্রির স্যাটেলাইট কতটা নিখুঁতভাবে
কাভার করবে?

২। বাংলাদেশের বিভিন্ন চ্যানেল বা
বেসরকারি কোম্পানী কি বলা মাত্রই
নিজের স্যাটেলাইট থেকে সেবা গ্রহণ
করবে?
সেবার মান বিদেশী স্যাটেলাইট থেকে
উন্নত হবে এই নিশ্চয়তা কে দেবে?

৩। আমরা বিদেশে সেবা দিয়ে ৫০ মিলিয়ন
ডলার আয়ের স্বপ্ন দেখছি। কিনবে কারা?
ভুটান, নেপাল, মায়ানমার, আরব কিংবা
দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া। আমরা নিজেরা এখনো সম্পূর্ণ রূপে ভারত নির্ভর। সে জায়গায় ভারত বা চীন বাদ দিয়ে নেপাল,ভুটান আমাদের কাছে থেকে সেবা নেবে এটার নিশ্চয়তা কি?

আর যদি কেউ কিনতেই যায়, ভারত চীন
তাদের ব্যবসার লসকে নিশ্চয়ই নীরবে মেনে নেবে না।

৪। বলা হয়েছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান অগ্রীম
১৬৫২ কোটি টাকা দেবে। প্রশ্ন হচ্ছে তারা
কি দিতে বাধ্য?
১৫% সাফল্যের সম্ভাবনার একটা প্রজেক্টে
অগ্রীম টাকা দেয়ার কোন যৌক্তিকথা
আছে?
সেবা নেয়ার আগেই কোন বেসরকারি
প্রতিষ্ঠান থেকে টাকা নেয়ার রেওয়াজ
বিরল। আর বাংলাদেশের মতো দেশে কে এত টাকা দেয়ার রিস্ক কে নেবে?

৫।বাংলাদেশ একটি বিশাল ঋন এর মধ্যে পড়ে যাবে।

৬।মহাকাশে পাঠানো স্যাটেলাইট এর মধ্যে ৪২% স্যাটেলাইট ই নিজস্ব কক্ষপথে যেতে ব্যার্থ হয়েছে। কক্ষপথে যেয়ে ঠিকঠাক মতো কাজ করেছে মাত্র ১৫% স্যাটেলাইট। আমরা কি সেই ১৫% এর মধ্যে একজন হতে পারবো?

৭। আবার বাংলাদেশ সম্পর্কে আমরা সবাই কম বেশী জানি।  আমরা জানি এই দেশে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন সরকার আসবে।
স্যাটেলাইটটি বঙ্গবন্ধুর নামে উৎক্ষেপন করা হচ্ছে। প্রশ্ন হলো সরকার এর বদল ঘটলে আবারো হাজার কোটি টাকা দিয়ে এই নাম পরিবর্তন করা হবে না তার কি নিশ্চয়তা আছে।

৮। একটা স্যাটেলাইট ভাঙতে পারে, কক্ষচ্যুত
হতে পারে। সেটাকে আবারো রিকোভার করার ক্ষমতা কি বাংলাদেশের আছে?

৯। ২০ টি দেশ আমাদের কাজে সায় দেয় নি। আমারা জানি যে  স্যাটেলাইট যুদ্ধও বিরল ঘটনা নয়। ২০০৭ এ চীন আমেরিকার একটি স্যাটেলাইট
নামিয়ে দেয়, আমেরিকা পরের বছরেই
চীনের একটি নামায়। সম্ভাবনা অতি অল্প হলেও ভারত-চীন নিজের স্বার্থে আমাদের স্যাটেলাইট নামাবে না এটা কে বলতে পারে?

১০। কাজ দেয়া হয়েছে বিদেশী
কোম্পানীকে। বিদেশী কোম্পানী কর্তৃক
দেশের সম্পদ লুট বা নষ্টের ইতিহাস অনেক।

১১। সর্বশেষ খুব সহজ স্বাভাবিক প্রশ্ন, নিজেরা স্যাটেলাইট তুললে যদি এতই সুবিধা তবে কেন মাত্র ৪০ টি ( বা ৫৮) দেশ স্যাটেলাইট তুলল?

ইউরোপের সবকটা দেশ বা উত্তর-দক্ষিণ
আমেরিকার সবকটা দেশ কেন তুলল না?
তাদের অর্থনৈতিক অবস্থা নিশ্চয়ই
বাংলাদেশের চেয়ে ভালো।

অর্থাৎ প্রশ্ন কিন্তু এখনো থেকেই যাচ্ছে।

তবে এতো সব ঝুকি থাকা সত্ত্বেও স্যাটেলাইটটি আমাদের জন্য মঙ্গল বয়ে আনবে এই আশাই করি।

আমাদের স্যাটেলাইট ও আমাদের সুবিধা

Now Reading
আমাদের স্যাটেলাইট ও আমাদের সুবিধা

বাংলাদেশ বর্তমানে প্রযুক্তিগত দিক থেকে আস্তে আস্তে উন্নতির সোপানের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। একটা সময় ছিলো যখন আমরা শুধু প্রযুক্তি ব্যবহারের স্বপ্ন দেখতাম। কিন্তু আজ অনেক প্রযুক্তিই আমাদের হাতের নাগালে চলে এসেছে এবং কিছু নব্য আবিষ্কৃত প্রযুক্তি অচিরেই চলে আসবে বলে বিশ্বাস করি। ঠিক তেমনি এক আনন্দের সংবাদ হলো বাংলাদেশ খুব শীঘ্রই ‘বঙ্গবন্ধু-১’ নামে কৃত্রিম উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করতে যাচ্ছে। আজ থেকে প্রায় ১৭ বছর আগে মহাকাশে নিজেদের কৃত্রিম উপগ্রহ পাঠানোর স্বপ্ন দেখা শুরু করেছিল বাংলাদেশ। ৬-৭ বছর আগেও উন্নত দেশগুলোর কৃত্রিম উপগ্রহ উৎক্ষেপণের খবর পড়ে আমরা নিজেরা ভাবতাম, আমাদের দেশ কবে নিজেদের কৃত্রিম উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করবে। সেই সুভময় ক্ষন আজ আর খুব বেশী দূরে নয়। প্রযুক্তিগত উন্নয়নের সাথে সাথে মানুষের কল্যানের পরিধিটাও অনেক বেড়ে যায়। উন্নত দেশগুলোর পাশাপাশি আমাদের নিজেদের স্যাটালাইট পাখা মেলে উড়বে এটা ভাবতেই নিজের দেশকে নিয়ে গর্বে বুক ফুলে উঠছে। আর নিজে দেশের এই রকম একটা প্রযুক্তিগত উন্নয়নের খবর একজন বাংলাদেশী হিসেবে নিজেকে গর্বে মাথা উচু করে দেয়।
বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের কিছু সুবিধাসমূহ ঃ বাংলাদেশে এই মুহূর্তে টিভি চ্যানেল আছে প্রায় পঁয়তাল্লিশ  টি।

ইন্টারনেট সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান বা আই এস পি আছে কয়েকশ।

রেডিও স্টেশন আছে পনের টি এর উপরে। আরও আসছে।

তাছাড়া ভি-স্যাট সার্ভিস তো আছেই।

এমনি আরো অনেক কারনেই বাংলাদেশে স্যাটেলাইটের ব্যাবহার দিন দিন বেড়েই চলেছে।

বিটিআরসির হিসাবে,প্রতিটি টিভি চ্যানেল স্যাটেলাইটের ভাড়া বাবদ প্রতি বছর প্রায় ২ লাখ ডলার দিয়ে থাকে।

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট চালু করতে পারলে দেশে শুধু বৈদেশিক মুদ্রারই সাশ্রয় হবে না, সেই সাথে অব্যবহৃত অংশ নেপাল, ভূটান এর মতো দেশে ভাড়া দিয়ে প্রতি বছর প্রায় ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার অর্থ আয় করা যাবে। কারন ৪০ টি ট্রান্সপন্ডারের মধ্যে মাত্র ২০ টি ব্যবহার করবে বাংলাদেশ। আর বাকি ২০ টি ভাড়া দেওয়া হবে।

আমাদের দেশের টাকা এবং কষ্টার্জিত মুল্যবান বৈদেশিক মুদ্রা বিদেশে চলে যাচ্ছে।

অনেক সময় টাকা পাচার বা মানি লন্ডারিং এর মত গুরুতরো অভিযোগ ও আছে এই খাতে।

বাংলাদেশের নিজস্ব উপগ্রহ চালু  হলে ভাড়া বাবদ অর্থ সাশ্রয়ের পাশাপাশি বৈদেশিক মুদ্রা আয় হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।

প্রধানত নিম্নলিখিত যেসব কারনে স্যাটেলাইট এর ব্যবহারঃ

১। মহাকাশ বা জ্যোতির্বিজ্ঞান গবেষণা

২। আবহাওয়ার পূর্বাভাস

৩। টিভি বা রেডিও চ্যানেল, ফোন, মোবাইল ও ইন্টারনেট যোগাযোগ প্রযুক্তি

৪। নেভিগেশন বা জাহাজের ক্ষেত্রে দিক নির্দেশনায়

৫। পরিদর্শন – পরিক্রমা (সামরিক ক্ষেত্রে শত্রুর অবস্থান জানার জন্য)

৬। দূর সংবেদনশীল

৭। মাটি বা পানির নিচে অনুসন্ধান ও উদ্ধার কাজে

৮। মহাশূন্য এক্সপ্লোরেশন

৯। ছবি তোলার কাজে (সরকারের জন্য এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ)

১০। হারিকেন, ঘূর্ণিঝড়, প্রাকৃতিক বিপর্যয় এর পূর্বাভাস

১১। আজকাল সন্ত্রাসীরা অনেক রিমোট এরিয়া তেও স্যাটেলাইট ফোন ব্যবহার করছে।

১২। গ্লোবাল পজিশনিং বা জি পি এস

১৩। গামা রে বারস্ট ডিটেকশন করতে

১৪। পারমাণবিক বিস্ফোরণ এবং আসন্ন হামলা ছাড়াও স্থল সেনাবাহিনী এবং অন্যান্য ইন্টিলিজেন্স সম্পর্কে আগাম সতর্কবার্তা পেতে।

১৫। তেল, প্রাকৃতিক গ্যাস ও বিভিন্ন খনির সনাক্তকরণ ইত্যাদি

১৬। ডিজিটাল ম্যাপ তৈরি করা

উপরের বিভিন্ন কাজের জন্য অবশ্য বিভিন্ন আলাদা রকমের স্যাটেলাইট ব্যবহার করা হয়। একটি স্যাটেলাইট দিয়েই সব কাজ হয় না। তথাপি আমাদের মত গরিব দেশের জন্য টিভি চ্যানেল আর ইন্টারনেট ব্যবহারে খরচটা সাশ্রয় করতে পারাও কম না।

আশা করা যায় যে মাত্র তিন থেকে ছয় বছরেই এই স্যাটেলাইট পাঠানোর সকল খরচ উঠে আসবে।

বাংলাদেশ সরকার বঙ্গবন্ধু-১ নামে একটি স্যাটেলাইট উপগ্রহ পাঠানোর কাজ অনেক আগেই শুরু করেছে। এর জন্য ৮৫ কোটি টাকা দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের একটি বিশেষজ্ঞ কোম্পানিকে প্রাথমিক সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের দায়িত্ব দিয়েছে।

এই মুহূর্তে বিশ্বের ৫৫ টি দেশের নিজস্ব স্যাটেলাইট আছে।

বাংলাদেশ সহ ২৪ টি দেশ নিজস্ব স্যাটেলাইট পাঠানোর চেষ্টা করছে। এখানে উল্লেখ্য যে ভারত ১৯৭৫ সালে Aryabhata নামের উপগ্রহ পাঠায়। আর পাকিস্থান ১৯৯০ সালে Badr-1 নামের উপগ্রহ পাঠায়। বর্তমানে এই দুইটি দেশের একাধিক উপগ্রহ আছে।

এমনকি ভিয়েতনাম, ইন্দনেশিয়া, থাইল্যান্ড, নাইজেরিয়া, ফিলিপাইন, কলম্বিয়া, মউরিতাস, কাযাগাস্তান এর ও নিজস্ব উপগ্রহ বা স্যাটেলাইট আছে।

আরও আশ্চর্যের বিষয় হল-  শ্রীলংকা, আফগানিস্তান, উত্তর কোরিয়ার মত দেশ ও নিজস্ব স্যাটেলাইট পাঠাচ্ছে।

সমগ্র পৃথিবী এগিয়ে যাচ্ছে।আমরা কেন পিছিয়ে থাকবো?

কিন্তু অতিব দুর্ভাগ্যের বিষয় হলো যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, অস্ট্রেলিয়াসহ বিশ্বের ২০ টির ও বেশী দেশ আমাদের স্যাটেলাইট স্থাপনের সম্ভাব্য অবস্থান(মহাকাশে নির্ধারিত স্থান) নিয়ে আপত্তি জানিয়েছে।

তবে সব জল্পনা কল্পনা বাদ দিয়ে, সব কিছু ঠিকঠাক মতো হলে আগামী ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭ তারিখ এ আমাদের নতুন আরোও একটি বিজয় হবে বলে আশা করছি।

শেষ পর্যন্ত এটা বলতে পারি স্যাটেলাইট বাংলাদেশের জন্য মঙ্গল বয়ে আনবেই।

পরিশেষে এর সফল উৎক্ষেপণ ও সফল কার্যকারিতা কামনা করি।