কবির হত্যা মামলার পলাতক আসামী কামাল হোসেন গ্রেফতার

Now Reading
কবির হত্যা মামলার পলাতক আসামী কামাল হোসেন গ্রেফতার

রাজধানীর কদমতলী এলাকার কবির হত্যা মামলার পলাতক আসামি মো. কামাল হোসেন ওরফে টিকটিকি কামালকে (৩৬) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। পিবিআই জানিয়েছে, ভুক্তভোগী কবির হোসেন ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার আবদুল জলিলের ছেলে। সে ঢাকার কদমতলি এলাকার ২১নং রজ্জব আলী সরদার রোডের একটি বাসায় ভাড়া থাকত। দীর্ঘদিন ধরে পরিবারের সঙ্গে তার কোনো যোগাযোগ ছিল না।
গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় জুরাইন মেডিকেল রোড এলাকা থেকে কামালকে গ্রেপ্তার করা হয়। পিবিআই বিশেষ পুলিশ সুপার আবুল কালাম আজাদ গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
২০০৯ সালে ১৭ জুন কবির হোসেনকে (২৫) কদমতলী এলাকার মুরাদপুর মাদ্রাসা রোড এলাকায় সন্ত্রাসীরা গুলি চালিয়ে হত্যা করে। এই ঘটনায় তার ভাই নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে একটি মামলা করেন।
কদমতলি এলাকায় সব শ্রেণির মানুষের সঙ্গে তার চলাফেরা ছিল কবিরের। ২০০৯ সালের ১৭ই জুন রাত ৯টায় এলাকার একটি ট্রাকের গ্যারেজে দুর্বৃত্তরা তাকে গুলি করে পালিয়ে যায়। পরে কদমতলি থানা পুলিশ এসে কবিরের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়।
তার বড় ভাই বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে কদমতলী থানায় হত্যা মামলা করেন। এ ঘটনায় টিকটিকি কামালকে প্রধান আসামি ও সে পলাতক রয়েছে বলে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। আদালত মামলাটি ফের তদন্তের জন্য মহানগর গোয়েন্দা পুলিশকে (ডিবি) নির্দেশ দেন। ডিবি আরো কিছুদিন মামলার তদন্ত করে প্রায় একই প্রতিবেদন জমা দেয়। কিন্তু আদালত তদন্তে সন্তুষ্ট না হয়ে অধিকতর তদন্তের জন্য পিবিআইকে নির্দেশ দেন। পিবিআই ঢাকা মেট্রো উত্তরের পরিদর্শক মো. কামাল হোসেন এই মামলার তদন্তভার গ্রহণ করেন। পিবিআই সূত্রে জানা গেছে, তদন্ত কর্মকর্তা কামাল হোসেন তদন্তভার পাওয়ার পর হত্যা রহস্য উদঘাটনের জন্য ব্যাপক তৎপরতা শুরু করেন। তিনি জানতে পারেন এই হত্যাকাণ্ডে টিকটিকি কামালের সম্পৃক্ততা রয়েছে। কিন্তু কামাল পলাতক থাকায় তাকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হচ্ছিল না। পরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ও পিবিআই প্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদারের নির্দেশনায় পলাতক আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়।