আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষ্যে পাকিস্তান ও মালয়েশিয়ার সক্রিয় কর্মীরা অনলাইন নেতিবাচক প্রতিক্রিয়ার মুখোমুখি

Now Reading
আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষ্যে পাকিস্তান ও মালয়েশিয়ার সক্রিয় কর্মীরা অনলাইন নেতিবাচক প্রতিক্রিয়ার মুখোমুখি

মালয়েশিয়া ও পাকিস্তানের নারীবাদী কর্মীরা ৮ মার্চ তারিখে আন্তর্জাতিক নারী দিবসে জনসাধারণে তাদের অংশগ্রহণের দ্বারা অনলাইন হতাশা সৃষ্টি করে। বিশ্ব জুড়ে নারী সংগঠন জাতিসংঘের স্বীকৃতিপ্রাপ্ত অনুষ্ঠানে জনসভায় সমাবেশ, মিছিল এবং শিক্ষা অনুষ্ঠান আয়োজন করে। শিক্ষা, শ্রম অধিকার এবং রাজনৈতিক প্রতিনিধিত্বের মতো বিষয়গুলির পাশাপাশি এই জনসমাগমগুলির মধ্যে অনেকেই যৌন সহিংসতা এবং নারী ও এলজিবিটিকিউআই-এর লোকেদের হয়রানি নিরঙ্কুশ বার্তাগুলিকে শক্তিশালী করে তুলেছে।
এই শেষ বার্তাগুলি অন্য কিছুর চেয়েও বেশি অনলাইনে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়ার আলোড়ন সৃষ্টি করেছে বলে মনে করা হচ্ছে। পাকিস্তানে ডিজিটাল রাইটস ফাউন্ডেশনের অনলাইন হেরেসমেন্ট হেল্পলাইনটি অংশগ্রহণকারীদের কাছ থেকে উচ্চ সংখ্যক কল পেয়েছে যারা যৌন সহিংসতা, মৃত্যু এবং অ্যাসিড আক্রমণের হুমকি পেয়েছে।

মালয়েশিয়ায় বিভিন্ন নারী দিবসের মার্চের ফটো এবং প্রোফাইলগুলি ব্যাপকভাবে চ্যাট গ্রুপ এবং সোশ্যাল মিডিয়া পৃষ্ঠাগুলিতে ভাগ করা হয়েছিল যাতে তাদের অপব্যবহার লক্ষ্য করা যেতে পারে। কেউ কেউ অচেনা এমনকি পরিবারের সদস্য এবং নিয়োগকর্তাদের দ্বারা হুমকি ও নির্মমভাবে পীড়ন হয়েছিল।
দেশটির স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী দাতুক সেরি মুজাহিদ ইউসুফ রাওয়া বলেন, “ইসলামের ধর্মের ভুলগুলোকে রক্ষা করার জন্য গণতান্ত্রিক স্থানকে অপব্যবহার করায় “নারী দিবসের অভিযানের অভিযোগে অনলাইন ভিট্রিয়লকে আরও বেশি চাপ দেওয়া হয়েছে। ১৪ মার্চ তারিখে পুলিশ ঘোষণা করেছে যে সাত নারী দিবসের সংগঠক রাজপথে এবং শান্তিপূর্ণ সমাবেশ আইন লঙ্ঘনের জন্য তদন্ত করছে।

পাকিস্তানি রাজধানী ইসলামাবাদে বসবাসকারীরা ২৩শে মার্চ পাকিস্তান দিবস উদযাপনের জন্য একটি সামরিক প্যারেডের সাথে মিলেছে এমন একটি নেটওয়ার্ক শাটডাউনের কারণে কয়েক ঘন্টা ধরে মোবাইল ফোন পরিষেবা ব্যবহার করতে পারেনি । তারিখটি ১৯৪০ সালের রেজোলিউশনের বার্ষিকী চিহ্নিত করে যা ব্রিটেন থেকে পাকিস্তানের স্বাধীনতার ভিত্তি হয়ে উঠেছিল। ২০১৮ সালে ইসলামাবাদ হাই কোর্ট ইচ্ছাকৃতভাবে নেটওয়ার্ক শাটডাউন অবৈধ বলে ঘোষনা করলেও আপিল আদালত এই সিদ্ধান্তে থাকার অনুমতি দেয়। তখন থেকে কর্তৃপক্ষ অ্যাক্সেস কাটাতে বেশ কয়েকবার নিরাপত্তা উদ্বেগ আহ্বান করেছে।

ইউরোপের পাঁচ মিলিয়নেরও বেশি লোকের আবেদন সত্ত্বেও জনসাধারণের মিছিলের মাধ্যমে – ইউরোপীয় সংসদ ২৬শে মার্চ অনেক দূর্বল ইইউ কপিরাইট নির্দেশিকা অনুমোদন করেছে। নির্দেশিকাটি সদস্য রাষ্ট্রগুলিকে বাধ্য করে যে YouTube- র মত ইন্টারনেট প্ল্যাটফর্মগুলি কপিরাইট সুরক্ষিত সামগ্রী আপলোড ব্লক করার জন্য আইনগুলি চালু করতে বাধ্য করে যা কার্যকরভাবে প্রধান ইন্টারনেট এবং সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলির “পূর্বানুমান সেন্সরশিপ” এর সিস্টেমকে কার্যকর করে। নির্দেশিকাটি অন্য উৎসের কয়েকটি শব্দের বেশি উদ্ধৃত করতে চাইলে মুনাফার মিডিয়া আউটলেটগুলিতে কল করতে হবে যা সেই উৎসগুলির লেখক বা অধিকারধারীদের ফি দিতে হবে। জোটের ইউরোপীয় ডিজিটাল রাইটস (ইডিআরআই) এর একজন সিনিয়র নীতি উপদেষ্টা ডিয়েগো নারানজো বলেছেন যে, “নির্দেশটি বিশেষ করে আর্টিকেল 13, ইইউ এবং বিশ্বব্যাপী ইন্টারনেট ফিল্টার এবং স্বয়ংক্রিয়ভাবে সেন্সরশিপ প্রক্রিয়াগুলির জন্য একটি বিপজ্জনক উদাহরণ স্থাপন করে।”

মোজাম্বিকের প্রদেশের Cabo Delgado এর ছোট গ্রামগুলিতে সহিংস হামলার প্রবণতা সম্পর্কে রিপোর্ট করার সময় গ্রেপ্তার হওয়া মোজাম্বিক সাংবাদিক যিনি বিনা বিচারে ৭০ দিনেরও বেশি কারাগারে কাটান। কর্তৃপক্ষগুলি “জাতীয় নিরাপত্তা লঙ্ঘন” এবং “কম্পিউটারাইজড ডিভাইসের মাধ্যমে অবাধ্যতার উদ্দীপনার” আমাদে আবুবাকারকে অভিযুক্ত করেছে তবে এখনও আনুষ্ঠানিক অভিযোগগুলি জারি করেনি। সশস্ত্র বাহিনীর সদস্য হওয়া সত্ত্বেও ৩২ বছর বয়সীকে সামরিক বাহিনীতে সংক্ষিপ্তভাবে আটক করা হয়েছিল। পরে তিনি মোজাম্বিকান বার অ্যাসোসিয়েশনের কাছে বলেছিলেন যে তাকে অত্যাচার করা হয়েছে এবং খাবার অস্বীকার করা হয়েছে। কর্তৃপক্ষ তাকে আদালতে হাজির করতে অস্বীকার করেছে অথবা প্রতিরক্ষা দল তার অস্থায়ী মুক্তির জন্য অনুরোধ করে দ্বিতীয় অনুরোধ দিয়েছে ।

ভিয়েতনামের অত্যন্ত বিধিনিষেধযুক্ত সাইবারসিকিউরিটি আইনের সমালোচনামূলক একটি স্থানীয় অ্যাক্টিভিস্টকে ফেসবুক পোস্টগুলির জন্য দুই বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছিল যার জন্য ইন্টারনেট কোম্পানিগুলি দেশের ভিতরে তাদের তথ্য সঞ্চয় করতে এবং রাষ্ট্রের আদেশ অনুসারে সামগ্রী সরাতে থাকে। লে মিন প্রো-গণতন্ত্রের গ্রুপ হিয়েন ফ্যাপের একজন সদস্য এবং মুক্ত অভিব্যক্তি প্রকাশের পক্ষে একজন স্পষ্ট বক্তা। হিউম্যান রাইটস ওয়াচের মতে, তিনি ছয়জন সক্রিয় কর্মী এবং ব্লগার যারা বর্তমানে সরকারের প্রতি শান্তিপূর্ণ বিরোধিতা চালিয়ে আসছে ।

সিঙ্গাপুরের ফেসবুক ব্যবহারকারী এডমুন্ড ঝং আইন ও গৃহ বিষয়ক মন্ত্রী কে. শানমুগামকে একটি ডিম নিক্ষেপ করতে চান এমন একটি মন্তব্য পোস্ট করার জন্য পুলিশ তদন্তের আওতায় রয়েছেন। ২0 বছর বয়সী জাতীয় ভদ্রমহিলা এই মন্তব্যটি একটি চ্যানেল নিউজ এশিয়া ফেইসবুক পোস্টে লিখেছেন যে অস্ট্রেলিয়ান কিশোরীদের একটি রক্ষণশীল সেনেটরকে ডিম ছুঁড়ে দিয়েছে : “আমি কে শানমুগামকে এটা করতে চাই। আমি শপথ করছি। তিন দিন পরে ঝংকে পুলিশি নোটিশ পেয়েছিল যে তাকে দোষী কোডের ধারা 267C এর অধীনে “সহিংসতার উত্সাহিত করার জন্য একটি ইলেকট্রনিক রেকর্ডের যোগাযোগ” করার অপরাধে তদন্ত করা হচ্ছে। দোষী সাব্যস্ত হলে ঝংকে জরিমানা অথবা পাঁচ বছর পর্যন্ত কারাগারের সাজা হতে পারে।

অন্যের রাজনৈতিক অধিকার বা অন্যের মানবাধিকারকে টিকিয়ে রাখতে গিয়ে কারারুদ্ধ হয়েছেন বিশ্বের ৩২ জন নারী সাংবাদিক

Now Reading
অন্যের রাজনৈতিক অধিকার বা অন্যের মানবাধিকারকে টিকিয়ে রাখতে গিয়ে কারারুদ্ধ হয়েছেন বিশ্বের ৩২ জন নারী সাংবাদিক

সারা বিশ্বজুড়ে যখন নারী দিবস উদযাপিত হচ্ছে তখন নিজ দেশে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে কারাবন্দি হয়ে রয়েছেন ৩২ জন নারী সাংবাদিক। অন্যের রাজনৈতিক অধিকার আদায় কিংবা মানবাধিকারকে সমুন্নত রাখতে গিয়ে কারারুদ্ধ হয়েছেন এসব নারী সাংবাদিক।

শুক্রবার আন্তর্জাতিক নারী দিবসে কমিটি টু প্রটেক্ট জার্নালিস্টস (সিপিজে) তাদের বার্ষিক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক বিশ্বজুড়ে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিয়ে কাজ করা সংস্থাটি তাদের প্রতিবেদন জানিয়েছে, ২৫১ জন কারাবরণ করা সাংবাদিকের মধ্যে ৩২ জন নারী। বেশির ভাগ সাংবাদিক তুরস্ক ও চীনের। তুরস্কের ১৪ জন, চীনের ৭ জন, সৌদি আরবের ৪ জন, ভিয়েতনামের ২ জন, ইসরায়েল অধিকৃত ফিলিস্তিনের ২ জন, মিসরের ২ জন ও সিরিয়ার ১ জন।

কারাবন্দি ৩২ নারী সাংবাদিকের মধ্যে ২৬ জন রাজনৈতিক ইস্যুতে লিখতেন। অনেকে সম-অধিকার নিয়ে কাজ করতে গিয়ে আটক হয়েছেন। অন্যদিকে স্রেফ নারীদের গাড়ি চালনার ওপর নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে কথা বলায় চার নারী সাংবাদিককে বন্দী করে রেখেছে সৌদি আরব।

এদের মধ্যে অনেকে আটক অবস্থায় যৌন হেনস্তারও শিকার হয়েছেন।
প্রতিবেদনে বলা হয়, এরা সবাই স্থানীয় সাংবাদিক। নিজ দেশের রাজনীতি, দুর্নীতি ও মানবাধিকার নিয়ে সাংবাদিকতা করতে গিয়ে বিশ্বজুড়ে কারারুদ্ধ হয়েছেন তারা। এর মধ্যে রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্রের অভিযোগে তুরস্কের আয়সে নাজলি উলুজ্যাক ও হাতিজে দুমান এবং চীনের গুলমায়ের ইমিন যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ভোগ করছেন। তুর্কি সরকারের অভিযোগ, দুমান নিষিদ্ধ ঘোষিত মার্কস-লেলিনবাদী কমিউনিস্ট পার্টির সদস্য। তিনি রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছিলেন এবং সরকার পরিবর্তনের চেষ্টা করেছিলেন।

২০১৬ সালে ব্যর্থ অভ্যুত্থানের পর তুরস্ক সরকারের ব্যাপক ধরপাকড় অভিযানের সময় আটক হন সাংবাদিক নাজলি। যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ভোগ করছেন তিনি। চীনের গুলমায়ের ইমিন বিরুদ্ধে রাষ্ট্রের গোপন তথ্য ফাঁসের অভিযোগ আনা হয়। ইমিন উইঘুর ভাষার ওয়েবসাইটে ভয়াবহ বিক্ষোভের তথ্য সরবরাহ করেন বলে রাষ্ট্রপক্ষ অভিযোগ করেন। এই অপরাধে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড পান।

নারী ছলনাময়ী না সাবধানীঃ নারী দিবস ২০১৮

Now Reading
নারী ছলনাময়ী না সাবধানীঃ নারী দিবস ২০১৮

টাইটানিক সিনেমার শেষের দিকে বৃদ্ধা রোজের একটা ডায়লগ আমার মনে পড়ে – “A women heart is deep ocean of secrets.” । মেয়েরা অনেক গোপনীয়তা রক্ষা করতে পারে – এটা বুঝানো হয়ম্নি এই বাক্যের মাধ্যমে। বরং এই বাক্যের মাধ্যমে বুঝানো হয়েছে – মেয়েরা খুব সহনশীল। প্রকৃতিগত কারনে আমরা পুরুষরা শারীরিক শক্তি বলে বেশি সক্ষম, ব্রেন খাটানোর জায়গা ও সুযোগ হয়ত আমাদের বেশী। কিন্তু সহনশীলতা – এই জায়গাটাতে তারা আমাদের থেকে বহু বহু গুনে এগিয়ে।

নারী শ্রেষ্ঠ নাকি পুরুষ – এ নিয়ে বিতর্ক চিরদিনের। কবি নজরুল ইসলাম অবশ্য বলে গেছে দুই সাইডেই সমান । উনার ভাষ্যে –

“বিশ্বে যা কিছু মহার সৃষ্টির চির কল্যাণকর
অর্ধেক তার করিয়াছে নারী অর্ধের তার নর।”

এত উলটো টাও কিন্তু হয়।

“বিশ্বে যা কিছু মহার ধ্বংসের চির অকল্যাণকর
অর্ধেক তার করিয়াছে নারী অর্ধের তার নর।”

গোলডা মেইর , একজন শিক্ষিকা যিনি ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। তিনি বলেছেন – “” Weather women are better than men i cant say but they are certainly no worse.” এর মানে মেয়েরা কখনোই ছেলেদের থেকে খারাপ না।

নারী নিয়ে অনেক গান আছে। আইয়ুব বাচ্চু বলেছেন – মেয়ে তুমি কি দুঃখ চিন , চিন না তবে চিনবে কেমন করে এই আমাকে? তপু ভাই বলেছেন – মেয়ে , তুমি এখনো আমায় গে ভাব কি?

দুঃখিত গে না, শব্দটা বন্ধু হবে। বন্ধুতের পরবর্তী পদ ভালবাসা আর সে ভালবাসায় দিনে দিনে মনের মিল না হলেই আমাদের কাছে নারী ছলনাময়ী। আসলে মেয়েরা ছলনাময়ী/হঠকারী না। শব্দ গুলো কেমন যেন ঘৃনা ধরায়। আসলে নারী খুব সাবধানী, এরা প্রকৃতিগত ভাবেই এমন।নিজেদের নিরাপত্তার কথা সবার আগে তাদের চিন্তা করতে হয়।

ভাল খারাপ দুটি দিক নিয়েই মানুষ। দুনিয়াতে খারাপ নারী পুরুষের অনুপাত তা সমান সমান বৈকি। কে যেন বলেছিল – “দুনিয়াতে খারাপ মহিলা অনেক আছে, কিন্তু খারাপ মা একটিও নাই।” বিপরীতে আবার পুরুষ লাগাবেন না, দুনিয়ায় খারাপ পুরুষ তো আছেই, খারাপ বাবাও আছে। অনেক বাবা আছে, উনাদের নস্টামির সিড়ি নিজের মেয়েকে জোর পুর্বক বিছানায় নিয়ে যাওয়া পর্যন্ত হয়।
ইমদাদুল হক মিলনের একটা বই ছোটকালে উপহার পেয়েছিলাম জেঠির কাছ থেকে। সেখানে এক মা নিজের সন্তান এর ভাল থাকা ও নিজের ভালবসার জন্য জেলে থেকে মাছ ব্যাবসায়ী, তার থেকে ভাড়াটে গুন্ডা এবং ঐ গুন্ডার সি এন জি ওয়ালার ঘর পর্যন্ত করে।

মেয়েরা মায়ের জাত। কাজেই তারা শ্রদ্ধার পাত্রী। আজকের নারী দিবসে পৃথিবীর সকল মা – বোনকে জানাই অন্তরের গভীর থেকে শত সম্মান ও সালাম।

Page Sidebar