5
New ফ্রেশ ফুটপ্রিন্ট
 
 
 
 
 
ফ্রেশ!
REGISTER

কুয়োর ব্যাঙঃ বাঙালিত্ববোধ ও মূল্যবোধের হন্তারক

Now Reading
কুয়োর ব্যাঙঃ বাঙালিত্ববোধ ও মূল্যবোধের হন্তারক

আমরা বাঙালিরা যারা দেশ থেকে বিদেশে পড়তে আসি, প্রত্যেকেই নানান দেশের মানুষের সাথে মেলামেশা করি। আমরা সকলেই আমাদের দেশের একেকজন প্রতিনিধি।
আমার মাঝেই আমার দেশ। আমাকে দিয়েই আমার দেশ, আমার ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে বিশ্ব চিনে নেবে, এটা আমাদের সকলের অন্তরে ধারণ করে চলতে হবে।
আমাদের সকলেরই উচিৎ, আচার আচরণ আর ব্যবহার দিয়ে নিজের দেশকে সকলের সামনে তুলে ধরা। অথচ, আমি অনেক সময়ই এর বিপরীত দেখতে পাই যা খুব হতাশাজনক।
সেদিন চাইনিজ আর্টস অ্যান্ড লিটারেচার ক্লাসে নানান দেশি ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে আমাদের জাতীয় সংগীত বাজানো হলো। সকলেই নিজ নিজ জায়গা থেকে সাথে সাথে দাঁড়ালাম। চাইনিজ টিচারও সম্মানের সহিত আমাদের সাথে দাঁড়িয়ে গেল। সত্যিই এক মধুর দৃশ্য ছিল সেদিন। অথচ, সেই মধুর দৃশ্যের মাঝে আমাদেরই কিছু বাঙালী সহপাঠী সামনের সাড়িতে বসে গালে হাত দিয়ে ফ্যাল ফ্যাল করে অন্যদের দিকে তাকাচ্ছিল। শেষে বিরক্ত হয়ে নিজে থেকেই দাঁড়িয়ে যেতে বললাম। বেশ কয়েকবার বলার পড়েও তাদের দাঁড় করানো যায়নি। সত্যিকার অর্থে, দেশপ্রেম বলে কয়ে কারো মাঝে নিয়ে আসা যায় না। এটা একটা মানুষের ভিতর-গত ব্যাপার যা উপলব্ধি করতে হয় নিজে থেকে। দেশে থাকতে এরা নিশ্চয়ই জাতীয় সংগীতের সাথে দাঁড়ানো শিখেছে, পতাকার দিকে তাকিয়ে স্যালুট দেয়া শিখেছে। আর, এখানে এসে এসব ভুলে গেছে অথবা মনে রেখেও দেশের টান উপলব্ধি করতে পারছে না।

যাক সেকথা, এবার পাতি নেতাদের কথায় আসি।
বন্ধু মহলে এরা সবসময় নিজেদেরকে একেকজন রাষ্ট্রপতি হিসেবে জাহির করতে ব্যস্ত। ভাবখানা এমন যে, সে যা বলবে অন্যরা সেভাবেই চলবে। দেশিও চিন্তা ভাবনা বাদ দিয়ে সে অন্যদের মাঝে নিজেকে কুখ্যাত বানাতে একটুও দ্বিধা-বোধ করেনা। এদের মুখে সবসময় কিছু কমন কথা লেগে থাকে যা শুনতে শুনতে প্রায় মুখস্থ হয়ে গেছে। দেশে থেকে সে এই করছে, সেই করছে, একে মেরেছে, ওকে ধরেছে, দেশে তার বেশ কয়েকটা কেস চলমান, আরও কত কি। ব্যাপারগুলো এমনভাবে বলে, যেন সে মহান কাজ সাধন করে এসেছে যা না বললেই নয়। মূলত: এসব কথা বলে সবাইকে তার নিজ ক্ষমতার ব্যাপারে জানান দিচ্ছে, যাতে সবাই তাকে ভয় পায়। চিন্তা করে দেখেনা যে, তার এই কাজগুলো কতটা খারাপ আর এগুলো বলে বলে বেড়ানো কতখানি আহাম্মক হবার শামিল। একজনকে এও বলতে শুনেছি, সে নাকি তার ইউনিভার্সিটির শিক্ষককে মেরে সেখান থেকে ব্যান হয়ে বিদেশে পড়তে গেছে। একথা বলে বলে সে আসরও জমিয়ে ফেলেছে। কত বড় গর্দভ হলে এমন কাজ করে আর নিজেকে এভাবে উপস্থাপন করে। শিক্ষককে মেরে সেখান থেকে ব্যান হয়ে যাওয়াকে অথবা নানান অপকর্ম করাকে সে যদি বিশেষ অর্জন মনে করে, তবে তার উচিত সার্টিফিকেটের পিছনে এসব অভিজ্ঞতা লিখে রাখা। তার চিন্তা অনুযায়ী এসব তার ভবিষ্যতে কাজে লাগতেও পারে। সার্টিফিকেটের পিছনে লিখতে বলার পিছনে কারণ আছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে প্রদত্ত সার্টিফিকেটে তার এসব মহান কাজ উল্লেখ থাকবে না। যেটুকু থাকবে, তা হলো একজন মানুষের বৈধ শিক্ষা। অবৈধ বা অসামাজিক শিক্ষার জায়গা মানুষ গড়ার কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দলিলে নেই।

আরেকদল মানুষ আছে, যারা নিজের দেশের মানুষকে পায়ে ঠেলে অন্য দেশের মানুষকে কোলে রাখে। আমি অনেককেই দেখেছি, যারা একে অপরের ভাল বন্ধু, কিন্তু ফরেইনদের সাথে কথা বলার সময় অন্যজনকে আর চিনেই না। বরং সেই বন্ধুকে নিয়ে হাসি তামাশা করে ফরেইনদের মাঝে জায়গা করে নেয়। অথচ সে জানেই না, তার এই চালাকি ওই ফরেইনর খুব সহজে ধরে ফেলে এবং সেই আহাম্মক নিজেকে কোন পর্যায়ে নিয়ে যাচ্ছে।

এবার বিদেশীদের নিকট বাংলা ভাষার ব্যবহার নিয়ে কিছু কথা বলি।
প্রথম যখন আমার ইউনিভার্সিটিতে পা রাখি, দেশি বিদেশি অনেক বন্ধু নিয়ে একসাথে আমার দেশ নিয়ে গল্প করছিলাম। এক আফ্রিকান বন্ধু মাঝখান থেকে বলে উঠলো, “হেই ফ্রেন্ডস, আই নো সাম বাংলাদেশি ওয়ার্ডস”। আমি আগ্রহ ভরে তার কাছ থেকে সেই শব্দগুলো শুনতে চাইলাম। তার মুখ থেকে শোনা আমার প্রথম শব্দটি ছিলো, “বোকাচোদা”। এরপর আরও কিছু শব্দ শুনেছি, যা আমি এখানে উল্লেখ করতে পারছিনা। অন্যদেশি ফ্রেন্ডরা যখন এর মানে যানতে চাইলো, তখন সে ওসব শব্দ অনুবাদ করে তাদের শুনালো। কে তাকে এসব শিখিয়েছে জিজ্ঞেস করার পর জানতে পারলাম, আমাদের আগে যারা এসেছে, তারাই ওকে এসব শব্দ শিখিয়েছে। এমন ঘটনা আমি আশা করিনি। নিজ দেশের অপ্রীতিকর শব্দ অন্য দেশের মানুষের মুখ থেকে বের হবে, এটা কল্পনাতীত। দিন যত গড়িয়েছে, বাংলা ভাষার অপ্রীতিকর শব্দ বিদেশিদের মুখে তত বেশি শোনা গেছে। কিছুদিন পরে আমি আমার দেশি সকল বন্ধুদের এটা করতে বারণ করলাম। এও বললাম যে, যদি কিছু শিখাতেও হয়, ভাল কিছু শিখাও। আমাদের শেখানো এসব বাংলা ভাষা বিশ্বময় ছড়িয়ে যাক তাদের দ্বারা। বেশ কয়েকজন আমার পক্ষে কথা বললেও কিছু ফ্রেন্ড আমার কথার বিরোধিতা করলো। তাদের মুখ থেকে শোনা গেলো যে, তারা তাদের বাপের টাকায় পড়তে এসেছে, কারো কথা শোনার জন্য আসেনি। আমি তাদের আর কিছু বলতে পারিনি। তবে যারা আমার কথা পজিটিভ-লি গ্রহণ করেছে, তারা পরবর্তীতে বিদেশীদের অনেক গুলো বাংলা ভাষা শিখিয়েছে যা মধুর। বিদেশি বন্ধুদের সাথে দেখা হলেই তারা বলতো, “কেমন আছো ভালো”। আমি তাদের এই বাক্যটাকে সংশোধন করে দিয়েছি। এখন সামনাসামনি দেখা হলে জিজ্ঞেস করে। “কেমন আছো?” আমি যখন বলি, “ভাল আছি, তুমি?”। তখন সে সুন্দর করে বলে, “আমি ভাল আছি”। এরকম আরও কিছু সুন্দর বাংলা বাক্য তাদের মুখ থেকে বের হয়, যা শুনলে ভিতর থেকেই একটা প্রশান্তি চলে আসে। আমরা যারা পজিটিভ কথা শিখিয়েছি, আমাদের দেখে তারা পজিটিভ কথাই বলে। আর যারা গালি শিখিয়েছে, দূর থেকে তাদের কাউকে দেখলে, “হেই বোকাচোদা” বলে ডাক দেয়। মূর্খতার পরিচয় তারা সেখান থেকেই পেয়ে যায়।

সত্যিকার অর্থে এরা সবাই একেকটা কুয়োর ব্যাঙ। কুয়ো থেকে খোলা জায়গায় আসলে ব্যাঙ যেমন লাফায়, এরাও তেমন লাফাচ্ছে। এদের সকলেরই উচিত, নিজের চারপাশটা খোলা চোখে দেখে নিজেকে শুধরানো। আর মনে রাখা উচিত, পূর্বের অপকর্ম কখনোই নিজেকে কারো কাছে বড় করে না আর ভবিষ্যতকে আলোকিত করে না। ভবিষ্যতকে আলোকিত করতে চাই সঠিক শিক্ষা আর মানুষ হবার সঠিক পদক্ষেপ।

ধর্ষণ ও আমাদের সমাজের চালচিত্র

Now Reading
ধর্ষণ ও আমাদের সমাজের চালচিত্র

ধর্ষণ…!!
শব্দটা যেন আমাদের দৈনন্দিন জীবনের সাথে একেবারে মিশে গেছে।
পত্রিকা, টিভি চ্যানেল, ব্লগ সাইট, ফেসবুক সহ সকল পাবলিক প্লেসে, এমনকি বন্ধুদের আড্ডাতেও এই শব্দটি বহুল ব্যবহৃত।
শব্দটা আমরা যত সহজে উচ্চারণ করি, ভিকটিমেরা তার চেয়েও অনেক বেশি যন্ত্রণার সাথে শব্দটা সহ্য করে থাকে। যে যন্ত্রণা হয়তো অনুধাবন করার ক্ষমতাটুকু আমাদের কারো নেই।
যন্ত্রণার তীব্রতা যে কতখানি, তা আমরা সাম্প্রতিক একটা ঘটনার দিকে চোখ রাখলেই বুঝতে পারি। ছোট্ট মেয়েটার ধর্ষণের বিচার না পেয়ে বাবা আর মেয়ে মিলে একসাথে আত্মহনন করেছিল রেললাইনে মাথা পেতে। তাদের কাছে এই শব্দের যন্ত্রণা মৃত্যুর থেকেও অনেক ভারী।
যে উদাহরণটা দিলাম, এটা খুবই ক্ষুদ্র একটা অংশ। প্রতিদিনই বহু ধর্ষণের ঘটনা ঘটে আর মিডিয়ায় আসে তার তলানি স্বরূপ ক্ষুদ্র একটা অংশ। আর সেটা নিয়ে আমরা অনলাইনে কয়েকদিন লাফালাফি করি। অবশেষে কোন সমাধান ছাড়াই নতুন নতুন ঘটনার নিচে চাপা পড়ে যায় সেই লাফালাফি। এদিকে ধর্ষিতারপরিবারের যন্ত্রণা, যন্ত্রণার যায়গাতেই রয়ে যায়। সমাধান না পেয়ে সেই যন্ত্রণা চেপে তারা সমাজে বেঁচে থাকে নিচু হয়ে। নিচুর কথা বললাম কেন, তার পুরোটা বলতে গেলে আমার লেখা কখনোই থামবে না। তবুও সংক্ষেপে বলি।

আমরা তথা আমাদের সমাজই ধর্ষিতাকে নিচু করে রাখে। ধর্ষণের বিচার না করে বরং ধর্ষিতাকে ও ধর্ষিতার পরিবারকে ছোট করে দেখে। দোষ না করেও, নির্যাতিত হয়েও তারা মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারে না, কথা বলতে পারে না। অথচ, ধর্ষক ঠিকই বীর-দর্পে চলাফেরা করে। মাথা উঁচু করে চলে। একই চায়ের টেবিলে গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে চায়ের কাপে চুমু খায়। আমাদের সমাজটাই এমন। নারী জাতির সম্মানটা কেবল নিজের “মা” আর “বোন” নামক শব্দের মাঝে সীমাবদ্ধ। বাকি সব নারী “মাল” আর ভোগের পণ্য। রাস্তাঘাট, যানবাহন থেকে শুরু করে যেখানেই কোন নারী দেখা যায়, তারা সবাই “মাল”। লোলুপ দৃষ্টি তাদের পিছু ছাড়েনা কখনোই। এমনকি ফেসবুকে কোন মেয়ে ছবি আপলোড দিলেও তার মাঝে মানুষ যৌনতা খোঁজে। হোক সে ক্লাসমেট, কাজিন অথবা এলাকার কোন মেয়ে। আপনার আশেপাশের পাবলিক প্লেস গুলোয় চোখ-কান খোলা রাখলেই একথার সত্যতা খুঁজে পাবেন। দূরে যেতে হবেনা। আমাদের তথা আমাদের সমাজের মনোভাবটাই এমন। যৌনাকাঙ্ক্ষা এতোই বেশি যে, আমরা তা রগে রগে ধারণ করে পথ চলি আর নিজের ব্যক্তিসত্তা ভুলে গিয়ে নির্লজ্জের মতো তা নারীদের দিকে ছুঁড়ে মারি।
যাক এসব কথা। ধর্ষণের কথায় আসি…

সম্প্রতি আলোচিত এক ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত সাদাতের বাবা বলেছে, “আমার ছেলে অন্যায় করেছে তো কি হয়েছে, আমিও করি”। বেহায়া, নির্লজ্জ কোথাকার। কোন বাবা তার ধর্ষক ছেলেকে নিয়ে স্ব-গর্বে এমন কথা বলতে পারে, সে ধারণা আমার ছিল না। তার উচিত ছিল, জাতির কাছে তার ছেলের কুকীর্তির জন্য ক্ষমা চাওয়া। ক্ষমা না চেয়ে বরং তার ছেলের বাজে কর্ম ঢাকতে নিজেকেও সেই পর্যায়ে নিয়ে গেছে। একটা মানুষ আদব-কায়দা শেখে তার পরিবার থেকে। যে পরিবারে এমন বাবা আছে সে পরিবারের ছেলে আদব-কায়দা হীন ধর্ষক হওয়াটা অস্বাভাবিক কিছু না। কুলাঙ্গার ছেলেকে বাঁচাতে কোন কাণ্ডজ্ঞানহীন বাবা যদি এমন কথা বলতে পারে, সম্ভ্রম হারা কোন মেয়ের বাবাও ওইসব ধর্ষকের কাণ্ডজ্ঞানহীন বাবাকে রাজপথে ফেলে জুতাপেটা করতে করতে মেরে ফেলার অধিকার রাখে। যদিও অধিকার নামক শব্দটা এদেশের প্রশাসকদের দলিলে নেই বলেই চলে।
ধর্ষণের সঠিক বিচার না থাকার কারণে আমাদের সমাজের চিত্রটা এমন। সঠিক বিচার সমাজের অপরাধ কমিয়ে আনতে সক্ষম। আফসোস, আমাদের এই জিনিসটার বড় অভাব। যদি এসব অপরাধের সঠিক বিচার হতো, ধর্ষক সমাজ তাদের কার্য সম্পাদনে একটু হলেও ভয় পেতো আর অপরাধ কমতো। এই বিচার নিয়ে কথা বললে আবার বিশাল রচনা হবার সম্ভাবনা আছে। তবুও ছোট করে বলি…

বিচারকের আসনে তথা প্রশাসনে যারা আছে তাদের জগতটা সম্পূর্ণ আলাদা। এদের পিছনের দিনগুলোতে তাকালে দেখা যাবে, কারো কারো জীবনে এরকম কার্যের অভিজ্ঞতা বেশ কয়েকটা রয়েছে। লোকসমাজে প্রচলিত আছে, “কচু গাছ কাটতে কাটতে নাকি ডাকাত হয়”। কথাটার সত্যতা প্রমাণে প্রশাসনের লোকগুলো বেশ পটু। ছোটবেলা থেকে যারা অনিয়ম দুর্নীতি করে আসছে, তারাই একসময় ক্ষমতায় বসছে। এদের থেকে সুবিচার পাওয়াটা অমাবস্যার চাঁদের মতো। অন্ধকারে থেকে থেকে অন্ধকারের কাজগুলোই তাদের বেশি আপন। যদিও মাঝে মাঝে দু একটা বিচার দেখা যায়, সেগুলো হয় তাদের গদি পাকা-পোক্ত করার জন্য অথবা লোক দেখানো।

তনুর জন্য আমাদের আন্দোলন কতখানি জোরালো ছিল… টিকেছে? টিকেনি…!! বিচার এখনো প্রক্রিয়াধীন। কবে শেষ হবে, আদৌ হবে কিনা, তা কেবল তারাই জানে। জোর যার, মুল্লুক তার। অথচ, এই তনুরা যদি প্রশাসকের পরিবারের কেউ হতো, ধর্ষককে গ্রেফতার থেকে শুরু করে বিচার কার্য শেষ হতে সময় লাগতো হাতে গোনা কয়েকটা দিন। আমরা কেউ প্রশাসক পরিবারের না, সবাই তনুর পরিবারের, তাই সুবিচার হয়তো আমাদের প্রাপ্য না।

প্রতিদিন কত মেয়ে যে ধর্ষিতা হয় তার শেষ নেই। কেউ সামনে এসে বিচার চায়, কেউ গোপনে যন্ত্রণা নিয়ে বেঁচে থাকে লোকসমাজে টিকে থাকার তাগিদে। গতকালও একটা খবর পেলাম, প্রায় বছর-খানেক সময় ধরে মা-খালা সহ এক মেয়েকে ধর্ষণ করে আসছে। কতটা জঘন্য একটা খবর। একবার ভাবুন। লোক-লজ্জার ভয়ে অথবা ভিডিও ফ্ল্যাশ হয়ে যাবার ভয়ে টানা এক বছর ধরে নীরবে ধর্ষণের যন্ত্রণা সয়ে আসছে। ভিডিও শব্দটা উচ্চারণ করতেই অনেকগুলো খবর চোখের সামনে ভেসে উঠলো। যাক, বাদ দিলাম এসব ভিডিওর কথা। যারা এইসব কাজগুলো করে, তাদের যদি বিচার হতো, পুরোপুরি না হোক, অপরাধ কিছুটা হলেও কমতো। মাথাব্যথা নেই আমাদের প্রশাসনের। সমস্যা কি !! তার মেয়ে তো নিরাপদেই আছে। একবার আপনার মেয়েকে ঠেলে দিন না কোন এক ধর্ষকের হাতে। খুব সহজেই বুঝবেন এসবের যন্ত্রণা কতখানি। ধর্ষিতাকে কোন এক মেয়েকে নিজের মেয়ের জায়গায় বসান না একবার। দেখেন, যন্ত্রণা কতখানি। আপনাদের কাছে আমাদের প্রাপ্যতা তো এটুকুই। আর এই প্রাপ্যটা যদি না’ই মিটাতে পারেন, তবে ছেড়ে দিন আপনার গদি। আপনার মত কাণ্ডজ্ঞানহীনের আসন বিচারকের আসনে শোভা পায় না। তেলে মাথায় তেল দিয়ে তথা ক্ষমতাবানদের পা চাটাই যদি হয় আপনার কাজ, তবে ওইসব ক্ষমতাবান ধর্ষকদের “দণ্ডটা” মুখে নিয়ে চোখ বুজে চুষতে থাকেন; আরাম পাবেন। অর্থলোভ আর ক্ষমতা আপনাদের মানসিকতাকে কুকুরের চেয়েও নিকৃষ্টতম পর্যায়ে নিয়ে গেছে। কুকুরের সাথে তুলনা করেও ভুল করলাম। কুকুর অন্তত মনিবের নুন খেয়ে মনিবের কাজ করে। ধর্ষিতার পরিবারের সমর্থনেই হয়তো আপনি আপনার গদিতে বসতে পেরেছেন। কিন্তু তার জীবনের কঠিন-তম অবস্থায় আপনার লেজ গুটিয়ে ক্ষমতাবান ধর্ষকের দণ্ডে তেল মেজে দিচ্ছেন। শত ধিক আপনাদের। শত শত ধিক…!!!