মিশরের ঐতিহ্য, সাজসজ্জা এবং সৌন্দর্য

Now Reading
মিশরের ঐতিহ্য, সাজসজ্জা এবং সৌন্দর্য

মিশরের সৌন্দর্য এবং ঐতিহ্য :-

মিশর প্রাচীন সভ্যতার দেশ। বিশ্বের সমুন্নত ইতিহাস ঐতিহ্যের অন্যতম দেশ মিশর। যুগ যুগ ধরে মিশর ভিন্ন রকম রহস্যের শোভা ছড়াচ্ছে। যার প্রতি মানুষ সবসময়ই আকৃষ্ট। বিশ্ববাসীর মিশর সম্পর্কে কৌতুহল এবং আগ্রহের শেষ নেই। বর্তমান বিশ্বের মানুষ আরো বেশী কৌতুহলী এবং আকর্ষিত মিশরীয় অপরুপ সুন্দরী রাণীদের নিয়ে, তাদের অসাধারণ রুপ সৌন্দর্য এবং জীবনযাপন নিয়ে। ক্লিওপেট্রা থেকে শুরু করে নেফারতিতি, হাটেম্পশুট, কিংবা প্রথম রাজবংশীয় রাণী মারনেইথ- এরা সবাই বিশ্বের অগণিত মানুষের আগ্রহ আর আকর্ষণের শীর্ষে থেকেছেন আজ অবদি।

সব আকর্ষণীয় রাণীদের সৌন্দর্য চর্চা ও তাদের ব্যবহৃত বিভিন্ন শিল্পকর্ম নিয়ে ব্রিটিশ দাতব্য প্রতিষ্ঠান চ্যারিটেবল ট্রাস্ট চলতি বছর আয়োজন করে বেয়ন্ড বিউটি নামের এক শিল্প প্রদর্শনী। সেন্ট্রাল লন্ডনের টু টেম্পল পেলেসে আয়োজন করা হয় ওই অনুষ্ঠান। এখানে প্রকাশ পায় প্রাচীন মিশরীয় রাণীদের সৌন্দর্য সচেতনতা, আভিজাত্য এবং তাদের বিলাসবহুল জীবনযাত্রা সম্পর্কে।

৩৫০টির বেশি শিল্পকর্ম প্রদর্শন করা হয় এখানে। যাতে দেখানো হয়, প্রাচীন মিশরীয়দের সাজসজ্জার কাজে ব্যবহৃত বিভিন্ন সামগ্রী। আজকের দিনে যাকে আমরা বলি ‘বিউটি প্রোডাক্ট’ বা সৌন্দর্য পণ্য। তৎকালীন সময়ে মিশরের এসব রাণীদের দ্বারা প্রভাবিত সাধারণ নারীরাও রাণীদের অনুসরণ করে ব্যবহার করতেন বিভিন্ন প্রসাধনী।

মিশরীয় রাণীদের ব্যবহৃত সামগ্রীর মধ্যে চিরুনি, তামা বা রুপার তৈরি আয়না, পাললিক শিলা থেকে তৈরি চিত্র অঙ্কনের কাজে ব্যবহৃত প্যালেট, সাজসজ্জার বিভিন্ন বস্তু এবং সুগন্ধি সংরক্ষণের পাত্রসহ সৌন্দর্য চর্চার অনেক বস্তুই প্রদর্শন  করা হয় লন্ডনের অনুষ্ঠানে।

সে সময়ের নারী এবং পুরুষ- উভয়েই সৌন্দর্যের ব্যাপারে ছিলেন অত্যন্ত সচেতন। সাজসজ্জা এবং ব্যবহারিক উদ্দেশ্যে পরচুলা ব্যবহার করত প্রাচীন মিশরীয়রা। মৃত্যুর পরেও মৃতদেহের সৌন্দর্যের ব্যাপারে সচেতন থাকতেন মিশরবাসী। মৃতদেহগুলোর ত্বকের স্নিগ্ধতা, শান্ত চেহারা, তাদের চোখে লাগানো সুরমা, তাদের মমি করা লাশের ওপরে লাগানো মুখোশ এবং কাঠের কফিন দেখেই বোঝা যায় তাদের সৌন্দর্য সচেতনতা সম্পর্কে। আধুনিক নৃবিজ্ঞানীরা জানান, প্রাচীন মিশরীয়দের সৌন্দর্য সামগ্রী ব্যবহারের সর্বব্যাপিতা দেখলে চোখে ধাঁধা লেগে যায়। প্রাচীন ‍মিশরীয়রা তাদের বাহ্যিক সৌন্দর্য বর্ধনে আজকের দিনের মানুষের চেয়েও অনেক বেশি বুঁদ হয়ে থাকতেন। এমনকি সৌন্দর্য পরিমাপের জন্য তাদের ছিল বিশেষ মানদণ্ড। সেসব নিয়ে ভাবতে গেলে আমাদের আত্মভোলা হয়ে যাওয়ার ঝুঁকি আছে! আজকের দিনের যেকোনো ধরনের প্রসাধনীর চেয়ে উন্নত মানের প্রসাধনী ব্যবহার করতেন মিশরের রাণীরা।

নিজেদের আবেদনময়ী করার ব্যাপারে খুবই সচেতন ছিলেন তারা। আজকের দিনের নারীরা নিজেদের চোখকে আকর্ষণীয় (স্মোকি আই) করার জন্য যে রকম সাজসজ্জা করে, প্রাচীন মিশরীয় রাণীরাও নিজেদের চোখকে আকর্ষণীয় করতে সুরমা ব্যবহার করতেন। সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা যায়, চোখের চারপাশে ব্যবহৃত ভারী সুরমা তাদের চোখকে সূর্যের তীব্রতা থেকেও রক্ষা করতো। অর্থাৎ, সৌন্দর্য বর্ধন ছাড়া ব্যবহারিক কারণেও চোখে সুরমা ব্যবহার করতেন মিশরিয়রা।

শুধু সুরমা নয়, সব সৌন্দর্য সামগ্রী ব্যবহারের পেছনেই একটি ব্যবহারিক উদ্দেশ্য থাকতো তাদের। তাদের ব্যবহৃত মণি মুক্তাগুলোও ছিল শক্তি ও ধর্মীয় তাৎপর্যের প্রতীক। আবেদনময়ী ভঙ্গিতে থাকা মাটির একটি নারীমূর্তি থেকে বোঝা যায় গায়ে উল্কি আঁকতো প্রাচীন মিশরের নারীরা। নিজের সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্যই এ ধরনের উল্কি আঁকতেন তারা।

 

জগৎবিখ্যাত পরমাসুন্দরী মিশরীয় দুই রাণী:-

 

প্রাচীন মিশরীয় সুন্দরীদের দুই বিখ্যাত রাণী ক্লিওপেট্রা এবং নেফারতিতি। এদেরকে বলা হয় ‘কুইন অব নীল’ বা নীল নদের রানী। আদিকাল থেকে আজ পর্যন্ত রাণী ক্লিওপেট্রা হয়ে আছেন ‘সুন্দরীদের আদর্শ’।

১৯১২ সালে রাণী নেফারতিতির একটি চিত্রকর্ম আবিষ্কৃত হওয়ার পর সৌন্দর্যের দিক দিয়ে এটি ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে। বর্তমানে জার্মানির রাজধানী বার্লিনের একটি জাদুঘরে সংরক্ষিত আছে ওই চিত্রকর্ম। ধারণা করা হয়, ফারাও আখেনাতেনের স্ত্রী ছিল নেফারতিতি।

ক্লিওপেট্রার জীবনীকার এবং নেফারতিতির ওপর একটি গবেষণামূলক বইয়ের লেখক জয়সি টিলডেলস্লে জানান, প্রাচীন মিশরের ওই দুই রাণীকেই বর্তমানে আবেদনময়তার প্রতীক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ক্লিওপেট্রার চিত্র প্রমাণ করে, প্রাচীন মিশরের সব রাণীই ছিলেন অনন্য সুন্দরী। তবে ক্লিওপেট্রা ছিলেন এদের চেয়ে ব্যতিক্রম।

নেফারতিতি সম্পর্কে টিলডেলস্লে মনে করেন, তার বক্ষটি আর পাঁচটি মিশরীয় শিল্পকর্মের মতো নয়। এটা সম্পূর্ণ আলাদা। আর এ কারণে ১৯২৩ সালে যখন নেফারতিতির মূর্তিটি জার্মানিতে উন্মুক্ত করা হয়, তখন এটি হৈ চৈ ফেলে দেয়। নেফারতিতির বক্ষের সৌন্দর্যের কারণে বিশ শতকে গণমাধ্যমগুলোতে তিনি একজন তারকায় পরিণত হন।

 

ক্লিওপেট্রা:

প্রাচীন মিশরীয় টলেমিক বংশের এক কিংবদন্তি ছিলেন ক্লিওপেট্রা। দ্বিধা-দ্বন্দ্বে ভুগতে হয় ক্লিওপেট্রার অসাধারণ রুপ সৌন্দর্য নিয়ে আসলে কি সে? মানবী নাকি দেবী? তাঁকে নিয়ে ইতিহাস লিখতে গিয়ে কল্পনা বিলাসিতাও করেছেন অনেকেই। তাঁর জীবন ছিল বৈচিত্র্যময়, বিলাসিতাপূর্ণ এবং মৃত্যু রহস্যে ঘেরা।

তাঁর জীবনীকাররা বলেন, ক্লিওপেট্রা ছিলেন নজরকাড়া  সুন্দরী। তাঁর ঠোঁট ছিল গোলাপের পাঁপড়ির ন্যায়,নাক ছিল সুউন্নত,আর চোখজোড়া ছিল অত্যন্ত মায়াময়। তাঁর কণ্ঠস্বর ছিল বীণার তারের ধ্বনির মতন।জীবনীকাররা আরও বলেন,স্বর্গের দেবতা প্লেটোর ছিল মাত্র চারধরণের তোষামোদকারী কিন্তু ক্লিওপেট্রার ছিল হাজারো ধরণের তোষামোদকারী। ক্লিওপেট্রা বিলাসবহুল জীবন যাপন করতেন। সেটা তাঁর চিত্রকর্ম এবং জীবনী পর্যালোচনা করলে প্রমাণ পাওয়া যায়।

 

নেফারতিতি:

বিভিন্ন কবি সাহিত্যিকেরা অধিকাংশ সময়েই নারীকে রহস্যময়ী বা ছলনাময়ী হিসেবে অভিহিত করে থাকেন।  তেমনি কিছু কিছু নারীর বিভিন্ন কর্মকান্ড, জীবনযাপন যেন তাদেরকে আরো বেশি রহস্যময় করে তোলে। পৃথিবীর বাঘা বাঘা সব ঈজিপ্টোলজিস্টদের ঘুম হারাম করা এমনি এক রহস্যময়ী রমণী হলেন নেফারতিতি।

তাঁর পুরো নাম নেফার নেফারুআতেন নেফারতিতি। ইতিহাসের ভাষ্যমতে, তিনি ইতিহাসের এমনি এক রহস্যময়ী সুন্দরী এবং ব্যক্তিত্বসম্পন্ন রমণী যে এর আগে তাঁর মত সুন্দরীর আগমন মিশরে ঘটেনি। নেফারতিতি শব্দের অর্থ হলো “সবচেয়ে সুন্দর ব্যাক্তির আগমন” ইংরেজিতে “The beautiful one has come” তাঁর আগমন থেকে শুরু করে প্রস্থান পর্যন্ত সম্পূর্ণ জীবনটাই রহস্যময়তার আচ্ছাদনে ঢাকা। মিশরীয় ইতিহাসে তাঁকে বলা হয় “Most important queen in the History of Egypt.”

মিশরীয় সভ্যতা ও অনিন্দ্য সুন্দরী [রয়েল ব্লাড আর অপরূপা ছিল বলে আজও তাঁর এত অহংবোধ!] পৃথিবীর সবচেয়ে রহস্যময় সভ্যতা হচ্ছে মিশরীয় সভ্যতা। আর সেই রহস্যঘেরা সভ্যতার সবচেয়ে সুন্দরী রাণী মনে করা হয় নেফারতিতিকে। বলা হয় জগদ্বিখ্যাত ক্লিওপেট্রার চেয়েও সুন্দরী ছিলেন তিনি। আখেনাতেনের সঙ্গে নেফারতিতির প্রেম, তার সমাজ ও ধর্ম সংস্কার সর্বোপরি তার সৌন্দর্য এখনো অনেক রহস্যের কারণ। মিশর তো বটেই, গোটা পৃথিবীর সর্বকালের সেরা সুন্দরীদের একজন মানা হয় নেফারতিতিকে। আর মিশরীয় সভ্যতার ‘সিগনেচার’ বা চিহ্ন হিসেবে পিরামিড আর মমির পাশাপাশি সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয় এই সুন্দরীর আবক্ষমূর্তির ছবি বা প্রতিলিপি। এই ফারাও সম্রাজ্ঞীর প্রহলিকাময় আবক্ষমূর্তিটি সারাবিশ্বে প্রচণ্ড জনপ্রিয় এবং আগ্রহের বিষয়। মিশরের ফারাও সম্রাজ্ঞীদের মধ্যে এমনকি তখনকার মিশরবাসীদের মধ্যেও তাঁর রূপ ছিল কিংবদন্তির মত।

তথ্যসুত্র : অনলাইন