টপ টেন
Heat Index

ট্রাম্পের জন্য সবচেয়ে ভালো দিন!

Now Reading
ট্রাম্পের জন্য সবচেয়ে ভালো দিন!

মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে ট্রাম্পের জন্য সবচেয়ে ভালো দিন হচ্ছে, ট্রাম্পের রুশ সংযোগ নিয়ে বিশেষ তদন্তকারী রবার্ট মুলারের প্রতিবেদনের সারসংক্ষেপ প্রকাশের দিনটি। ওই সারসংক্ষেপকে এভাবেই আখ্যা দিয়েছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম বিবিসি। যুক্তরাষ্ট্রের আইনমন্ত্রী উইলিয়াম বার গত রবিবার (২৪ মার্চ) ওই প্রতিবেদনের একটি সারসংক্ষেপ যুক্ত করে কংগ্রেসের কাছে চিঠি লিখেছেন। এত বলা হয়েছে, প্রতিবেদনে রাশিয়ার সঙ্গে ট্রাম্পের নির্বাচনি প্রচারণা শিবিরের কোনও আঁতাত থাকার অভিযোগ আনা হয়নি। রবার্ট মুলার ট্রাম্পের বিরুদ্ধে তার তদন্তে বাধা দেওয়ারও কোনও অভিযোগ আনেননি। ফলে আইনি ও রাজনৈতিক দুই দিক থেকেই ট্রাম্প সুবিধাজনক অবস্থানে থাকা ট্রাম্প স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে পারবেন বলে মনে করছেন বিবিসি-র উত্তর আমেরিকা অঞ্চলের দায়িত্বপ্রাপ্ত সম্পাদক জন সোপেল।
২০১৬ সালের নভেম্বরে অনুষ্ঠিত মার্কিন নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপের বিষয়টি অনেকদিন ধরেই আলোচনার কেন্দ্রে। অভিযোগ রয়েছে, এই নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে জেতাতে মস্কো প্রপাগান্ডা ছড়িয়েছিল, যাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম পালন করেছিল বড় ভূমিকা। গত শুক্রবার (২২ মার্চ) বিশেষ তদন্তকারী রবার্ট মুলার তার তদন্ত প্রতিবেদন মার্কিন আইনমন্ত্রী উইলিয়াম বারকে হস্তান্তর করেছেন। প্রতিবেদনের বিষয়ে কংগ্রেসকে দ্রুত অবহিত করার পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী গত রবিবার প্রতিবেদনের সারসংক্ষেপ জানিয়ে কংগ্রেসের কাছে চিঠি লেখেন উইলিয়াম বার। সেখানেই উঠে আসে স্পেশাল কাউন্সেল রবার্ট মুলার কর্তৃক ট্রাম্পকে অভিযুক্ত না করার তথ্য।
এমন পরিস্থিতিতে ডেমোক্র্যাটরা যদি ট্রাম্পকে ক্ষমতা থেকে সরাতে চান তাহলে তাদের অপেক্ষা করতে হবে ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন পর্যন্ত। গত ২২ মাস ধরে ট্রাম্পের ওপর যে কালো মেঘের ছায়া ছিল মুলারের তদন্ত প্রতিবেদনের সারসংক্ষেপ প্রকাশের মাধ্যমে যেন তা সরে গেল। ট্রাম্প নির্ভার হলেন। ২০১৭ সালের জানুয়ারি মাসে প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেওয়ার পর গত রবিবারই ছিল এই মেয়াদকালে তার শ্রেষ্ঠ সময়।
মুলারের প্রতিবেদনে দুইটি অংশ রয়েছে। প্রথমে অংশে তুলে ধরা হয়েছে ২০১৬ সালের নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপের বিষয়ে তথ্য। দ্বিতীয় অংশে রয়েছে, তদন্ত বাধাগ্রস্ত করার ক্ষেত্রে ট্রাম্প কোনও ভূমিকা গ্রহণ করেছিলেন কি না। উইলিয়াম বারের তৈরি সারসংক্ষেপ অনুযায়ী, রবার্ট মুলার তার প্রতিবেদনে রাশিয়ার সঙ্গে ট্রাম্পের আঁতাতের কোনও প্রমাণ পাননি। দৃশ্যত ট্রাম্পের রুশ সংযোগ সংক্রান্ত অভিযোগের এখানেই ইতি ঘটেছে।
আইনমন্ত্রী উইলিয়াম বার জানিয়েছেন, তিনি ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল রড রোজেন্সটেইনের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছেন। তারা মনে করেন, রবার্ট মুলারের তদন্ত কার্যক্রম ট্রাম্প বাধাগ্রস্ত করেছিলেন কি না সে বিষয়ে যথেষ্ট প্রমাণ পাওয়া যায়নি। ফলে আইনমন্ত্রীর দৃষ্টিতে ট্রাম্প নির্দোষ। তবে ট্রাম্প রবার্ট মুলারের তদন্ত বাধাগ্রস্ত করেছিলেন কি না সে বিষয়ে কিছুটা দ্ব্যর্থবোধকতা রয়েছে। এ বিষয়ে মুলার যে মন্তব্য করেছেন তাকে ‘খুবই আগ্রহ উদ্দীপক’ আখ্যা দিয়েছে বিবিসি: একদিকে যেমন প্রতিবেদনে প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে কোনও অপরাধ সংঘটনের অভিযোগ আনা হয়নি, তেমনি এতে তাকে কোনও দায়মুক্তিও দেওয়া হয়নি।
মুলারের ভাষ্যে যে দ্ব্যর্থবোধকতা রয়েছে সেটাকে নিয়েই এগোতে চান ডেমোক্র্যাটরা। আইনি দিক থেকে হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভের জুডিশিয়ারি কমিটি রবার্ট মুলারের পুরো প্রতিবেদনের তথ্য দেখতে চাইবে। কমিটির সদস্যরা বুঝতে চাইবেন, কেন মুলার ট্রাম্পকে আইনি প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত করার অভিযোগে অভিযুক্ত করার মতো মতো যথেষ্ঠ প্রমাণ পাননি। এখানে স্মরণ রাখা দরকার, আইনি প্রক্রিয়ায় বাধা দেওয়ার অভিযোগ প্রমাণিত হলে ট্রাম্পকে অভিশংসিত করা হতে পারে ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগে।
কমিটি তাদের সাধ্যমতো এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও নথিপত্র হাজির করার আদেশ দিতে পারে। প্রেসিডেন্টের বিরোধিতা করার জন্য তারা যতদিন সম্ভব এটা নিয়ে নাড়াচাড়া করবে। কিন্তু ট্রাম্পকে যদি সত্যি আইনি প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত করার অভিযোগে অভিযুক্ত করতে হয় তাহলে প্রমাণ করতে হবে, এফবিআইয়ের সাবেক প্রধান জেমস কোমিকে অপসারণ ও তদন্তের বিরুদ্ধে তার নিয়মিত টুইটার বার্তা লেখার উদ্দেশ্য ছিল তদন্ত বাধাগ্রস্ত করা। তা যদি না হয়, তাহলে ট্রাম্প আইনত কোনও দোষ করেননি।
রাজনৈতিক দিক থেকে একটি বিরোধী রাজনৈতিক দল হিসেবে ডেমোক্র্যাটদের চেষ্টা চালিয়ে যাওয়ারই কথা বলে মনে করেন বিবিসি-র উত্তর আমেরিকা অঞ্চলের দায়িত্বপ্রাপ্ত সম্পাদক জন সোপেল। তিনি মনে করেন, ডেমোক্র্যাটরা যে রাজনৈতিকভাবে ট্রাম্পের ক্ষতি করতে চাইবেন তা বোধগম্য হলেও এতে প্রাপ্তির চেয়ে হারাবার ঝুঁকি বেশি। কারণ ভোটারদের মধ্যে খুব কম সংখ্যকই শেষ পর্যন্ত মুলারের প্রতিবেদনের পুরোটুকু পড়ার মতো ধৈর্য রাখেন। বরং প্রতিবেদন জমা দিয়ে দেওয়ার পর ভোটারদের অনেকেই স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছেন এই ভেবে যে, তদন্ত শেষ হয়েছে।
ডেমোক্র্যাটরা যদি ট্রাম্পের অভিশংসনের জন্য প্রচেষ্টা চালায় তাহলে হারাবার ঝুঁকি যতটা রিপাবলিকানদের থাকবে, ততটাই থাকবে ডেমোক্র্যাটদের। সোপেল স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন, সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন যদিও অসত্য বলেছিলেন তারপরও ২০০০ সালে তিনি যখন অভিশংসিত হন তখন তার প্রতি সমর্থন (অ্যাপ্রুভাল রেটিং) অনেক বেশি ছিল। এর কারণ কিছুটা অর্থনৈতিক। তখন যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতির অবস্থা ভালো ছিল। কিন্তু অপর বিষয়টি হচ্ছে, ডেমোক্র্যাটরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে গিয়েছিল। তারা ভাবছিল, রিপাবলিকানরা নিজেদের দলীয় স্বার্থকে দেশের চেয়ে বেশি প্রাধান্য দিচ্ছে। ঠিক একই ঘটনা ঘটতে পারে ট্রাম্পকে অভিশংসনের দিকে নিয়ে যেতে চাইলে।
বিল ক্লিনটনের সময় ডেমোক্র্যাটরা ভেবেছিল, রিপাবলিকানরা ‘উইচহান্ট’ করছে। এবার রিপাবলিকানরাও তেমনটাই ভাববে। ট্রাম্প নিজেও এতদিন তার বিরুদ্ধে থাকা মুলারের তদন্ত বাধাগ্রস্ত করার অভিযোগের বিষয়ে ‘উইচহান্টের’ দোহাই দিয়ে এসেছেন। ডেমোক্র্যাটরা তার ‘উইচহান্ট’ করতে চাইলে উল্টো তার সমর্থন বেড়ে যেতে পারে। ফলে মুলারের প্রতিবেদনের সারসংক্ষেপ প্রকাশের দিনটি ট্রাম্পের প্রেসিডেন্ট জীবনের শ্রেষ্ঠ দিন হিসেবে হাজির হয়েছে।

জান্তা সরকার এগিয়ে থাইল্যান্ডের সাধারণ নির্বাচনে

Now Reading
জান্তা সরকার এগিয়ে থাইল্যান্ডের সাধারণ নির্বাচনে

থাইল্যান্ডের বহুল আলোচিত নির্বাচনে এগিয়ে রয়েছে সেনা সমর্থিত রাজনৈতিক দল পালাং প্রাচারাত পার্টি (পিপিআরপি)। ২০১৪ সালের সামরিক অভ্যুত্থানের পর প্রথমবারের মতো থাইল্যান্ডে অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনের ফলাফলে এগিয়ে রয়েছে সেনা সমর্থিত দল ‘পালং প্রচারাথ পার্টি। ৯১ শতাংশ ভোট গণনা শেষে প্রায় ৭৩ লাখ ভোট পেয়ে নির্বাচনে অপ্রত্যাশিতভাবে এগিয়ে রয়েছেন ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী প্রায়ুথ চান ও। পিউ থাই পার্টি পেয়েছে ৬৬ লাখ ভোট। একেবারেই নতুন দল ফরওয়ার্ড পার্টি পেয়েছে, ৪৮ লাখ ভোট।
আজকের মধ্যেই পূর্ণাঙ্গ ফল ঘোষণা করা হবে জানিয়েছে দেশটির নির্বাচন কমিশন। এতে আবারো সরকার গঠন করতে যাচ্ছেন সেনাবাহিনীর সাবেক জেনারেল ওচা। ওদিকে পরাজয়ের পর দলীয় প্রধানের পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন বিরোধী ডেমোক্রেট পার্টির নেতা ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী অভিজিত ভেজাজিবা।
থাকসিন সিনাওয়াত্রা ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। ২০০৬ সালে এক সামরিক অভ্যুত্থানে তিনি ক্ষমতাচ্যুত হন। এরপর প্রায় ১০ বছর ধরে তিনি সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ে স্বেচ্ছা নির্বাসনে আছেন। তার বোন ইংলাক সিনাওয়াত্রা পরে থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী হন। ২০১৪ সালে ইংলাককেও ক্ষমতাচ্যুত করে সামরিক বাহিনী। জান্তা সরকারের প্রধানমন্ত্রী হন প্রায়ুথ চ্যান ওচা। সামরিক জান্তা সরকার থাকসিনের দল পিউ চার্ট পার্টিকে ভেঙে দেওয়ার হুমকি প্রদানের পর থাই রাকসা চার্ট পার্টি নামে ছোট পরিসরে আরেকটি দল গড়ে তোলে তারা। থাকসিন নির্বাসনে থাকা অবস্থাতেই দলটিকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

জরুরি সাহায্য ও ১০০ সেনা নিয়ে রাশিয়ার দুটি উড়োজাহাজ ভেনিজুয়েলার রাজধানী কারাকাসে পৌঁছেছে

Now Reading
জরুরি সাহায্য ও ১০০ সেনা নিয়ে রাশিয়ার দুটি উড়োজাহাজ ভেনিজুয়েলার রাজধানী কারাকাসে পৌঁছেছে

ভেনিজুয়েলার রাজধানী কারাকাসে রাশিয়ার বিমানবাহিনীর দুটি উড়োজাহাজ পৌঁছেছে। দুই বিমানে ৩৫ হাজার টন জরুরি সাহায্য ছাড়াও একজন কমান্ডারের নেতৃত্বে ১০০ সৈন্য পাঠিয়েছে রাশিয়া।জানা গেছে, ভেনিজুয়েলার রাজধানী কারাকাসের সাইমন বলিভার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দেশটির পদস্থ সামরিক কর্মকর্তারা রাশিয়ার ত্রাণবহরকে স্বাগত জানিয়েছেন। তবে এই ত্রাণবহরে কী কী পণ্য রয়েছে কিংবা এই বহরে কেন সেনাসদস্য পাঠানো হয়েছে সে সম্পর্কে ভেনিজুয়েলার গণমাধ্যম কিছু জানায়নি।
এর আগে ভেনিজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোর সরকারের প্রতি পূর্ণ সমর্থন ঘোষণা করে রাশিয়া। একইসাথে দেশটিতে হস্তক্ষেপের ব্যাপারে ওয়াশিংটনকে সতর্ক করে দেয় রাশিয়া।
সম্প্রতি ভেনিজুয়েলার বিরোধদলীয় নেতা হুয়ান গুয়াইদো দাবি করেন, আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোর কোনো পৃষ্ঠপোষক নেই। তার ওই বক্তব্যের পর রাশিয়া ভেনেজুয়েলায় সেনাসদস্যসহ দুটি উড়োজাহাজ পাঠালো।

ইয়েমেনে মানবিক সংকটে কয়েক হাজার লোক মারা গেছে

Now Reading
ইয়েমেনে মানবিক সংকটে কয়েক হাজার লোক মারা গেছে

ইয়েমেনে অনেক দিন ধরেই গৃহযুদ্ধ চলছে। আর এই চলমান গৃহযুদ্ধের কারণে মানবিক সংকট চরম আকার ধারণ করেছে। জাতিসংঘ জানিয়েছে সম্প্রতি ইয়েমেনে মানবিক সংকটে কয়েক হাজার লোক মারা গেছে।
ইয়েমেনে হুতি বিদ্রোহী ও সরকার সমর্থক সৈন্যদের মধ্যে এই গৃহযুদ্ধ চলছে। ২০১৫ সালের মার্চ থেকে সৌদি নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে হামলা শুরু করলে যুদ্ধের তীব্রতা বেড়ে যায়।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) জানায়, এই যুদ্ধে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট বাহিনীর যোগদানের পর থেকে ইয়েমেনে প্রায় ১০ হাজার লোক নিহত ও ৬০ হাজারের বেশি আহত হয়েছে। হতাহতদের অধিকাংশই বেসামরিক লোক।
তবে নিহতের সঠিক সংখ্যা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায়নি। নিহতের সংখ্যা এর চেয়ে আরো অনেক বেশি হতে পারে বলে আন্তর্জাতিক ত্রাণ সহায়তাকারী সংস্থাগুলো আশঙ্কা করছে।

দক্ষিণ আফ্রিকায় ঘূর্ণিঝড় ইদাইয়ের তাণ্ডবে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৭৬১

Now Reading
দক্ষিণ আফ্রিকায় ঘূর্ণিঝড় ইদাইয়ের তাণ্ডবে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৭৬১

দক্ষিণ আফ্রিকার কয়েকটি দেশ মোজাম্বিক, মালাওয়ি এবং জিম্বাবুয়েতে প্রাণহানি ৭৬১ জনে দাঁড়িয়েছে। ঘূর্ণিঝড় ইদাইয়ের তাণ্ডবে এই প্রাণহানি ঘটেছে। অসংখ্য মানুষ আহত ও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে সহায়তা নিতে এসেছেন প্রায় এক লাখ ১০ হাজার মানুষ।
মোজাম্বিকের ভূমি ও পরিবেশ মন্ত্রী সেলসো কোরিয়া বলেছেন, ঘূর্ণিঝড়ে মোজাম্বিকে প্রাণহানি বেড়ে ২৪২ থেকে ৪৪৬-তে দাঁড়িয়েছে।
ঘূর্ণিঝড়ের আঘাত শুরু হয় মোজাম্বিকের বন্দর শহর বেইরা থেকে। এতে বাতাসের বেগ ছিল ঘণ্টায় ১৭০ কিলোমিটার। এরপর এটি আঘাত হানে পাশ্ববর্তী দেশ মালাওয়ি এবং জিম্বাবুয়েতে।
ঘূর্ণিঝড় এবং ভারী বর্ষণে জিম্বাবুয়েতে ২৫৯ জন এবং মালাওয়িতে প্রায় ৫৬ জনের প্রাণহানি হয়েছে।
ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ এখন খাদ্য, বাসস্থান এবং পানির ব্যাপক সংকটে রয়েছেন। তবে দেশগুলোর সরকার এবং বিভিন্ন সহায়তা সংস্থা তাদের সাহায্যে কাজ করছে। জাতিসংঘও সাহায্যের আহ্বান জানিয়েছে।

তুরস্ক বিশ্বখ্যাতি অর্জন করবে প্রতিরক্ষা খাতে : এরদোগান

Now Reading
তুরস্ক বিশ্বখ্যাতি অর্জন করবে প্রতিরক্ষা খাতে : এরদোগান

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান বলেন, অনন্য নকশা ও উন্নত প্রযুক্তির মাধ্যমে প্রতিরক্ষা শিল্পে তুরস্ক বিশ্বখ্যাতি অর্জন করবে। শনিবার রাজধানী আঙ্কারায় এক যৌথ নির্বাচনী সমাবেশে তিনি এ মন্তব্য করেন। খবর আনাদুলুর।
২০১৮ সালে তুরস্ক ১৭ শতাংশ মহাকাশযান ও প্রতিরক্ষা শিল্প রফতানি করেছে।
তুরস্কের রফতানি তথ্যানুসারে গত বছর দুই বিলিয়ন ডলার মূল্যের পণ্য রফতানির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে।
তবে বছর শেষে সেই লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে ২.০৩৫ বিলিয়ন ডলার মূল্যের পণ্য রফতানি করা হয়।
তুরস্কে স্থানীয় নির্বাচনের জন্য আগামী ৩১ মার্চ দিন ধার্য করা হয়েছে। আর এ নিয়ে বিভিন্ন দলের নেতারা গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন।
এবারের নির্বাচনে ১২টি দল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে।

বন্দুকধারীদের হামলায় মালিতে নিহত ১৩৪ জন

Now Reading
বন্দুকধারীদের হামলায় মালিতে নিহত ১৩৪ জন

মালি পশ্চিম আফ্রিকার মুসলমান সংখ্যা গরিষ্ঠ একটি দেশ। মালিতে বন্দুকধারীর গুলিতে ফুলানি সম্প্রদায়ের অন্তত ১৩৪ জন নিহত হয়েছেন। যাদের অধিকাংশই পশুপালক। শনিবার মালির স্থানীয় সময় ভোর ৪টার দিকে এই হামলার ঘটনা ঘটে। হামলাকারীদের লক্ষ্য ছিল স্থানীয় ফুলানি ক্ষুদ্রজাতিগোষ্ঠী।

হামলাকারীরা দেশটির ঐতিহ্যবাহী ডনজো শিকারীদের আদলে পোশাক পরে হামলাটি চালিয়েছে বলে জানিয়েছেন মপটির নিকটবর্তী শহর বানকাসের মেয়র মুলাই গুইন্দো।

তিনি জানান, ভোর ৪টার দিকে হামলাকারীরা ওগোসাগো গ্রামের চারদিক ঘেরাও করে হামলা শুরু করে। এরপর তারা নিকটবর্তী আরেক ফুলানি গ্রাম ওয়েলিংগারাতেও হামলা চালায়। হামলকারীরা বন্দুক ও দেশীয় দা, ছুড়ি দিয়ে এই হত্যাকাণ্ড চালায়।

গত সপ্তাহে চালানো এক হামলায় ২৩ সৈন্য নিহতের দায় শুক্রবার স্বীকার করেছে আল কায়েদার অনুগত একটি গোষ্ঠী। ফুলানি গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে মালির সেনাবাহিনী ও মিলিশিয়াদের সহিংসতার জবাব ওই হামলা। আর সেই হামলার পাল্টা জবাবে মিলিশিয়ারা ফুলানি জনগোষ্ঠীর ওপর হামলা চালাতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

লন্ডনের রাস্তায় লাখো লাখো মানুষ বিক্ষোভ করেছে ব্রেক্সিট নিয়ে নতুন করে গণভোটের দাবিতে

Now Reading
লন্ডনের রাস্তায় লাখো লাখো মানুষ বিক্ষোভ করেছে ব্রেক্সিট নিয়ে নতুন করে গণভোটের দাবিতে

লন্ডনের রাস্তায় লাখো লাখো মানুষ বিক্ষোভ করেছে ব্রেক্সিট নিয়ে নতুন করে গণভোটের দাবিতে। ‘পুট ইট টু দ্য পিপল’ ক্যাম্পেইনের আয়োজকেরা বলছেন, পার্লামেন্টের সামনে সমাবেশ শুরুর আগে ১০ লাখের বেশি মানুষ মিছিলে যোগ দেন। বিক্ষোভকারীদের হাতে ছিল প্ল্যাকার্ড ও পতাকা। তাঁদের দাবি, যেকোনো ব্রেক্সিট চুক্তির জন্য গণভোট করতে হবে। অনেকেরই দাবি, লন্ডনে শতাব্দীর সবচেয়ে বড় বিক্ষোভ এটি। যাতে ছিলেন, লেবার পার্টির উপপ্রধান নেতা টম ওয়াটসন, স্কটল্যান্ডের ফার্স্ট মিনিস্টার নিকোলা স্টারজন ও লন্ডনের মেয়র সাদিক খান।
গত বৃহস্পতিবার রাতে প্রায় আট ঘণ্টা বৈঠক করেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) নেতারা। ব্রেক্সিট সম্পন্ন করার জন্য দুই সপ্তাহ সময় বাড়িয়ে দিয়েছে ইইউ। ফলে, ব্রেক্সিটের জন্য নতুন সময় নির্ধারিত হয়েছে আগামী ১২ এপ্রিল। ব্রেক্সিট চুক্তি নিয়ে তৃতীয় দফা ভোট হবে না বলে জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। এরপর পদত্যাগ করার জন্য তাঁকে চাপ দেওয়া হয়।
বিক্ষোভ মিছিলে বক্তব্য দেন লেবার পার্টির উপনেতা টম ওয়াটসন, স্কটল্যান্ডের মুখ্যমন্ত্রী নিকোলা স্টার্জন, লন্ডনের মেয়র সাদিক খান ও সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ডমিনিক গ্রিভ।
২০০৩ সালের যুদ্ধবিরোধী মিছিলকে শতাব্দীর সবচেয়ে বড় মিছিল হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। ব্রেক্সিট ইস্যুতে বের করা এই মিছিল সে রেকর্ড ভাঙতে পারে।
ঘটনাস্থল থেকে বিবিসির প্রতিনিধি রিচার্ড লিস্টার জানান, মিছিল শুরু হওয়ার পাঁচ ঘণ্টা পরেও পার্লামেন্ট স্কয়ারে আসছেন প্রতিবাদকারীরা। ঠাসাঠাসি করে রাস্তায় জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করছেন তাঁরা। আয়োজকদের বরাতে রিচার্ড লিস্টার জানান, ১০ লাখেরও বেশি বিক্ষোভকারী মিছিলে অংশ নিয়েছেন।
থেরেসা মের চুক্তিকে ‘যাচ্ছেতাই’ বলেছেন টম ওয়াটসন। সমবেত জনতার উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছেন। জনগণের হাতে ক্ষমতা তুলে দেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।
বেলা একটায় মিছিল বের হওয়ার কথা ছিল। পার্ক লেনের রাস্তাগুলো বেশ কয়েক ঘণ্টা আগে থেকেই লোকে লোকারণ্য হয়ে ওঠে। দেশের আনাচকানাচ থেকে মানুষ এসে জড়ো হন। মিছিলে ছিল ইইউয়ের লোগোর নীল আর হলুদ রং। মিছিলে ছিলেন সাধারণ মানুষ। ছিল রাজনৈতিক দলগুলোও। ঘর থেকে প্ল্যাকার্ড লিখে আনেন তাঁরা। ব্রেক্সিট বিষয়ে সচেতন হতে বলেন। ব্রেক্সিটকে বিশ্বাসঘাতক বলেন।
ইইউ থেকে বের না হওয়ার দাবিতে ঝাঁজালো সব স্লোগানে তেতে ওঠে রাজপথ। এই মিছিলকে একধরনের উৎসব বলে মনে করেছেন কয়েকজন। মিছিলে ছিল বাজনা–গান। তারকাদের মধ্যে ছিলেন ‘গেম অব থ্রোনস’ তারকা লিনা হিডি, উপস্থাপক ক্লডিয়া উইংকেলম্যান এবং নিল ট্যানেন্ট। অংশগ্রহণকারী ব্যক্তিরা বলেন, ‘আমরা কী চাই?’ উত্তর আসে ‘ভোট’। আবার বলা হয়, ‘কখন ভোট চাই?’ উত্তর আসে ‘এখন’।
মিছিলে মেয়র সাদিক খান জনগণের হাতে ক্ষমতা তুলে দেওয়ার দাবিতে ব্যানার নিয়ে দাঁড়িয়ে পড়েন।
তবে পার্লামেন্টে রক্ষণশীল দলের সদস্য জন রেডউড বিবিসিকে বলেন, ‘আমরা জানি, ১ কোটি ৬০ লাখ মানুষ ইইউয়ে থাকার পক্ষে ছিল। অনেকেই এখনো আগের সিদ্ধান্তে অটল। কেউ কেউ গণভোটের কথা বলছেন। সংখ্যায় তাঁরা কম। এই ভোট যতবারই নেওয়া হোক না কেন, কোনো সিদ্ধান্তে আসা যাবে না।
সংবিধানের ৫০ নম্বর অনুচ্ছেদ বাদ দিয়ে ব্রেক্সিট চুক্তি বাতিলের দাবিতে রেকর্ডসংখ্যক আবেদন জমা পড়েছে পার্লামেন্টের ওয়েবসাইটে। এই দাবির পক্ষে ৪০ লাখ মানুষ সই করেছেন। উদ্যোক্তা মার্গারেট বলেছেন, তাঁকে ফোনে তিনবার প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়েছে।

নরেন্দ্র মোদি ও মমতা ব্যানার্জি স্বৈরশাসক স্টাইলে চলেন, বললেন রাহুল গান্ধী

Now Reading
নরেন্দ্র মোদি ও মমতা ব্যানার্জি স্বৈরশাসক স্টাইলে চলেন, বললেন রাহুল গান্ধী

রাহুল গান্ধী ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির কঠোর সমালোচনা করলেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি স্বৈরশাসক স্টাইলে চলেন। উভয় নেতাই জনগণকে মিথ্যা প্রতিশ্রতি দিচ্ছেন। জনগণের কথা কেউই শোনেন না, বললেন রাহুল গান্ধী। শনিবার পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মালদহের চাঁচলে এক নির্বাচনী সভায় এভাবেই মোদি ও মমতাকে বিদ্ধ করলেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। ২০১৬ সালের এপ্রিলের পর এটাই পশ্চিমবঙ্গে রাহুলের প্রথম নির্বাচনী সমাবেশ। খবর দ্য হিন্দুস্তান টাইমসের।
এদিন দুপুরে বিহারে জনসভা করার পর মালদহের চাঁচলে আসেন রাহুল। এ সভামঞ্চে উপস্থিত ছিলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র, দীপা দাসমুন্সি, আবু হাসেন খান চৌধুরী, মালদহ উত্তরের কংগ্রেস প্রার্থী ঈশা খান চৌধুরী, গৌরব গগৈসহ নেতাকর্মীরা। চাঁচলের সভায় একই সঙ্গে মোদি ও মমতাকে নিশানা বানান রাহুল। উভয়ের শাসন ব্যবস্থাকে স্বৈরতান্ত্রিক বলে অভিযোগ তোলেন তিনি।
কংগ্রেস সভাপতি বলেন, ‘একদিকে নরেন্দ্র মোদি মিথ্যা বলেন। অন্যদিকে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী প্রতিশ্রুতির পর প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু এখানে কিছুই হওয়ার নয়। বাংলায় একনায়কতন্ত্র চলছে, জনগণের কথা কেউ শোনে না।’
একই সঙ্গে তার প্রশ্ন, ‘একজনের কথায় কি সব চলবে? কারও কথা শোনা হবে না? মোদি-মমতা কারও কথা শোনে না। কৃষকরা ঋণ মওকুফের দাবি তোলেন, মানেন না মোদি-মমতা।’
তিনি আরও বলেন, ‘আগে আপনারা বামফ্রন্টের হাতে মার খেতেন। এখনও মমতা ব্যানার্জির তৃণমূল কংগ্রেসের রাজত্বে আপনারা দুঃখে আছেন।’ প্রধানমন্ত্রী মোদিরও তীব্র সমালোচনা করেন রাহুল।
তার কথায়, ‘বিজেপি-আরএসএস যেখানেই যায় সেখানেই ঘৃণার রাজনীতি করে। সারা দিন মিথ্যা বলেন নরেন্দ্র মোদি। সাধারণ মানুষের টাকা চুরি করে অনিল আম্বানির পকেটে ভরেন মোদি।’
পাশাপাশি কংগ্রেস কর্মীদের উদ্দেশ্য করে রাহুল বলেন, ‘এখানে আমাদের পুরনো প্রার্থী আপনাদের ধোকা দিয়েছেন, কংগ্রেসের দুর্গে এসে কংগ্রেসকে ধোকা দিয়েছেন। এ ধোকা আপনারা ভুলবেন না।
আপনারা মমতাকে জেতালেন। যে অত্যাচার সিপিএমের (কমিউনিস্ট পার্টি মার্কসিজম) সময়ে হতো, আজও সেই অত্যাচার চলছে।’ ২০১৪ সালের নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গের ৪২টি আসনের মধ্যে মাত্র ৬টিতে জয় পেয়েছিল কংগ্রেস।
ওয়ানাদেও লড়বেন রাহুল : লোকসভায় উত্তরপ্রদেশের আমেথি শুধু নয়, কেরালার ওয়ানাদ আসন থেকেও লড়বেন রাহুল গান্ধী। কেরালা কংগ্রেস সূত্র শনিবার এ খবর দিয়েছে।
এনডিটিভি জানায়, কেরালা ছাড়াও কর্নাটক ও তামিলনাড়ু রাজ্যের আসন থেকে প্রার্থী হওয়ার জন্য রাহুলকে অনুরোধ জানানো হয়। তামিলনাড়ু কংগ্রেস কমিটি কন্যাকুমারী থেকে রাহুলকে লড়াইয়ের প্রস্তাব দিয়েছিল। কিন্তু তা আর হচ্ছে না।
কারণ ওই আসনে এমএলএ এইচ বসন্তকুমারকে প্রার্থী করেছে কংগ্রেস। কেরালা কংগ্রেস কমিটি বলছে, রাজ্য থেকে প্রার্থী হওয়ার জন্য আমাদের কথা দিয়েছেন রাহুল। দলের মুখপাত্র রণদীপ সূর্যেওয়ালা বলেন, কেরালা কংগ্রেসের প্রস্তাবটি বিবেচনা করে দেখছেন রাহুল।

ট্রাম্প নতুন নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলেন উ.কোরিয়ার উপর থেকে

Now Reading
ট্রাম্প নতুন নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলেন উ.কোরিয়ার উপর থেকে

গত শুক্রবার হঠাৎ করেই নতুন নিষেধাজ্ঞা বাতিলের ঘোষণা দিয়েছেন ট্রাম্প। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প উত্তর কোরিয়ার ওপর আন্তর্জাতিক চাপ জোরদারে তার নিজ দেশের অর্থ বিভাগের আরোপ করা নতুন নিষেধাজ্ঞা বাতিল করেছেন। মার্কিন প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র সারাহ স্যান্ডার্স বলেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প চেয়ারম্যান কিমকে পছন্দ করেন এবং তিনি মনে করছেন না যে এসব অবরোধের দরকার আছে।
এ বিষয়ে টুইটারে দেয়া এক বার্তায় ট্রাম্প বলেন, ‘মার্কিন অর্থ বিভাগের আজকের ঘোষণায় বলা হয় যে অতিরিক্ত কঠোর নিষেধাজ্ঞা উত্তর কোরিয়ার ওপর ইতোমধ্যে বিদ্যমান নিষেধাজ্ঞাগুলোর সাথে যুক্ত করা হবে। এসব অতিরিক্ত নিষেধাজ্ঞা আমি আজ প্রত্যাহার করে নেয়ার নির্দেশ দিয়েছি।’

Page Sidebar