5
New ফ্রেশ ফুটপ্রিন্ট
 
 
 
 
 
ফ্রেশ!
REGISTER

যুক্তরাষ্ট্র ভারতে ছয়টি পরমাণু বিদ্যুৎ চুল্লি স্থাপনের ঘোষণা দিয়েছে

Now Reading
যুক্তরাষ্ট্র ভারতে ছয়টি পরমাণু বিদ্যুৎ চুল্লি স্থাপনের ঘোষণা দিয়েছে

নিরাপত্তা ও বেসামরিক পরমাণু সহযোগিতা আরও জোরদার করতে সম্মত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও ভারত। ভারতে ছয়টি পরমাণু বিদ্যুৎ চুল্লি স্থাপনের ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ওয়াশিংটনে ভারতের সঙ্গে দু’দিনের বৈঠক শেষে এ ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। বুধবার উভয় দেশের এক যৌথ বিবৃতিতে এ কথা জানানো হয়েছে। দুই দেশের যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়েছে, অসামরিক পরমাণু চুক্তি উভয় দেশের সম্পর্ককে আরো মজবুত করবে।

ভারতের সঙ্গে বেসামরিক পরমাণু সহযোগিতা আরো জোরদার করতে সম্মত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা বিষয়ক আন্ডার সেক্রেটারি অ্যান্ড্রু থমসনের সঙ্গে ভারতের পররাষ্ট্র সচিব বিজয় গোখালের আলোচনা ফলপ্রসূ হয়েছে। ওই সংলাপে ভারতে যুক্তরাষ্ট্রের পরমাণু বিদ্যুৎ চুল্লি নির্মাণের ব্যাপারে ঐকমত্যে পৌঁছেছেন তারা।

একদশকের বেশি সময় ধরে জ্বালানি-ক্ষুধার্ত ভারতে মার্কিন পরমাণু চুল্লি সরবরাহে দুই দেশ আলোচনা করে আসছিল। কিন্তু আন্তর্জাতিক বাধ্যবাধকতা অনুসারে ভারতীয় নীতি প্রণয়নে দীর্ঘস্থায়ী বাধার কারণে এমনটি ঘটছিল না। আন্তর্জাতিক নীতি অনুসারে পরমাণু চুল্লির যেকোনো দুর্ঘটনার দায় সেটির নির্মাণকারীদের ওপর না নিয়ন্ত্রণকারীদের ওপরই চাপবে।

বহুবছর ধরে ভারতে চুল্লি নির্মাণে আলোচনা চালিয়ে আসছে পিটসবার্গভিত্তিক ওয়েসটিংহাউস। কিন্তু ভারতের পরমাণু দায় আইনের কারণে আলোচনার অগ্রগতি ছিল খুবই ধীর। যুক্তরাষ্ট্রের পরমাণু চুল্লির খরচ অতিরিক্ত ছাড়িয়ে যাওয়ায় ২০১৭ সালে ওয়েসটিংহাউসের বিরুদ্ধে দেউলিয়া মামলা হলে প্রকল্পটি অনিশ্চয়তায় পড়ে যায়।

কানাডার ব্রুকফিল্ড অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট ২০১৮ সালের আগস্টে তোশিবা থেকে ওয়েসটিংহাউসকে কিনে নেয়। গত বছরের এপ্রিলে মার্কিন জ্বালানিমন্ত্রী রিক পেরির কাছ থেকে ভারতীয় প্রকল্পের জন্য জোরালো সমর্থন পায় ওয়েসটিংহাউস। এতে অন্ধ্রপ্রদেশে ছয়টি এপি১০০০ চুল্লি নির্মাণের কথা বলা হয়েছে।

২০১৬ সালে এই পরমাণু চুল্লি নির্মাণের ঘোষণা দেয়া হয়েছিল। পরে ২০০৮ সালে ভারতের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র বেসামরিক পরমাণু চুক্তিতে সই করে। জীবাশ্ম জ্বালানির দূষণ থেকে অর্থনীতিকে বাঁচাতে এশিয়ার তৃতীয় বৃহৎ অর্থনীতি ভারত ২০১৪ সালের মধ্যে তার পরমাণু বিদ্যুৎ সক্ষমতা তিন গুণ করতে চায়। গত বছর অক্টোবরে নয়াদিল্লিতে রাশিয়ার কর্মকর্তাদের সঙ্গে সম্মেলনের পর একটি নতুন জায়গায় ছয়টি পরমাণু চুল্লি নির্মাণে চুক্তি করেছিল ভারত।

দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য জোরদারে ইরাক ও ইরানের প্রেসিডেন্ট

Now Reading
দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য জোরদারে ইরাক ও ইরানের প্রেসিডেন্ট

তিন দিনের সফরে সোমবার ইরাক পৌঁছেছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি। ২০১৩ সালে প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব গ্রহণের পর এই প্রথম তিনি ইরাক গেলেন। ইরাকের প্রেসিডেন্ট বারহাম সালিহ ও প্রধানমন্ত্রী আদিল আব্দুল মাহদির আমন্ত্রণে তিনি এ সফরে যান। সফরে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য জোরদারে একমত হন দুই দেশের নেতারা।

সোমবার অর্থনৈতিক ও স্বাস্থ্য খাতে দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতা শক্তিশালী করার লক্ষ্যে পাঁচটি সমঝোতা স্মারকে উপনীত হয়েছে দুই দেশ। ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি ও ইরাকি প্রধানমন্ত্রী আদেল আব্দুল-মাহদির উপস্থিতিতে বাগদাদে এসব সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন উভয় দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা।

সমঝোতা অনুযায়ী বাণিজ্য, স্বাস্থ্যসেবা ও তেল শিল্প খাতে সহযোগিতা জোরদার করবে তেহরান ও বাগদাদ। একইসঙ্গে দুই দেশ ইরানের দক্ষিণাঞ্চলীয় শালামচে শহর ও ইরাকের বসরা নগরীর মধ্যে রেল যোগাযোগ স্থাপনে সম্মত হয়েছে।

ইরাক ও ইরান সরকার উভয় দেশের নাগরিকদের জন্য বিনামূল্যে ভিসা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এটি আগামী মাস থেকে কার্যকর হবে। আরেকটি সমঝোতা স্মারক অনুযায়ী ইরানের শিল্প, বাণিজ্য ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে ইরাকের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় দ্বিপক্ষীয় ব্যবসার সুযোগ বাড়াতে কাজ করবে।
এমন সময় এ সফর অনুষ্ঠিত হচ্ছে যখন মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের প্রভাব কমাতে কাজ করছে ওয়াশিংটন।

তালেবান নেতা মোল্লা ওমর মার্কিন সেনাদের নাকের ডগাতেই ছিলেন

Now Reading
তালেবান নেতা মোল্লা ওমর মার্কিন সেনাদের নাকের ডগাতেই ছিলেন

আফগান তালেবান নেতা মোল্লা ওমরকে ধরিয়ে দেয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্র পুরস্কার ঘোষণা করলেও তিনি স্বাভাবিক মৃত্যুর আগ পর্যন্ত মার্কিন সেনাদের নাকের ডগাতেই ছিলেন। কিন্তু মার্কিন সেনারা তাকে ধরতে ব্যর্থ হয়েছেন।

হল্যান্ডের অনুসন্ধানি সাংবাদিক বেট্টে ড্যামের লেখা ‘দ্যা সিক্রেট লাইফ অব মোল্লা ওমর’ বইয়ে এই চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশিত হয়েছে। বইটিতে বলা হয়েছে, মোল্লা ওমর পাকিস্তানে পালিয়ে গেছেন বলে যুক্তরাষ্ট্র দাবি করে আসলেও তিনি কখনও পাকিস্তানে আত্মগোপন করেননি। এর পরিবর্তে মোল্লা ওমর তার নিজ প্রদেশ জাবুলে অবস্থিত একটি বড় মার্কিন সামরিক ঘাঁটি থেকে তিন মাইল দূরে বসবাস করেছেন। তালেবান নেতাদের সাক্ষাৎকার নেয়া ও তাদের ওপর গবেষণার কাজে পাঁচ বছর সময় ব্যয় করে বইটি লিখেছেন ড্যাম।

২০০১ সালে আফগানিস্তানে তালেবান সরকারের পতনের পর আত্মগোপনে চলে যান মোল্লা ওমর। সে সময় তালেবান নেতার দেহরক্ষীর দায়িত্ব পালনকারী জাব্বার ওমরির সঙ্গে কথা বলতে সক্ষম হয়েছিলেন বেট্টে ড্যাম। ২০১৩ সালে অসুস্থতার জেরে স্বাভাবিক মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তালেবান নেতাকে লুকিয়ে রাখতে সক্ষম হয়েছিলেন ওমরি।

২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বরের সন্ত্রাসী হামলার তিন মাসেরও কম সময়ের মধ্যে আফগানিস্তানে তালেবান সরকারকে উৎখাত করে যুক্তরাষ্ট্র। মোল্লা ওমরের মাথার দাম এক কোটি ডলার ঘোষণা করে ওয়াশিংটন। কিন্তু তা সত্ত্বেও মার্কিন সেনাদের নাকের ডগায় অবস্থিত একটি বাড়িতে ১২ বছর অবস্থান করেন মোল্লা ওমর। বইটিতে বলা হয়েছে, একবার মার্কিন সেনারা ওই বাড়িটিতে তল্লাশিও চালিয়েছিল কিন্তু তারা তালেবান নেতাকে খুঁজে পায়নি।

যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধ করার দাবি করলেও বেশিরভাগ সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর জন্মদাতা ও পালনকর্তা হিসেবে ওয়াশিংটনের কুখ্যাতি রয়েছে। আফগানিস্তানে মার্কিন সামরিক ঘাঁটি থেকে পায়ে হাঁটা দূরত্বে দীর্ঘ একযুগ ধরে তালেবান নেতার বসবাসের এই চাঞ্চল্যকর তথ্য সেই অভিযোগের সত্যতা প্রমাণ করে।

আত্মগোপনে থাকার সময়ে মোল্লা ওমরের পক্ষে তালেবান গোষ্ঠীকে পরিচালনা করা সম্ভব হয়নি বলে জাব্বার ওমরি জানিয়েছেন; যদিও তালেবান জঙ্গিরা সে সময় দাবি করত তারা মোল্লা ওমরের নির্দেশে কাজ করছেন।

বেট্টে ড্যামের লেখা বইটি গতমাসে ডাচ ভাষায় প্রকাশিত হয়েছে এবং শিগগিরই এর ইংরেজি ভার্সন বাজারে আসবে বলে এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

Page Sidebar