মাশরাফির ফেরার ম্যাচে জয় পাবে কি বাংলাদেশ?

Now Reading
মাশরাফির ফেরার ম্যাচে জয় পাবে কি বাংলাদেশ?

কি ভাবছেন অবসর ভঙ্গে ফিরছে? না। আইসিসির দেয়া এক ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আজকের ম্যাচ দিয়ে ফিরছেন। নিষেধাজ্ঞার কারণে ত্রিদেশীয় সিরিজের ১ম ম্যাচ খেলতে পারেনি। ২য় ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে খেলবে বাংলাদেশের ওয়ান ডে দলের অধিনায়ক মাশরাফি। আজ বাংলাদেশ সময় বিকাল ৩ঃ ৪৫ মিনিটি খেলা শুরু হবে । গতকাল ডাবলিনের ক্লনটার্ফ ক্রিকেট ক্লাব মাঠের নেট প্র্যাকটিসে করেছেন বোলিং অনুশীলন। আজ একাদশে পরিবর্তন একটাই তাহল, মাশরাফি ইন। কিন্তু বাদযাবে কে? তাসকিন অথবা রুবেল বাদ যাবে আজ । মাশরাফি আগের বার এই নিউজিল্যান্ডের সাথে খেলতে গিয়ে চোট পায়। তাদের সাথে হোয়াইয়ট ওয়াস হয়ে আসে। তবে এবার মাশরাফিরা হারাতে চায় নিউজিল্যান্ডকে। মাশরাফি মনে করে সবাই তাদের প্রাপ্য টা দিলে ম্যাচে জয় পাওয়া কঠিন হবে না। তবে আবহাওয়া ও সবুজ পিচ টা বাধা হতে পারে। টস জয় পাওয়া টাওয়া অনেক বড় বেপার। টসে জিতলে আগে ব্যাটিং নিতে হবে। কারণ এই মাঠে আগে যারা ব্যাট করে তারাই জয় পায়। তাছাড়া পিচে ঘাস বেশি, যার ফলে পরে ব্যাট করাটা কষ্টকর হবে। দলের সবাই তাদের প্রাপ্য টা খেলেই জয় আমরা পাব। তামিম, সাকিব, রিয়াদ, মুসফিক তাদের অভিগতা দিয়ে ভালকিছু উপহার দিতে পারলেই জয় পাব। মাহমুদুল্লাহ যদি কাল ৭৯ রান করতে পারে তাহলে ৩০০০ রানের মালিক হবে। সাকিব মিরাজের স্পিনটাও পেস নির্ভর উইকেটে কাজে লাগতে পারে। তাছাড়া তিন জন পেসার তো আছেই। তারা যদি তাদের কাজ গুলো টিক ভাবে করতে পারে তাহলেই হবে। মুস্তাফিজের খারাপ সময় যাচ্ছে। সেও ফিরতে মরিয়া হয়ে আছে। মুস্তাফিজ তার চেনা রূপে ফিরতে চায়। প্রথম ম্যাচে বৃষ্টির কারণে দেখা হয় নাই বোলাদের। তাই এই ম্যাচেই হতে পারে বোলাদের পরীক্ষার জন্য। ম্যাচ টি বাংলাদেশের হতে হলে তিন বিভাগেই ভাল করতে হবে। বোলিং, ব্যাটিং, ফিল্ডিং এই সব গুলোতেই ভাল করতে হবে। একাদশে নাসির আর ইমরুল কে চান্স দেয়া দরকার। সাথে তাসকিন কে বসিয়ে রুবেল কে দলে রাখা প্রোয়জন। কারণ অচেনা কন্ডিশনে অভিগতার প্রোয়জন থাকে। যার প্রমান আমরা প্রথম ম্যাচে পেয়েছি। তাছাড়া সৌম্য কিছু দিন ধরে রান পাচ্ছে না। তাই তার যায়গায় ইমরুল কে নেয়া যায়। মোসাদ্দেক হোসেন ও মেহিদি নতুন তাই তাদের যেকোন একজনের যায়গায় নাসির কে নেয়া যায়। তাসকিন কে বসিয়ে রুবেল কে একটা চান্স দেয়া দরকার, কারণ রুবেল এই কন্ডিশনে ভাল বোল করে। বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদের মনে রাখতে হবে সবুজ ঘাসে বোল সুইং করে। তাই প্রথমে সেট হয়ে নিতে হবে। ভুল শটগুলো এরাতে হবে। আমাদের ভুল থেকে শিক্ষতে হবে। বারবার এক ভুল করলে চলবে না। বাজে শট ও এসেই রাফ খেলা এগুলো বাদ দিতে হবে। আগে ব্যাট করলে ৩০০ প্লাস রান টার্গেট দিতে হবে। আর বোল করলে ২৫০ এর মধ্যে আটকাতে হবে তাইলেই জয় পাওয়া টা সহজ হবে। বোলারদের যে ব্যাটসম্যানদের দায়িত্ব বেশি। তাদের রান করতে কিছুটা বেগ পেতে হবে। সিনিয়ার পেলেয়ারদের দায়িত্ব নিয়ে খেলতে হবে। সবাই সবাইর বেষ্ট টা দিলেই জয় পাওয়া যাবে। কোন ভাবেই মিস ফিল্ড করা যাবে না। আজকের এই ম্যাচ জয় দিয়ে বাংলাদেশ সিরিজের ভালো অবস্থানে যেতে চায়। অন্য দিকে নিউজিল্যান্ডও জয় দিয়ে সিরিজ নিজেদের এগিয়ে রাখতে চায়। তাই আজকের ম্যাচ হবে চ্যালেঞ্জিং । কেউ কাউ কে ছেড়ে কথা বলবে না। তবে আশা করি জয় বাংলাদেশের হবে।

আসুন দেখেনেই বাংলাদেশ ও নিউজিল্যান্ডের শেষ ৫ ম্যাচের রেজাল্ট: 

বাংলাদেশ : L-W-L-L-L

নিউজিল্যান্ড : W-L-W-L-W

ম্যাচে নজর থাকবে যাদের উপর:

তামিম ইকবাল, মাহমুদুল্লাহ । নিউজিল্যান্ডের জন্য এই দুজনেই হতে পারে ভয়ংকর। ১ম ম্যাচে তামিম মাহমুদুল্লার ব্যটেই বাংলাদেশ ভাল সংগ্রহ করে। সবুজ উইকেটেও তারা যে কতোটা দক্ষ তা আয়ারল্যান্ড ভালোই টের পেয়েছে। তাছারা মাহমুদুল্লার একটি সেঞ্জুরি এই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে।

নিউজিল্যান্ডের মিচেল সান্টনার উপর। ত্রিদেশীয় সিরিজের ২য় ম্যাচে আয়ারল্যন্ডের বিপক্ষে একাই ৫ উইকেট নেয়। নিউজিল্যান্ডের এই বাম হাতি বোলাররি হতে পারে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বাধা।

মাঠের ইতিহাস :

এই মাঠের পরিসংখ্যান হিসাবে দেখা যায় যারা আগে ব্যাট করে তারাই জয় পায়। ত্রিদেশীয় সিরিজের ২য় ম্যাচেও নিউজিল্যান্ড আগে ব্যাট করে জয় পায়। তাই টস টা বর কারণ হতে পারে এই ম্যাচে।

বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ কি হতে পারে?

বৃষ্টি হতে পারে প্রতিপক্ষ। বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাব্য না আছে। তাছাড়া পেস সহায়গ পিসে ভয়ংকর হতে পারে মিচেল সান্টনার বাম হাতি স্পিন। তার স্পিন বোল খুবেই ভয়ংকর। সবুজ ঘাসে ব্যাট করতে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের ভালোই বেগ পেতে হবে। তবে সেট হয়ে গেলে বড় স্কোর করা যেতে পারে। মাঠ ছোট তাই ৩০০ আপ স্কোর হয়াতা স্বাভাবিক । পেস বোলাররা সুইং পাবে ভালোই। তাই দেখে বুঝে খেলতে হবে।

দুই দলের সম্ভাব্য একাদশ :

নিউজিল্যান্ড : লূক রনচি (উইকেটকিপার), টম ল্যাথাম (অধিনায়ক), জন জর্জ ওয়ার্কার, রস টেলর, নীল ব্রুম, জেমস নিশাম, কলিন মুনরো, স্কট কোগলেলিজন, মিচেল সেনানিয়ার, শেথ রান, অ্যাড মিল্ন / ইশ সোদি

বাংলাদেশ : তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, সাব্বির রহমান, মুশফিকুর রহিম (উইকেটকিপার), সাকিব আল হাসান, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মোসাদ্দেক হোসেন/নাসির হসেন, মেহিদি হাসান, মাশরাফি মুর্তজা (অধিনায়ক), মুস্তাফিজুর রহমান, রুবেল/তাসকিন