5
New ফ্রেশ ফুটপ্রিন্ট
 
 
 
 
 
ফ্রেশ!
REGISTER
টপ টেন
Heat Index

আগামী দিনে বিশ্বের এক নাম্বার দেশ হবে চীন

Now Reading
আগামী দিনে বিশ্বের এক নাম্বার দেশ হবে চীন

পশ্চিমা বিশ্বে আতঙ্কের মতো এক শক্তিশালী চীনের অর্থনৈতিক ‍উথ্থান। অর্থনৈতিক উন্নয়নের পাশাপাশি উন্নতির প্রায়স চালিয়ে যাচ্ছে সামরিক দিক দিয়েও। চীনের সামরিক সমৃদ্ধি এমন অবস্থায় পৌঁছেছে যে তাকে ওয়াশিংটনের নিকট প্রতিদ্বন্দ্বিই বলা যেতে পারে। আগামী দিনে বিশ্বের এক নম্বর দেশ হবে চীন যদি অর্থনীতি ও সামরিক দিক দিয়ে শক্তিশালী রাষ্ট্র হয়ে উঠতে পারে। আসুন জেনে নিই কী কারণে অপ্রতিরোধ্য চীন?
কৃষি পণ্য উৎপাদনে চীনঃ মানুষের প্রয়োজনীয় সবুজ পণ্য ২০০০ সালের পর থেকে সবচেয়ে বেশি উৎপাদন করেছে চীন। চীনের কৃষি উৎপাদন বর্তমানে বিশ্বের ২২ শতাংশ মানুষের উদরপূর্তি করছে। অথচ দেশটিতে কৃষি উৎপাদনে ব্যবহূত জমির পরিমাণ বিশ্বের মোট আবাদযোগ্য জমির ৭ শতাংশ। চাল, গম, আলু, টমেটো, জোয়ার, বাজরা, বাদাম, চা, বার্লি, তুলা, তেলবীজ, সয়াবিনসহ বিভিন্ন কৃষিপণ্য উৎপাদনে শীর্ষস্থানে রয়েছে চীন।
চীনের ‘কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তাঃ এবার আর্টিফিসিয়াল ইন্টিলিজেন্স বা এআইয়ের বাজার দখলের প্রতিযোগিতায় নেমেছে বেইজিং। কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার শুরু হয়েছে দেশটির প্রায় ২০টি প্রদেশের উৎপাদনশীল কারখানাগুলোতে। প্রকাশ করা হয়েছে নীতিমালাও। গত বছর এআইয়ের ওপর ভিত্তি করে ১৫০০ নতুন কারখানা যাত্রা শুরু করেছে। গত বছর ১০ বিলিয়ন ডলারের ব্যবসা হয়েছে এ শিল্পে। যা সাড়ে ৮ ট্রিলিয়ন ডলার ছাড়াবে ২০২১ এ। গবেষণা ক্ষেত্রেও খরচ করা হচ্ছে। ৩০০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করা হয়েছে শুধু গবেষণায় ২০১৮ সালে। যা ১০ শতাংশ ২০১৭ সালের বেশি ২০১৭ সালের তুলনায়। এছাড়াও নির্মাণ করছে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স উন্নয়ন পার্ক দুই বিলিয়ন ডলার খরচ করে।
মহাকাশ অভিযানে চীনঃ এই প্রথম একটি রোবট চালিত মহাকাশযান নামিয়েছে চীন। চাঁদের যে অংশটি পৃথিবী থেকে কখনোই দেখা যায় না, সেই দূরবর্তী দিকে। চীনা বিজ্ঞানীরা চীনের মহাকাশযান চাঙ-আ ৪ চন্দ্রপৃষ্ঠে সফলভাবে অবতরণ করেছে বলে দাবি করছেন। চীনের মহাকাশ কর্মসূচির জন্য এক বিরাট সাফল্য বলে মনে করা হচ্ছে এটিকে। ২০১১ সালে চীন তাদের মহাকাশ স্টেশন কর্মসূচি শুরু করেছে। ২০০৭ সালে চীন কোন স্যাটেলাইট মহাশূন্যে ঘুরতে থাকা ক্ষেপনাস্ত্র দিয়ে ধ্বংস করার ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জন করে। এই সক্ষমতা তাদের আগে ছিল যুক্তরাষ্ট্র আর রাশিয়ার। সাইবার স্পেসে তথ্যের গোপনীয়তা এবং সুরক্ষা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এক্ষেত্রে চীন ২০১৬ সালে এক বিরাট সাফল্য অর্জন করে।
বৈদ্যুতিক গাড়ির বাজারে শীর্ষে চীনঃ বিশ্বব্যাপী বাড়ছে পরিবেশবান্ধব বৈদ্যুতিক গাড়ির চাহিদা বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধিকে কেন্দ্র করে। বিশ্ব বৈদ্যুতিক গাড়ি বাজারে চালকের আসনে রয়েছে চীন, গত বছর প্রায় ১২ লাখ বৈদ্যুতিক গাড়ি বিক্রির করছে দেশটি। চীনের বিকল্প জ্বালানিসংশ্লিষ্ট নীতি বৈদ্যুতিক ট্রাক ও বাস খাতের সম্প্রসারণে সহায়তা করছে, বিশেষত শহরের বায়ুর মান নিয়ন্ত্রণে এ নীতি বেশ সহায়ক বলে উল্লেখ করা হয়েছে ওই প্রবন্ধে। চীন বৈদ্যুতিক ট্যাক্সি ও সরবরাহ গাড়ি নির্মাণ করে বলেও জানান এ কর্মকর্তা।
সামরিক খাতে চীনঃ এ বছর প্রতিরক্ষা খাতে ১৭৭.৬১ বিলিয়ন ডলার বাজেট বরাদ্দ করেছে চীন গত বছরের চেয়ে সাড়ে ৭ শতাংশ বৃদ্ধি করে। সামরিক খাতে বাজেট ছিল ১৭৫ বিলিয়ন ডলার ২০১৮ সালে। এর পরিমাণ অন্তত তিনগুণ বেশি প্রতিবেশী দেশ ভারতের প্রতিরক্ষা বাজেটের তুলনায়। চীনের প্রতিরক্ষা বাজেট ২০০ বিলিয়নে গিয়ে ঠেকবে এই হারে বৃদ্ধি চলতে থাকলে, যা যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা বাজেটের কাছাকাছি পৌঁছে যাবে।
লিঙ্গ বৈষম্য কমাচ্ছে চীনঃ সমানভাবে নারী ও পুরুষের ভুমিকা দরকার। যদি উন্নয়ন করতে হয়। আর তার জন্য চীন লিঙ্গ বৈষম্য কমানোর দিকে মনযোগ দিচ্ছে। তবে তারা একটু ধীর গতিতে এগোচ্ছে লিঙ্গ বৈষম্য কমাতে। ১৪৯টি দেশের মধ্যে ২০১৮ সালে এক জরিপে লিঙ্গ বৈষম্য কমানোর দিক থেকে ১০৩তম হয়েছে চীন। চেষ্টা চালাচ্ছে তারা লিঙ্গ বৈষম্য কমাতে।

চরিত্রহীন সুলতান

Now Reading
চরিত্রহীন সুলতান

ব্রুনাই দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার একটি রাষ্ট্র। এটি একটি রাজতান্ত্রিক ইসলামী দেশ। ব্রুনেইয়ের সুলতান হাসানাল বোলখিয়া। ৭২ বছর বয়সী এই শাসক দীর্ঘ ৫২ বছর ধরে ব্রুনেইয়ের রাষ্ট্রক্ষমতায় অধিষ্ঠিত আছেন। ইতিহাসে এত দীর্ঘ সময় ধরে তার আগে রাষ্ট্রক্ষমতায় আছেন শুধু ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ। সুলতান হাসানাল বোলখিয়া ভোগ-বিলাসের জীবনযাপন করে যাচ্ছেন।
২০১৪ সালে ব্রুনেইয়ে শরিয়াহ আইন চালু করেছেন দেশটির এ শাসক। নিজে যৌনবিলাস আর অসৎকর্মে লিপ্ত থেকে এ আইন চালু করায় তার বিরুদ্ধে চলছে সমালোচনা।
আর এসব আলোচনায় উঠে এসেছে সুলতানের নানা কুকর্মের কথা। জানা গেছে, সুলতানের রাজপ্রাসাদেই নাকি রয়েছে একাধিক ‘হেরেম (রাজকীয় পতিতালয়)’ , যেগুলোতে রয়েছে বিশ্বের নানা দেশ থেকে আনা সুন্দরী যৌনদাসীরা।
সুলতানের যৌনবিলাস ও হেরেমের খবর প্রথম প্রকাশ্যে আসে ১৯৯৭ সালে। সে বছরের মিস যুক্তরাষ্ট্র নির্বাচিত হওয়া শ্যানন মার্কেটিক মার্কিন আদালতে অভিযোগ করেছিলেন সুলতানের বিরুদ্ধে।
তিনি জানান, যৌনতার জন্য প্রতিদিন তিন হাজার ডলারের বিনিময়ে ব্রুনেইয়ে নেয়া হলেও যৌনদাসীর মতো করে তাকে ব্যবহার করেছেন সুলতান।
এ ছাড়া ২০১০ সালে ব্রুনেই রাজপ্রাসাদের হেরেমে (রাজকীয় পতিতালয়) থাকার অভিজ্ঞতা রয়েছে মার্কিন লেখিকা জুলিয়ান লরেনের। ব্রুনেইয়ের সুলতানের ব্যক্তিগত সম্পদের পরিমাণ ২৭ দশমিক ৭ বিলিয়ন ডলার। বিশ্বের সবচেয়ে সম্পদশালী শাসকদের একজন তিনি। বিপুল সম্পদ আর ভোগবিলাসে লিপ্ত থাকা ব্রুনেইয়ের সুলতানের রয়েছে প্রাইভেট জেট বিমানের বহর।
উত্তারাধিকার সূত্রে বাবার কাছ থেকে পাওয়া এই ক্ষমতায় নিজের একচ্ছত্র আধিপত্য ব্রুনেইয়ের এই সুলতানের। সুলতান হাসানাল বোলখিয়া ব্রুনেইয়ের সব ক্ষমতার একচ্ছত্র অধিপতি। তিনিই দেশটির সর্বোচ্চ ইসলামিক নেতা।
একাধারে তিনি দেশটির প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী, পররাষ্ট্র ও বাণিজ্যমন্ত্রী। শুধু তাই নয়, সুলতান হাসানাল বোলখিয়া ব্রুনেইয়ের সুপারিন্টেন্ড্যান্ট অব পুলিশ, প্রতিরক্ষামন্ত্রী এবং কমান্ডার অব দি আর্মড ফোর্সেস। এমনকি ব্রুনেইয়ের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলরও তিনি।

বিশ্বের সবচেয়ে বড় রাজপ্রাসাদ

Now Reading
বিশ্বের সবচেয়ে বড় রাজপ্রাসাদ

ব্রুনেইয়ের সুলতান হাসানাল বোলখিয়া পৃথিবীর সবচেয়ে বড় রাজকীয় প্রাসাদে বসবাস করেন। যে প্রাসাদের নাম ‘ইনস্তানা নুরুল ইমান প্যালেস’। ব্রুনেই নদীর তীরে অবস্থিত এই রাজকীয় প্রাসাদে ১৮০০ কামরা রয়েছে। এই রাজপ্রাসাদটির বাজারমূল্য ১ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলার (১৫১২৯ কোটি ৬৩ লাখ টাকা)। এতে রয়েছে পাঁচটি সুইমিংপুল, কয়েকটি মসজিদ। এই প্রাসাদে রয়েছে বহু হেরেমও (রাজকীয় পতিতালয়)। প্রাসাদের ব্যাঙ্কুয়েট হলে ৫ সহস্রাধিক অতিথি অবস্থান করতে পারে। শুধু তাই নয়, এই রাজপ্রাসাদটি বহু সোনা ও হীরকখণ্ড দ্বারা সজ্জিত করা হয়েছে।
ব্রুনেইয়ের সুলতান হাসানাল বোলখিয়ার বিলাসবহুল গাড়ির বিষয়ে অতি আসক্তি রয়েছে। তার সংগ্রহে যেসব বিলাসবহুল গাড়ি রয়েছে তার সর্বমোট মূল্য ৯ বিলিয়ন ডলার। এর মধ্যে রয়েছে রোলস রয়েস, ফেরারি, বেন্টলেস, ল্যাম্বরগিনি, অ্যাস্নট মার্টিন ও জাগুয়ার।
এর বাইরে প্রাইভেট প্লেনের একটি বহর রয়েছে এই সুলতানের। এই বহরে রয়েছে ১৩৮ মিলিয়ন ডলার মূল্যমানের এয়ারবাস, ২৫১ মিলিয়ন ডলার মূল্যমানের বোয়িং ৭৬৭ প্লেন এবং বিশেষ ধরনের বোয়িং ৭৪৭ প্লেন। এই প্লেনের দাম ৪৩১ মিলিয়ন ডলার। এই প্লেনটি স্বর্ণ দিয়ে সজ্জিত করা হয়েছে।
সুলতান বোলখিয়ার ব্যাডমিন্টন কোচের বেতন ২ মিলিয়ন ডলার। সুলতান প্রাইভেট প্লেনে চড়ে তার প্রিয় স্টাইলের চুল কাটতে সেলুনে যান।

বায়ু দূষণের ফলে লক্ষ লক্ষ মানুষ মারা যাচ্ছে ভারতে

Now Reading
বায়ু দূষণের ফলে লক্ষ লক্ষ মানুষ মারা যাচ্ছে ভারতে

বায়ু দূষণের ফলে প্রতি বছর প্রচুর মানুষ মারা যাচ্ছে ভারতে। বিষাক্ত বাতাসের কারনে ভারতে মৃত্যুর হার দিনদিন বেড়েই চলেছে। বিষাক্ত বাতাসের কারণে ২০১৭ সালে ভারতে ১২ লাখেরও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। আর ২০১৫ সালে ১১ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়েছিল ভারতে। ২০১৯ সালের স্টেট অব গ্লোবাল এয়ার রিপোর্ট এমনটাই বলছে।
স্টেট অব গ্লোবাল এয়ার রিপোর্ট বলছে, ভারতে ২০১৭ সালে ১২ লাখেরও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে বিষাক্ত বাতাসে। আর একই কারণে ২০১৫ সালে ১১ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। ২০১৭ সালে মৃতের সংখ্যা ১ লাখ বেড়ে গেছে। বিশ্বের মধ্যে বায়ুদূষণে অতি বিপজ্জনক রাজধানীগুলোর মধ্যে এক নম্বরেই রয়েছে দিল্লি।
বিশ্বের প্রথম ২০টি সবচেয়ে দূষিত শহরের মধ্যে ১৫টিই ভারতের। বিশ্বে যে যে কারণগুলোতে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়, তার মধ্যে পঞ্চম স্থানে রয়েছে বায়ুদূষণ। দিল্লি, গুরগাঁও ও ফরিদাবাদসহ ভারতের গাঙ্গেয় শহরগুলোতে পরিস্থিতি এতটাই খারাপ যে, কোনও ব্যক্তি যদি ধূমপায়ী না-ও হন, তাও স্রেফ বায়ুদূষণের জন্য তিনি চেন স্মোকারের সমান ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন।

মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের অর্থ আত্মসাতের বিচার শুরু

Now Reading
মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের অর্থ আত্মসাতের বিচার শুরু

মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের বিচার শুরু হয়েছে। তার নামে বিশাল অংকের আর্থিক কেলেঙ্কারিতে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে। বুধবার শুরু হওয়া এই বিচার চলবে এক মাস।
ওয়ান মালয়েশিয়া ডেভেলপমেন্ট বেরহাদের (ওয়ানএমডিবি) তহবিল থেকে প্রায় ৭০ কোটি মার্কিন ডলার অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়েছে তার বিরুদ্ধে। নাজিব যদি দোষী সাব্যস্ত হন তাহলে তাকে বেশ কয়েক বছর কারাগারে থাকতে হতে পারে। খবর বিবিসির
নাজিবের বিরুদ্ধে মোট ৪২টি অভিযোগ আনা হয়েছে। এর অধিকাংশই ওয়ানএমডিবির অর্থ আত্মসাতের সঙ্গে জড়িত। তবে নাজিব তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।
বুধবারের বিচারে নাজিব রাজাককে ওয়ানএমডিবির সাবেক ইউনিট এসআরসি ইন্টারন্যাশনাল থেকে ৪ কোটি ২০ মিলিয়ন রিঙ্গিত আত্মসাতসহ সাতটি অভিযোগের মুখোমুখি হতে হচ্ছে।
গত ১২ ফেব্রুয়ারিতে তার এ বিচার শুরু হওয়ার কথা থাকলেও এক আপিলের শুনানির কারণে তখন সেটা বাতিল হয়ে যায়।
নাজিব রাজাকের বিরুদ্ধে মুদ্রাপাচারের ২৭টি, বিশ্বাসভঙ্গের ফৌজদারি অপরাধের জন্য নয়টি, ক্ষমতার অপব্যবহারের জন্য পাঁচটি এবং নিরীক্ষা জালিয়য়াতির একটি অভিযোগ রয়েছে।
এর মধ্যে মুদ্রাপাচারের তিনটি, বিশ্বাসভঙ্গের ফৌজদারি অপরাধের জন্য তিনটি ও ক্ষমতার অপব্যবহারের জন্য একটি অভিযোগের বিচার শুরু হয়েছে।
মুদ্রাপাচারের ২১ অভিযোগ ও ক্ষমতার অপব্যবহারের চারটি অভিযোগে তার বিরুদ্ধে বিচার শুরু হবে ১৫ এপ্রিল। সরকারের তহবিল অপব্যবহারের বিষয়ে অভিযোগে তৃতীয় বিচার শুরু হবে ৮ জুলাই।

আলজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট আবদেলাজিজ আজিজ বুতেফ্লিকার পদত্যাগ করেছেন

Now Reading
আলজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট আবদেলাজিজ আজিজ বুতেফ্লিকার পদত্যাগ করেছেন

বেশ কিছুদিন ধরেই আলজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট আবদেলাজিজ বুতেফ্লিকাকে পদত্যাগের আহ্বান করা হচ্ছিল। আবদেলাজিজ আজিজ বুতেফ্লিকার পদত্যাগের দাবিতে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছিল উত্তর আফ্রিকার দেশ আলজেরিয়ার জনগণ। মঙ্গলবার রাতে আলজেরিয়ার দুই দশকের এ প্রেসিডেন্ট এক বার্তায় পদত্যাগের ঘোষণা দেন। বুতেফ্লিকার পদত্যাগের ঘোষণায় দেশটির রাজধানী আলজিয়ার্সের রাস্তায় উল্লাস করেছেন লোকজন। এ সময় তাদের হাতে ছিল আলজিয়ার পতাকা।বুতেফ্লিকার পদত্যাগের দাবিতে আলজিয়ার্সে প্রতিবাদ-বিক্ষোভে অংশ নেওয়া ২০ বছর বয়সী নুরহানে আতমানি বলেন, ‘নতুন কিছু অনুভব করছি। ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করি, একজন নতুন প্রেসিডেন্ট হবে।’ তবে নুরহানে বলছেন, এ ঘোষণায় তিনি আনন্দিত হওয়ার পাশাপাশি ভীতও। কারণ, তার মতে, এটি প্রথম পদক্ষেপ। নতুন সরকার গঠনে একটি সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য তাদের আন্দোলন অব্যাহত রাখতে হবে।
এর আগে সোমবার দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, আগামী ২৮ এপ্রিল নিজের মেয়াদকাল শেষ হওয়ার আগেই পদত্যাগ করতে যাচ্ছেন প্রেসিডেন্ট। তবে তার আগে সঠিকভাবে রাষ্ট্র পরিচালনার বিষয়টি নিশ্চিত করবেন তিনি।
প্রেসিডেন্ট বুতেফ্লিকা ২০ বছর ধরে আলজেরিয়ার ক্ষমতায় ছিলেন। বর্তমানে তিনি হুইলচেয়ারে চলাফেরা করেন। ২০১৩ সালে স্ট্রোকের পর থেকে তাকে সাধারণত প্রকাশ্যে দেখা যায়নি। বুতেফ্লিকার ২০ বছরের শাসনের অবসান মধ্যপ্রাচ্য ও উত্তর আফ্রিকার জন্য একটি বার্তা এবং ওই অঞ্চলের জনপ্রিয় প্রতিবাদ-বিক্ষোভের ক্ষেত্রে এটি একটি নতুন বিজয়।
তবে পরবর্তীতে কী ঘটছে তা স্পষ্ট নয়, কারণ ১৯৬২ সালে ফ্রান্সের কাছ থেকে স্বাধীন হওয়ার পর থেকে দেশটির রাজনীতির শীর্ষ পর্যায়ে পরিবর্তন খুব কম দেখা গেছে।

সৌদি সরকার বিপুল পরিমাণ অর্থ দিচ্ছে খাসোগির সন্তানদের

Now Reading
সৌদি সরকার বিপুল পরিমাণ অর্থ দিচ্ছে খাসোগির সন্তানদের

নিহত সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে নিয়ে ওয়াশিংটন পোস্ট গতকাল সোমবার একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, খাসোগির মৃত্যুর ক্ষতিপূরণ হিসেবে তাঁর প্রত্যেক সন্তানকে মিলিয়ন ডলার মূল্যের বাড়ি, এককালীন এক কোটি ডলার ও মাসিক ৫ ডিজিট ডলারের ভাতা পরিশোধ করা হবে।

সৌদি আরব এমন এক সময় খাসোগির সন্তানদের সঙ্গে তাঁদের বাবার হত্যা নিয়ে দফায়-রফায় যাচ্ছে বলে ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে, যার এক মাসের মাথায় এই মামলার বিচার হওয়ার কথা। খাসোগির দুই ছেলে ও দুই মেয়েকে এই অর্থ দেওয়া হবে। এর আগে গত বছরের ২৩ অক্টোবর সৌদি যুবরাজের সাথে খাসোগির পরিবারের সদস্যরা দেখা করেছিল। গত বছরের ২ অক্টোবর তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেট ভবনে ব্যক্তিগত কাগজপত্র আনতে গিয়ে নিখোঁজ হয়েছিলেন সৌদির খ্যাতনামা সাংবাদিক জামাল খাসোগি। নিখোঁজের পরপরই তুরস্ক দাবি করে, খাসোগিকে কনস্যুলেটের ভেতরে হত্যা করেন সৌদি গুপ্তচরেরা। তবে প্রথম দিকে তা অস্বীকার করে সৌদি আরব। কারণ, নিহত খাসোগি সৌদি রাজপরিবারের একসময়ের ঘনিষ্ঠজন ও পরে কঠোর সমালোচক হিসেবে পরিচিত ছিলেন। খাসোগিপক্ষগুলোর অভিযোগ, খাসোগির এই হত্যার পেছনে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের হাত রয়েছে।

আত্মহত্যা করেছেন মেক্সিকোর রকস্টার আর্মান্দো ভেগা ঘিল

Now Reading
আত্মহত্যা করেছেন মেক্সিকোর রকস্টার আর্মান্দো ভেগা ঘিল

মি টু হ্যাশটাগটি প্রথম ব্যবহার করা হয়েছিল ২০০৬ সালে। তারানা বার্কে নামের একজন মার্কিন সমাজকর্মী ও সংগঠক এটি ব্যবহার করেছিলেন। যৌন নিপীড়নের ভয়াবহতাকে নজরে আনতে ‘মি টু’ কিংবা ‘আমিও বলতে চাই’ হ্যাশট্যাগে বিশ্বের সব নারীর প্রতি নিপীড়নের ঘটনা ফাঁস করতে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন তিনি। সেই ধারাবাহিকতায় গত বছর মার্কিন অভিনেত্রী আলিসা মিলানো একই হ্যাশট্যাগে একজন প্রযোজকের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ তোলেন। তারই প্রেরণায় প্রথমে হলিউড এবং পর্যায়ক্রমে বিশ্বজুড়ে নিপীড়িত নারীরা ‘মি টু’ হ্যাশট্যাগটিকে হাতিয়ার করেন।

‘‌মি টু মেক্সিকান মিউজিশিয়ান্স’‌ শীর্ষক আন্দোলনে দেশের জনপ্রিয় রক ব্যান্ড বোতেল্লিতা ডি জেরেজের প্রতিষ্ঠাতা আর্মান্দোর বিরুদ্ধে এক নারী কিশোরী বয়সে যৌন নিপীড়নের শিকার হওয়ার অভিযোগ তুলেছেন। তার দাবি, ১৩ বছর বয়সী অবস্থায় তিনি আর্মান্দোর নিপীড়নের শিকার হন। ওই অভিযোগের পর রীতিমতো ভেঙে পড়েন ৬৪ বছরের রক শিল্পী। টুইটার পোস্টে সুইসাইড নোটে তিনি দাবি করেছেন, তাঁর বিরুদ্ধে আনা মি টু–র অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা। অপরাধবোধে নয় অত্যন্ত অপমানিত হয়েই তিনি আত্মঘাতী হচ্ছেন। কারণ এই অভিযোগের পর তাঁর ছেলে কীভাবে সমাজে মুখ দেখাবে তা নিয়ে যথেষ্ট চিন্তিত তিনি।

এদিকে আর্মান্দোর মৃত্যু প্রশ্নে দুই ধারায় বিভক্ত হয়ে গেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের মতামত। একপক্ষ প্রশ্ন তুলেছে, নির্দোষ হয়ে থাকলে কেন তার প্রমাণ দিলেন না আর্মান্দো। অপর পক্ষের অভিযোগ, আদালতের আগেই সোশ্যাল মিডিয়ার প্ল্যাটফর্মে আর্মান্দোকে দোষী সাব্যস্ত করে ফেলেছিল নেটিজেনরা। অসহায় হয়েই তিনি আত্মহত্যার পথ বেছে নিতে বাধ্য হন।

বোতেল্লিতা ডি জেরেজের আরেক সদস্য পাওলা হার্নানডেজ বলেছেন, সোমবার ভোররাত দুটো নাগাদ ফোনে কথা বলার সময়ই আর্মান্দোকে মানসিকভাবে বিধ্বস্ত লেগেছিল তার। নিজেকে বারবার নির্দোষ বলে দাবি করলেও কীভাবে তা প্রমাণ করবেন তা বুঝতে পারছিলেন না শিল্পী। আত্মহত্যার জন্য কাউকে দায়ীও করে যাননি আর্মান্দো। পুলিস তাঁর সুইসাইড নোট উদ্ধার করে তদন্ত শুরু করেছে।

জাপানের ঐতিহ্য তার ব্যক্তিগত সিল ‘হানকো’ এখন হুমকির মুখে

Now Reading
জাপানের ঐতিহ্য তার ব্যক্তিগত সিল ‘হানকো’ এখন হুমকির মুখে

জাপানে ব্যক্তিগত সিলকে ‘হানকো’ সইয়ের কাজে হানকো ব্যবহৃত হয়। ছোট একটি দণ্ডের মাথায় বিশেষ চিহ্ন অঙ্কন করে এই সিল তৈরি করেন শিল্পীরা। জাপানের সম্রাট থেকে শুরু করে প্রাপ্তবয়স্ক প্রত্যেক নাগরিকেরই একটা করে হানকো আছে। বিয়ে, ফ্ল্যাট ভাড়া, গাড়ি কেনাসহ নানা কাজে হানকো ব্যবহারের পুরোনো রীতি আছে জাপানে। তবে দিন বদলে গেছে। এখন জাপানে হুমকির মুখে এই ঐতিহ্য। ডিজিটালাইজেশনের ঢেউয়ে হারিয়ে যেতে বসেছে হানকো। হানকোর জায়গা দখল করে নিচ্ছে ডিজিটাল স্বাক্ষর। কাগজের অতি ব্যবহার জাপানের প্রশাসনিক কাজকে মন্থর করে তুলেছে। এই প্রেক্ষাপটে তারা ডিজিটাল পদ্ধতির দিকে ঝুঁকছে।

ইতিমধ্যে দেশটির তিনটি বড় ব্যাংক হানকো ছাড়াই গ্রাহকদের হিসাব খোলার সুযোগ দিচ্ছে। একটি অনলাইন ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট নোরিয়াকি মারুয়ামার ধারণা, শিগগির অধিকাংশ জাপানি হানকোর বদলে ডিজিটাল পদ্ধতিতে হাতের আঙুলের ছাপ ব্যবহার করবেন। ইতিমধ্যে জাপানের স্থানীয় সরকারগুলো ইলেকট্রনিক লেনদেনের প্রক্রিয়া শুরু করেছে।

দেশটির বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী তাকুয়া হিরাইয়ের মতে, হানকো বাদ দেওয়ার বিষয়টি খুবই যৌক্তিক। কাগজনির্ভর কাজের পেছনে জাপানের মানুষ অনেক সময় ব্যয় করে। এই কাগজনির্ভর আমলাতন্ত্র টেনে চলা সম্ভব নয়। তাই পার্লামেন্টের মাধ্যমে ‘ডিজিটাল ফার্স্ট বিল’ প্রণয়ন করা হচ্ছে।

নিউজিল্যান্ডে অস্ত্র আইন সংশোধনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে

Now Reading
নিউজিল্যান্ডে অস্ত্র আইন সংশোধনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে

চলতি সপ্তাহে আগ্নেয়াস্ত্রের মালিকদের বিরুদ্ধে অভিযান চালানো হবে। নিউজিল্যান্ডের অস্ত্র মালিকদের সংগঠন কাউন্সিল অব লাইসেসন্ড ফায়ারআর্ম ওনার্স সরকারের এই সিদ্ধান্তের সঙ্গে একমত হয়েছে। গত ১৫ মার্চ ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার পর দেশটির অস্ত্র আইন সংশোধনের সিদ্ধান্ত নেয় কর্তৃপক্ষ। ওই হামলায় ৫০ জন নিহত ও ৪২ জন আহত হন।

নিউজিল্যান্ডের নাগরিকদের সামরিক ধাঁচের আধা স্বয়ংক্রিয় ও স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র পুলিশের কাছে জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে সরকার। এ ধরনের অস্ত্র জমা না দিলে এর মালিককে পাঁচ বছর কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তারা জানিয়েছে, সেপ্টেম্বরের মধ্যে এসব অস্ত্র জমা দিতে হবে। নতুন আইনে এ বিধান যোগ করা হচ্ছে।

নিউজিল্যান্ডের ভারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী উইনস্টন পিটার্স বলেছেন, অস্ত্র আইন সংশোধনের বিল ইতিমধ্যে পার্লামেন্টে উত্থাপন করা হয়েছে। এ ধরনের আইন করার জন্য কয়েক মাস সময় লেগে যায়। তবে দেশটির প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্ন বলেছেন, আইনটি খুব জরুরি। ১১ এপ্রিল নাগাদ এই সংশোধনী পাস হবে। তিনি বর্তমানে চীন সফরে আছেন।
যে বিলটি পার্লামেন্টে আনা হয়েছে তা পাস হলে নাগরিকদের সামরিক ধাঁচের আধা স্বয়ংক্রিয় ও স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র নিষিদ্ধ হবে। তবে এরপরও নিউজিল্যান্ডের কৃষক এবং শিকারিরা যে বন্দুক ব্যবহার করে থাকেন তা এই নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকতে পারে। এ ছাড়া পয়েন্ট টু টু আধা স্বয়ংক্রিয় বন্দুক এই নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকতে পারে।

আইন সংশোধনের যে প্রস্তাব আনা হয়েছে তাতে শটগান এবং আধা স্বয়ংক্রিয় অস্ত্রের কথা উল্লেখ করে বলা হয়েছে, এই অস্ত্র জনসমক্ষে ব্যবহার করলে সাত বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে। এ ছাড়া গ্রেপ্তারে বাধা সৃষ্টি করলে ১০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে। আধা স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র বিক্রি, সরবরাহ, তৈরি, আমদানি করলে পাঁচ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে।

Page Sidebar