জইশ-ই-মুহাম্মদের প্রধান মাসুদ আজহারকে সমর্থন করবে চীন

Now Reading
জইশ-ই-মুহাম্মদের প্রধান মাসুদ আজহারকে সমর্থন করবে চীন

পাকিস্তানভিত্তিক সংগঠন জইশ-ই-মুহাম্মদের প্রধান মাসুদ আজহারকে জাতিসংঘ আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী হিসেবে বিবেচনা করবে কি না তা আর মাত্র এক দিন পরই জানা যাবে। তবে আগের তিনবারের মতো এবারও চীন তাঁর পক্ষেই মত দেবে বলে আভাস পাওয়া গেছে।

এক প্রতিবেদনে বলা হয় যে মাসুদ আজহারের বিষয়ে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে আলোচনা চলছে। তাঁকে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী হিসেবে ঘোষণা করা হবে কি না তা জানা যাবে। এর আগে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি মাসুদ আজহারকে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী হিসেবে ঘোষণা করতে জাতিসংঘে প্রস্তাব তুলেছিল ফ্রান্স, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য। তবে চীন তাতে ভেটো দেয়। এদিকে নিরাপত্তা পরিষদে চলমান আলোচনায় মাসুদ আজহারের বিষয়ে তাদের কী ভূমিকা হবে তার আভাস দিয়েছে চীন। গতকাল মঙ্গলবার চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লু কেন বলেন, আগের মতো এবারও চীন দায়িত্ববোধের পরিচয় দেবে। চীন সব মত ও গোষ্ঠীকে মূল্যায়ন করতে চায়। সবার সঙ্গে কথা বলে বিষয়টির সমাধান করতে চায়।

সম্প্রতি সময়ে চীনের উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী কং শুয়ানইউ পাকিস্তান সফর করেন। সেখানে তিনি দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়াসহ অন্যান্য কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় সন্ত্রাসী হামলায় ভারতের আধা সামরিক বাহিনীর ৪০ জনের বেশি সদস্য নিহত হন। শুরু থেকেই ভারত এই হামলার জন্য জইশ-ই- মুহাম্মদকে দায়ী করে আসছে। পাশাপাশি অতীতের অনেক হামলার জন্যও ভারত এই সংগঠনটিকে দায়ী করছে।

সেনাবাহিনীর সদস্যদের সাথে গুলিবিনিময়ে তিন জঙ্গি নিহত

Now Reading
সেনাবাহিনীর সদস্যদের সাথে গুলিবিনিময়ে তিন জঙ্গি নিহত

ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে হামলার সন্দেহভাজনদের অন্যতম জঙ্গি সংঘর্ষে নিহত হয়েছেন। তাঁর নাম মুদসির আহমেদ খান। তিনি জইশ-ই-মুহাম্মদের নেতা। মুদসির আহমেদ খান ওরফে মোহম্মদ ভাই ইলেকট্রিশিয়ান হিসেবে পরিচিত ছিলেন।

ভারতীয় সেনাসদস্যদের সঙ্গে জঙ্গিদের সংঘর্ষে জইশ-ই-মুহাম্মদের তিন জঙ্গি নিহত হয়েছে। তিনজনের মধ্যে পুলওয়ামা হামলার সন্দেহভাজনদের একজন রয়েছেন বলে দাবি ভারতীয় সেনাবাহিনীর। তাঁর নাম মুদসির আহমেদ খান।

সীমান্তের ত্রালের পিঙলিশ এলাকায় তল্লাশি শুরু করে ভারতের সেনাবাহিনী। তল্লাশি চালানোর সময় জঙ্গিদের সঙ্গে গুলিবিনিময় শুরু হয়। এতে তিন জঙ্গি নিহত হয়। পরে তাদের শনাক্ত করা হয়। তাঁদেরই একজন মুদসির আহমেদ খান। ২৩ বছর বয়সী মুদসির ইলেকট্রিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং নিয়ে স্নাতক করেছন। ওই যুবক তাঁর এলাকায় মোহম্মদ ভাই নামেই পরিচিত ছিলেন। পুলওয়ামার বাসিন্দা ওই যুবকই সিআরপিএফে হামলার গাড়ি এবং বিস্ফোরকের ব্যবস্থা করে দিয়েছিলেন বলে অভিযোগ করে আসছে ভারত।

পুলওয়ামার মীর মহল্লার বাসিন্দা মুদসির আহমেদ খান জইশে যোগ দেন ২০১৭ সালে। জঙ্গি সংগঠনের গোপন কর্মী হিসেবে কাজ করতেন। এরই মধ্য নূর মুহম্মদ তান্ত্রেই ওরফে নূর ত্রালি নামে জইশ-ই-মুহাম্মদের এক সক্রিয় জঙ্গির সংস্পর্শে আসেন তিনি। নূর ত্রালিই উপত্যকায় জঙ্গি সংগঠনগুলোকে সক্রিয় রাখতে সাহায্য করতেন।

Page Sidebar