পৃথিবী ধ্বংসের কিছু ভবিষ্যৎ বাণী

Now Reading
পৃথিবী ধ্বংসের কিছু ভবিষ্যৎ বাণী

পৃথিবী ধ্বংসের অনেক ভবিষ্যৎ বাণী রয়েছে।তবে এই বাণী গুলো আমি করিনি। বিভিন্ন বিজ্ঞানী বিভিন্ন মতবাদ দিয়েছেন। আমরা সবাই জানি যে এক না এক দিন আমাদের এই পৃথিবী ধ্বংস হবেই। বিভিন্ন ধর্ম গ্রন্থে পৃথিবী ধ্বংসের বেপারে বিভিন্ন মতবাদও রয়েছে।

বিজ্ঞানীদের ভবিষ্যৎ বাণীর মধ্যে অনেক গুলো মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে।অর্থ্যাৎ সেই সময় পেরিয়ে গেছে। আরো কিছু সময় এগিয়ে আসছে।

লিওনার্দো দ্যা ভেঞ্চি>> তার মতে ৪০০৬ সালে এমন এক সময় আসবে, যখন সারা পৃথিবী সমুদ্রের তলদেশে তলিয়ে যাবে।তিনি উল্লেখ করেছেন পৃথিবী ধ্বংসের শুরুটা হবে ৪০০৬ সালের ২১ শে মার্চে। সমুদ্র থেকে উঠে আসা এক ঢেউ থেকে পৃথিবী তলিয়ে যাওয়া শুরু করবে।এবং আর ১ নবেম্বর ৪০০৬ সালে সমগ্র পৃথিবী জলে তলিয়ে যাবে।তার মতে এই ভাবেই হবে পৃথিবীর শেষ। তিনি আরো বলেছেন ধবংসের পরে আবার প্রানের আবির্ভাব ঘটবে এই পৃথিবীতে।

মায়ান সভ্যতা>> তাদের মতে ২১ শে ডিসেম্বর ২০১২ সালে পৃথিবী ধ্বংস হবে বলে বলা হয়েছিল। অধিকাংশ মানুষই এই ভবিষ্যৎ বাণী সত্য মনে কিরে ফেলেছিল। এই ভবিষ্যৎ বাণীটি করা হয়েছিল তাদের দিন পঞ্জিকা অনুসারে।তাদের দিন পঞ্জিকায় এই তারিখের পরে আর কোনো তারিখ ছিলো না।তাদের মনে এই ভবিষ্যৎ বাণীটি করা হয়েছিল প্রায় আরো ১০০০ বছর আগে।কিন্তু এই ভবিষ্যৎ বাণীটি মিথ্যা প্রমাণিত হয়। তাদের অনুযায়ি পৃথিবীর বয়স ৫১২৬ বছর।

বাবা ভানগা>> তার করা অধিকাংশই ভবিষ্যৎ বাণী সফল হয়েছে। তবে যেমন সফল হয়েছে তেমন বিফল ও হয়েছে।  তিনিও পৃথিবী ধ্বংসের কিছু ভবিষ্যৎ বাণী করেছেন। তিনি বলেছেন ৫০৮৯ সালে এই পৃথিবী ধ্বংস  হয়ে যাবে। তবে তিনি এই ভবিষ্যৎ বাণীটি সরাসরি কিরেননি। তিনি বলেছেন মানুষ পরবর্তি ১০০ বছরের মধ্যে অপ্রাকৃতিক সূর্য বানিয়ে নিবেন। ২১১১ সালে মানুষ রোবট এর মতো বসবাস কিরবে।  ২১৬৭ সালে একটি নতুন জাতি সৃষ্টি হবে। ২১৯৬ সালে এশিয়া এবং ইউরোপ এক হয়ে যাবে। ২২৭১ সালে পদার্থের সূত্র গুলো উল্টা হয়ে যাবে। তার ঠিক ১৫০ বছরের মধ্যে মানুষ অন্য দুনিয়ার সাথে যোগাযোগ করবে। ৩০০৫ সালে মঙ্গল গ্রহে হবে সবচেয়ে বড় যুদ্ধ। আর ৩৮০৫ সালে আরো একটি যুদ্ধ হবে। যার ফলে প্রায় অর্ধেক মানুষের মৃত্যু হয়ে যাবে।তার পর থেকে মানুষ সরাসরি আল্লাহ এর সাথে কথা বলতে পারবে। ৪৫৯৯ সালে অর্জন করবে আমৃত্যু। ৪৬৭৬ সালে প্রায় সব গ্রহ মিলিয়ে ৩৪০ বিলিয়ন মানুষ বসবাস কিরবে। মানুষ আর এলিয়েন এক সাথে বসবাস বিস্তার করবে। তারপর  ৫০৭৯ সালে আর কিছুই থাকবে না এই পৃথিবীতে। তার মতে এই ভাবেই হবে পৃথিবীর শেষ। তবে তার এই ভবিষ্যৎ বাণীর উপর বিশ্বাস করার কোনো কারন নেই।তার অনেক ভবিষ্যৎ বাণী ভূলও হয়েছে।

আইজ্যাক নিউটন >> আমরা সবাই জানি তিনি একজন অন্যতম বিখ্যাত বিজ্ঞানি ছিলেন।তবে তিনি শুধু ভৌত বিজ্ঞানের সূত্রই আবিষ্কার করেননি। তিনি তার চিন্তা শক্তকে কাজে লাগিয়ে পৃথিবী শেষ তারিখটিও খুঁজতে চেষ্টা কিরতেন। তিনি বাইবেল পরতে পরতে সেই দিনের কথা বলেন।তার মতে ২০৬০ সাল থেকে এই পৃথিবী ধ্বংস হতে শুরু কিরবে। তবে তার এই ভবিষ্যৎ বাণীটি সম্পূর্ণ ধর্মিয় অনুযায়ী করা হয়েছে।

স্টিফান হপকিন্স>> তার মতে পৃথিবীর কাছে আর মাত্র ১০০০ বছর আছে। ওক্সফোর্ড এ দেওয়া তার একটি বক্তব্যে তিনি বলেন আগামী ১০০০ বছরের মধ্যে পৃথিবী ধ্বংস নিশ্চিত। তার মতে আজকের পৃথিবী এতটা শক্তিশালী নয় যে তা সব ধরণের বিপর্যয় এরিয়ে যেতে পারবে। আজ হয়তো পৃথিবী পারমাণবিক হামলার মতো বিপর্যয়কে প্রতিরোধ করতে পারি।কিন্তু সব বার যে আমরা ভাগ্যবান হব তা নয়। তিনি বলেছেন পৃথিবীকে এই রকমই একটি গ্রহের অনুসন্ধান কিরতে হবে।এবং ওই জায়গায় বসবাস শুরু কিরতে হবে নিজেকে বাচানোর জন্য।

এই বিষয় গুলোর উপর ভরশা করা উচিত হবে না। আমি শুধু বিখ্যাত বিখ্যাত ব্যক্তিদের মতবাদ তুলে ধরেছি। এই বিষয় গুলো আমার বিভিন্ন জায়গা থেকে অনুসন্ধান করা।