সবাইকে অবাক করে ফাইনালে পাকিস্তান

Now Reading
সবাইকে অবাক করে ফাইনালে পাকিস্তান

চ্যাম্পিয়ন ট্রফি শুরু হবার আগে থেকে ধরে নেয়া হচ্ছিলো ইংল্যান্ড ফাইনালে খেলবে । ইংল্যান্ড নিজেদের প্রমাণ ও করেছে । তারা কঠিন গ্রুপ থেকে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে উঠেছে সেমি ফাইনালে তে । গ্রুপ পর্বে বড় বড় দলকে হারিয়েছে তারা ।
অন্য দিকে পাকিস্তান তুলনা মূলক ভাবে দুর্বল টিম । তারা ওয়ান ডে রেঙ্কিং এক ৮ তম দল । শুরু থেকে তাদের সমীহ করছিলো না কেউ । টুর্নামেন্ট শুরু হবার আগে সবাই বলছিল পাকিস্তান আন্ডার ডগ । আর সেই আন্ডার ডগ আজ ফাইনালে । হ্যাঁ ভাই , আপনি ঠিক পড়ছেন । পাকিস্তান ইংল্যান্ড কে হারিয়ে ফাইনালে ।

টস হারার সাথে সাথে মনে হয় ভাগ্য বিধাতা ইংল্যান্ড দল থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিলেন । নিজেদের মাটিতে এভাবে হারতে হবে তা হয়তো ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল নিজেরাও মেনে নিতে পারছে না । আর যারা পাকিস্তান কে নিয়ে সমালোচনা করেছে তাদের জন্য পাকিস্তানের বিজয়টা ছিল স্রেফ একটি ভদ্র জবাব ।

 

উইকেট

টসে হেরে ব্যাট করতে আসে ইংল্যান্ড । দলে আজ কিছুটা পরিবর্তন করেছে তারা । রয় কে বসিয়ে রেখেছিলো । পর পর কিছু ম্যাচ বাজে খেলার জন্য তাকে আজকে দলে নেয়া হয়নি । বেয়ারস্টো খেলেছেন রয়ের পরিবর্তে ।পরিবর্তন করে যে খুব বেশি ভালো হয়েছে তা বলা যাবে না । কারণ দলীয় ৩৪ রানে ফিরে যান অ্যালেক্স হেলস । স্ট্যাম্প ছেড়ে সামনে এগিয়ে এসে খেলতে যান তিনি । কিন্তু বলের গতি থাকার কারণে ব্যাট ঘুরে যায় । যার ফলে সরাসরি অফ সাইডে ক্যাচ চলে যায় খেলোয়াড়ের হাতে । এর ফলে মাত্র ১৩ রানে ফিরে যান তিনি । আরেক প্রান্তে বেয়ারস্টো খেলছিল তার সাবলীল খেলা । সেই খেলায় চির পরে ১৬ তম ওভারে । পাকিস্তানী খেলোয়াড় হাসান তার ব্যক্তিগত প্রথম ওভারে ফিরিয়েছেন রয় এর পরিবর্তে খেলতে নাম এই খেলোয়াড় কে । গুড লেন্থের বল যখন একটু উপরে উঠেছিল , তখনি ব্যাটসম্যান খেলার পুল শর্ট । লেগের দিকে দাঁড়িয়ে থাকা ফিল্ডারের সাথে সরাসরি ক্যাচ চলে যায় । অল্প কিছু রানের জন্য নিজের প্রথম অর্ধ শতক মিস করেন । ৪৩ রানে ফিরে যান এই ব্যাটসম্যান । ইংল্যান্ড এর তখন ৮০ রানে দুই উইকেট । ধীরে ধীরে বড় সংগ্রহের দিকে এগুছিল ইংল্যান্ড ঠিক তখনি বল হাতে বল করতে আসেন শাদাব । ব্যক্তিগত ৬ ওভারে তুলে নেন তার প্রথম উইকেট । গুড লেন্থে পড়ে যখন বল বাক খেয়ে অফ স্ট্যাম্পের বাহিরে যেতে নিবে তখনি রুট ভুল করে বসেন । বাহিরের বল কাট করতে গিয়ে আউট হয়ে যান তিনি । উইকেট এর পিছনে ছিলেন সরফরাজ । তার হাতে তালু বন্দি হয়ে ফিরে যান প্যাভিলিয়নের পথে । ইংল্যান্ড দলের তখন ১২৮ রানে নেই উপরের সারির ৩ ব্যাটসম্যান । প্রথম দিকের ৩ জন কে হারিয়ে দল তখন ভীষণ চাপে । সেই চাপে কে সামাল দিতে মাঠে নামেন ষ্টোকে । ভেবেছিলেন মর্গ্যান এর সাথে মিলে দল কে এনে দিবেন বড় একটি জুটি । কিন্তু মর্গ্যান এর তারা হুড়ার কারণে ভুলের মাশুল দিতে হয় । হাসান এর বল সামনে এগিয়ে এসে খেলেন তিনি । চেয়ে ছিলেন বড় শর্ট খেলবেন । কিন্তু অফ সাইডের বল ব্যাটের কোনায় লেগে চলে যায় উইকেট কিপারের হাতে । ব্যক্তিগত ৩৩ রানের মাথায় প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন তিনি । এই সময় অধিনায়ক হিসেবে এমন শর্ট না খেলে তার উচিত ছিল ধরে খেলা । যাতে দল বড় সংগ্রহ প্রায় । এর পর ইংল্যান্ডের আর কেউ দাঁড়াতে পারেনি পাকিস্তানের সামনে । সবার মধ্যে ছিল আসা যাওয়ার পিচ্ছিল । ষ্টোকে আর মইন আলী ছাড়া দুই অংকে পৌঁছাতে পারেনি কেউ । বেশ ভাগ ব্যাটসম্যান উইকেট কিপারের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফিরেছেন । তাদের মধ্যে আত্মবিশ্বাসের অনেক অভাব দেখা গিয়েছে । ব্যাটসম্যান দের ভুলের কারণে বিদায় নিতে হয়েছে সেমি ফাইনাল থেকে ।

আউট

সেই দিক থেকে পাকিস্তান ছিল খুব সাবধান । বোলিং , ব্যাটিং ও ফিল্ডিং এই তিন বিভাগে পাকিস্তান খুব ভালো করেছে । যার ফলাফল হিসেবে তারা ফাইনালের টিকিট পেয়েছে । ২১২ রানের টার্গেট নিয়ে খেলতে নেমে হারিয়েছে মাত্র দুই উইকেট । ৮ উইকেটে জয় তুলে নেয় পাকিস্তান । ব্যাটিং এ যেমন ব্যর্থ ছিল ইংল্যান্ড , ঠিক বোলিং এ ব্যর্থ ছিল । তারা যে চাপে ছিল তা বোঝা যাচ্ছিলো পাকিস্তান দলের ব্যাটসম্যানদের খেলা দেখে । উদ্বোধনী জুটি করে ১১৮ রান । ২১.১ ওভারে বল করতে আসেন রশিদ । তার ওভারের প্রথম বলে আউট হয়ে যান অর্ধ শতক করা জামান । ব্যক্তিগত ৫৭ রানে ফিরে যান এই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান । দল তখন সুবিধা মতো জায়গায় । অপর প্রান্তে তখন টিকে আছেন আজহার । নতুন ব্যাটসম্যান বাবর কে নিয়ে করেন ৫৫ রানের জুটি , আর সেই জুটির সুবাদে পাকিস্তান তখন একদম জয়ের দ্বারপ্রান্তে । ভেবে ছিলেন এই দুই ব্যাটসম্যান মিলে দলকে জয় উপহার দিয়ে মাঠ থেকে বিদায় নিবেন সেই সাথে নিজের শতক পূর্ণ করবেন । কিন্তু সেই সুযোগ আর হলো না । জেক এর বলে ৭৬ রানে ফিরে যান তিনি । তার পর আর পাকিস্তানের উইকেট খোয়াতে হয়নি ।বাবর আর হাফিজ এই দুই ব্যাটসম্যান মিলে দল কে জয় উপহার দেন । সেই সাথে পাকিস্তান চলে যায় ফাইনালে ।

 

পাকিস্তানের জয়

খুব ভালো বল করার কারণে ম্যান অফ দ্য ম্যাচ হন হাসান আলী । ৩৫ রানে ৩ উইকেট তুলে নেন তিনি ।

পাকিস্তান কে অপেক্ষা করতে হবে তাদের প্রতিপক্ষের জন্য । ভারত অথবা বাংলাদেশ হবে তাদের প্রতিপক্ষ । যেই হোক ফাইনাল খুব জমবে এখন থেকে বোঝা যাচ্ছে ।

রেফারেন্স https://www.facebook.com/rkfzs