5
New ফ্রেশ ফুটপ্রিন্ট
 
 
 
 
 
ফ্রেশ!
REGISTER

নিউজিল্যান্ডে অস্ত্র আইন সংশোধনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে

Now Reading
নিউজিল্যান্ডে অস্ত্র আইন সংশোধনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে

চলতি সপ্তাহে আগ্নেয়াস্ত্রের মালিকদের বিরুদ্ধে অভিযান চালানো হবে। নিউজিল্যান্ডের অস্ত্র মালিকদের সংগঠন কাউন্সিল অব লাইসেসন্ড ফায়ারআর্ম ওনার্স সরকারের এই সিদ্ধান্তের সঙ্গে একমত হয়েছে। গত ১৫ মার্চ ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার পর দেশটির অস্ত্র আইন সংশোধনের সিদ্ধান্ত নেয় কর্তৃপক্ষ। ওই হামলায় ৫০ জন নিহত ও ৪২ জন আহত হন।

নিউজিল্যান্ডের নাগরিকদের সামরিক ধাঁচের আধা স্বয়ংক্রিয় ও স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র পুলিশের কাছে জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে সরকার। এ ধরনের অস্ত্র জমা না দিলে এর মালিককে পাঁচ বছর কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তারা জানিয়েছে, সেপ্টেম্বরের মধ্যে এসব অস্ত্র জমা দিতে হবে। নতুন আইনে এ বিধান যোগ করা হচ্ছে।

নিউজিল্যান্ডের ভারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী উইনস্টন পিটার্স বলেছেন, অস্ত্র আইন সংশোধনের বিল ইতিমধ্যে পার্লামেন্টে উত্থাপন করা হয়েছে। এ ধরনের আইন করার জন্য কয়েক মাস সময় লেগে যায়। তবে দেশটির প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্ন বলেছেন, আইনটি খুব জরুরি। ১১ এপ্রিল নাগাদ এই সংশোধনী পাস হবে। তিনি বর্তমানে চীন সফরে আছেন।
যে বিলটি পার্লামেন্টে আনা হয়েছে তা পাস হলে নাগরিকদের সামরিক ধাঁচের আধা স্বয়ংক্রিয় ও স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র নিষিদ্ধ হবে। তবে এরপরও নিউজিল্যান্ডের কৃষক এবং শিকারিরা যে বন্দুক ব্যবহার করে থাকেন তা এই নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকতে পারে। এ ছাড়া পয়েন্ট টু টু আধা স্বয়ংক্রিয় বন্দুক এই নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকতে পারে।

আইন সংশোধনের যে প্রস্তাব আনা হয়েছে তাতে শটগান এবং আধা স্বয়ংক্রিয় অস্ত্রের কথা উল্লেখ করে বলা হয়েছে, এই অস্ত্র জনসমক্ষে ব্যবহার করলে সাত বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে। এ ছাড়া গ্রেপ্তারে বাধা সৃষ্টি করলে ১০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে। আধা স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র বিক্রি, সরবরাহ, তৈরি, আমদানি করলে পাঁচ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে।

নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন ‘আসসালামু আলাইকুম’ বলে ভাষণ শুরু করেন

Now Reading
নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন ‘আসসালামু আলাইকুম’ বলে ভাষণ শুরু করেন

ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে হামলার পর মঙ্গলবার প্রথমবারের মতো বিশেষ পার্লামেন্ট অধিবেশনে ভাষণ দিয়েছেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যমের এক প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, এদিন মুসলিম রীতিতে সালাম দিয়ে ভাষণ শুরু করেন তিনি। ক্রাইস্টচার্চ হামলায় নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা এবং মুসলিমদের প্রতি সম্প্রীতি জানিয়ে জাসিন্ডা এ পদক্ষেপ নেন বলে মনে করা হচ্ছে।

শুক্রবার নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ এলাকার দুইটি মসজিদে বন্দুকধারীর হামলায় এ পর্যন্ত ৫০ জন নিহত হয়েছে। সন্দেহভাজন হামলাকারী ব্রেন্টন ট্যারান্টের মধ্যে শ্বেতাঙ্গ আধিপত্যবাদী প্রবণতা পাওয়া গেছে। ক্রাইস্টচার্চে দুই মসজিদে হামলায় নিহতদের মধ্যে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, তুরস্ক, কুয়েত, সোমালিয়াসহ বিভিন্ন দেশের মুসলিম অভিবাসী, শরণার্থী ও স্থায়ী অধিবাসীরা রয়েছেন।

ক্রাইস্টচার্চের হামলার পর মঙ্গলবার প্রথমবারের মতো বিশেষ অধিবেশনে বসে নিউজিল্যান্ডের পার্লামেন্ট। সেখানে ভাষণ দিতে গিয়ে শুরুতেই মুসলিম রীতিতে সবাইকে ‘আসসালামু আলাইকুম’ বলেন জাসিন্ডা। বলেন, ‘ক্রাইস্টচার্চ হামলার দিনটি সবার মনে চিরদিন গেঁথে থাকবে।’

জাসিন্ডা আরডার্ন ক্রাইস্টচার্চ হামলাকারীর নাম মুখে না নেওয়ার শপথ নেন। অন্যদেরকেও হামলাকারীর নাম মুখে না আনার অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি আপনাদেরকে অনুরোধ করছি যে ব্যক্তি অন্যদের জীবন কেড়ে নিয়েছে তার নাম না নিয়ে যারা জীবন হারিয়েছে তাদের নাম নিন।’

এর আগে গত শনিবার ক্রাইস্টচার্চ শহর পরিদর্শনে যান জাসিন্ডা। সেখানে মুসলিম ও শরণার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। ইসলামি রীতিতে মাথায় কাপড় দিয়ে রাখতে দেখা যায় জাসিন্ডাকে। তখনও বলা হয়েছিল, হামলায় ক্ষতিগ্রস্তদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েই মাথায় কাপড় দিয়েছিলেন নিউজিল্যান্ড প্রধানমন্ত্রী।

নিউজিল্যান্ডবাসীও এই মর্মান্তিক ঘটনায় নিহতদের স্মরণে শ্রদ্ধা জানিয়ে যাচ্ছেন। ফুল দেওয়ার স্থানগুলো ভরে গেছে। ফুলের সঙ্গে রয়েছে সমবেদনা জানিয়ে লেখা চিরকুটও।

নিউজিল্যান্ডের পর ইসলামবিদ্বেষী শ্বেতাঙ্গ জঙ্গিরা হামলা চালায় ব্রিটেনের পূর্ব লন্ডনে

Now Reading
নিউজিল্যান্ডের পর ইসলামবিদ্বেষী শ্বেতাঙ্গ জঙ্গিরা হামলা চালায় ব্রিটেনের পূর্ব লন্ডনে

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে জোড়া বন্দুক হামলায় ৪৯ মুসল্লি নিহত হওয়ার কয়েক ঘণ্টা পর ব্রিটেনের পূর্ব লন্ডনের একটি মসজিদের কাছে শুক্রবার একজন মুসল্লির ওপর হাতুড়ি ও লাঠি হাতে ঝাঁপিয়ে পড়েছেন ইসলামবিদ্বেষী শ্বেতাঙ্গ জঙ্গিরা। হামলা করেই তারা পালিয়ে গেছেন বলে খবরে বলা হয়েছে।

ভিডিও ক্লিপে দেখা যায়, হোয়াইট চ্যাপেলের ক্যানন স্ট্রিটে ২০ বছর বয়সী এক তরুণ অস্ত্রহাতে একটি চলন্ত গাড়ির বাইরে ঝাঁপিয়ে পড়ার চেষ্টা করেন। এক হামলাকারী গাড়ির পেছনের ঢাকনার ওপর ঝাঁপ দিলে তার সহযোগী পেছনের আসনে উঠে যেতে সক্ষম হন। এরপর স্থানীয় ক্ষুব্ধ লোকজন তাদের ধাওয়া দেন।

হাতুড়ি ও ভোঁতা বস্তুর আঘাতে ২৭ বছর বয়সী এক এশীয় যুবক আহত হয়েছেন বলে দেশটির পুলিশ নিশ্চিত করেছেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, ওই মুসল্লি শুক্রবার মসজিদে জমা পড়েতে এসেছিলেন। তার ওপর হামলার সময় জঙ্গিরা নামাজ পড়তে আসা মুসলমানদের ‌‘সন্ত্রাসী’ বলে গালি দেন ও ইসলামবিদ্বেষী মন্তব্য ছুড়তে থাকেন।

একটি গাড়ির ভেতর থেকে ইসলামবিদ্বেষী গালি দিতে দিতে বেরিয়ে আসেন দুর্বৃত্তরা। এরপর ওই মুসল্লির ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েন। পরবর্তীতে স্থানীয়রা ধাওয়া দিলে পুলিশ আসার আগেই তারা পালিয়ে যান। পুলিশ জানায়, এ ঘটনায় গাড়িটিকে শনাক্ত করতে তদন্ত চলছে। সন্দেহভাজনরা সবাই শ্বেতাঙ্গ। তাদের বয়স ২০ এর কোটায় হবে।

৪৯ টি খুন করে ও নির্বিকারভাবে হাসে যাচ্ছে, অনুশোচনার লেশমাত্র নেই।

Now Reading
৪৯ টি খুন করে ও নির্বিকারভাবে হাসে যাচ্ছে, অনুশোচনার লেশমাত্র নেই।

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুই মসজিদে হামলাকারী অস্ট্রেলিয়ান বংশোদ্ভূত ব্রেন্টন ট্যারেন্টকে আদালতে হাজির করা হয়েছে। নিজের লাইসেন্স করা অস্ত্র নিয়ে সে দুই মসজিদে ঢুকে একে এক ৪৯টি হত্যাকাণ্ড ঘটায়। দুই মসজিদে বর্বরোচিত হামলায় নিহতদের মধ্যে বাংলাদেশি, ভারতীয়, ইন্দোনেশীয় এবং আরও কয়েক দেশের নাগরিক রয়েছেন। এ ঘটনায় আহত ১১ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আহতদের মধ্যে দুই এবং ১৩ বছর বয়সী দুটি শিশুও রয়েছে।

আত্মপক্ষ সমর্থনে আনার জন্য কোনো আবেদন ছাড়াই পুলিশের হেফাজতে ব্রেন্টনকে রিমান্ডে নেওয়া হয়। শনিবার স্থানীয় সময় সকালে তাকে কারাগারের সাদা শার্ট এবং হাতকড়া পরিয়ে আদালতে হাজির করা হয়। তার বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করা হয়েছে। এছাড়া অস্ত্র আইন লঙ্ঘনসহ আরও বেশ কয়েকটি অভিযোগ আনা হয়েছে।

আদালতে হাজির করা হলে আসামির পক্ষ থেকে কোনো জামিনের আবেদন পড়েনি। এছাড়া মামলার শুনানির জন্য আগামী ০৫ এপ্রিল তাকে আবারও হাজির করা হবে বলে জানা গেছে।

নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আর্ডার্ন বলেছেন, ব্রেন্টন ট্যারেন্টের নামে পাঁচটি বন্দুক এবং একটি আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স রয়েছে। এর আগে অস্ট্রেলিয়ান প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন বলেন, ব্রেন্টনকে অস্ট্রেলিয়ায় হাজতবাস করতে হয়েছিল। কারণ সে মৌলবাদী, ডানপন্থী ও সহিংস সন্ত্রাসী।

ক্রাইস্টচার্চ ডিস্ট্রিক্ট কোর্টে সাদা পোশাক ও হাতকড়া পরে খালি পায়ে টারান্টকে হাজির করা হয়। সে সময় কোনো কথাই বলেনি সে। বরং নির্বিকারভাবে হাসছিল। শুনানির সময় তাকে দেখে মনে হচ্ছিল তার মধ্যে অনুশোচনার লেশমাত্র নেই।

ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে জোড়া হামলায় ৯জন ভারতীয় ও ৫জন পাকিস্তানি নিখোঁজ

Now Reading
ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে জোড়া হামলায় ৯জন ভারতীয় ও ৫জন পাকিস্তানি নিখোঁজ

গতকাল নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে জোড়া হামলা চালানো হয়। গোলাগুলির ঘটনায় অন্তত ৪৯ জন নিহত হয়েছে। ৪১ জন নিহত হয়েছেন আল নূর মসজিদে এবং ৭ জন মারা গেছেন লিনউড মসজিদের ঘটনায়। আরেকজন হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়ার সময় মারা যান। এই ঘটনায় নয়জন ভারতীয় ও পাঁচজন পাকিস্তানি নিখোঁজ রয়েছে।

হামলার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে এক নারীসহ চারজনকে আটক করেছে নিউজিল্যান্ড পুলিশ। বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়েছে একটি গাড়ি থেকে। নিউজিল্যান্ডের কোথাও কোনো মসজিদে মুসলিমদের যেতে নিষেধ করেছে পুলিশ। সেই সঙ্গে মসজিদগুলো আপাতত বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বাসিন্দাদের বাড়ি থেকে বের হতে নিষেধ করা হয়েছে। শহরজুড়ে পুলিশ সতর্ক অবস্থায় রয়েছে।

ভারতীয়দের নিখোঁজ হওয়ার খবর নিউজিল্যান্ডের ভারতীয় দূতাবাস নিশ্চিত করেছে। নিহতদের মধ্যে ২ জন ভারতীয়।
পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মোহাম্মদ ফয়সালের উদ্ধৃতি দিয়ে সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছে, এখন পর্যন্ত পাঁচ পাকিস্তানি নিখোঁজ রয়েছে।

Page Sidebar