জইশ-ই-মুহাম্মদের প্রধান মাসুদ আজহারকে সমর্থন করবে চীন

Now Reading
জইশ-ই-মুহাম্মদের প্রধান মাসুদ আজহারকে সমর্থন করবে চীন

পাকিস্তানভিত্তিক সংগঠন জইশ-ই-মুহাম্মদের প্রধান মাসুদ আজহারকে জাতিসংঘ আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী হিসেবে বিবেচনা করবে কি না তা আর মাত্র এক দিন পরই জানা যাবে। তবে আগের তিনবারের মতো এবারও চীন তাঁর পক্ষেই মত দেবে বলে আভাস পাওয়া গেছে।

এক প্রতিবেদনে বলা হয় যে মাসুদ আজহারের বিষয়ে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে আলোচনা চলছে। তাঁকে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী হিসেবে ঘোষণা করা হবে কি না তা জানা যাবে। এর আগে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি মাসুদ আজহারকে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী হিসেবে ঘোষণা করতে জাতিসংঘে প্রস্তাব তুলেছিল ফ্রান্স, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য। তবে চীন তাতে ভেটো দেয়। এদিকে নিরাপত্তা পরিষদে চলমান আলোচনায় মাসুদ আজহারের বিষয়ে তাদের কী ভূমিকা হবে তার আভাস দিয়েছে চীন। গতকাল মঙ্গলবার চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লু কেন বলেন, আগের মতো এবারও চীন দায়িত্ববোধের পরিচয় দেবে। চীন সব মত ও গোষ্ঠীকে মূল্যায়ন করতে চায়। সবার সঙ্গে কথা বলে বিষয়টির সমাধান করতে চায়।

সম্প্রতি সময়ে চীনের উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী কং শুয়ানইউ পাকিস্তান সফর করেন। সেখানে তিনি দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়াসহ অন্যান্য কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় সন্ত্রাসী হামলায় ভারতের আধা সামরিক বাহিনীর ৪০ জনের বেশি সদস্য নিহত হন। শুরু থেকেই ভারত এই হামলার জন্য জইশ-ই- মুহাম্মদকে দায়ী করে আসছে। পাশাপাশি অতীতের অনেক হামলার জন্যও ভারত এই সংগঠনটিকে দায়ী করছে।

জঙ্গি গোষ্ঠীগুলোর ৪৪ সদস্যকে আটক করেছে পাকিস্তানের নিরাপত্তা বাহিনী…

Now Reading
জঙ্গি গোষ্ঠীগুলোর ৪৪ সদস্যকে আটক করেছে পাকিস্তানের নিরাপত্তা বাহিনী…

জইশ-ই-মোহাম্মদ প্রধান মাসুদ আজহারের ভাই আবদুল রউফ ও ছেলে হাম্মাদ আজহারসহ নিষিদ্ধ সশস্ত্র সংগঠনের ৪৪ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পাকিস্তানের নিরাপত্তা বাহিনী।

পাকিস্তানে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে অভিযান শুরু হয়েছে। এই অভিযানে জঙ্গি গোষ্ঠীগুলোর ৪৪ জনকে আটক করা হয়েছে। দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের বরাতে এ তথ্য জানা গেছে। পাকিস্তানি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, আটককৃত ৪৪ জনকে নিরাপত্তা হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার ইসলামাবাদে পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্র সচিব আজম সুলেমান খান স্থানীয় সাংবাদিকদের বলেন যে, গ্রেফতারকৃতদের অন্তত ১৪ দিন আটক রাখা হবে। এ ছাড়া তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ অভিযোগ পাওয়া গেলে পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করা হবে।
এর আগে রোববার পাকিস্তানের তথ্যমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরী বলেন, চরমপন্থীদের বিরুদ্ধে খুব শিগগির ব্যবস্থা নেয়া হবে। পাকিস্তানের মাটি ব্যবহার করে কেউ সন্ত্রাসী ও জঙ্গিবাদ চালাতে পারবে না উল্লেখ করে তিনি বলেন, দেশের নিরাপত্তা বাহিনীর স্বার্থে এ সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু বলা যাবে না।

প্রসঙ্গত, গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারতীয় কাশ্মীরে জঙ্গি হামলা চালানো হয়। ওই আত্মঘাতী হামলায় ভারতীয় বাহিনীটির অন্তত ৪০ জন সদস্য নিহত হন। পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী জইশ-ই-মোহাম্মদ হামলার দায় স্বীকার করে। এই পরিপ্রেক্ষিতে নিষিদ্ধ ঘোষিত গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করেছে পাকিস্তান।
এর পরও ভারত ও পাকিস্তানের সীমান্তে কোনো ধরনের শান্তি আসেনি বলে জানা যায়।

Page Sidebar