নিজের লক্ষ্য স্থির রাখুন! আপনিই পারবেন!

Now Reading
নিজের লক্ষ্য স্থির রাখুন! আপনিই পারবেন!

জীবন একটা লবণাক্ত সাগর ই মাত্র।sacl_tgt_target_logo_4.jpeg এই জীবন নামক লবণাক্ত সাগরের গতিপথ ৬০-৭০ বছরের মধ্য ই সীমাবদ্ধ। কিন্তু, এই জীবন নামক লবণাক্ত সাগরের, সামান্য সাফল্য নামক মিঠাপানির সন্ধানে চলে যায়, জীবনের অধেক এর ও বেশি সময় ৩০-৩৫ বছর।

৬০-৭০ বছরের জন্য যেই জীবন, সেই জীবনের সাফল্য নামক মিঠাপানি আকুল তৃপ্ত হওয়ার বাসনা কে কুড়ে কুড়ে খায় ” হতাশা”।
আর এই হতাশা এর প্রধান শক্তি হচ্ছে আমাদের সভ্য সমাজ। সামাজ খুব সুন্দর ভাবে একটা আলোকিত৯ মোমবাতির মতো জীবনকে নদমা মতো অন্ধকারে ঠেলে দিতে পারে খুব সতকতা এর সাথে দায়িত্ব নিয়ে।

এই সেই সময় আমার মনে পড়ে যায়, চেতনাশীল ও মননশীল লেখিকা রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের, সেই প্রবন্ধ “চাষা দুক্ষু “।
“চাষা দুক্ষু” তে তিনি বলেছিলেন, আজ আমরা সভ্য হয়েছি, তাই “চাষার হাড়িতে ভাত নাই, ওর বৌ এর ই পাছায় জোটে না ত্যানা”।
কিন্তু, আমার আগে যখন অসভ্য ছিলাম, তখন কৃষকের গোলা ভরা ধান, পুকুর ভরা মাছ, আর চাষার ই বৌ এর ই পরনে ছিলো মসলিন, জামদানি।

তাই বলছিলাম কি যদি কিছুটা সময় এই জীবন নামক লবণাক্ত সাগরের নিজের মতো করে কাটাতে চাও, তাহলে আমি বলবো ,”আমাকে অনেক বড় হতে হবে, আমার জীবন তো শেষ এখন কিছু হলো না, আয় হায় সমাজ কি বলবে, আমি তো কিছু ই পারি না, আমার ফ্যামিলি তো ও মতো এত টাকা নাই, ইশঃ এটা হলো না, আমি কি সাক্সেস( সাফল্য) হবো”

আরে এই সব হতাশা মুলক কথা বাতা আজকে ই গিলে খেয়ে টয়লেট এ গিয়ে মলমূএ করে ফেলে দিয়ে আসেন। জীবন তো একটা ই নাকি?? তাহলে, ইঁদুর দৌড়ে সময় নষ্ট করে লাভ কি?? নিজের মন দিয়ে যেই টা করছেন সেইটা করুন, সফল্য নিজে থেকে এসেই আপনার কাছে ধরা দিবে।।

শুনেন পরিশ্রম করলে ই যদি সব সময় সব হতো “তাহলে গাধা হতো বনের রাজা”। আর আপনি যা কিছু ই করেন না কেন? অবশ্যই আপনার ব্যক্তিগত বলতে একটা বস্তু থেকে ই যায়। তাহলে, কেন? সব সময় সব কথা অন্য কাওকে বলতে হবে? হওক না কেন সে আপনার অনেক আপন। নিজের কষ্ট, অবহেলার ও দুবলতা অন্যকে বলার অথ এই যে নিজের জন্য আরেক টা বাঁশঝাড় তৈরি করা।
মনে রাখবেন, অন্ধকারে নিজের ছায়া ও আপনাকে ছেড়ে দিবে।

আর আপনার কেন ই বা সবসময় অন্যর সাথে নিজেকে তুলনা করতে হবে, মনে রাখবেন বার বার নিজেকে যাচাই করার প্রতিযোগিতা, হতাশা গ্রস্ত হওয়ায়ার একটা বড় কারন।
আগেই বলেছি সমাজ আপনাকে নিয়া কি ভাবলো সেই টা ভাবা বন্ধ করুন।আর অযথা চিন্তা বাদ দিয়ে যেই টা করতাছেন ওই টা ই করেন।

যা করবেন ভাবতাছেন এখন থেকে ই শুরু করে দিন, নিজের জন্য করেন। আর সব বেপারে অনুভব করা বন্ধ করেন। আপনি যেমন টা আছেন, অনেক ভালো ই আছেন।আর নিজের পুরানো কোন অপরাধ এর জন্য দীঘ সময় অনুশোচনা করে বতমান মূল্যবান সময় টা কে নষ্ট করার বদ অভ্যাস কে বাদ দিন। দোষ বা ভুল আমরা সবাই করি, তার জন্য সবসময় নিজেকে দোষী ভেবে নিজেকে হতাশা এর সাগরে ডুবানোর মধ্য কোন সাথকতা নেই।
শুধু ভুল থেকে যেই শিক্ষা টা পেয়েছিলেন তাই আপনার জন্য যথেষ্ট।
যাই ই করেন না কেন, নিজের ক্ষতি হয় এমন কাজ করা থেকে বিরত থাকুন। মনে রাখবেন, নিজের সুস্থ দেহ ই সবচেয়ে বড় সম্পদ। রাজার কাছে যেমন তার রাজত্ব হলো “সাত রাজার ধন, তেমনি, আপনার সুস্থ দেহ ই আপনার অমর রাজত্ব ” কথায় আছে ‘ স্বাস্থ্য ই সকল সুখের মূল”। তাই জীবনের জন্য নিজের জন্য সবসময় নিজের স্বাস্থ্য এর প্রতি সচেতন থাকবেন।

টাকা, টাকা, টাকাই সব। এই ধরনের ফালতু চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলেন। টাকা ই জীবনের সব নয়। টাকা ছাড়া ও সবার একটা বিশেষ বস্তুর খুব প্রয়োজন। তা হলো “সুখ”।
সবাই সুখের কাঙাল। আজ কাল এই জিনিস টার খুব বেশি অভাব দেখা যায়, ওই টাকা ওয়ালা এসি ওয়ালা ফ্ল্যাটে। মাথার উপর এসি দেখে মনে হয় তারা বড় সুখে ই আছে। কিন্তু, মনে রাখবেন চাকচিক্যময় মৌড়ক এর ভিতরে ই কিন্তু যত সব ভেজাল এর রমরমা পরিবেশন থাকে।
আর, গরিব এর কুড়েঁ ঘরে রাতে ঘুমানোর সময় মা জননী হাতের হাত পাখার বাতাস, নিশ্চয় ওই অট্টলিকার এসি থেকে অধিকতর সুখময়।
তাই নিজেকে টাকা পয়সার দিক থেকে কখনো ছোট মনে করবেন না। সবসময় টাকা থেকেও বড় বস্তু সুখের দিক থেকে বড় মনে রাখবেন।

কখনো কোন চাপে পড়ে কোন সিদ্ধান্তগ্রহণ করবেন না। কারন, আপনার একটি ভুল সিদ্ধান্তের জন্য আপনাকে অনেকটা সময় ভুগতে হতে পারে। আর সিদ্ধান্ত জীবনের খুব ই গুরুত্বপূর্ণ বস্তু। কথাটা মনে রাখবেন, ” ভাবিয়া করিও কাজ, করিয়া ভাবিও না”।

জীবনের জন্য আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, যেই ভুল টা বেশি ভাগ সময় ই আপনি করে থাকেন। সেইটা হলো অন্য কারো মন রাখতে সব সময় হঁ্যা বলেন। আমি বলবো আজ থেকে সব সময় হ্যঁা বলার বদ অভ্যাস ত্যাগ করুন। নিজের প্রয়োজনে আজ থেকে না বলতে শিখুন।

এখনি সময় এসেছে দুনিয়াকে দেখানো, আপনি কে? আপনি কি পারেন, আর না পারেন, তা ঠিক করে দেওয়ার অন্য কারো কোন অধিকার নেই।

তাই বলবো, “লক্ষ রাখো ঠিক, মনে রেখো তুমি পারবে, বুকে রাখো সাহস, প্রত্যয়, পরাজয় ঠিক ই হার মানবে”।