5
New ফ্রেশ ফুটপ্রিন্ট
 
 
 
 
 
ফ্রেশ!
REGISTER

১৩৩টি ভবনের পরিষেবা বিচ্ছিন্ন করা হলো ১১ দিনে

Now Reading
১৩৩টি ভবনের পরিষেবা বিচ্ছিন্ন করা হলো ১১ দিনে

টাস্কফোর্সের রাসায়নিক গুদাম উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত আছে। পুরান ঢাকার চুড়িহাট্টায় ভয়াবহ আগুনের পর এই গুদাম উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত আছে। পাঁচটি ভবনের পরিষেবা (গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানির লাইন) বিচ্ছিন্ন করা হয় গতকাল মঙ্গলবার অভিযানে । এই বিচ্ছিন্ন অভিযানে এ নিয়ে ১৩৩টি ভবনের পরিষেবা বিচ্ছিন্ন করা হলো গত ১১ দিনে।
এদিকে গতকাল দুপুরে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করেপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র মোহম্মদ সাঈদ খোকন ফের পুরান ঢাকার কেমিক্যাল ও প্লাস্টিক কারখানার মালিক ব্যবসায়ীদের সঙ্গে মতবিনিময় ও আলোচনাসভা করেছেন। টাস্কফোর্স সূত্রে জানা যায় গতকাল ডিএসসিসির টাস্কফোর্সের চারটি টিম চারটি এলাকায় কেমিক্যালের গুদামে অভিযান চালায়। এলাকাগুলো হলো চকবাজার, বকশীবাজার, হাজারীবাগ ও লালবাগ।
টাস্কফোর্সের অভিযানে এ পর্যন্ত ১১ দিনে মোট ১৩৩টি ভবনের পরিষেবা বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডিএসসিসির জনসংযোগ কর্মকর্তা উত্তম কুমার রায়। নির্দেশনা মানায় নতুন করে পরিষেবা সংযোগ স্থাপন করা হয়েছে ১৬টির। এ ছাড়াও এক লাখ টাকা জরিমানা ও একজনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।
মেয়র সাঈদ খোকন ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বললেন চুড়িহাট্টা ও নিমতলীর মতো দুর্ঘটনা রোধকল্পে জানমালের নিরাপত্তা রক্ষায় নিজ নিজ কারখানা ও গুদামে পানি, বালু, অগ্নিনির্বাপণব্যবস্থা বাধ্যতামূলকভাবে রাখার জন্য। গতকাল টাস্কফোর্সের অভিযান নিয়ে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে মতবিনিময়সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাখতে গিয়ে ইসলামবাগ ঈদগাহ মাঠে তিনি এ কথা বলেন। আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের মাধ্যমে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে বলেও তিনি মন্তব্য করেন। তবে প্লাস্টিকের দানা ও চিপস, পিভিসি (পলিভিনাইল ক্লোরাইড) রিসাইকেল প্লাস্টিক চিপস, টেক্সটাইল পিগমেন্ট, বিভিন্ন মেটালিক অক্সাইড ইত্যাদি অতিমাত্রায় দাহ্য ও বিপজ্জনক পদার্থ তালিকাভুক্ত নয় বিধায় এসব প্রতিষ্ঠানকে টাস্কফোর্সের অভিযানের আওতাবহির্ভূত ঘোষণা করার কথা জানান মেয়র। কোনো কারখানা ও গুদামে জানমালের নিরাপত্তার জন্য বিপজ্জনক এমন দাহ্য পদার্থ পাওয়া গেলে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।
উক্ত আলোচনাসভায় উপস্থিত ছিলেন ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান ও বিভিন্ন ব্যবসায়ী প্রতিনিধিরা। আলোচনাসভায় অন্যদের মধ্যে সভাপতিত্ব করেছেন স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাজি মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বাবুল।

ডোপ টেস্ট করা হবে মাদকাসক্তে সন্দেহভাজন পুলিশ সদস্যদের

Now Reading
ডোপ টেস্ট করা হবে মাদকাসক্তে সন্দেহভাজন পুলিশ সদস্যদের

পুলিশের মহাপরিদর্ক (জেআইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী জানিয়েছেন, মাদকাসক্তে সন্দেহভাজন পুলিশ সদস্যদের ডোপ টেস্ট করা হবে। আগামীতে যে পুলিশ সদস্যের আচার-ব্যবহার ও অন্যান্য লক্ষণ দেখে সন্দেহ হবে, তাকেই ডোপ টেস্টের মুখোমুখি হতে হবে বলে তিনি জানিয়েছেন। কিছুদিনের মধ্যে এমন উদ্যেগই নেওয়া হয়েছে। বিষয়টি জানিয়ে পুলিশের সব ইউনিট প্রধানকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন রাজশাহী পুলিশ লাইনে নারী ব্যারাক ভবনের উদ্বোধন শেষে ।

জনগণের সেবা সুনিশ্চিত করতে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনী সব সময় কাজ করে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন জাবেদ পাটোয়ারী। কাজেই পুলিশ বাহিনীর অভ্যন্তরীণ সংস্কার শুরু হয়েছে। কেউ যেন হয়রানির শিকার না হন থানায় আইনি সেবা বা সহায়তা পেতে এসে সে বিষয়েও সজাগ থাকতে বলা হয়েছে।

এ ছাড়াও সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিতে পুলিশের অভ্যন্তরীণ সেবাও বাড়ানো হয়েছে বলে সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে বললেন আইজিপি। যুগের সঙ্গে বিবেচনা করে যখন যে ইউনিট প্রয়োজন তা গঠন করা হচ্ছে। এছাড়া নিয়মের মধ্যে পড়লে বিভিন্ন ইউনিটের অন্য চাহিদাগুলোও পূরণ করা হচ্ছে।

এর আগে রাজশাহী পুলিশ লাইনে বাংলাদেশ পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতির কার্যালয় উদ্বোধন করেন আইজিপি পত্নী হাবিবা জাবেদ।

সম্প্রচার করা হবে বঙ্গবন্ধু ১ স্যাটেলাইটের মাধ্যমে, বাংলাদেশের সব টিভি চ্যানেল

Now Reading
সম্প্রচার করা হবে বঙ্গবন্ধু ১ স্যাটেলাইটের মাধ্যমে, বাংলাদেশের সব টিভি চ্যানেল

বাংলাদেশের সব টেলিভিশনের চ্যানেলের সম্প্রচার বঙ্গবন্ধু ১ স্যাটেলাইটের মাধ্যমে হবে আগামী ১২ মে’র মধ্যে। একথা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।
আজ সোমবার সচিবালয়ে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল মালিকদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব টিভি চ্যানেল ওনারসের সাথে এক বৈঠকে তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা জানান।
১২ মে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের এক বছর পূর্তি হবে বলে মন্তব্য করেন তথ্যমন্ত্রী। বাংলাদেশের সব টেলিভিশন চ্যানেল বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে সম্প্রচারের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে ১২ মে’র মধ্যে। তিন মাস বিনামূল্যে সেবা দেবে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট কর্তৃপক্ষ ।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, ১২ মে নাগাদ তারা ফাইবার অপটিক ক্যাবলের মাধ্যমে গাজীপুরের সজীব ওয়াজেদ গ্রাউন্ড স্টেশনে নিয়ে যাবে, সেখান থেকে আপলিঙ্ক করবে এবং আবার ডাউনলিঙ্ক করবে সেজন্য বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।
‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট কর্তৃপক্ষ সবার সঙ্গে আলোচনা করে (সেবার) দর নির্ধারণ করবে’ বলেন হাছান মাহমুদ।
বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট থেকে সম্প্রচারে গেলে দেশের অর্ বিদেশে যাবে না এবং খরচও অর্ধেক কমে যাবে বলে মন্তব্য করেন অ্যাটকোর চেয়ারম্যান সালমান এফ রহমান। বিদেশি টেলিভিশনে দেশি বিজ্ঞাপন প্রচার ঠেকাতে নীতিমালা বাস্তবায়নে জোর দেওয়া হবে বলেও তিনি জানান।
অনুষ্ঠানে বিভিন্ন বেসরকারি চ্যানেলের মালিকের পাশাপাশি উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, তথ্য সচিব আব্দুল মালেক, বাংলাদেশ কমিউনিকেশন্স স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের (বিসিএসসিএল) চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ সহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

সবকিছু ঠিক থাকলে আগামিকাল আইসিইউ থেকে কেবিনে স্থানান্তর করা হবে কাদেরকে

Now Reading
সবকিছু ঠিক থাকলে আগামিকাল আইসিইউ থেকে কেবিনে স্থানান্তর করা হবে কাদেরকে

গত ৩ মার্চ ভোরে হঠাৎ করে বিএসএমএমইউতে নিয়ে যাওয়া হয় ওবায়দুল কাদেরের শ্বাসপ্রশ্বাসের সমস্যা দেখা দিলে। তার হার্টে তিনটি ব্লক ধরা পড়ে এনজিওগ্রাম করার পর । তাৎক্ষণিকভাবে একটি ব্লকে রিং পরানো হলেও বাকি দুইটাতে কিছু করা হয়নি। পরক্ষনে দুপুরেই ভারত থেকে হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. দেবী প্রসাদ শেঠিকে ঢাকায় উড়িয়ে আনা হয় তার শারীরিক অবস্থার আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও করণীয় ঠিক করতে । সেদিন সন্ধ্যা উন্নত চিকিৎসার জন্য ওবায়দুল কাদেরকে সিঙ্গাপুর পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় ডা. দেবী শেঠির পরামর্শ অনুযায়ী এবং সেদিন রাতে একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করে ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসা শুরু করেন মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালের বিকিৎসকরা। বর্তমানে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ওবায়দুল কাদের ।
স্বাস্থের আরও উন্নতি হয়েছে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের। চিকিৎসার অংশ হিসেবে সীমিত পর্যায়ে হাঁটা শুরু করেছেন বলে জানা গেছে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন কাদের।
আজ সাড়ে ১১টার দিকে চিকিৎসকরা উনাকে বিছানা থেকে উঠিয়ে চেয়ারে বসান। পরে স্ত্রীর সঙ্গে তার কথাও হয় বলে জানা গেছে।
সবকিছু ঠিক থাকলে আগামীকাল মঙ্গলবার সকালে আইসিইউ থেকে কেবিনে স্থানান্তর করা হবে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।
আজ সোমবার গণমাধ্যমকে ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসা সংক্রান্ত এ তথ্য জানান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক ও নিওরোলজিস্ট প্রফেসর ডা. আবু নাসার রিজভী।
বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতু বিভাগের উপ-প্রধান তথ্য কর্মকর্তা আবু নাছের । ওবায়দুল কাদের সকালে পরিবারের সদস্য, সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরী ও আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন বলেও তিনি জানিয়েছেন।
কার্ডিও থোরাসিক সার্জন ডা. সিবাস্টিন কুমার সামি ওবায়দুল কাদেরের সবশেষ অগ্রগতি পরিবারের সদস্যদের এ তথ্য জানান।

বহিষ্কার করা যেন আর থামছে না বিএনপির

Now Reading
বহিষ্কার করা যেন আর থামছে না বিএনপির

গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ সংসদ নির্বাচনে ভরাডুবির পর উপজেলা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে না বলে ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। কিন্তু এ ধরনের ঘোষণার পরেও দলটির তৃণমূলের নেতারা তা শুনছেন না। বিএনপির একাধিক নেতা সতন্ত্র থেকে পার্থী হয়েছেন কয়েকটি উপজেলায়। এতে নিঃসন্দেহে দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করেছেন দলটির অনেক নেতাবৃন্দ। এবং তাদেরকে একের পর এক বহিঃষ্কার করে যাচ্ছেন বিএনপি। বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের অন্তত শতাধিক উপজেলা পর্যায়ের নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার করেছেন গত এক সপ্তাহের মধ্যে। আরো শতাধিক নেতা বহিষ্কারের তালিকায় রয়েছে। পর্যায়ক্রমে তাদেরকেও বহিষ্কার করা হবে বলে জানিয়েছেন। এনিয়ে কিছু নেতাকর্মীর মাঝে বহিষ্কার আতঙ্ক দেখা দিলেও অধিকাংশই পরোয়া করছেন না বলে জানা গেছে। দলটি কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছিল, কেউ এই নির্বাচনে অংশ নিলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কিন্তু দলীয় নির্দেশ উপেক্ষ করে অনেকেই নির্বাচনে প্রার্থী তো হইয়েছেন, সেই সাথে পছন্দের প্রার্থীদের পক্ষে কাজও করছেন।
দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করার করাণে গত এক সপ্তাহ থেকে সিলেট, হবিগঞ্জ, বগুড়া, নওগাঁ, রাঙ্গামাটি ও বান্দরবান জেলার ৮২ জন নেতাকে বহিষ্কার করেছে বিএনপি, যাতে উপজেলা নির্বাচন ঘিরে দলটির বহিষ্কৃত নেতার সংখ্যা ১০১ জনে দাঁড়িয়েছে। সম্প্রতি বিএনপির প্যাডে দলের সহদপ্তর সম্পাদক বেলাল আহমেদ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ওই ৮২ জনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়ে বলেছেন, প্রাথমিক সদস্যপদসহ দলের সব পর্যায়ের পদ থেকে তাদের বহিষ্কার করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী গতকাল বলেন, দলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী উপজেলা নির্বাচন থেকে বিরত থাকার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বার বার নিষেধ করার পরও বিভিন্ন উপজেলায় চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে নেতাকর্মীরা অংশ নিচ্ছেন। তাদের মনোনয়ন প্রত্যাহারের নির্দেশ দেয়া হলেও তা অগ্রাহ্য করেন। এ ছাড়া কোনো কোনো নেতা অন্য দলের প্রার্থীকে সমর্থন দেন। ফলে দলের সিদ্ধান্ত মোতাবেক তাদেরকে দলের সর্বস্তরের পদ থেকে বহিষ্কার করা হচ্ছে।
উপজেলা নির্বাচনে অংশগ্রহণের কারণে এ পর্যন্ত যারা বহিষ্কার হলেন— হবিগঞ্জের এস এম শাহজাহান, মনজুর উদ্দিন আহমদ শাহীন, চুনারুঘাটের এস লিয়াকত হাসান, জেলা কৃষক দলের মাহবুবুর রহমান আওয়াল, মাধবপুরের আব্দুল আজিজ, বানিয়াচং উপজেলার তানিয়া খানম, সুফিয়া আক্তার হেলেন, বাহুবলের নাদিরা খানম, লাখাই যুবদলের তাউস আহমদ, সিলেটের মাজহারুল ইসলাম ডালিম, জিল্লুর রহমান সোয়েব, শামছুল আলম, মাওলানা রশীদ আহমদ, সোহেল আহমদ চৌধুরী, আব্দুর রহমান খালেদ, আশরাফ উদ্দিন রুবেল, নাজমা বেগম, স্বপ্না শাহীন, আবদাল মিয়া, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের খালেদুর রশীদ ঝলক, যুবদল নেতা সুন্দর আলী, জকিগঞ্জের ইয়াহইয়া বেগম, ছাত্রদলের ফজলে আশরাফ মান্না, গোয়াইনঘাটের লুত্ফুল হক খোকন, শাহ আলম স্বপন, জয়নাল আবেদীন, মহিলা দলের খোদেজা বেগম কলি, জৈন্তাপুরের আব্দুল হক, বিশ্বনাথের মিসবাহ উদ্দিন আহমদ, আহমদ নূর উদ্দিন, জুবেল আহমদ, নুরুন্নাহার ইয়াসমিন, কোম্পানীগঞ্জের লাল মিয়া, আবিদুর রহমান, ফেঞ্চুগঞ্জের ওয়াহিদুজ্জামান সুফী, মনির আলী নানু মিয়া, হারুন আহমদ চৌধুরী, জহিরুল ইসলাম মুরাদ, সাহেদ আহমদ, ফেরদৌসী ইকবাল, বালাগঞ্জের গোলাম রব্বানী, সেবু আক্তার মনি।
এ ছাড়া বগুড়ার মাছুদুর রহমান (হিরু মণ্ডল), টিপু সুলতান, রাফি পান্না, সারিয়াকান্দির গোলাপী বেগম, সোনাতলার জিয়াউল হক লিপন, রঞ্জনা খান, নয়নতারা, শিবগঞ্জের মোছা. বিউটি বেগম, নন্দীগ্রামের আলেকজান্ডার, এ কে আজাদ, কাহালুর শাহাবুদ্দিন, মমতাজ আরজু কবিতা, ধুনটের আখতার আলম সেলিম, আলিমুদ্দিন হারুন, সদর থানার মোছা. নাজমা আক্তার, মাহিদুল ইসলাম গফুর, শাজাহানপুরের আবুল বাশার, জাহেরুল ইসলাম, সুলতান আহম্মেদ, মোছা. জুলেখা বেগম, মোছা. কোহিনুর বেগম, রহিমা খাতুন মেরি, ডা. মেহেরুল আলম মিশু, আনোয়ার এহসানুল বাশার জুয়েল, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সুরাইয়া জেরীন রনি, গাবতলীর তাহমিনা আকতার রুমা, শ্যামল সরকার।
নওগাঁর নিয়ামতপুরের সদরুল আমিন চৌধুরী, মোছা. মনোয়ারা বেগম, মান্দার আহসান হাবীব, সাপাহার উপজেলার জয়নুল আবেদীন, আশরাফুল ইসলাম, ধামইরহাটের হিলা মোছা. শাহিনা, রাঙ্গামাটির কাপ্তাইয়ের নূর নাহার বেগম, নানিয়ারচরের নুরুজ্জামান হাওলাদার, রাঙ্গামাটির রনো চাকমা, বান্দরবানের আবদুল কুদ্দুছ, আবুল কালাম, শিরিন আক্তার, রুমা উপজেলার জিমসম লিয়ান বম ও হামিদা চৌধুরীকে বহিষ্কার করা হয়েছে।
১০ মার্চ প্রথম ধাপে ৭৮ উপজেলার ভোটে বিএনপির অন্তত ২০-২২ জন নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে নির্বাচন করছেন। দ্বিতীয় ধাপে উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ১৮ মার্চ এবং ঐ ধাপে ১২৯টি উপজেলায় নির্বাচন হবে। এই দুই ধাপে যারা নির্বাচনে আছেন তাদের বহিষ্কার চলছে। সারাদেশ থেকে তালিকা সংগ্রহ চলছে। অধিকাংশ উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যানের দুটি পদেই প্রার্থী হয়েছেন বলে জানা গেছে স্থানীয় বিএনপি নেতারা। হলফনামায় নিজেদের স্বতন্ত্র হিসেবে পরিচয় দিয়েছেন, যদিও বিএনপির উপজেলার সভাপতি বা সাধারণ সম্পাদক পদে আছেন তারা। ভোটের মাঠ তাদের পক্ষে আছে, তাই নির্বাচিত হলে সংগঠন থেকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করা হবে বলে মনে করেন বহিষ্কৃত কোনো কোনো নেতারা। বহিষ্কৃতরা সুবিধাবাদী বলে মন্তব্য করেছেন, জেলা বিএনপির সভাপতি ভিপি সাইফুল ইসলাম । কারণ এই সরকারের নির্বাচন ব্যবস্থাকে বৈধতা দেয়ার জন্যই তারা উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী হয়ে মাঠে নেমেছেন। কজেই এসমস্ত সুবিধাবাদী নেতাকর্মীদের বহিষ্কারে দলে বিন্দুমাত্রও প্রভাব পড়বে না বলে মনে করেন তিনি।

Page Sidebar